এই মাত্র
  • রিজার্ভ থেকে ডলার বিক্রির রেকর্ড
  • সারাহ ইসলামকে রাষ্ট্রীয় সম্মাননা দেওয়ার দাবি সংসদে
  • আইএমএফের ঋণের প্রথম কিস্তি পেল বাংলাদেশ
  • সেপ্টেম্বরে ভারত সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী
  • সার-বীজের দাম বাড়ানো হবে না: কৃষিমন্ত্রী
  • বিএনপি’র আন্দোলন ও সরকার পতন সবই ভুয়া: ওবায়দুল কাদের
  • আওয়ামী লীগ কথা দিয়ে কথা রাখে: প্রধানমন্ত্রী
  • দেশের প্রথম পাতাল রেলের নির্মাণকাজ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী
  • এবার সরকা‌রিভা‌বে হ‌জে যেতে লাগবে ৬ লাখ ৮৩ হাজার
  • বড় ব্যবধানে জিতলেন সেই সাত্তার
  • আজ শুক্রবার, ২০ মাঘ, ১৪২৯ | ৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩

    প্রধান খবর

    সার-বীজের দাম বাড়ানো হবে না: কৃষিমন্ত্রী

    সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা: কৃষি উৎপাদনের ধারা অব্যাহত রাখতে সার, বীজসহ কৃষি উপকরণের দাম বাড়ানো হবে না বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক।  তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের পলিসি হলো যেকোন মূল্যে খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধি ও খাদ্য নিরাপত্তা টেকসই করা। বৃহস্পতিবার (০২ ফেব্রুয়ারি) ঢাকার অদূরে সাভারের ব্র্যাক সিডিএম মিলনায়তনে সার্কভুক্ত দেশসমূহে টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট (এসডিজি) অর্জনে খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তা শীর্ষক আন্তর্জাতিক সম্মেলনের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী একথা বলেন। বাংলাদেশ এগ্রিকালচারাল এক্সটেনশন নেটওয়ার্ক (বায়েন) ও ভারতের পার্টিসিপেটরি রুরাল ডেভেলপমেন্ট ইনিশিয়েটিভ সোসাইটি (প্রাডিস) যৌথভাবে তিন দিনব্যাপী এ সম্মেলনের আয়োজন করে। কৃষিমন্ত্রী বলেন, আমনের বাম্পার ফলন হয়েছে। রেকর্ড পরিমাণ খাদ্য মজুত আছে। দেশে দুর্ভিক্ষ হবে না।  ফসলের গবেষণা ও সম্প্রসারণের মধ্যে বিরাট গ্যাপ রয়েছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, গবেষক বা বিজ্ঞানীর উদ্ভাবিত জাত যেটি গবেষণা পর্যায়ে বিঘাতে ৮ মণ উৎপাদন হয়, সেটি সম্প্রসারণের পর কৃষক পর্যায়ে দেখা যায় উৎপাদন হয় বিঘাতে ৩ থেকে ৪ মণ। এই বিশাল গ্যাপ কমিয়ে আনতে হবে। মন্ত্রী বলেন, আমাদের বিজ্ঞানীদের উদ্ভাবিত ফসলের মধ্যে লবণসহিষ্ণু জাতও রয়েছে। কিন্তু এগুলো মাঠে কৃষকের কাছে যেতে সময় নিচ্ছে বেশি। এই দেরির কারণ খুঁজে বের করতে হবে। অনুষ্ঠানে প্রাডিসের সিনিয়র এডভাইজর ভিভি সাডামাতে, খাদ্য ও কৃষি সংস্থার বিশেষ প্রতিনিধি দানিয়েল গুস্তাফসন, বাংলাদেশ প্রতিনিধি রবার্ট সিম্পসন, বায়েনের সভাপতি হামিদুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক সেকান্দর আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক আফজাল হোসেন ভূঁইয়া প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। 

    ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে জাপানের রাষ্ট্রদূতের সৌজন্য সাক্ষাৎ 

    সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা: সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত ইওয়ামা কিমিনোরি। বুধবার (১ ফেব্রুয়ারি) সকালে সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রীর দপ্তরে সাক্ষাৎকালে দুই দেশের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হয়। সৌজন্য সাক্ষাৎ শেষে জাপানের রাষ্ট্রদূত বলেন, জাপান এবং বাংলাদেশের মধ্যে খুবই বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বিদ্যমান রয়েছে। এই সম্পর্ককে আরো শক্তিশালী করতে দুই দেশ একত্রে কাজ করছে। মেট্রোরেলসহ বিভিন্ন অবকাঠামো নির্মাণে জাপান বাংলাদেশকে সহযোগিতা করে আসছে। ভবিষ্যতেও এ সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।  বৈঠকে জাপানের সহায়তায় চলমান প্রকল্পগুলোর অগ্রগতি নিয়ে আলোচনা হয়।

    পাকিস্তানে মসজিদে আত্মঘাতী হামলায় নিহত বেড়ে ১০০

    আন্তর্জাতিক ডেস্ক: পাকিস্তানে পেশোয়ারে মসজিদে বোমা হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১০০ জনে পৌঁছেছে। উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় প্রদেশ খাইবার পাখতুনখাওয়া প্রদেশে শোকের ছায়া নেমেছে। দাফনের সময় গভীর শোকে এলাকায় কান্নার রোল পড়ে যায়।  সোমবার (৩০ জানুয়ারি) পুলিশ সদর দপ্তর কম্পাউন্ডের একটি মসজিদে ৩০০ থেকে ৪০০ পুলিশ সদস্য যোহরের নামাজের জন্য জড়ো হয়েছিল। এসময় ভয়াবহ বিস্ফোরণ ঘটে। এতে পুরো প্রাচীর এবং বেশিরভাগ ছাদ উড়ে যায়। মুহূর্তের মধ্যে মসজিদ কমপ্লেক্স ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উদ্ধারকারীরা একটি ম্যারাথন অপারেশন শেষ করেছে। এসময় মসজিদের ধ্বংসাবশেষ থেকে মৃতদেহের পাশাপাশি অনেক আহত ব্যক্তিকে উদ্ধার করা হয়েছে। আহতদের দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যেতে দেখা গেছে। পেশোয়ারের ওই অঞ্চলটি আফগানিস্তানের সীমান্তবর্তী। এখানে প্রায়ই জঙ্গি হামলা হয়ে থাকে। নিরাপত্তা চৌকিকে লক্ষ্য করে তেহরিক ই তালেবান পাকিস্তানের (টিটিপি) হামলা ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ২০২১ সালের আগস্টে তালেবান আফগানিস্তানের ক্ষমতায় বসার পর পাকিস্তান সীমান্তজুড়ে টিটিপির হামলা বেড়ে গেছে। প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে, হামলায় ১০-১২ কেজি বিস্ফোরক ব্যবহার করা হয়েছে। হামলাটি এমন সময়ে হয়েছে, যখন নিরাপত্তা লঙ্ঘনের বিষয়ে কর্মকর্তাদের মধ্যে আগে থেকেই শঙ্কা ছিল। কারণ সীমান্তে টিটিপির বেপরোয়া হামলা ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। এমনকি টিটিপি এখন খোদ পাকিস্তান সরকারের হুমকি হয়ে উঠেছে। এমনকি সামরিক বাহিনীকে লক্ষ্য করেও আক্রমণ বাড়িয়েছে সশস্ত্র সংগঠনটি। মঙ্গলবার পার্লামেন্টে একটি টেলিভিশন ভাষণে পাকিস্তানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী খাজা মোহাম্মদ আসিফ হামলার জন্য টিটিপিকে অভিযুক্ত করেছেন। এহামলায় প্রতিবেশী আফগান থেকে মদ দেওয়া হয়েছে বলে তার দাবি। তবে টিটিপির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য তিনি আফগান তালেবানদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। হামলার শিকার কম্পাউন্ডটি পেশোয়ারের একটি কড়া নিরাপত্তা বেষ্টিত জেলায় অবস্থিত। সেখানে অন্যান্য সরকারি ভবনও রয়েছে। খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশের প্রাদেশিক গভর্নর গুলাম আলি বলেছেন, এলাকাটি নিরাপত্তাজনিত ত্রুটি ছিল। সরকারি কর্মকর্তা আখতার আলি শাহ এপিকে বলেন, এটি একটি সুসংগঠিত গোষ্ঠীর কাজ।  

