সংবাদ শিরোনাম
রাস্তা ভেঙ্গে পুকুরের পেটে ৩ মাস, সংস্কারের উদ্দ্যোগ নেই কতৃপক্ষের! | ‘প্রধানমন্ত্রীর স্ত্রী হওয়া স্বত্ত্বেও আমার মায়ের কোনো অহমিকা ছিল না’- শেখ হাসিনা | বঙ্গবন্ধুর খুনি রাশেদ চৌধুরীকে ফেরত পাঠাতে ট্রাম্পকে প্রধানমন্ত্রীর চিঠি | নিরবে নিভৃতে বাঙালি জাতির জন্য কাজ করে গেছেন বঙ্গমাতা: মেয়র তাপস | ‘বঙ্গমাতা ছিলেন বঙ্গবন্ধুর সার্বক্ষণিক রাজনৈতিক সহযোদ্ধা’- কাদের | ভারতে আশঙ্কাজনকভাবে বাড়ছে করোনায় আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা | সহকারী কোচসহ জাতীয় দলের ১৮ ফুটবলার করোনা আক্রান্ত! | ভারতে বিমান দুর্ঘটনা: দুই পাইলটসহ ২০ জনের মৃত্যু | করোনা ভ্যাকসিনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শুরু করছে সিঙ্গাপুর | বিশ্বে একদিনেই ৬ হাজারের বেশি মৃত্যু, মোট প্রাণহানি ৭ লাখ ২৪ হাজার |
  • আজ ২৪শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ভারতে আবারো সংক্রমণের নতুন রেকর্ড

৫:০২ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, জুলাই ১৬, ২০২০ আন্তর্জাতিক
inndd

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ভারতে ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে করোনা। দেশটিতে আবারো এক দিনে করোনা সংক্রমণের নতুন রেকর্ড তৈরি হয়েছে। দেশটির কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বৃহস্পতিবার সকালে দেয়া পরিসংখ্যান অনুসারে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩২ হাজার ৬৯৫ জন মানুষের শরীরে করোনার সন্ধান মিলেছে। সব মিলিয়ে মোট ৯ লাখ ৬৮ হাজার মানুষ কোভিড-১৯ আক্রান্ত।

গত ২৪ ঘণ্টায় প্রাণ গেছে আরো ৬০৬ জনের। ফলে মোট মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ২৪ হাজার ৯১৫ জনে। তবে চিকিৎসা সহায়তায় দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠছেন বহু মানুষ। এখন পর্যন্ত ভারতে প্রায় ৬ লাখ ১ হাজার করোনা রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন। বৃহস্পতিবার সকালে এই পুনরুদ্ধারের হার বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬৩.২৫ শতাংশে।

প্রায় ১৩০ কোটি মানুষের দেশে এখন পর্যন্ত প্রায় ১ কোটি ২৭ লাখ মানুষের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। বুধবার পরীক্ষা করা নমুনার ৯ দশমিক ১৯ শতাংশ মানুষ করোনা পজিটিভ হিসাবে ধরা পড়েছিলেন, বৃহস্পতিবার সেখানে সেই হার বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১০ শতাংশে।

দক্ষিণ এশিয়ার দেশটিতে সর্বাধিক সংক্রমণ ছড়িয়েছে মহারাষ্ট্রে। তারপরেই তামিলনাড়ু, দিল্লি, গুজরাট, উত্তরপ্রদেশ, কর্নাটক এবং তেলেঙ্গানা। এদিকে, বিশ্ব তালিকায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ব্রাজিলের পরে বিশ্বের তৃতীয় সর্বোচ্চ করোনাক্রান্ত দেশ হলো ভারত।

এদিকে বুধবার মহারাষ্ট্রে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় আট হাজার মানুষ। এতে করে এ রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ৭৫ হাজারে ৬৪০ জনে দাঁড়িয়েছে। মৃত্যু হয়েছে ১০ হাজার ৯২৮ জনের। গত সোমবার (১৩ জুলাই) থেকে এ রাজ্যে ১০ দিনের কড়া লকডাউন শুরু হয়েছে।

তামিলনাড়ুতে এখন পর্যন্ত ১ লাখ ৫১ হাজার ৮২০ জনের শরীরে ভাইরাসটির সংক্রমণ পাওয়া গেছে। যেখানে প্রাণহানি ঘটেছে ২ হাজার ১৬৭ জনের।

রাজধানী দিল্লিতে করোনার থাবায় প্রাণ গেছে ৩ হাজার ৪৮৭ জনের। আর ভুক্তভোগীর সংখ্যা বেড়ে ১ লাখ ১৭ হাজারে দাঁড়িয়েছে।

সংক্রমণ ঠেকাতে ভারতে প্রথমদিকে সামাজিক দূরত্বের উপর জোর দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু এখন লকডাউনের কড়াকড়ি নেই। অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড শুরু হওয়ায় বাজার-হাট, গণপরিবহনে বেড়েছে লোকের ভিড়। বেড়েছে একে অপরের সংস্পর্শে আসার সম্ভাবনাও। তাই, প্রতিদিনই আশঙ্কাজনকহারে বাড়ছে করোনা রোগীর সংখ্যা।

এদিকে পরিসংখ্যান বিষয়ক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্য অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার (১৬ জুলাই) সকাল পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ৩৭ লাখ ১৪ হাজার ৭৭১ জনে। এদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৫ লাখ ৮৭ হাজার ২৩১ জনের। অপরদিকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৮১ লাখ ৬৯ হাজার ৪২৪ জন।

Skip to toolbar