ইরানে আবারও বাড়ছে করোনা সংক্রমণ, একদিনে মৃত্যুর রেকর্ড

১২:০৩ পূর্বাহ্ণ | সোমবার, জুলাই ৬, ২০২০ আন্তর্জাতিক
iran

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ইরানে আবারও বাড়তে শুরু করেছে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃত্যুর ঘটনাও। গত সোমবারই ১৬২ জনের মৃত্যুর রেকর্ড গড়েছিল দেশটি। রোববারের মৃত্যু ছাড়িয়ে গেছে সেটিও।

রোববার (৫ জুলাই) ইরানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় সেখানে করোনায় প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত ১৬৩ জন, যা এখন পর্যন্ত দেশটিতে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড। এ নিয়ে ইরানে করোনাভাইরাসে মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়াল ১১ হাজার ৫৭১ জনে।

আক্রান্তের দিক থেকে ইরানের অবস্থান ১১তম। তবে, ইরানে প্রথম ধাক্কা সামলে নেয়ার পর কিছুদিন নিয়ন্ত্রণেই ছিল করোনা সংক্রমণ। এর আগে, গেল সোমবার ১৬২ জনের মৃত্যুতে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড গড়েছিল দেশটি।

ইরানি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সিমা সাদাত লারি জানিয়েছেন, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে নতুন করে ২ হাজার ৫৬০ জনের শরীরে শনাক্ত হয়েছে নভেল করোনাভাইরাস। এ নিয়ে সেখানে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ লাখ ৪০ হাজার ৪৩৮ জনে। সুস্থ্য হয়েছেন ২ লাখ ১ হাজার ৩৩০ জন। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে ২৭ হাজার ৫৩৭ জন। এদের মধ্যে ৩ হাজার ১৬৮ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর মধ্যে করোনায় সবচেয়ে বেশি ভুগছে ইরান। গত ফেব্রুয়ারিতে সেখানে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়, এরপরই ব্যাপক হারে বাড়তে থাকে সংক্রমণ। দেখতে দেখতেই মৃত্যুপুরী হয়ে ওঠে দেশটি। কড়া লকডাউন দেয়ার পর মে মাসের দিকে ইরানে করোনার বিস্তার বেশ কমে যায়।

কিন্তু, গত কয়েকদিন ধরে সেখানে আবারও লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে জনম্মুখে মাস্ক পরা বাধ্যতা মূলক করেছে ইরান সরকার।

এদিকে কারফিউ তুলে নেয়ার পর সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে শুরু করেছে৷ উপসাগরীয় দেশগুলোর মধ্যে সৌদি আরবেই আক্রান্তের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি৷ শনাক্তের সংখ্যা দুই লাখ ছাড়িয়েছে৷ গত মাসে কারফিউ তুলে নেয়ার পর থেকেই সংক্রমণ বাড়তে শুরু করে৷

শনিবার পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় নতুন শনাক্তের সংখ্যা ছিল চার হাজার ১০০ জন, মোট শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে দুই লাখ পাঁচ হাজার ৯২৯ জন৷ মারা গেছে এক হাজার ৮৫৮ জন৷

সৌদির প্রতিবেশি আরব আমিরাতে শনিবার রোগীর সংখ্যা অর্ধ লাখ ছাড়িয়েছে৷ তবে সেই তুলনায় মৃত্যু হার কম, ৩২১ জন৷ সম্প্রতি এই দেশটিও কারফিউ তুলে নিয়েছে, বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানসহ জনসমাগমস্থলগুলো খুলে দেয়া হয়েছে৷

Skip to toolbar