সংবাদ শিরোনাম
জীবনসঙ্গিনী খুঁজে নিলেন চাহাল | এবার ১২০০ কোটি রুপি ব্যয়ে আকাশছোঁয়া ‘হনুমানের মূর্তি’ তৈরি হচ্ছে ভারতে | লাদাখ সীমান্তে উত্তেজনা বৃদ্ধি, আবারো চীনা সেনা মোতায়েনের দাবি ভারতের | হাজিদের পাথর নিক্ষেপে পদদলিত হয়ে মৃত্যু থামিয়ে ছিলেন এই বাংলাদেশি ইঞ্জিনিয়ার | লামায় ৯ বছরের শিশু ধর্ষিত, ধর্ষক আটক | পিরোজপুরে মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ের দুই ভুয়া কর্মকর্তা গ্রেপ্তার | বঙ্গমাতার জন্মদিন উপলক্ষে তানোরে সেলাই মেশিন বিতরণ | ‘করোনার চেয়েও বড় সংকট হয়তো সামনে আসছে’- বিল গেটস | সিফাতের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধনে পুলিশের লাঠিচার্জ | কাউখালীতে পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী ধর্ষণের চেষ্টা, লম্পট গ্রেফতার |
  • আজ ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ভারতে ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে করোনা, আবারও আক্রান্তের রেকর্ড

২:৫০ অপরাহ্ণ | শনিবার, জুলাই ১১, ২০২০ আন্তর্জাতিক
klkata

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ বিশ্বে করোনাভাইরাসে তৃতীয় সর্বোচ্চ আক্রান্ত দেশ ভারতে এক দিনে ২৭ হাজার ১১৪ জন করোনা আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে। দেশটিতে মহামারী শুরুর পর প্রথমবার একদিনে ২৭ হাজারের বেশি কোভিড-১৯ রোগী পাওয়া গেল।

ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী, দেশটিতে মোট আক্রান্ত বেড়ে হল ৮ লাখ ২০ হাজার ৯১৬ জন। একই সময়ে আরও ৫১৯ জনের মৃত্যু হয়েছে করোনার কারণে। তাতে ভারতে মোট প্রাণহানি বেড়ে ২২ হাজার ১২৩ জন। ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ১৯ হাজার ৮৭৩ করোনা রোগী, মোট ৫ লাখ ১৫ হাজার ৩৮৬ জন। বর্তমানে ২ লাখ ৮২ হাজার ৪০৭ জন রোগী সক্রিয়।

করোনায় মৃতের সংখ্যার নিরিখে মহারাষ্ট্র, দিল্লি, গুজরাট, তামিলনাড়ু, উত্তর প্রদেশ, পশ্চিমবঙ্গ প্রভৃতি রাজ্য এগিয়ে রয়েছে। অন্যদিকে, আক্রান্তের সংখ্যায় এগিয়ে রয়েছে মহারাষ্ট্র, তামিলনাড়ু, দিল্লি, গুজরাট, উত্তর প্রদেশ, কর্ণাটক, তেলেঙ্গানা, পশ্চিমবঙ্গ প্রভৃতি রাজ্য।

ভারতে সবচেয়ে ভয়াবহ অবস্থা মহারাষ্ট্র রাজ্যে, রেকর্ড প্রায় ৮ হাজার রোগী শনাক্ত হয়েছে। ২ লাখ ৩৮ হাজার ৪৬১ জনের করোনা পজিটিভ হয়েছে। ২২৬ জনের মৃত্যুতে রাজ্যটিতে প্রাণহানি বেড়ে ১০ হাজারের মতো।

এছাড়া পশ্চিমবঙ্গে গত ২৪ ঘণ্টায় ১ হাজার ১৯৮ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছে যা দৈনিক সংক্রমণের নিরিখে এখনও পর্যন্ত সর্বোচ্চ। পশ্চিমবঙ্গে মোট করোনা আক্রান্ত ২৭ হাজার ১০৯ জন। গত ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ২৬ জন করোনা রোগীর মৃত্যুর ফলে রাজ্যে এ পর্যন্ত মোট ৮৮০ জন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গে অবশ্য ১৭ হাজার ৩৪৮ জন সুস্থ হওয়ায় বর্তমানে সক্রিয় করোনা রোগীর সংখ্যা ৮ হাজার ৮৮১ জন।

এদিকে, রোগীর সংখ্যা বাড়তে থাকায় কিছু রাজ্য উচ্চ-ঝুঁকির এলাকাগুলোতে পুনরায় লকডাউন দিতে বাধ্য হচ্ছে। সংক্রমণ হ্রাসে পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য বিহারের রাজধানী পাটনা ও অন্য চার জেলায় শুক্রবার থেকে এক সপ্তাহের জন্য পূর্ণ লকডাউন আরোপ করা হয়েছে।

ভারতের সবচেয়ে জনবহুল, প্রায় ২৩ কোটি মানুষের রাজ্য উত্তর প্রদেশে শুক্রবার রাত থেকে সপ্তাহব্যাপী লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। এ সময় রাজ্যজুড়ে ফার্মেসি এবং মুদি ও দুধের দোকান ছাড়া সব বেসরকারি দোকান ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে।

Skip to toolbar