    রেকর্ড গড়ে আকাশছোঁয়া দামে ফার্নান্দেজকে কিনলো চেলসি

    সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে বিশ্বকাপয়ী আর্জেন্টিনার মাঝমাঠের কারিগর এনজো ফার্নান্দেজকে দলে ভিড়িয়েছে চেলসি। রেকর্ড গড়ে আকাশছোঁয়া দামে তাকে ডেরায় টেনেছে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের (ইপিএল) দলটি। এজন্য ১২০ মিলিয়ন ইউরো (১০৫ মিলিয়ন পাউন্ড) গুনেছে তারা। মঙ্গলবার (৩১ জানুয়ারি) তার সদ্য সাবেক পর্তুগিজ ক্লাব বেনফিকা এই ঘোষণা দিয়েছে। ক্রীড়াভিত্তিক প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যম ইএসপিএনের এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। এতে বলা হয়, এর আগে ইপিএলে সবচেয়ে দামি খেলোয়াড় ছিলেন জ্যাক গ্রিয়ালিশ। ২০২১ সালে ১০০ মিলিয়ন ব্রিটিশ পাউন্ডে তাকে কেনে ম্যানচেস্টার সিটি। সেসময় রেকর্ড ট্রান্সফার ফি’তে অ্যাস্টন ভিলা থেকে ম্যানসিটিতে যোগ দেন তিনি। ইএসপিএনের সূত্র জানিয়েছে, শুধু আকাশচুম্বী দরে নয়, দীর্ঘমেয়াদে ফার্নান্দেজকে নিজেদের দূর্গে টেনেছে চেলসি। সবকিছু ঠিক থাকলে ২০৩১ সাল পর্যন্ত দ্য ব্লুজদের সঙ্গে থাকবেন তিনি। ২০২২ বিশ্বকাপে ঈর্ষণীয় পারফরম করেছেন ফার্নান্দেজ। দীর্ঘ ৩৬ বছর পর আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপ জয়ের অন্যতম নায়ক তিনি। ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থার (ফিফা) বৈশ্বিক এই টুর্নামেন্টে সেরা উদীয়মান ফুটবলারের পুরস্কার জেতেন ২২ বছর বয়সী এই মিডফিল্ডার। গত সোমবার এএসপিএনের প্রতিবেদনে জানা যায়, ব্যক্তিগতভাবে চেলসিতে যাওয়ার ইচ্ছা পোষণ করেন ফার্নান্দেজ। সেই সঙ্গে নিজ ক্লাব বেনফিকাকে ইংলিশ ক্লাবের সঙ্গে চুক্তিতে পৌঁছতে প্ররোচিত করেন তিনি। ফার্নান্দেজকে দিয়ে জানুয়ারির ট্রান্সফার উইন্ডোতে সপ্তম খেলোয়াড় কিনলো চেলসি। একই সময়ে বেনোয়িত বাদিয়াসিলে, ডেভিড দাত্রো ফোফানা, আন্দ্রে সান্তোস, মাইখাইলো মুদ্রিক, ননি মাদুয়েকে ও মালো গুস্কোকে কেনে তারা।

    ভোট দিলেন হিরো আলম

    সময়ের কণ্ঠস্বর, বগুড়া: বগুড়ায় উপনির্বাচনে ভোট দিয়েছেন আলোচিত-সমালোচিত কন্টেন্ট ক্রিয়েটর ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলম। বুধবার (১ ফেব্রুয়ারি) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বগুড়া সদরের এরুলিয়া উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে নিজের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন তিনি। এ সময় হিরো আলমের সঙ্গে তার নেতাকর্মী ও সমর্থকরা উপস্থিত ছিলেন। বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) ও বগুড়া-৬ (সদর) আসনের উপনির্বাচনের ভোট গ্রহণ চলছে। ভোট গ্রহণ করা হচ্ছে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম)।  বুধবার সকাল সাড়ে ৮টা থেকে শুরু হওয়া ভোট গ্রহণ চলবে বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত। ওই দুই আসনেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন হিরো আলম। জেলা নির্বাচন অফিস সূত্র জানা গেছে, বগুড়া-৬ আসনের উপনির্বাচনে মোট প্রার্থী ১১ জন ও বগুড়া ৪ আসনের ৯ জন প্রার্থী। বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) আসনে মোট ভোটার ৩ লাখ ২৮ হাজার ৪৬৯। ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ১১২টি। আর ভোট কক্ষের সংখ্যা ৭৭৭টি। এর মধ্যে অস্থায়ী কক্ষ থাকবে ৪২টি। এই আসনে মোট প্রিসাইডিং কর্মকর্তা ১১২ জন ও সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তা ৭৭৭ এবং পোলিং অফিসার থাকবে ১ হাজার ৫৫৪ জন কর্মকর্তা কাজ করছেন। বগুড়া-৬ (সদর) আসনে মোট ভোটার রয়েছেন ৪ লাখ ১০ হাজার ৭৪৩ জন। ভোট কেন্দ্র হবে ১৪৩টি ও কক্ষ থাকবে ১ হাজার ১৭টি। এ আসনে ১৪৩ জন প্রিসাইডিং কর্মকর্তা, ১ হাজার ১৭ সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তা ও ২ হাজার ৩৪ জন পোলিং কর্মকর্তা নির্বাচনের ভোট গ্রহনের দায়িত্ব পালন করছেন।

    ব্যারিস্টার সুমনের চেম্বারে কাজ শুরু করলেন মডেল পিয়া জান্নাতুল

    বিনোদন ডেস্ক: সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমনের চেম্বারে কাজ শুরু করেছেন আইনজীবী ও মডেল পিয়া জান্নাতুল। অ্যাসোসিয়েটস আইনজীবী হিসেবে কাজ শুরু করেন তিনি। গত বছর সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের আইনজীবী হিসেবে তালিকাভুক্ত হন পিয়া জান্নাতুল। সোমবার (৩০ জানুয়ারি) আব্দুস সালাম মুর্শেদীর দখলে থাকা গুলশানের বাড়ি সংক্রান্ত মামলার শুনানি শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন ব্যারিস্টার সুমন। পুরো সময় ব্যারিস্টার সুমনের পাশে ছিলেন আইনজীবী ও অভিনেত্রী পিয়া জান্নাতুল।  এদিকে বিচারাধীন বিষয় হওয়ায় সালাম মুর্শেদীর দখলে থাকা গুলশানের বাড়ি সংক্রান্ত দুটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে সরাতে ব্যারিস্টার সুমনকে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে এই মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত সালাম মুর্শেদীর গুলশানের বাড়ি নিয়ে কোনো ধরনের ভিডিও তৈরি ও প্রকাশ না করার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। পরে সন্ধ্যায় ব্যারিস্টার সুমন ভিডিওগুলো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে সরিয়ে ফেলেন।  সালাম মুর্শেদীর আইনজীবীদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার (৩০ জানুয়ারি) বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি খিজির হায়াতের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালত এই রিট মামলার পরবর্তী শুনানির জন্য আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি দিন নির্ধারণ করেছেন। আদালতে সালাম মুর্শেদীর পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী অ্যাডভোকেট প্রবীর নিয়োগী ও অ্যাডভোকেট সাঈদ আহমেদ রাজা। সঙ্গে ছিলেন সালাম মুর্শেদীর মেয়ে ব্যারিস্টার শেহরিন সালাম ঐশী। ব্যারিস্টার সুমনের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার অনীক আর হক।  রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক। রাজউকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী জাকির হোসেন মাসুদ। দুদকের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট খুরশিদ আলম খান।

    ক্ষমা, সহনশীলতা ও সাহসের প্রতীক নবী করিম সা.

