• আজ ৩১শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সাহেদ মৌলভীবাজারে?

১১:১৪ পূর্বাহ্ণ | মঙ্গলবার, জুলাই ১৪, ২০২০ দেশের খবর, সিলেট

সময়ের কণ্ঠস্বর, মৌলভীবাজার- করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষা কেলেঙ্কারির হোতা রিজেন্ট হাসপাতালের স্বত্বাধিকারী ও রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ ওরফে সাহেদ করিম মৌলভীবাজারে অবস্থান করছেন।

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর সীমান্ত দিয়ে তিনি ভারতে পালিয়ে যেতে পারেন এমন আশঙ্কা করছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

সাহেদের ফোন নম্বর ট্র্যাকিং করে সোমবার (১৩ জুলাই) বিকালে জেলার ভেতরে তার অবস্থান বুঝতে পারায় তার খোঁজে জেলাজুড়ে তল্লাশি চালাচ্ছে র‌্যাব ও পুলিশ। তবে এখনও সাহেদের খোঁজ মেলেনি। জেলার সব সীমান্ত, রিসোর্ট, হোটেল মোটেলেও বাড়ানো হয়েছে নজরদারি।

এ তথ্য নিশ্চিত করেন কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আশেকুল হক। তিনি বলেন, আমি যতটুকু জেনেছি তা হলো পুলিশ সাহেদের ফোন নম্বর ট্রেক করে জানতে পেরেছে সে মৌলভীবাজারের কুলাউড়ার দিকে কোথাও আছে। হয়তো সে চাতলাপুর সীমান্ত দিয়ে ভারতে পালিয়ে যেতে পারে। আমাদের উপজেলার শমশেরনগর হয়ে আরও একটি পথে চাতলাপুর সীমান্তে যাওয়া যায়। আমাদের এলাকায় আমরা চেকপোস্ট বসিয়েছি। তবে এখন পর্যন্ত এ ধরনের কোনো কিছু আমরা পাইনি।

চাতলাপুর সীমান্ত দিয়ে সে ঢোকার চেষ্টা করবে এমন একটি গোয়েন্দা রিপোর্টের ভিত্তিতে আমাদের তল্লাশি অব্যাহত রয়েছে, বলেন ইউএনও কমলগঞ্জ।

শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পরিদর্শক (তদন্ত) অরুপ কুমার চৌধুরী বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানা গেছে মো. সাহেদ চাতলাপুর সীমান্ত দিয়ে ভারতের ত্রিপুরা প্রবেশ করতে পারেন। তাই আমরা সীমান্তসংলগ্ন এলাকায় সতর্কতামূলক অবস্থানে থেকে যানবাহানগুলোতে তল্লাশি চালাচ্ছি।

এদিকে সাহেদ করিমকে গ্রেপ্তারের জন্য সোমবার (১৩ জুলাই) রাত ৮টার পর থেকে শ্রীমঙ্গল শহরের রিসোর্টগুলোতে র‌্যাব এবং পুলিশের যৌথ অভিযান পরিচালিত হয়।

এদিকে শ্রীমঙ্গল থানার পুলিশ পরিদর্শক তদন্ত মো. সোহেল রানা বলেন, সারা দিন র‌্যাবের পাশাপাশি পুলিশের অভিযান চলেছে শ্রীমঙ্গল উপজেলার বিভিন্ন এলাকায়। সাহেদ মৌলভীবাজারে আছে এমন তথ্য আছে, তবে কোথায় অবস্থান করছে তা সুনির্দিষ্ট করে বলা যাচ্ছে না।

মৌলভীবাজারের পুলিশ সুপার মো. ফারুক আহমেদ আইসোলেশনে থাকায় তাকে ফোনে পাওয়া যায়নি। তবে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আশরাফুজ্জামান জানিয়েছেন, সাহেদকে গ্রেফতারের জন্য মূলত র‌্যাব এ অভিযান চালাচ্ছে। পুলিশ তাদের সহায়তা করছে। তবে সুনির্দিষ্টভাবে বলা সম্ভব নয় যে সাহেদ এখন মৌলভীবাজারেই আছে। তবে আমরা চেষ্টা চালাচ্ছি।

Skip to toolbar