মাওয়ায় পদ্মা সেতু প্রকল্প এলাকায় ভাঙন!

৫:৫০ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, জুলাই ৩১, ২০২০ ঢাকা
Munshigonj

মোঃ রুবেল ইসলাম তাহমিদ, মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি:  মুন্সিগঞ্জের মাওয়ায় পদ্মা সেতু প্রকল্প এলাকায় নদীতে ফের ভাঙন শুরু হয়েছে।  প্রায় ১০০ মিটার এলাকা ভাঙনে বিলীন হয়েছে । স্থানীয় লোকজন জানান, শুক্রবার দুপুর থেকে প্রকল্প এলাকায় ভাঙন দেখা দেয়।  বিকেলে ভাঙনের তীব্রতা বাড়ে।

আরও জানান, আকস্মিক ভাঙ্গনের ফলে পদ্মা সেতু প্রকল্প এলাকায়  অ্যাপ্রোচ সড়ক মারাত্বক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। তাই এখন শিমুলিয়া প্রান্ত দিয়ে কোনরকমে চলাচল সচল রয়েছে । জানা গেছে, পদ্মায় অস্বাভাবিক পানি বৃদ্ধির সঙ্গে প্রচন্ড গতিবেগে স্রোত প্রবাহিত হওয়ায়  এ ভাঙন দেখা দেয়।

সরেজমিনে দেখা যায়, ভাঙনের পুর্ব দিকে বালির বস্তা ফেলা হয়েছে  এর আগে। তবে গত  ১৫ দিন নতুন করে না ভাঙলেও নদীতে বেশ স্রোত ছিল। সেখানে ক্রেন দিয়ে জাহাজ থেকে মালামাল নামানো হচ্ছিল। কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডের একাধিক শ্রমিক বলেন, পদ্মায় ভাঙন একবার শুরু হলে অনেক বড় এলাকা ভেঙে নিয়ে যায়। এ কারণেই সবার মনে ভয়।

তবে সেতুর  কাজের সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলীরা বলেন, এ ভাঙন সেতুর মূল কাজে কোনো প্রভাব ফেলবে না। কারণ, ভাঙন এলাকা থেকে সেতুর পাইলিংস্থলের দূরত্ব অন্তত এক কিলোমিটার।  ভাঙন  রোধে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। ভাঙনের

মাওয়ার কুমারভোগ এলাকায় যেখানে ভাঙন সৃষ্টি হয়েছে, সেখানে সেতুর নির্মাণকাজের কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ড (ওয়ার্কশপ) রয়েছে। ভাঙনে মূল ওয়ার্কশপের ক্ষতি না হলেও সেখানকার কাজের জন্য পাশের খোলা মাঠে মালপত্র রাখার জায়গায় ভাঙন দেখা দিয়েছে। ভাঙন মূল ওয়ার্কশপ থেকে দেড়শ মিটার দূরে আছে।

পদ্মা সেতু কর্তৃপক্ষ সূত্র জানায়, সেতু প্রকল্পের কাজ এগিয়ে চলছে। মাওয়া ও কাওরাকান্দি”কাঠালবাড়ি —দুই প্রান্তে কমপক্ষে সাড়ে ৮ হাজার কর্মী কাজ করছেন।

উল্লেখ্য, এই একই জায়গা এর আগে ২৫ জুন ২০১৫ শালে ভাঙনের কবলে পড়েছিল। তখন পাঁচ লাখ  ২০ হাজার বালুর বস্তা (জিও ব্যাগ) ফেলা হয়েছিল ।

Skip to toolbar