    ইসলাম ডেস্ক- মানবতার মুক্তির দিশারী মহানবী হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ছিলেন সর্বোত্তম চরিত্রের অতুলনীয়, অনুসরণীয় ও অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত। দুনিয়াজুড়ে মানুষ আজ নৈতিক অধঃপতনের অতল গহব্বরে নিমজ্জিত। নানা রকম অবক্ষয়ের করাল গ্রাসে পতিত গোটা মানব জাতি। এই অধঃপতন থেকে মানব জাতির পরিত্রাণের একমাত্র পথ হচ্ছে হজর রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর আনীত জীবন বিধানের দিকে ফিরে আসা। হজরত মুহাম্মদ (সা.) ছিলেন অসাধারণ বিনয়ী, পরোপকারী, সদালাপী ইত্যাদি সকল প্রকার মহৎ গুণে গুণান্বিত অনুপম চরিত্রের অধিকারী। বর্তমানের এই ঝঞ্জা-বিক্ষুব্ধ সমাজে রাসুলের আদর্শ বাস্তবায়নের মাধ্যমেই কেবল অশান্তির দাবানল থেকে মুক্তি লাভ সম্ভব। ওই সময়ের কাফেররাও তার আদর্শের কাছে মাথানত করেছিল। তারা জানতো নবী করিম (সা.)-এর নেতৃত্বের কারণে তাদের নেতৃত্ব ধূলোয় মিশে যাবে। তাই তারা সর্বশক্তি দিয়ে রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর বিরোধিতা করেছিল। পরিণামে তাদের চূড়ান্ত পরাজয় ঘটে। রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর চরিত্রের অত্যুজ্জ্বল আলোকমালায় উদ্ভাসিত হয়েছিল সারাজাহান। নব্য জাহেলিয়াতের ঘন ঘোর অন্ধকার দ্রবীভূত করে প্রভাত সূর্যের সোনালী কিরণের সুষমা ছড়াতে। তাই মহানবীর নৈতিক শিক্ষার বিকল্প নেই। নবী মুহাম্মদ (সা.) দানশীলতা, উদারতা ও বদান্যতায় ছিলেন সর্বোচ্চ উদাহরণ। হজরত জাবের বিন আবদুল্লাহ (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নিকট কিছু চাওয়া হলে তিনি না বলতেন না। হজরত আনাস বিন মালেক (রা.) বলেন, হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর নিকট কিছু চাওয়া হলে তিনি দিয়ে দিতেন। এক ব্যক্তি রাসুলুল্লাহ সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নিকট চাইল, তিনি তাকে দুই পাল ছাগলের মধ্য থেকে এক পাল দিয়ে দিলেন, সে লোক নিজ গোত্রে এসে বলল, হে গোত্রের লোকেরা! তোমরা মুসলমান হয়ে যাও, কেননা ‘মুহাম্মদ এমন ব্যক্তির ন্যায় দান করে যে দারিদ্রের ভয় করে না।’ –সহিহ মুসলিম : ৪২৭৫ হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর বদান্যতার ব্যাপারে হজরত আব্বাস (রা.)-এর উক্তিই যথেষ্ট। তিনি বলেন, ‘রাসুলুল্লাহ (সা.) ছিলেন মানুষের মাঝে অধিকতর দানশীল। তিনি রমজান মাসে অধিক দান করতেন-যখন জিবরাইল তার নিকট অহি নিয়ে আসতেন, তাকে কোরআন শিক্ষা দিতেন। নিঃসন্দেহে রাসুলুল্লাহ (সা.) মুক্ত বায়ুর চেয়ে অধিক দানশীল ছিলেন। (মুক্ত বায়ুর তুলনায় রাসুলের দানশীলতা অধিক, এ তুলনার মর্মার্থ হচ্ছে- বায়ু মুক্ত হলেও তার যেমন কিছু কিছু দুর্বলতা থাকে; যেমন সে পৌঁছতে পারে না আবদ্ধ ঘরে। রাসুলের দানশীলতার তেমন কোনো প্রতিবন্ধকতা নেই। তার দানশীলতা পৌছেঁ যেত সমাজের সবখানে)। -সহিহ বোখারি : ৩২৯০ সহনশীলতা ও ক্রোধ সংবরণে হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) ছিলেন সবোর্চ্চ আদর্শ। কখনও তার পক্ষ হতে মন্দ কথন ও কর্ম প্রকাশ পায়নি, নির্যাতন-অবিচারের শিকার হলেও কখনও প্রতিশোধ নেননি। কখনও কাউকে প্রহার করেননি। হজরত আয়েশা (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) কে আল্লাহর নিষিদ্ধ সীমারেখা লঙ্ঘন না হলে কখনও নিজের প্রতি জুলুম নির্যাতনের কোনো প্রতিশোধ নিতে আমি দেখিনি। আল্লাহর রাস্তায় জেহাদ ব্যতীত তিনি কখনও কোনো কিছুকে স্বীয় হস্ত দ্বারা প্রহার করেননি এবং তিনি কখনও কোনো সেবক বা স্ত্রীকে প্রহার করেননি। -সহিহ মুসলিম : ৪২৯৬ হজরত রাসুলুল্লাহ সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সহনশীলতার সমর্থনে কয়েকটি ঘটনা উল্লেখ করা হলো- উহুদ যুদ্ধে রাসূল সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের মুখণ্ডল আঘাত প্রাপ্ত হয়ে কয়েকটি দাঁত ভেঙে যায়, মাথায় পরিধেয় শিরস্ত্রাণ খন্ড-বিখন্ড হয়। তারপরও তিনি কোরাইশদের বিরুদ্ধে বদদোয়া করেননি। বরং তিনি বলেছেন, ‘হে আল্লাহ! আমার জাতিকে ক্ষমা কর, কেননা তারা জানে না।’ –সহিহ মুসলিম : ৩২১৮ প্রতিশোধ নেওয়ার সামর্থ্য থাকা সত্ত্বেও সীমালঙ্ঘনকারীকে ক্ষমা করা একটি উদারণ ও মহৎগুণ। হজরত রাসুলুল্লাহ সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এগুণে সর্বাপেক্ষা গুণান্বিত ছিলেন। নবী করিম সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কর্তৃক ক্ষমা প্রদর্শনের অনেক ঘটনা বিবরণ বিশুদ্ধ সূত্রে বর্ণিত আছে। তিনি যখন মক্কা বিজয় করলেন, কোরাইশের বিশেষ বিশেষ ব্যক্তিবর্গকে তার চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় নতশীরে উপবিষ্ট পেলেন। তিনি তাদেরকে বললেন, হে কোরাইশগণ! তোমাদের সঙ্গে এখন আমার আচরণের ধরণ সম্পর্কে তোমাদের ধারণা কি? তারা বলল, আপনি উদারমনস্ক ভাই ও উদারমনস্ক ভাইয়ের ছেলে। হজরত রাসুলুল্লাহ সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, যাও, তোমরা মুক্ত। তিনি তার ও সাহাবায়ে কেরামের বিরুদ্ধে ঘটানো সমস্ত অপরাধ ক্ষমা করে দিলেন। হজরত রাসুলল্লাহকে হত্যার উদ্দেশ্যে এক লোক আসল, কিন্তু তা ফাঁস হয়ে গেল। সাহাবিগণ বললেন, হে আল্লাহর রাসূল! এই লোক আপনাকে হত্যা করার মনস্থ করেছে, এ কথা শুনে লোকটি ভীত ও অস্থির হয়ে পড়ল। রাসুলুল্লাহ সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, ভয় করো না, ভয় করো না, যদিও তুমি আমাকে হত্যা করার ইচ্ছা করেছ কিন্তু তুমি আমাকে হত্যা করতে পারবে না। কেননা আল্লাহ আমাকে অবহিত করেছেন যে, তিনি তাকে মানুষের কাছ থেকে রক্ষা করবেন। হজরত রাসুল (সা.) তাকে ক্ষমা করে দিলেন, অথচ সে তাকে হত্যা করার উদ্যোগ নিয়েছিল। সাহসিকতা, নির্ভীকতা, যথাসময়ে উদ্যাগ গ্রহণ রাসুলুল্লাহ সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের বিশেষ গুণ ছিল। তার সাহিসকতা বড় বড় বীরদের নিকট অবিসংবাদিতভাবে স্বীকৃত। হরজত আলি বলতেন, যুদ্ধ যখন প্রচণ্ড রূপ নিত, প্রবলভাবে ক্রোধান্বিত হওয়ার ফলে চোখ রক্তিম বর্ণ ধারণ করত তখন আমরা (তীর-তরবারির আঘাত থেকে বাঁচার জন্য) হজরত রাসুলুল্লাহ সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে রক্ষাকবচ হিসেবে গ্রহণ করতাম। ইমরান ইবনে হাছিন (রা.) বলেন, হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) কোনো বাহিনীর মুখোমুখি হলে প্রথম আঘাতকারী হতেন। হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর সাহসিকতার একটি নমুনা নীচে উল্লেখ করা হলো- এক রাতে মদিনার একপ্রান্তে কারও চিৎকারের আওয়াজ শোনা গেল। কিছু মানুষ আওয়াজের দিকে অগ্রসর হলো, কিন্তু দেখা গেল হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) একাই আওয়াজের উৎসস্থলে তাদের আগে গিয়ে পৌছঁলেন। বরঞ্চ তিনি যখন অবস্থা দেখে ফিরছিলেন তখন তাদের সঙ্গে তার সাক্ষাৎ হলো। তিনি ছিলেন আবু তালহার অসজ্জিত ঘোড়ার ওপরে। তরবারি ছিল তার স্কন্ধে। আবু তালহা বলতে লাগলেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ছিলেন সর্বাপেক্ষা সুন্দর, সর্বাপেক্ষা দানশীল, সর্বাপেক্ষা সাহসী। -সহিহ বোখারি : ২৬০৮

