সংবাদ শিরোনাম
রাস্তা ভেঙ্গে পুকুরের পেটে ৩ মাস, সংস্কারের উদ্দ্যোগ নেই কতৃপক্ষের! | ‘প্রধানমন্ত্রীর স্ত্রী হওয়া স্বত্ত্বেও আমার মায়ের কোনো অহমিকা ছিল না’- শেখ হাসিনা | বঙ্গবন্ধুর খুনি রাশেদ চৌধুরীকে ফেরত পাঠাতে ট্রাম্পকে প্রধানমন্ত্রীর চিঠি | নিরবে নিভৃতে বাঙালি জাতির জন্য কাজ করে গেছেন বঙ্গমাতা: মেয়র তাপস | ‘বঙ্গমাতা ছিলেন বঙ্গবন্ধুর সার্বক্ষণিক রাজনৈতিক সহযোদ্ধা’- কাদের | ভারতে আশঙ্কাজনকভাবে বাড়ছে করোনায় আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা | সহকারী কোচসহ জাতীয় দলের ১৮ ফুটবলার করোনা আক্রান্ত! | ভারতে বিমান দুর্ঘটনা: দুই পাইলটসহ ২০ জনের মৃত্যু | করোনা ভ্যাকসিনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শুরু করছে সিঙ্গাপুর | বিশ্বে একদিনেই ৬ হাজারের বেশি মৃত্যু, মোট প্রাণহানি ৭ লাখ ২৪ হাজার |
  • আজ ২৪শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

‘আবার আমরা এগিয়ে যাব’- প্রধানমন্ত্রী

৫:৫৩ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, জুলাই ১৬, ২০২০ জাতীয়
pmm

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ করোনা পরিস্থিতিতে দেশের সামগ্রিক অগ্রযাত্রা কিছুটা থমকে গেলেও, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আশা প্রকাশ করে বলেছেন, দেশের মানুষ এর থেকে মুক্তি পাবে। তিনি বলেন, আমি আশা করি জনগণ এর থেকে বেরোতে পারবে, আবার আমরা এগিয়ে যাব।

বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে দেশব্যাপী এক কোটি বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন শেষে তিনি এসব কথা বলেন।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী মুজিব বর্ষ উদযাপন উপলক্ষে দেশব্যাপী এক কোটি বৃক্ষের চারা রোপণ কর্মসূচির উদ্বোধনকালে শৈশবের স্মৃতিচারণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজকে আমি লাগিয়েছি একটা চালতে গাছ, তেঁতুল গাছ আর একটা হচ্ছে ছাতিয়ান গাছ। ছাতিয়ান গাছটা খুব বড় হয়, এর কাণ্ড খুব মোটা হয় এবং কাঠ হিসেবে খুব ভালো। সেজন্য ওটা লাগানো হয়েছে।

তিনি বলেন, তেঁতুলের কথা তো শুনলেই জিভে পানি আসে। ছোটবেলার কথা মনে হয়, তবে এই বৃদ্ধ বয়সে আসে না। বৃদ্ধ বয়সে তো এত টক খাওয়াও যায় না। তেঁতুল শরীরের জন্য খুবই উপকারী। কারো যদি প্রেশার থাকে এটা প্রেশারের জন্য ভালো। আর তাছাড়া এমনিতে শরীরটাকে ঠাণ্ডা রাখা। তেঁতুল অনেক কাজে লাগে।

শেখ হাসিনা বলেন, দেশ থেকে তেঁতুলের জাতটা আস্তে আস্তে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। তবে এটার চাহিদা আছে। আর ফুচকা-চটপটি তো সবার খেতে ভালো লাগে। সেজন্য তেঁতুল সবসময় দরকার। সেজন্য আমি তেঁতুল গাছের ওপর একটু জোর দিয়েছি। আর চালতাটাও। চালতার পাতাগুলো যেমন সুন্দর দেখতে, ফুল আরো সুন্দর দেখতে। চালতার আবার অনেক গুণ রয়েছে। ডালের সঙ্গে চালতা দিয়ে খেতে তো এমনি মজা লাগে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতার পর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নিজে বৃক্ষরোপণ করে এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। কাজেই তাঁর স্মরণে আমরা এই পদক্ষেপ নিয়েছি এবং আমরা এই পদক্ষেপ প্রতিবছরই নিচ্ছি।

তিনি বলেন, পরিবেশ সংরক্ষণের জন্য বাংলাদেশে বনায়ন সৃষ্টি আমি যখন ৯৬ সালে সরকার গঠন করি তখন মাত্র ৭ ভাগ আমাদের বনায়ন ছিল। আজকে প্রায় ১৭ ভাগের উপরে আমরা করতে পেরেছি। আমাদের লক্ষ্য ২৫ ভাগ বনায়ন আমরা সারা বাংলাদেশে করব। সেই লক্ষ্য নিয়ে আমরা আমাদের কাজ করে যাচ্ছি।

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে সেই চুরাশি সালে আমরা শুরু করি। ৮৪ থেকে শুরু করে আমরা প্রতিবছর পহেলা আষাঢ় সমগ্র বাংলাদেশে বৃক্ষরোপণ করি। আমাদের সহযোগী সংগঠন কৃষকলীগের উপরে দায়িত্ব থাকে। কৃষকলীগ সমগ্র বাংলাদেশে এই উদ্যোগটা নেয় এবং আমাদের সকল সহযোগী সংগঠন মিলে আমরা বৃক্ষরোপণ করি।

তিনি বলেন, আমরা মনে করি আমাদের দেশের প্রাকৃতিক পরিবেশটা রক্ষা হওয়া দরকার। পাশাপাশি আমাদের দেশের মানুষের পুষ্টির দরকার। কাজেই আমরা তাদের খাদ্য এবং অর্থনৈতিক স্বচ্ছলতার কথা চিন্তা করি কিন্তু বৃক্ষরোপণ করি। আমি নির্দেশনা দিয়েছি শুরু থেকেই যে তিনটা গাছ লাগাতে হবে। একটা ফলের গাছ। একটা কাঠের জন্য যেটা আর্থিক সচ্ছলতা আনবে। আরেকটা ভেষজ গাছ। অর্থাৎ যে গাছ দিয়ে নানা ধরনের ঔষধ সৃষ্টি হয়, সেটা স্বাস্থ্যের জন্য ভালো এই ধরনের গাছ।

অনুষ্ঠানে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন, মন্ত্রণালয়ের সচিব জিয়াউল হাসান উপস্থিত ছিলেন। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া প্রমুখ।

Skip to toolbar