সংবাদ শিরোনাম
সীমিত আকারে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কার্যালয় খোলার নির্দেশনা | করোনায় দেশে পারিবারিক আয় কমেছে ৭৪ শতাংশ, চাকরি হারিয়েছেন ১৪ লাখ প্রবাসী | ‘যে ওষুধ সাধারণদের কেনার সামর্থ্য নেই, সেই ওষুধ দিয়ে চিকিৎসা করব না’ | প্রতিবন্ধী বাবার প্রতিবন্ধী মেয়ে জাহানারা পেলেন জিপিএ-৫ | তানোরে এবার ঢাকা ফেরত দম্পতি করোনায় আক্রান্ত | নওগাঁয় করোনায় আক্রান্ত হয়ে কাপড় ব্যবসায়ীর মৃত্যু | চট্টগ্রামে ৬২১ নমুনা পরীক্ষায় ২০৮ জনের করোনা পজিটিভ | লালমনিরহাটে দুর্গম চরাঞ্চলে গিয়ে বাল্যবিয়ে বন্ধ করলেন এসিল্যান্ড | করোনা আক্রান্ত মোহাম্মদ নাসিমকে আইসিইউতে স্থানান্তর | ভূঞাপুরে বিল সাঁতরে কৃষকের স্বপ্নের ধান বাড়িতে পৌঁছে দিলো ছাত্রলীগ |
  • আজ ১৯শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

উপকূল অতিক্রম শুরু করছে ঘূর্ণিঝড় আম্ফান

৭:৪৪ অপরাহ্ণ | বুধবার, মে ২০, ২০২০ স্পট লাইট
aaam

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ উপকূল অতিক্রম শুরু করেছে ঘূর্ণিঝড় আম্ফান। খুলনা, সাতক্ষীরা, মোংলা ও সুন্দরবনের একাংশ দিয়ে এটি বাংলাদেশে ঢুকছে। বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গের সাগরদ্বীপের ওপর আম্ফানের চোখ রয়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর।

বুধবার (২০ মে) রাত ৮টার মধ্যে পশ্চিমবঙ্গের সাগরদ্বীপের পূর্ব পাশ দিয়ে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্য দিয়ে দুই দেশের উপকূল অতিক্রম করবে। ইতোমধ্যে ঝড়ের প্রভাবে উপকূলীয় জেলাগুলোতে ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি শুরু হয়েছে। রাজধানীসহ দেশের অন্যান্য অংশেও ঝড়-বৃষ্টি শুরু হয়েছে।

ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৮৫ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ১৮০ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়া আকারে ২০০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঘূর্ণিঝড় অতিক্রমকালে এই এলাকাগুলোতে ঘণ্টায় ১৪০ থেকে ১৬০ কিলোমিটার গতিতে বাতাস প্রবাহিত হতে পারে।

আম্ফানের প্রভাবে চার সমুদ্রবন্দর ও তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ এবং চরসমূহ বিশেষ করে পায়রা ও মোংলার কাছাকাছি দ্বীপ ও নিম্নাঞ্চলগুলোয় স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ১০ থেকে ১৫ ফুট অধিক উচ্চতায় প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। ঘূর্ণিঝড় অতিক্রমের সময় এসব এলাকায় ও অদূরবর্তী দ্বীপ এবং চরসমূহে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টিরও আশঙ্কা রয়েছে।

আবহাওয়া অফিস বলছে, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত এবং কক্সবাজার ও চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরকে ৯ নম্বর মহাবিপদ সংকেত দেখানো হয়েছে। চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরগুলো কাছাকাছি অনেকেই অবস্থান করছেন। তাদের বলব, এখনও সময় আছে আপনারা নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যান। তা নাহলে বিপদে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

জেলেদের জন্য সতর্কতায় বলা হয়, উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে অতিসত্ত্বর নিরাপদ আশ্রয়ে যেতে বলা হয়েছে এবং পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে।

ভারতের আলিপুর আবহাওয়া অধিদফতর জানায়, সুপার সাইক্লোনিক স্টর্ম থেকে আম্ফান এখন এক্সট্রিমলি সিভিয়র সাইক্লোনিক স্টর্ম এ পরিণত হয়েছে। কিছুটা শক্তি হারালেও এখন অতি মারাত্মক চেহারা নিয়েই দিঘা থেকে বাংলাদেশের হাতিয়া দ্বীপের মধ্যবর্তী কোনও অঞ্চলে আজ সন্ধ্যার মধ্যে আছড়ে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

ধারনা করা হচ্ছে, সাগরদ্বীপ হয়ে সুন্দরবনে আছড়ে পড়তে পারে আম্ফান।