    দ. আফ্রিকায় জন্মদিনের অনুষ্ঠানে বন্দুকধারীর গুলি, নিহত ৮

    আন্তর্জাতিক ডেস্ক: দক্ষিণ আফিকার একটি শহরে জন্মদিন পালনকালে লোকজনের ওপর বন্দুকধারীদের বেপরোয়া গুলিবর্ষণে আটজন নিহত ও তিনজন আহত হয়েছে। সোমবার পুলিশ এ কথা জানিয়েছে। খবর এএফপি’র। পুলিশের এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘দেশটির দক্ষিণাঞ্চলীয় বন্দর নগরী জিকেবারহায় বাড়ির মালিক রোববার সন্ধ্যায় তার জন্মদিন পালন করার সময় অজ্ঞাতনামা দুই বন্দকধারী সেখানে প্রবেশ করে এবং অতিথিদের লক্ষ্য করে নির্বিচারে গুলি চালানো শুরু করে। আগে এটি পোর্ট এলিজাবেথ হিসেবে পরিচিত ছিল।’ পুলিশ জানায়, বন্দুকধারীরা ‘অতিথিদের উপর এলোপাতাড়ি গুলি চালায়।’ তারা আরো জানায়, সেখানে হামলায় আটজন নিহত ও তিনজন আহত হয়। আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে এবং তাদের চিকিৎসা চলছে। বর্তমানে তাদের অবস্থা আশংকাজনক। নিহতদের মধ্যে বাড়ির মালিকও রয়েছে। এ হামলার ঘটনায় ইতোমধ্যে তদন্ত শুরু হয়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকায় বন্দুক হামলা একটি স্বাভাবিক ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিশ্বের যেসব দেশে সংঘবদ্ধ সহিংসতায় হত্যার হার সবচেয়ে বেশি সেসব দেশের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে দক্ষিণ আফ্রিকা।

    ঢাকায় জমজমের পানি বিক্রি বন্ধের নির্দেশ

    সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা: পরবর্তী সিদ্ধান্ত আসার আগ পর্যন্ত বায়তুল মোকাররম মার্কেটসহ খোলা বাজারে পবিত্র জমজম কুপের পানি বিক্রি বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) এ.এইচ.এম. সফিকুজ্জামান। সোমবার (৩০ জানুয়ারি) অধিদপ্তরের প্রধান কার্যালয়ে আয়োজিত এক সেমিনারে তিনি এ নির্দেশনা প্রদান করেন। বায়তুল মোকাররম মার্কেটের যেসব দোকানে এই জমজম কুপের পানি বিক্রি হয় সেসব দোকানী, ব্যবসায়ীদের সঙ্গে এই সেমিনারের আয়োজন করে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। এর আগে রবিবার (২৯ জানুয়ারি) দুপুরে বায়তুল মোকাররম মার্কেটে অভিযান পরিচালনা করেন প্রতিষ্ঠানটির সহকারী পরিচালক এবং ঢাকা জেলা কার্যালয়ের প্রধান আব্দুল জব্বার মণ্ডল। এ সময় কয়েকটি দোকানে অভিযান চালানো হয়। মার্কেটের আতর-টুপির দোকানে পাওয়া যায় জমজমের পানি। এ পানি কিভাবে দেশে এলো? এই পানি আসল নাকি নকল, এই পানি বিক্রির বৈধতা আছে কিনা? বিক্রেতার কাছে এসব বিষয়ে জানতে চান ভোক্তা অধিদফতরের কর্মকর্তা। জমজম পানির ব্যবসায়ী জানান, হজ বা ওমরাহ করে দেশে ফেরার সময় হাজিরা জমজমের পানি নিয়ে আসেন। চাহিদার থেকে অতিরিক্ত পানি নিয়ে আসেন হাজিরা। পরে সেগুলো মার্কেটের অনেক ব্যবসায়ীর কাছে বিক্রি করেন। এই পানি আসল নাকি নকল— এ বিষয়ে ব্যবসায়ীদের কোনও ধারণা নেই। ব্যবসায়ীরা জানান, বিশ্বাসের ওপর ভিত্তি করে এসব পানি কেনাবেচা করছেন তারা। জমজমের পানি বিক্রির বৈধতার বিষয়ে ব্যবসায়ীরা জানান, জমজমের পানি বৈধভাবে কেউ আমদানি করে না। হাজিরা সঙ্গে করে নিয়ে আসেন। হাজিদের কাছ থেকে কিনে খুচরা বিক্রি করা হয়। জমজমের পানির চাহিদা থাকায় বেশ ভালো দামে বিক্রি হয়।

    নির্দিষ্ট সময়েই শেষ হবে বঙ্গবন্ধু রেল সেতুর নির্মাণ কাজ: রেলমন্ত্রী

    সিরাজুল ইসলাম শিশির, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি: রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, করোনা পরবর্তী রাশিয়া-ইউক্রেন এর যুদ্ধের কারণে বৈশ্বিক সংকট সৃষ্টি হলেও নির্দিষ্ট সময়েই শেষ হবে যমুনা নদীর উপর নির্মিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেল সেতুর নির্মাণ কাজ। আর এই সেতু নির্মাণ হলে দেশের উত্তরবঙ্গসহ দক্ষিণ এশিয়ার সাথে রেল যোগাযোগের আন্তর্জাতিক নেটওয়ার্ক তৈরি হবে বলেও মন্তব্য করেন। তিনি আরো বলেন, দেশের আভ্যন্তরীণ রেল যোগাযোগ বিস্তারে সিরাজগঞ্জ-বগুড়া রেললাইন সহ যেসমস্ত প্রকল্প নেয়া হয়েছে সেগুলোও সঠিক সময়ে শেষ হবে বলেও আশা ব্যক্ত করেন তিনি।  তিনি সোমবার (৩০ জানয়ারি) দুপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেল সেতুর পশ্চিম প্রান্তের কাজের অগ্রগতি পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এই কথা বলেন। এসময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেল সেতুর প্রকল্প পরিচালক আল ফাত্তাহ মোহাম্মাদ মাসুদুর রহমান, জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি কে এম হোসেন আলী হাসান, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল সামাদ তালুকদার, চেম্বার অফ কমার্স এর প্রেসিডেন্ট আবু ইউসুফ সূর্য সহ রেল বিভাগের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

    বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের তালিকায় ফের শীর্ষে ঢাকা

    সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক: বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের তালিকায় শীর্ষস্থান দখল করেছে বিশ্বের অন্যতম ঘনবসতিপূর্ণ মহানগরী ঢাকা। সকাল সাড়ে ৮টার দিকে ঢাকার এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স (একিউআই) স্কোর ২৬৩। একই সময়ে আজ অস্বাস্থ্যকর শহরের তালিকায় ঢাকার পরেই আছে পাকিস্তানের লাহোর (১৯০)। সুইজারল্যান্ডভিত্তিক বায়ুর মান পর্যবেক্ষণকারী প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান আইকিউ এয়ার দূষিত বাতাসের শহরের এ তালিকা প্রকাশ করে। প্রতিদিনের বাতাসের মান নিয়ে তৈরি করা একিউআই স্কোর একটি নির্দিষ্ট শহরের বাতাস কতটুকু নির্মল বা দূষিত, সে সম্পর্কে মানুষকে তথ্য দেয় এবং তাদের কোনো ধরনের স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি হতে পারে কি না, তা জানায়। একিউআই স্কোরে আজ সোমবার (৩০ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ৮টায় তৃতীয় স্থানে কাজাখস্তানের আস্তানা (১৮৯)। ১৮৮ স্কোর নিয়ে চতুর্থ স্থানে আছে ভিয়েতনামের হ্যানয়। চীনের উহান আছে পঞ্চম স্থানে, স্কোর ১৮১। এরপরই আছে ভারতের মুম্বাই (১৭০) ও নেপালের কাঠমান্ডু (১৬৫)। একিউআই স্কোর শূন্য থেকে ৫০ ভালো হিসেবে বিবেচিত হয়। ৫১ থেকে ১০০ মাঝারি হিসেবে গণ্য করা হয়। আর সংবেদনশীল গোষ্ঠীর জন্য অস্বাস্থ্যকর হিসেবে বিবেচিত হয় ১০১ থেকে ১৫০ স্কোর। ১৫১ থেকে ২০০ পর্যন্ত অস্বাস্থ্যকর হিসেবে বিবেচিত হয়। একইভাবে একিউআই স্কোর ২০১ থেকে ৩০০ হলে খুবই অস্বাস্থ্যকর বলে বিবেচনা করা হয়। আর ৩০১-এর বেশি হলে তা দুর্যোগপূর্ণ বলে বিবেচিত হয়। বায়ুদূষণ গুরুতর স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি করে। এটা সব বয়সী মানুষের জন্য ক্ষতিকর। তবে শিশু, অসুস্থ ব্যক্তি, প্রবীণ ও অন্তঃসত্ত্বাদের জন্য বায়ুদূষণ খুবই ক্ষতিকর।

