সংবাদ শিরোনাম
জীবনসঙ্গিনী খুঁজে নিলেন চাহাল | এবার ১২০০ কোটি রুপি ব্যয়ে আকাশছোঁয়া ‘হনুমানের মূর্তি’ তৈরি হচ্ছে ভারতে | লাদাখ সীমান্তে উত্তেজনা বৃদ্ধি, আবারো চীনা সেনা মোতায়েনের দাবি ভারতের | হাজিদের পাথর নিক্ষেপে পদদলিত হয়ে মৃত্যু থামিয়ে ছিলেন এই বাংলাদেশি ইঞ্জিনিয়ার | লামায় ৯ বছরের শিশু ধর্ষিত, ধর্ষক আটক | পিরোজপুরে মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ের দুই ভুয়া কর্মকর্তা গ্রেপ্তার | বঙ্গমাতার জন্মদিন উপলক্ষে তানোরে সেলাই মেশিন বিতরণ | ‘করোনার চেয়েও বড় সংকট হয়তো সামনে আসছে’- বিল গেটস | সিফাতের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধনে পুলিশের লাঠিচার্জ | কাউখালীতে পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী ধর্ষণের চেষ্টা, লম্পট গ্রেফতার |
  • আজ ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

গাইবান্ধায় হু হু করে বাড়ছে পানি, ভয়াবহ বন্যার শঙ্কা

৯:৩৪ অপরাহ্ণ | সোমবার, জুলাই ১৩, ২০২০ দেশের খবর, রংপুর

ফরহাদ আকন্দ, স্টাফ রিপোর্টার- গাইবান্ধায় দ্বিতীয় দফায় আবারও নদনদী গুলোতে পানি বাড়তে শুরু করেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বেড়ে বিপদসীমার ২০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে করে চরাঞ্চলের নিম্নাঞ্চলগুলোতে নতুন করে পানি প্রবেশ করে চার উপজেলার অন্তত ৩০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

বাঁধে ও বিভিন্ন স্কুল ঘরে আশ্রয় নেয়া লোকজন বাড়িতে ফিরতে শুরু করলেও নতুন করে পানি বাড়ায় আবারও নিরাপদ স্থানে ফিরে যাচ্ছেন যেতে শুরু করেছেন তারা।

সোমবার (১৩ জুলাই) সকালে গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলার বালাসীঘাট এলাকার মালেক মিয়া বলেন, বন্যার পানি কমতে শুরু করেছিল। বাঁধ থেকে বাড়িতে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম কিন্তু হঠাৎ করে শনিবার থেকে আবারও পানি বাড়তে শুরু করেছে। এ অবস্থায় বাড়িতে যাওয়ার আশা ছেড়ে দিয়েছি আপাতত। পরিবার ও গবাদি পশু নিয়ে বাঁধেই থাকছি।

আমিনুল ইসলাম নামে আরেকজন জানান, প্রতিবছর বন্যায় আমাদের কষ্ট পোহাতে হয়। পানি উন্নয়ন বোর্ড শুকনো মৌসুমে ঠিকমতো বাঁধের কাজ করলে এত কষ্ট আমাদের সহ্য করতে হত না। শুধু বন্যা আসার পর তাদের তৎপরতা দেখা যায়। সারাবছর তাদের খুঁজে পাওয়া দায়।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোকলেছুর রহমান ‌’সময়ের কণ্ঠস্বর’ কে জানান, পূর্বাভাস অনুযায়ী আগামী তিন দিন পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকবে। নদনদীগুলোতে পানি বিপদসীমার ১০০ সেন্টিমিটার উপরে ওঠার আশঙ্কা রয়েছে। এতে করে গত বছরের বন্যাকেও ছাড়িয়ে যেতে পারে এবারের বন্যা।

তিনি আরও জানান, পূর্ব প্রস্ততি হিসেবে সবগুলো বাঁধে নজরদারি রাখা হচ্ছে পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত পয়েন্টগুলোতে মেরামতের কাজ চলছে।

Skip to toolbar