সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ২৪শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

খাল দখল করে মাছ চাষ, সাতটি অবৈধ বাঁধ অপসারণ করলেন ইউপি চেয়ারম্যান

১১:৪০ পূর্বাহ্ণ | বুধবার, জুলাই ১৫, ২০২০ চট্টগ্রাম
Feni

আবদুল্লাহ রিয়েল,ফেনী প্রতিনিধি: ফেনীর সোনাগাজীতে খালের উপর অবৈধ বাঁধ দিয়ে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি মাছ চাষ করায় কৃষকদের অভিযোগে সাতটি বাঁধ কেটে পানি প্রবাহের চলাচল নির্বিঘ্ন করে দিলেন চরচান্দিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন মিলন।

মঙ্গলবার (১৪জুলাই) সকাল থেকে উপজেলা প্রশাসনের নির্দেশনায় উপজেলার চরচান্দিয়া ইউনিয়নের ৭নং স্লুইস গেইট-ধান গবেষণা এলাকায় অবৈধ বাঁধগুলো কেটে খালটি দখলমুক্ত করেছেন তিনি।

সরোজমিনে এলাকাবাসী জানায়, দীর্ঘদিন ধরে সরকারি খাল দখল করে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করে আসছিল এলাকার কয়েকজন প্রভাবশালী ভূমিদস্যু। এতে চলতি বর্ষা মৌসুমে পূর্ব বড়ধলী ও চরচান্দিয়া গ্রামের কয়েকটি চরে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। কৃষকদের রোপা আউশ ও আমন ধানের বীজ তলা পানির নীচে পড়ে নষ্ট হয়ে যায়। এতে এলাকাবাসী ক্ষুব্ধ হয়ে উঠে।

এই নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম (ফেইসবুকে) ব্যাপক বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অজিত দেব’র নির্দেশে স্থানীয় চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন মিলন সকাল থেকে বাঁধগুলো অপসারণ কার্যক্রম শুরু করেন।

এলাকাবাসী আরও জানায়, ওই এলাকার মো. হারুন, আবুল হোসেন, মো. সেলিম, মো. ভোলা, মিলন ও আইয়ূব খানের নেতৃত্বে ১০-১২জনের একটি প্রভাবশালী সিন্ডিকেট দীর্ঘদিন খালে বাঁধ দিয়ে পানি চলাচলে বিঘ্ন সৃষ্টি করে। বারবার বলার পরও তারা বাঁধ অপসারণ না করে অবৈধ ভাবে মাছ চাষ করে আসছে।

চরচান্দিয়া ইউপি চেয়াম্যান মোশারফ হোসেন মিলন বলেন, কতিপয় অসাধু লোক খালে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করায় বর্ষা মৌসুমে এলাকায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি করে।এতে কৃষকের কয়েক একর ফসলি জমি তলিয়ে যায়। সমাস্যা নিরোশনে বাঁধগুলো কেটে পানি চলাচল স্বাভাবিক করা হয়।
আগামীতে কোন প্রভাবশালী খালে বাঁধ দিয়ে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে চেয়ারম্যান মিলন কঠোর হুঁশিয়ারি দেন।

বাঁধ অপসারণ সময় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় ইউপি সদস্য নূরুল ইসলাম লিটন, জেলা ছাত্রলীগ নেতা সাইফুল ইসলাম বাদল, চরচান্দিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সারোয়ার হোসেন, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি জীবন মিয়াজী, যুবলীগ নেতা রাশেদুল আলম ও নাজমুল হক নয়ন ইউনিয়নের বিপুল সংখ্যক কৃষক উপস্থিত ছিলেন।

Skip to toolbar