দুই মাস পর খুলে দেওয়া হলো সৌদির সব মসজিদ

৮:৪৯ অপরাহ্ণ | রবিবার, মে ৩১, ২০২০ ইসলাম
mosque-Saudi

ইসলাম ডেস্কঃ মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়া নতুন করোনাভাইরাসের সংক্রমণের বিস্তার রোধে দেয়া বিধিনিষেধ শিথিল করে দুই মাসেরও বেশি সময় পর সৌদি আরবের মসজিদগুলো খুলে দেয়া হয়েছে। রোববার থেকে দেশটিতে মসজিদের দ্বার নামাজ পড়ুয়াদের জন্য ফের উন্মুক্ত হয়েছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

তবে নামাজ আদায়ের অনুমতি দেয়া হলেও মুসল্লিদের মেনে চলতে হবে কঠোর নিয়ম-কানুন। মসজিদে যেতে হবে মাস্ক পরে। অন্যথায়, শিকার হতে হবে জরিমানার। এছাড়া, মুসল্লিদের ব্যক্তিগত জায়নামাজ নিতে হবে। একে অপর থেকে দুই মিটার দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। একে অপরের সঙ্গে হ্যান্ডশেক বা হাত মেলানো যাবে না।

আরব নিউজের খবরে বলা হয়, রবিবার উচ্ছ্বসিত হয়ে মসজিদে নামাজ আদায় করেছেন সৌদির মুসুল্লিরা। রাজধানী রিয়াদের আল রাঝি মসজিদের মুয়াজ্জ্বিন আব্দুল মাজিদ আল মোহাইসেন বলেন, ‘ফের সৃষ্টিকর্তার করুণা অনুভব করতে পেরে অত্যন্ত ভালো লাগছে। মানুষজনকে তাদের বাড়ির বদলে মসজিদে এসে নামাজ আদায়ের ডাক দিতে পেরে ভালো লাগছে।’

মসজিদগুলোকে নামাজ আদায়ের জন্য নিরাপদ করে তুলতে পরিষ্কার ও জীবাণুমুক্ত করা হয়েছে। দরজা জানালা খোলার ব্যাপারেও সতর্কতা অবলম্বন করতে বলা হয়েছে। স্থানীয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, নামাজ আদায়ের ১৫ মিনিট আগে মসজিদ খুলে দেয়া হবে ও নামাজ শেষের ১০ মিনিট পর ফের বন্ধ করে দেয়া হবে। শুক্রবার জুম্মার নামাজ আদায়ের ক্ষেত্রে ২০ মিনিট আগে মসজিদ খুলে দেয়া হবে। তবে কোনোমতেই জুম্মার নামাজ আদায়ে ১৫ মিনিটের বেশি সময় যেন না লাগে সেদিকে খেয়াল রাখতে বলা হয়েছে।

সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা এসপিএ মসজিদে মুসল্লিদের নামাজ আদায়ের বেশি কিছু ছবি প্রকাশ করেছে। এতে দেখা গেছে, ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকানোর জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়া সাপেক্ষে মুসল্লিরা মসজিদে নামাজ আদায় করছেন।

তবে সব মসজিদ খুলে দেওয়া হলেও হজ এবং ওমরাহ এখনও বন্ধই থাকছে। প্রায় ৩ কোটি বাসিন্দার দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ৮৩ হাজারের বেশি মানুষ এবং মারা গেছে ৪৮০ জন।

এদিকে, ২ মাস পর জেরু জালেমের আল আকসা মসজিদও আজ খুলে দেওয়া হয়েছে। মক্কা-মদীনার দুই পবিত্র মসজিদের পর মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের কাছে তৃতীয় পবিত্র স্থান আল আকসা মসজিদ।

করোনার কারণে ২ মাসেরও বেশি সময় ধরে বন্ধ ছিল আল আকসা মসজিদ। এমনকি সেখানে ঈদের নামাজ আদায়েরও অনুমতি দেওয়া হয়নি। মুসল্লিদের পাশাপাশি পর্যটকরাও আল আকসা মসজিদে প্রবেশের অনুমতি পেয়েছেন। তবে এক্ষেত্রে কিছু স্বাস্থ্য সতর্কতা জারি করেছে কর্তৃপক্ষ।