সংবাদ শিরোনাম
‘মার্কিন ও ইসরাইলি পরমাণু অস্ত্র সবার জন্য হুমকি’- ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী | কক্সবাজারে এখন থেকে সেনা ও পুলিশের যৌথ টহল চলবে: আইএসপিআর | বৈরুতের বিস্ফোরণে প্রাণহানির ঘটনায় প্রধানমন্ত্রীর শোক | সিনহা হত্যা মামলাঃ প্রদীপসহ ৩ পুলিশ সদস্যের ৭ দিনের রিমান্ড | ২২ ঘণ্টা ঘিরে রাখার পর জানা গেল বস্তুটি বোমা নয়, টাইলস কাটার যন্ত্র | নন্দীগ্রামে দেশীয় অস্ত্রসহ ডাকাত দলের ৪ সদস্য গ্রেফতার | স্বাস্থ্যসুরক্ষা সামগ্রী কিনতে বাংলাদেশকে ৩০ লাখ ডলার দেবে এডিবি | শ্রীমঙ্গলে ৫ শতাধিক পথচারীকে মাস্ক দিলেন আব্দুস শহীদ এমপি | কোটালীপাড়ায় সুদখোরের চাপে ব্যবসায়ীর আত্মহত্যার চেষ্টা | ‘হোম অফিস’ বাতিল, স্বাস্থ্যবিধি মেনে অফিসে আসতে হবে সবাইকে |
  • আজ ২২শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সাহেদ আ.লীগের উপ-কমিটির সদস্য ছিল বলে জানা নেই: তথ্যমন্ত্রী

৬:০৭ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, জুলাই ৯, ২০২০ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- রিজেন্ট গ্রুপ ও রিজেন্ট হাসপাতাল লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. সাহেদের আওয়ামী লীগের একটি উপ-কমিটির সদস্য বলে পরিচয় দেয়া প্রসঙ্গে দলটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘সে আওয়ামী লীগের কোনো উপ-কমিটির সদস্য ছিল বলে আমার জানা নেই।’

আজ বৃহস্পতিবার (৯ জুলাই) সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সমসাময়িক বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘সে দাবি করছে, সে আওয়ামী লীগের কোনো একটা উপ-কমিটিতে ছিল। কিন্তু আমাদের দলীয় কার্যালয়ে তো আমি প্রতিদিন যাই। সে আওয়ামী লীগের কোনো উপ-কমিটির সদস্য ছিল বলে আমার জানা নেই।’

ড. হাছান মাহমুদ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এবং গণমাধ্যমকে তাদের ভূমিকার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ‘তার ব্যাপারে পত্র-পত্রিকায় যে অনুসন্ধানী রিপোর্টগুলো বেরিয়েছে, সেজন্য গণমাধ্যমকে ধন্যবাদ। এতে প্রমাণিত হয়, সে খুব সুচতুর একজন প্রতারক। এরকম আরো যারা প্রতারক আছে, তাদেরকে খুঁজে বের করা প্রয়োজন।’

রিজেন্ট হাসপাতালকে করোনা চিকিৎসায় সংযুক্ত করার ক্ষেত্রে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের আরো সতর্ক হওয়া প্রয়োজন ছিল বলে মনে করেন ড. হাছান মাহমুদ।

এসময় বিএনপি নেতা রুহুল কবীর রিজভী’র মন্তব্য ‘মানুষের মুখ বন্ধ রাখতে সরকার মামলা করছে’ এর জবাবে ড. হাছান বলেন, ‘সরকার কারো বিরুদ্ধে মামলা করেনি। সাম্প্রতিক সময়ে যে সমস্ত মামলা হয়েছে, সবগুলোই বিভিন্ন সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি করেছেন। বিএনপির নেতারা জনগণ এবং সরকার দু’টিই গুলিয়ে ফেলছেন। জনগণের কেউ যদি সংক্ষুব্ধ হন, দেশের প্রচলিত আইন অনুযায়ী তিনি তার সুরক্ষার জন্য যেকোনো আইনী পদক্ষেপ নেয়ার অধিকার রাখেন।’

Skip to toolbar