    লাশ চিতায় না, কবরস্থানে! আদালতের সিদ্ধান্তের অপেক্ষা

    চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: চট্টগ্রাম পটিয়া উপজেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হওয়া ২৮ বছর বয়সি যুবকের লাশ মুসলিম কিংবা হিন্দু এই পরিচয়ের বেড়াজালে দীর্ঘ ১০ ঘন্টা ধরে লাশ পড়ে আছে পটিয়া হাইওয়ে থানায় লাশবাহী ফ্রিজিং এ্যাম্বুলেন্স।  নিহত যুবকের পরিবারের দাবি, সে হিন্দু ছিল। এখনো হিন্দু আছে। তাই হিন্দু ধর্মের নিয়মে মেনে শেষকৃত্য চিতায় সম্পন্ন করবেন। কিন্তু তার সহপাঠি ও স্বজনদের দাবি, সে ২০২০ সালের ১৭ নভেম্বর নগরীর লালখান বাজার এলাকার একটি মাদ্রাসায় মৌলনা হারুন এজাহারের কাছে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন।  এরপর থেকে সে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ত ও মুসলিম ধর্মের সব নিয়ম কানুন মেনে চলতেন। তাই তারা মুসলিম হিসেবে তার লাশ দাফন করতে আগ্রহী। সহপাঠিরা এটাও জানান, নিহত যুবক তার মাকে নিয়ে নগরীর আগ্রাবাদ এলাকায় একটি ভাড়া বাসায় বসবাস করতেন। বাসুস কোম্পানিতে চাকরি করতেন।  এখানেই বাধে বিপত্তি। আদালতের রায়ের অপেক্ষায় এখন নিহত যুবকের পরিবার ও সহপাঠিরা। এরপর জানা যাবে, লাশ কবরস্থানের যাবে, না চিতায় পুড়ানো হবে। হলফনামা সুত্রে জানা যায়, তার নাম রতন দাশ (২৮)। বাড়ি মিরসরাই উপজেলার পূর্ব মায়ানী গ্রামে। তার পিতার নাম মনো দাশ ও মাতার নাম সন্ধ্যা দাশ।  বিষয়টি নিশ্চিত করে এডভোকেট সাইফুল ইসলাম বলেন, নিহত যুবক দুই বছর আগে মুসলিম হিসেবে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করার জন্য জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে নাম পরিবর্তন করে আহমাদ হয়েছেন। যার নোটারী নম্বর-১১০৫৪৪। মুসলিম ধর্ম গ্রহণ করার ছবিও রয়েছে। এখন শুনেছি সে সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছেন। অন্যদিকে, নিহত যুবকের সহপাঠী মো. রুবেল দাশ গুপ্ত বলেন, সে ইসলাম ধর্ম মেনে মুসলিম হয়েছে। যা আমাকে জানিয়েছিলো। এবং বলে গেছেন। যদি কখনো তার মৃত্যু হয়। তাহলে মুসলিম হিসেবে কবরস্থানে দাফন করতে। নিহতের খালাতো বোন ভিফা দাশ বলেন, সে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছে। যা আমরা কেউ জানি না। আর ও যদি ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করতো, তাহলে সে তার মায়ের কাছে কেন ছিল?  তিনি আরো বলেন, সে সব সময় আমাদের পূজা মণ্ডপ তুলে ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতা মেনে চলতো। আর যখন লাশ নিতে আসছি কিছু লোকজন বলতেছে। সে নাকি মুসলিম হয়েছে। ওর লাশ নিতে দিবে না।  কর্ণফুলী থানা গাউসিয়া কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মো. ইমতিয়াজ বলেন, বিষয়টি আমরা শুনেছি। লাশটি মুসলিম হিসেবে দাফন করার জন্য আমরা পদক্ষেপ নিচ্ছি।  দক্ষিণ জেলা গাউছিয়া কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব খান বলেন, ছেলেটি ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছে। সেটা সত্যি কিন্তু ওদের পরিবার সেটা মানতে চাচ্ছে না। আমরা প্রমাণ করে ছাড়ব (ইনশাআল্লাহ)।  কর্ণফুলীর ডাকপাড়া জমিয়াতুল মামুর জামে মসজিদের ইমাম হাফেজ মাওলানা আতাউর রহমান বলেন, সে যদি মুসলিম ধর্ম গ্রহণ করে থাকে, তাহলে তাকে ইসলাম ধর্ম অনুযায়ী জানাজা সম্পন্ন করে দাফন করতে হবে। পটিয়া হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বিকাশ সরকার বলেন, লাশটি এখন পযর্ন্ত হাইওয়ে থানার দায়িত্ব রয়েছে। এই বিষয়ে আদালত সিদ্ধান্ত নিবে।

    এসএমএস সার্ভিস কার্যক্রম উদ্বোধন করল আম্বালা ফাউন্ডেশন

    রবিউল ইসলাম, সময়ের কণ্ঠস্বর: আনুষ্ঠানিকভাবে এসএমএসভিত্তিক সেবা চালু করেছে ক্ষুদ্রঋণ ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান আম্বালা ফাউন্ডেশন। এ উপলক্ষে রোববার (২৯ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় রাজধানীর ধানমন্ডির একটি কনভেনশন সেন্টারে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। আম্বালা ফাউন্ডেশনের চেয়ারপারসন সাবেক সচিব ও সাবেক প্রধান তথ্য কমিশনার এম আজিজুর রহমানের সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাইক্রোক্রেডিট রেগুলেটরি অথরিটির এক্সিকিউটিভ ভাইস চেয়ারম্যান মো. ফসিউল্লাহ। এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ক্রেডিট অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ফোরামের (সিডিএফ) নির্বাহী পরিচালক আব্দুল আউয়াল, মাইক্রোক্রেডিট রেগুলেটরি অথরিটির পরিচালক মুহাম্মদ মাজেদুল হক ও জিল্লুর রহমান। আম্বালা ফাউন্ডেশনের উপ-নির্বাহী পরিচালক দেওয়ান তৌফিকা হোসেন স্বাতীর উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে আগত অতিথিদের সংবর্ধনা ও স্বাগত বক্তব্য রাখেন ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক আরিফ সিকদার। পরে কেক কেটে আনুষ্ঠানিকভাবে এসএমএস সার্ভিস কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন অতিথিরা। এর আগে স্বাগত বক্তব্যে আম্বালা ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক আরিফ সিকদার বলেন, আম্বালা ফাউন্ডেশন ১৯৯৪ সাল থেকে অত্যন্ত আন্তরিকতা, দক্ষতা ও সুনামের সাথে বাংলাদেশের দরিদ্র জনগোষ্ঠীর আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন, বিকল্প আত্মকর্মস্থান সৃষ্টি ও জীবনযাত্রার মানোন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করছে। তিনি বলেন, আম্বালা ফাউন্ডেশন বারাবরই ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রম সুসংগঠিত ও স্বচ্ছভাবে পরিচালনা করে আসছে। বর্তমানে দেশের ১৫টি জেলায় ১৫৫টি শাখায় এর কার্যক্রম চলমান রয়েছে। গ্রাহকের হাতের মুঠোয় সকল তথ্য নিমিষেই পৌঁছানোর লক্ষ্যে এবার আম্বালা ফাউন্ডেশন এসএমএস সার্ভিস কার্যক্রম চালু করেছে। এসময় এসএমএস সার্ভিস কার্যক্রমের বিভিন্ন সুফল তুলে ধরেন প্রতিষ্ঠানটির কমিউনিকেশন এন্ড অ্যাডভোকেসি ম্যানেজার কাজী ফয়সাল ইসলাম। তিনি বলেন, এসএমএস সার্ভিসের মাধ্যমে এখন থেকে গ্রাহকগণ ঋণ বিতরণ, কিস্তি পরিশোধ, সঞ্চয় জমা ও উত্তোলন বিষয়ক যাবতীয় তথ্য ঘরে বসেই মোবাইলের মাধ্যমে জানতে পারবেন। এছাড়া এসএমএস সার্ভিসের মাধ্যমে সকল সদস্য নিজস্ব ঋণ ও সঞ্চয় সম্পর্কিত যাবতীয় তথ্য সম্পর্কে আপডেট জানা এবং নিজের টাকার হিসাব নিজেই রাখতে পারবেন। তিনি জানান, সাধারণত ঋণ ও সঞ্চয় সংক্রান্ত সকল তথ্য সদস্যের পাশ বইতে লেখা হয়ে থাকে। অনেক সময় কর্মী ভুলবশত বা ইচ্ছাকৃতভাবে তথ্য আপডেট না করার কারণে সদস্যের প্রতারিত হবার সম্ভাবনা থাকে এবং প্রতিষ্ঠানের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়। এসএমএস সার্ভিস কার্যক্রম পরিচালনার মাধ্যমে এ ধরণের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এড়ানো সম্ভব হবে বলেও জানান আম্বালা ফাউন্ডেশনের এই কর্মকর্তা। অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথিরা আম্বালা ফাউন্ডেশনের সার্বিক কার্যক্রমে সন্তোষ প্রকাশ করে বিভিন্ন বক্তব্য দেন। পরে সংস্থার কার্যক্রম সম্পর্কে তথ্যভিত্তিক প্রেজেন্টশন ও প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। এসময় দেশের বিভিন্ন ক্ষুদ্রঋণ ভিত্তিক প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা, আম্বালা ফাউন্ডেশন ও আম্বালা আইটির কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য, এসএমএস সার্ভিস উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মিডিয়া পার্টনার ছিল জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল সময়ের কণ্ঠস্বর ও রেডিও বিক্রমপুর।

