• আজ ৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

করোনা: ঢাকাসহ চার জেলায় পশুর হাট না বসানোর প্রস্তাব

৯:৫০ পূর্বাহ্ণ | শনিবার, জুলাই ১১, ২০২০ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে বিপর্যস্ত গোটা দেশ। করোনা সংক্রমণের এমন পরিস্থিতিতেই আসন্ন ঈদুল আজহা (কোরবানির ঈদ) উদযাপন করবে দেশবাসী। করোনার এমন সময়ে এ ঈদে কীভাবে পশুর হাট বসবে, তা নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করছে সরকার।

তবে করোনার ব্যাপক বিস্তার রোধে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর ও চট্টগ্রামে পশুর হাট না বসানোর পরামর্শ দিয়েছে কোভিড-১৯ প্রতিরোধ বিষয়ে গঠিত জাতীয় কমিটি। এসব এলাকায় অনলাইনে পশু কেনাবেচার পরামর্শ দেয়া হয়। তবে দেশের অন্যান্য স্থানে সংক্রমণ প্রতিরোধ নীতিমালা অনুযায়ী কোরবানির পশুর হাট বসানো যেতে পারে।

শুক্রবার কমিটির ১৪তম অনলাইন সভায় এই পরামর্শ দেয়া হয়। কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ শহিদুল্লা এবং সদস্য সচিব অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

কারিগরি কমিটি সদস্যরা বলেছেন, কোভিড-১৯ পরীক্ষার সংখ্যা ও মানোন্নয়নের জন্য পরীক্ষাগারের সংখ্যা বৃদ্ধির চেয়ে পরীক্ষাগারের সক্ষমতা বাড়ানো প্রয়োজন। অটো-এক্সট্র্যাকশন মেশিনের সহযোগিতায় পরীক্ষাগারে কোভিড-১৯ পরীক্ষার সংখ্যা বৃদ্ধি করা সম্ভব।

বিভিন্ন পর্যায় থেকে দক্ষ জনশক্তিকে পরীক্ষাগারে নিয়োগের জন্য সুপারিশ করেছে কমিটি। পরে কোনো স্থানে কোভিড-১৯ পরীক্ষার ক্ষেত্রে সমস্যা থাকলে সেসব স্থানকে ম্যাপিংয়ের মাধ্যমে শনাক্ত করে সমস্যা সমাধানের পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

পরামর্শক কমিটি বলেছে, কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ এখনও নিয়ন্ত্রণে আসেনি। এ অবস্থায় ঢাকাসহ বিভিন্ন এলাকায় অবাধ জীবনযাত্রায় উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়। জাতীয় পরামর্শক কমিটি ঢাকা ও তার আশপাশের এলাকায় কঠোর নিয়ন্ত্রণমূলক পদক্ষেপ নেয়ার পরামর্শ দেয়। ঈদুল আজহাতে যেন ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর ও চট্টগ্রামে পশুর হাট না বসে সেদিকে দৃষ্টি দেয়ার কথা বলা হয়। এ ক্ষেত্রে ডিজিটাল পদ্ধতিতে পশু কেনাবেচার ব্যবস্থা করা যেতে পারে।

কমিটি ওই চার জেলা ছাড়া অন্যান্য জায়গায় সংক্রমণ প্রতিরোধ নীতিমালা মেনে পশুর হাট বসানোর পরামর্শ দিয়েছে- ১. পশুর হাট শহরের অভ্যন্তরে স্থাপন না করা, ২. কোরবানি পশুর হাট খোলা ময়দানে হতে হবে, যেখানে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা এবং সংক্রমণ প্রতিরোধে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করা সম্ভব ৩. বয়স্ক ব্যক্তি (৫০ বয়সোর্ধ্ব) এবং অসুস্থ ব্যক্তি পশুর হাটে যাওয়া থেকে বিরত রাখা ৪. পশুর হাটে প্রবেশ ও বের হওয়ার জন্য পৃথক রাস্তার ব্যবস্থা ৫. পশুর হাটে আসা সবাইকে বাধ্যতামূলক মাস্ক পরা নিশ্চিত করা ৬. কোরবানি পশু জবাই বাড়িতে না করে নির্ধারিত স্থানে করা

এছাড়া কোভিড-১৯ সংক্রমণ বিস্তার প্রতিরোধ এর ঈদের ছুটির সময় ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর ও চট্টগ্রাম থেকে অন্যান্য স্থানে যাতায়াত বন্ধ রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়।

Skip to toolbar