• আজ ২৪শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মিরপুরের ভাষানটেক বস্তিতে ভয়াবহ আগুন, কয়েক কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি

৯:৩৮ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, জুলাই ৩০, ২০২০ ঢাকা
mir

রাজু আহমেদ, স্টাফ রিপোর্টার: মিরপুরের ভাষানটেকের ধামালকোর্ট তিন নম্বর বস্তিতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় শতাধিক ঘর পুড়ে ছাই হয়ে গিয়েছে। আগুন নেভাতে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের ১২ টি ইউনিট টানা কয়েক ঘন্টা ধরে কাজ করে যাচ্ছে। ৩০ জুলাই (বৃহস্পতিবার) আনুমানিক সন্ধ্যা ৬.৩০ মিনিটে এ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে।

তাৎক্ষণিকভাবে অগ্নিকান্ডের প্রকৃত কারণ না জানা গেলেও এলাকাবাসীর কেউ কেউ দাবি করছেন, একটি খাবার হোটেলের গ্যাস লাইন থেকে অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত ঘটে। কেউ কেউ দাবি করেন, হোটেলের পেছনের একটি বাসার গ্যাস সংযোগ বিস্ফোরণে আগুনের সূত্রপাত ঘটে।

স্থানীয় ভুক্তভোগী বাড়িওয়ালা হাজী নুরুল ইসলাম দাবি করে বলেন, বাপ দাদার আমল থেকেই আমরা এখানে বসবাস করছি। এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় আমার দোকানসহ কয়েকটি ঘর পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। আমি আমার দোকান ও বাসার কোনো মালামালই বের করতে পারিনি। করোনার থাবায় কর্মহীন অবস্থায় এমন মর্মান্তিক ঘটনায় স্ত্রী-সন্তান নিয়ে পথের ভিখারী হয়ে গেলাম। শুধু আমি নই আগুনে পুড়ে যাওয়া শতাধিক ঘরবাড়ির মালিক ও ভাড়াটিয়াদের কেউই তাদের দোকান বা বাসার কোনো মালামলই বের করতে পারেনি। এঘটনায় সার্বিকভাবে আনুমানিক কয়েক কোটি টাকার ক্ষতি হলো।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের ডেপুটি ডাইরেক্টর মোঃ সালেহ উদ্দিন বলেন, সন্ধ্যা ৬.৩০ মিনিটের দিকে অগ্নিকাণ্ডের খবর পেয়ে তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হই। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের ১২ টি ইউনিটকে সাথে নিয়ে কয়েক টানা কয়েক ঘন্টা চেস্টা করে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হই। তবে আগুনের সূত্রপাত ও ক্ষয়ক্ষতির পরিমান এখনো সুনির্দিষ্টভাবে জানা যায় নি।

তিনি আরো জানান, এঘটনায় তিন অথবা পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে। তিন কার্যদিবসের মধ্যে ঘটনার প্রকৃত কারন নির্ণয় করে প্রতিবেদন দিতে নির্দেশ দেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন পাওয়ার পরই অগ্নিকাণ্ডের প্রকৃত কারন ও ক্ষয়ক্ষতির পরিমান জানা যাবে।

Skip to toolbar