    মায়ের জিম্মায় থাকবে সেই দুই শিশু, জাপান যেতে বাধা নেই

    সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা: জাপানি মায়ের জিম্মায় থাকবে দুই শিশু জেসমিন মালিকা ও লাইলা লিনা। একই সঙ্গে মেয়েদের নিয়ে জাপানেও যেতে পারবেন তাদের মা। রোববার (২৯ জানুয়ারি) দুপুরে ঢাকার দ্বিতীয় অতিরিক্ত সহকারী জজ ও পারিবারিক আদালতের বিচারক দুরদানা রহমান এ রায় ঘোষণা করেন। রায়ে বলা হয়েছে, দুই শিশু তাদের মায়ের কাছে থাকবে এবং মা চাইলে তাদের নিয়ে জাপানে যেতে পারবেন। এই দুই শিশুর বাবা ইমরান শরীফ যে মামলা করেছিলেন সেটাও খারিজ করে দেন আদালত। বিষয়টি নিশ্চিত করেন মা নাকানো এরিকোর আইনজীবী শিশির মনির। এর আগে গত ২২ জানুয়ারি এ বিষয়ে চূড়ান্ত শুনানি শেষে ঢাকার দ্বিতীয় অতিরিক্ত সহকারী জজ ও পারিবারিক আদালতের বিচারক দুরদানা রহমান রায়ের জন্য এই দিন ধার্য করেন। গত ১৫ জানুয়ারি একই আদালত দুই শিশুর বক্তব্য শুনে তা রেকর্ড করেন। পরে রোববার মামলার যুক্তিতর্ক শুনানির দিন ধার্য করেন। জাপানি মা নাকানো এরিকো ও বাংলাদেশি বাবা ইমরান শরীফের বিয়ে হয় ২০০৮ সালে। দাম্পত্য কলহের জেরে ২০২০ সালের শুরুতে বিচ্ছেদের আবেদন করেন এরিকো। এরপর ইমরান স্কুলপড়ুয়া বড় দুই মেয়েকে নিয়ে বাংলাদেশে চলে আসেন। ছোট মেয়ে জাপানে এরিকোর সঙ্গে থেকে যান। বাংলাদেশে আসার পর দুই মেয়ে কার জিম্মায় থাকবে তা নির্ধারণ করতে আদালতে গড়ায় বিষয়টি। এমনটি আপিল বিভাগে যায় এ ঘটনা। পরে আপিল মামলাটি নিষ্পত্তির জন্য পারিবারিক আদালতে পাঠানো হয়।

    ক্ষমতা হারালে ফখরুলের বাসায় উঠতে চান ওবায়দুল কাদের

    সময়ের কণ্ঠস্বর, রাজশাহী: ক্ষমতা হারালে দেশ ছেড়ে না পালিয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুলের বাসায় উঠতে চান বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। রোববার (২৯ জানুয়ারী) দুপুরে রাজশাহী জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় বক্তব্য দেওয়ার সময় এমন মন্তব্য করেন তিনি। ক্ষমতা হারালে আওয়ামী লীগের নেতারা দেশ ছেড়ে পালিয়ে যাবে বলে বিএনপি অনেক নেতা বক্তব্য দিচ্ছেন। গতকাল ঢাকায় আয়োজিত পদযাত্রা কর্মসূচিতেও এমন বক্তব্য দেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল। বিএনপি নেতাদের বক্তব্যের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, 'বিএনপির মরণযাত্রা হচ্ছে এখন। তারা এখন সরকারকে পালাতে বলে; পালানোর পথ নাকি খুঁজে পাবেন না। ফখরুল সাহেব, পালিয়ে তো আছেন আপনারা। তারেক রহমান আর রাজনীতি করবে না; মুচলেকা দিয়ে পালিয়েছে লন্ডনে। ৭ বছরের দণ্ডিত পলাতক আসামি আপনাদের নেতা ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান পালিয়ে যায়, আমরা পালাতে জানি না।' 'আমরা এই দেশে জন্মেছি, এই দেশে মরবো। পালাবো না। কোথায় পালাবো! পালাবো না, প্রয়োজনে ফখরুল সাহেবের বাসায় গিয়ে উঠবো। জায়গা দেবেন? না হলে ঠাকুরগাঁওয়ের বাড়ি আছে না! ওই বাড়িতে গিয়ে উঠবো,' বিএনপি মহাসচিবের উদ্দেশে বলেন কাদের। খেলা হবে মন্তব্য করে তিনি বলেন, 'বিএনপির এখনো শিক্ষা হয়নি। শিক্ষা হবে যখন আগামী নির্বাচনে আবারও পরাজয়ের মুখ দেখবে।'

    আ.লীগ নেতারা মুখে এক, কাজে আরেক: মির্জা ফখরুল

    সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা: বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আওয়ামী লীগ বরাবর দুই চরিত্রের। তারা মুখে বলে এক, কাজে আরেক। রোববার (২৯ জানুয়ারি) দুপুরে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে ১২ দলীয় জোটের লিয়াজোঁ কমিটির সঙ্গে বৈঠক শেষে তিনি এ কথা বলেন। বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘আওয়ামী লীগ এদেশে সবচেয়ে বড় ক্ষতি করেছে, দেশের মানুষের যে চরিত্র, বহুদলীয় গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা, বহুমাত্রিক যে সমাজ ব্যবস্থা, সেটাকে তারা ধ্বংস করে দিয়েছে।’ ফখরুল বলেন, ‘আমরা দীর্ঘদিন ধরে বলে আসছি, আজকে একটি ওয়েবিনারে বিশিষ্টজনরাও বলেছে দেশের নির্বাচনী ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে যে নির্বাচন ব্যবস্থা এটা দেশের জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত ব্যবস্থা ছিলো। ২০১১ সালে আওয়ামী লীগ যেদিন সংসদে এই তত্ত্বাবধায়ক ব্যবস্থা বাতিল করেছিলো, সেইদিন বেগম খালেদা জিয়া বলেছিলো-বাংলাদেশে চিরস্থায়ীভাবে নির্বাচন ব্যবস্থাকে ধ্বংস করা হয়েছে। দেশে একটা অস্থিতিশীলতা, অনিশ্চতার দ্বার উম্মুক্ত করা হলো। আজকে সেই কথা প্রমাণিত হয়েছে। আজকে আওয়ামী লীগ গোটা দেশ-জাতিকে অশান্তকর অবস্থার দিকে নিয়ে যাচ্ছে। এই দেশের মানুষ জানে যে কি হবে। দেশের মানুষ জানে না তার ভোট দিতে পারবে কিনা।’ তিনি আরও বলেন, ‘তারা অতীতে যে কাজগুলো করেছে, তাতে প্রমাণ হয়েছে এই সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন হতে পারে না। দুই, এখানে দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন গ্রহণযোগ্য হয় না। এই জিনিসগুলো আমাদেরকে বলতে হচ্ছে। আমরা আরও খুশি হতাম- যদি এই জিনিসগুলো নিয়ে দেশের আরও বিশিষ্টজন, রাজনৈতিক দল, সংগঠনগুলো সত্যিকার অর্থে কথা বলতেন। তাদেরকে আহ্বান জানাবো কথা বলেন- তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে একটি নির্বাচনের দিকে নেওয়ার জন্য।’ আওয়ামী লীগ সব সময় বিএনপির প্রোগ্রামের তিন দিন আগে থেকে ধর্মঘট করে দেয় বলে দাবি করে মির্জা ফখরুল আরও বলেন, ‘তিন দিন আগে থেকে পুলিশকে নামিয়ে দিয়ে রাস্তায় চেকপোস্ট বসিয়ে মোবাইল পর্যন্ত চেক করতে থাকে। ১০ ডিসেম্বর ঢাকা বিভাগীয় সমাবেশের আগে তারা ১৫ দিন বিশেষ অভিযান চালিয়েছে। বিভিন্ন জায়গায় রেট করে হাজার-হাজার ছেলে-মেয়ে ধরে নিয়ে গেছে। এটা হচ্ছে আওয়ামী লীগের কৌশল। যে কোনও মূল্যে হোক তারা বিরোধী দলকে কর্মসূচি করতে দিবে না। ভিন্নমত সহ্য করবে না। আর নিজেদেরটা করতেই থাকবে। সেক্ষেত্রে তারা রাষ্ট্রের সমস্ত যন্ত্রগুলোকে ব্যবহার করবে।’ সাংবাদিকদের আরেক প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘অন্যান্য দলগুলো বিএনপির সঙ্গে যুগপৎ আন্দোলন করার কারণে তা অবশ্যই ভিন্ন মাত্রা পেয়েছে। মানুষের মধ্যে আস্থা পেয়েছে যে বিভিন্ন দলগুলো একসঙ্গে হয়ে মানুষের অধিকার আদায়ে লড়াই করছে। তারা এখানে সম্পৃক্ত হচ্ছে।’ বৈঠকে চলমান আন্দোলন নিয়ে আলোচনা হয়েছে বলে উল্লেখ করে বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘ভবিষ্যৎ কর্মসূচি কি হওয়া উচিত, আন্দোলনকে বেগবান করার জন্য, জনগণকে সম্পৃক্ত করার জন্য কি ধরণের কর্মসূচি নেওয়া যেতে পারে সেই বিষয়গুলো নিয়ে কথা বলেছি। আমরা একমত হয়েছি যুগপৎ আন্দোলনকে জোরদার করে আমাদের ভোটের অধিকার ফিরিয়ে আনা, গণতন্ত্রকে পুনরুদ্ধার করা। খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা।’ বৈঠকে ১২ দলীয় জোটের নেতাদের মধ্যে অংশ নেয়-জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দার, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি চেয়ারম্যান মে.জে. (অব:) সৈয়দ মুহম্মাদ ইবরাহিম, বাংলাদেশ জাতীয় দল চেয়ারম্যান সৈয়দ এহসানুল হুদা, লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম, এনডিপি চেয়ারম্যান মো: আবু তাহের, জমিয়তে ওলামায় ইসলামের মহাসচিব গোলাম মহিউদ্দিন ইকরাম, জাগপা সিনিয়র সহ-সভাপতি রাশেদ প্রধান, ইসলামি ঐক্যজোটের মহাসচিব মাওলানা আব্দুল করিম, বাংলাদেশ ইসলামিক পার্টির মহাসচিব আবুল কাশেম, বাংলাদেশ মুসলিম লীগের যুগ্ম মহাসচিব মো. তফাজ্জল হোসেন। আর বিএনপি লিয়াঁজো কমিটির সদস্য স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, বেগম সেলিমা রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মাদ শাহজাহান ও আব্দুল আউয়াল মিন্টু অংশ নেয়।

