সংবাদ শিরোনাম
অপু-মামুনের আইডি ব্যান করলো লাইকি | বিশ্বে গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ আক্রান্ত-মৃত্যু ভারতে | নোয়াখালীতে সুদের টাকার জন্য ব্যবসায়ীকে হত্যার অভিযোগ, লাশ নিয়ে বিক্ষোভ | প্রধানমন্ত্রীকে খুশি করতে সরকারের লোকজন বলছেন করোনা নিয়ন্ত্রণে: রিজভী | ‘গণমানুষের আস্থা ও ভালোবাসার রাজনৈতিক শক্তি হচ্ছে জাতীয় পার্টি’- জি এম কাদের | ‘বিএনপি সমালোচনা আর মিথ্যাচারের বৃত্তে আবর্তিত হচ্ছে’- কাদের | পুলিশের গুলিতে নিহত সিনহা রাশেদের মাকে প্রধানমন্ত্রীর ফোন | চীনের ভ্যাকসিনের ফল সন্তোষজনক হলে স্বাস্থ্যকর্মীদের ওপর প্রয়োগ: স্বাস্থ্য সচিব | শিশুদের মসজিদে যাওয়ার নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করলো উজবেকিস্তান | মানিকগঞ্জে বন্যা দূর্গত এলাকায় নৌবাহিনীর খাদ্য ও চিকিৎসা সহায়তা প্রদান |
  • আজ ২০শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

‘রেড জোন’ ওয়ারী লকডাউন

৯:৫৩ পূর্বাহ্ণ | শনিবার, জুলাই ৪, ২০২০ স্পট লাইট

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- করোনার বিস্তারে ‘রেড জোন’ হিসেবে চিহ্নিত পুরান ঢাকার ওয়ারী লকডাউন করা হয়েছে। ফলে এ এলাকার বাসিন্দারা টানা ২১ দিন ‘ঘরবন্দি’ জীবন কাটাবেন।

শনিবার (৪ জুলাই) ভোর ৬টা থেকে শুরু হয়েছে ‘লকডাউন’। এ সময়ে সেখানে স্বাভাবিক জীবনযাপনে থাকবে কড়াকড়ি, যা চলবে ২৫ জুলাই পর্যন্ত।

যেসব জায়গা লকডাউনে থাকছে, সেগুলো হলো- ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৪১ নম্বর ওয়ার্ডের টিপু সুলতান রোড, জাহাঙ্গীর রোড, ঢাকা-সিলেট হাইওয়ে (জয়কালী মন্দির থেকে বলধা গার্ডেন) আউটার রোড ও ইনার রোড হিসেবে লারমিনি রোড, হরে রোড, ওয়ার রোড, র‌্যানকিন রোড এবং নওয়াব রোড।

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, এলাকাটির প্রত্যেকটি প্রবেশ মুখে বাঁশের বেড়া দিয়ে ঘিরে রাখা হয়েছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে জোরালো পদক্ষেপ। এলাকাটি ঘুরে এখন পর্যন্ত সাধারণ মানুষের যাতায়াত করতে দেখা যায়নি। পুলিশ সদস্যরা মনে করছেন বেলা বাড়ার সাথে সাথে সাধারণ মানুষ বের হওয়ার চেষ্টা করতে পারে। তবে তাদের শক্ত অবস্থানের জন্য তা সম্ভব হবে না বলেও মনে করছেন তারা।

এদিকে লকডাউন এলাকাটিতে সকাল থেকেই জরুরি খাদ্য সরবরাহের গাড়িগুলো প্রবেশ করতে দেখা গেছে। সেখানে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৪১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলহাজ্ব সারওয়ার হাসান আলোর নির্দেশক্রমে ২০০ জন স্বেচ্ছাসেবক কাজ করছেন।

এ বিষয়ে ওয়ারী থানার সাব-ইন্সপেক্টর মোঃ জহির হোসেন বলেন, জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কাউকে ঢুকতে বা বের হতে দেয়া হচ্ছে না। সাংবাদিক-পুলিশ, ডাক্তার-নার্স বের হতে বা প্রবেশ করতে পারছেন।

Skip to toolbar