‘করোনাকালে বিবর্ণ ঈদ উৎসব’

৫:০২ অপরাহ্ণ | রবিবার, মে ২৪, ২০২০ ফিচার
eiddddd

ফরহাদ আকন্দ, নিজস্ব প্রতিবেদক: করোনা আতঙ্কের মধ্যেই আজ পৃথিবীর মুসলিম উম্মার ঘরে ঈদ এসেছে। মধ্যপ্রাচ্যের অনেক দেশেই আজ রবিবার (২৪ মে) ঈদ উৎযাপিত হচ্ছে। আগামীকাল সোমবার (২৫ মে) বাংলাদেশে ঈদ উৎযাপিত হবে।

এই ঈদের দিন মুসলিম উম্মাহ ঘরে থাকতো কতো আয়োজন, সকাল থেকে গোসল করা, সেমাই-ফিরনিতে মিষ্টিমুখ করা, নতুন পাঞ্জাবি-পাজামা পরে ঈদের নামাজ আদায়, নামাজ শেষে কোলাকুলি, খাবারের তালিকা করা, পরিবার, বন্ধুদের সাথে ঘুরতে যাওয়াসহ আরো কতো আনন্দ-উল্লাস, পাড়া-প্রতিবেশীদের খোঁজখবর নেয়া এসব কিছুতে যে কত শান্তি সুখ আর আনন্দ তা আমরা সকলেই জানি।

অনাবিল এই আনন্দের জন্যই ঈদের আগে মানুষ নাড়ির টানে গ্রামের বাড়িতে ফেরেন। কিন্তু সেই চিরাচরিত নিয়ম এ বছর ভিন্নরূপে আগমন ঘটেছে। বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাসের প্রভাবে আজ অবরুদ্ধ পুরো পৃথিবী। এবার নাড়ির টানে ঘরে ফিরতে পারেনি আমাদের ভাই-বোন, বন্ধু ও প্রিয়জনরা। ভাই বোনকে সাথে নিয়ে মার্কেট থেকে পছন্দের জামাটা কিনে দিতে পারেনি,স্বামী দিতে পারেনি তার স্ত্রী কে, সন্তান দিতে পারেনি মা’কে। পৃথিবীজুড়ে চলছে বন্দিদশা এর বাহিরে আমরা নই। আমাদের দেশে প্রতিনিয়ত বাড়ছে মৃত্যু। বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা, আতঙ্ক বিরাজ করছে সর্বত্র।

এ আতঙ্কের মধ্যে পূর্বের ঈদ উৎসবের সঙ্গে এ বছরের প্রেক্ষাপট সম্পূর্ণ আলাদা। সব মানুষের পরিকল্পনা আজ ঘরবন্দী। গত ০৮ মার্চ থেকে বাংলাদেশ অতি ক্ষুদ্র এক অনুজীবের বিরুদ্ধে প্রাণপণ লড়াই করে চলেছে। করোনা ভাইরাস নামের অদৃশ্য এ শত্রু এসে দেশটাকে নীরব-নিথর করে দিয়েছে। প্রতিবছর মুসলিম উম্মাহ অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় থাকে এই ঈদের জন্য। অপ্রত্যাশিত ঈদের খুশি, আমেজ, আনন্দ সবকিছুকে একটি ক্ষুদ্র অনুজীব এসে মুসলিম উম্মাহর সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসবকেও মাটি করে দিচ্ছে।

দেশব্যাপী সংকটময় মুহূর্তে এবারের ঈদ একটু ভিন্নভাবে পালন করতে হবে। এখন আমরা যে পরিস্থিতিতে আছি আমাদের সকলের উচিত সতর্কতা থাকা। এবারের ঈদটা জাঁকজমকপূর্ণ ভাবে পালন করার প্রয়োজন নেই। প্রতিবারের মতো আমাদের কোলাকুলি করা হবেনা, হাত-মেলানো হবে না বন্ধুদের সাথে ট্যুরে যাওয়া বা ঘোরার কোনো পরিকল্পনাও আমরা করবোনা। আমরা পরিবার, প্রিয়জনদের সুরক্ষার কথা ভেবেই ঈদের অনুভূতিগুলো বাড়িতে থেকেই ভাগ করে নিব।

সকলকে খেয়াল রাখতে হবে আমরা খুব দুঃসময় পার করছি। এখন আমরা ঘরে নিরাপদ তাই অন্য বারের মতো আনন্দের সাথে ঈদ পালন করতে না পারলেও সকলের সুস্থতা কামনা করে সাধারণ ভাবেই ঈদ পালন করবো। প্রত্যাশা করি শীঘ্রই সুস্থ হবে পৃথিবী, কেটে যাবে বিবর্ণ সময়, ঘুচে যাবে বন্দীদশা, তখন না হয় আমরা আবার আনন্দ করে আগামী ঈদ উৎযাপন করবো।