    আমি শিল্পী সমিতি থেকে কিছু নিতে নয়, দিতে এসেছি: নিপুণ

    বিনোদন ডেস্ক: বলিউডের সিনেমা আমদানির পক্ষে সম্মতি দিয়েছে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি। কিন্তু, সমিতির পক্ষ থেকে শর্ত জুড়ে দেওয়া হয়েছে। সিনেমা হল থেকে লাভের ১০ শতাংশ দিতে হবে শিল্পী সমিতির ফান্ডে। সম্প্রতি দেশে শাহরুখ খানের ‘পাঠান’ মুক্তি দেওয়া ইস্যুতে শিল্পী সমিতির পক্ষে এমন শর্তের কথা জানিয়েছেন সমিতির নেতা চিত্রনায়িকা নিপুণ। নিপুণের এমন শর্ত দেওয়াকে রীতিমত চাঁদাবাজি বলে মন্তব্য করেছেন চিত্রনায়ক জায়েদ খান। তার এমন মন্তব্যের বিপরীতেই কথা বলেছেন নিপুণ। বলেছেন, এই টাকা যদি আমার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে নিতাম তাহলে সেটা চাঁদাবাজি বলতে পারতেন। টাকা থাকবে শিল্পী সমিতির ফান্ডে। আর আমি শিল্পী সমিতি থেকে কিছু নিতে আসিনি। এসেছি কিছু দিতে। ইতোমধ্যে শিল্পীরা সে প্রমাণ পাচ্ছে। বাংলাদেশে হিন্দি সিনেমা আমদানিতে শনিবার দুপুরে বিএফডিসিতে জরুরি বৈঠক ডেকেছিল চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি। সেখানে উপস্থিত ছিলেন সভাপতি ইলিয়াস কাঞ্চন, সাধারণ সম্পাদক নিপুণ, নায়ক রিয়াজ, ফেরদৌস ও নায়ক আলমগীরসহ অনেকে। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন নিপুণ। সেখানে নিপুণ বলেন, ‘পরিবেশক ও হল মালিকেরা হিন্দিসহ সব ধরনের ছবি এখানে চালাতে চাচ্ছেন। জ্যেষ্ঠ অনেকে উপস্থিত থাকলেও সোহেল রানা স্যার, সুচন্দা আপারা আসতে পারেননি। তবে তাঁদের সঙ্গে এ বিষয়ে কথা বলেছি, তাঁরা মতামত দিয়েছেন। এখন শর্তগুলো নিয়ে বাকি ১৮ সংগঠনের সঙ্গে বসব আমরা। এরপর সবার মতামত মন্ত্রী মহোদয়কে জানানো হবে। বর্তমান সিনেমা, সিনেমা হলের পরিস্থিতি বিবেচনা করে কিছু শর্তের বিনিময়ে হিন্দি ছবি আমদানির পক্ষে আমরা।’ তবে শর্তগুলো কী তা গণমাধ্যমকে জানানো হয়নি। শর্তগুলো নিয়ে এক সপ্তাহের মধ্যে আরও ১৮ সংগঠনের সঙ্গে কথা বলে সবাইকে আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হবে বলে জানান নিপুণ। হিন্দি সিনেমা দেশের সিঙ্গেল হলগুলোতে চলার যোগ্য কি না? নাকি শুধুই সিনেপ্লেক্সে চলবে? এক সংবাদকর্মীর এমন প্রশ্নে নিপুণ বলেন, ‘সরকার যে এক হাজার কোটি টাকা লোন দিচ্ছে, ছবির অভাবে অনেকেই তা নিচ্ছেন না। প্রতি মাসে একটি করে হিন্দি ছবি এলে তাঁদের হলগুলো সংস্কারের তাগিদ বাড়বে। বর্তমানে দেশের বিভিন্ন জায়গায় যে একক হলগুলো আছে, তা ‘পাঠান’-এর মতো ছবি চালানোর মতো পরিস্থিতিতে নেই।’

    এক বছর ধরে শিকলে বন্দী জীবন, অর্থাভাবে হচ্ছেনা চিকিৎসা 

    মোঃ ইউনুস আলী, (লালমনিরহাট) প্রতিনিধি: ৪৬ বছর বয়সী আসাদুজ্জামান। দরিদ্র দিনমজুরের ছেলে নিজেও দিনমজুর। জন্মের ৫ বছর পর নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মানসিক ভারসাম্য হারায়। স্বাভাবিক চলাচলেও দেখা দেয় সমস্যা। সন্তানের এমন অবস্থাতে অসহায় হয়ে পড়েন বাবা মা। সামান্য কিছু জমি ছিলো তা বিক্রি করেই শুরু হয় চিকিৎসা। চিকিৎসার পরে সুস্থ হয়ে উঠে সে। এর মধ্যে বড় হয়ে বিয়ে করে ছয় কন্যা সন্তানের পিতা হন আসাদুজ্জামান। এর মধ্যে ৫ কন্যার বিয়ে দিয়ে দেন। কিন্তু বিধি বাম বয়স বেড়ে যাওয়ার সাথে সাথে আবার দেখা দেয় পুরাতন সেই রোগ। মানসিক ভারসাম্যহীন হওয়ার পরে বিভিন্ন রাস্তায় গিয়ে গাড়ী ভাংচুর শুরু করেন, করেন অন্যের ফসলের ক্ষতি। এর মধ্যে জন্মদাতা বাবাও চলে যান পৃথিবী ছেড়ে। মা যতটুকু সম্ভব জমি বিক্রি, অন্যের কাছে হাত পেতে, প্রতিবেশিদের সাহায্য নিয়ে করেছেন ছেলের জন্য চিকিৎসা। কিন্তু এযাত্রায় আর সুস্থ করা যায়নি আসাদুজ্জামানকে। মানসিক ভারসাম্যহীন হওয়ায় স্ত্রীও ছেড়ে চলে যায়। পরে বাধ্য হয়ে নিজ সন্তানকে পায়ে লোহার শিকল পরিয়ে তালা দিয়ে বেঁধে রাখতে শুরু করেন মা আশফা।  এভাবেই গত একবছর ধরে লোহার শিকলে বন্দি হয়ে চলছে আসাদুজ্জামানের জীবন। পরিবারের সামর্থ্য অনুযায়ী একাধিকবার স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা করিয়েও কোনো লাভ হয়নি বলে জানায় পরিবার। তবে অর্থের অভাবে উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে পারেননি তারা।  আসাদুজ্জামানের বাবার নাম মৃত জাফর আলী ও মা আশেফা বেগম। তারা লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার গড্ডিমারী ইউনিয়নের খানের বাজার গ্রামের বাসিন্দা। আসাদুজ্জামানের আরও এক ভাই ও বোন আছে। সরেজমিনে খানের বাজারের গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, বাড়ির বাইরে জাম গাছের সঙ্গে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখা হয়েছে মানসিক প্রতিবন্ধী আসাদুজ্জামানকে। তাকে সারাদিন এখানেই বেঁধে রাখা হয় বলে জানায় আসাদুজ্জামানের প্রতিবেশীরা। আসাদুজ্জামানের ফুপাতো ভাই শ্যামল জানান, ৫ বছর বয়সে মিলনের নিউমোনিয়া হয়। সে সময় হাতীবান্ধা হাসপাতালে মিলনের চিকিৎসা করানো হয়। এর কিছুদিন পর থেকেই মিলন মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ে। এরপরেও আসাদুজ্জামানের চিকিৎসার জন্য আমাদের আরও ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা খরচ হয়। তিনি আরও বলেন, আসাদুজ্জামানকে বেঁধে না রাখলে এদিক-ওদিক চলে যায়। অন্যের ক্ষতি করে এজন্যই তাকে আমাদের বেঁধে রাখতে হয়। আসাদুজ্জামানের মা আশফা বেগম কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, মানসিক ভারসাম্যহীন হওয়ার পরে অনেক ডাক্তার দেখাইছি, কোন লাভ হয়নাই। এ জন্য এখন আসাদুজ্জামানকে আমাদের বেঁধে রাখতে হয়। গড্ডিমারী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আবু বক্কর সিদ্দিক শ্যামল বলেন, আসাদুজ্জামান মানসিক ভারসাম্যহীন। সে কারণে তাকে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখতে হয়। ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে তার পরিবারকে সব সময় সাহায্য সহযোগিতা করা হয়। আসাদুজ্জামানের চিকিৎসার জন্য সমাজের বিত্তশালীদের সহযোগিতা করার আহব্বান জানান তিনি।  এবিষয়ে হাতীবান্ধা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজির হোসেন বলেন, আসাদুজ্জামানের খোঁজ নিয়েছি। দ্রুত চিকিৎসার জন্য যেকোনো সহযোগিতা করা হবে।  

    রেডিও বিক্রমপুরের কার্যক্রম পরিদর্শন করলেন নিমকোর মহাপরিচালক

    নিজস্ব প্রতিবেদক, সময়ের কণ্ঠস্বর: মুন্সীগঞ্জে কমিউনিটি রেডিও চ্যানেল 'রেডিও বিক্রমপুর'-এর কার্যক্রম পরিদর্শন করেছেন জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউটের (নিমকো) মহাপরিচালক শাহিন ইসলাম।  শ‌নিবার (২৮ জানুয়ারি) বিকা‌লে মুন্সিগঞ্জ সদরে অবস্থিত রেডিও বিক্রমপুরে যান তিনি। এসময় রেডিও বিক্রমপুরের স্টেশন ম্যানেজার আওলাদ হোসেন খান (শিবলী) তাকে স্বাগত জানান। পরে ব্রডকাস্টার সুমাইয়া ও অর্না তাকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন। সেখানে সভাকক্ষে রেডিও বিক্রমপুরের প্রডিউসার, সাংবাদিক, প্রেজেন্টারদের সাথে এক মতবিনিময় সভায় কমিউনিটি রেডিওর করণীয় বিষয়াদি নিয়ে আলোচনা করেন নিমকোর মহাপরিচালক।  এবং পরবর্তীতে কার্যালয় ঘুরে দেখেন এবং একটি লাইভ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। এসময় রেডিও বিক্রমপুরের কার্যক্রমে সন্তোষ প্রকাশ করেন তিনি। নিমকোর মহাপরিচালকের সঙ্গে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রশিক্ষণ প্রকৌশলের পরিচালক মো: নজরুল ইসলাম, আঞ্চলিক বার্তা নিয়ন্ত্রক সংযুক্তিতে কর্মরত নাহিদ নাজ, প্রোগ্রামার মোঃ আব্দুস সালাম, ক্যামেরা ও আলোকসম্পাত উপ-পরিচালক মো: মাসুদ মনোয়ার ভূঁইয়া, গবেষণা কর্মকর্তা (বেতার, টিভি, চল ও গণ.) মো. ফাইম সিদ্দিকী। 

    আরও দুটি আন্তর্জাতিক পুরস্কার পেল এনআরবিসি ব্যাংক

    নিজস্ব প্রতিবেদক, সময়ের কণ্ঠস্বর: এনআরবিসি ব্যাংক উদ্ভাবনী সেবা ও দ্রুত সময়ে সর্বোত্তম সেবার প্রসারে দুটি আন্তর্জাতিক পুরস্কার অর্জন করেছে। ‘মোস্ট ইনোভেটিভ মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাপ (এনআরবিসি প্ল্যানেট)’ ও ‘ফাস্টেস্ট গ্রোয়িং মাইক্রো-ফাইনান্স ব্যাংক’ শীর্ষক অ্যাওয়ার্ড দুটি দিয়েছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক ম্যাগাজিন দ্য গ্লোবাল ইকোনমিক্স। সম্প্রতি সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইয়ে জমকালো অনুষ্ঠানে এনআরবিসি ব্যাংকের চেয়ারম্যান এসএম পারভেজ তমালের হাতে পুরস্কার দুটি তুলে দেওয়া হয়। এসময় ব্যাংকের পরিচালক একেএম মোস্তাফিজুর রহমান ও মোহাম্মদ নাজিম, ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা গোলাম আউলিয়া এবং আইসিটি বিভাগের প্রধান ও সিটিও দিদারুল হক মিয়া উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে জানানো হয়, বাংলাদেশের গ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চলে পিছিয়ে পড়া মানুষদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে সহজ শর্ত ও স্বল্পসুদে ঋণ দিতে ২০২১ সালের মার্চে বিশেষ ক্ষুদ্রঋণ চালু করে এনআরবিসি ব্যাংক। খুব অল্প সময়ে সারা বাংলাদেশে এই সেবা ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এরই মধ্যে ৫০ হাজারেরও বেশি মানুষ ক্ষুদ্রঋণ পেয়েছেন। এই সেবার দ্রুত প্রসারের স্বীকৃতি স্বরূপ ‘ফাস্টেস্ট গ্রোয়িং মাইক্রো ফাইন্যান্স ব্যাংক-২০২২’ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া হাতের মুঠোয় সব ধরনের ব্যাংকিং সেবা সহজে দেওয়ার লক্ষ্যে তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে ২০১৯ সালে ‘এনআরবিসি প্ল্যানেট অ্যাপ’ চালু করে এনআরবিসি ব্যাংক। উদ্ভাবনী এই অ্যাপের মাধ্যমে বাংলাদেশে সর্বপ্রথম কিউআর কোড ব্যবহার করে কার্ড ও চেক ছাড়া টাকা উত্তোলনের সুবিধা চালু হয়। এছাড়া এই অ্যাপের মাধ্যমে অ্যাকাউন্ট খোলা, টাকা স্থানান্তর, মোবাইল ব্যাংকিং, গ্যাস-বিদ্যুৎসহ বিভিন্ন সরকারি সেবার বিল প্রদান, মোবাইল রিচার্জ, ব্যাল্যান্স অনুসন্ধানসহ সব ধরনের ব্যাংকিং সেবা রাত-দিন সবসময় যে কোনো স্থানে বসে পাওয়া যায়। তথ্যপ্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে উদ্ভাবনী এ সেবা চালুর জন্য ‘মোস্ট ইনোভেটিভ মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাপ (এনআরবিসি প্ল্যানেট)-২০২২’ দেওয়া হয়েছে। এনআরবিসি ব্যাংকের চেয়ারম্যান এসএম পারভেজ তমাল বলেন, প্রবাসীদের স্বপ্নের এই ব্যাংকের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে খুব সহজে সব মানুষের দুয়ারে ব্যাংকিং সেবা পৌঁছে দেওয়া। এজন্য তথ্যপ্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে একটি মোবাইলঅ্যাপের মাধ্যমে সব ধরনের ব্যাংকিং সেবা দিচ্ছি। আর প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলের মানুষ যারা ব্যাংকিং থেকে বঞ্চিত, তাদের জন্য চালু করেছি ক্ষুদ্রঋণ প্রকল্প। এতে বিনাজামানতে স্বল্পসুদে ঋণ নিয়ে ঘরে বসেই তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হচ্ছে। এসব ভালো কাজের আন্তর্জাতিক এই স্বীকৃতি আমাদের দায়িত্ববোধ আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। গরিব মানুষের ভরসা ও আস্থার ব্যাংকে পরিণত হতে আরও কার্যকরী পদক্ষেপ নেবে এনআরবিসি ব্যাংক। সারাবিশ্বের বিভিন্ন ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের ২০২২ সালের কার্যক্রম মূল্যায়ন করে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ‘বার্ষিক গ্লোবাল ইকোনমিক্স অ্যাওয়ার্ড’ দেওয়া হয়। ২০১৩ সালের ২ এপ্রিল যাত্রা শুরু করে এনআরবিসি ব্যাংক। সাধারণ মানুষের ব্যাংকিং সেবা নিশ্চিত করতে সর্বপ্রথম উপ-শাখা ধারনায় ব্যাংকিং শুরু করে ব্যাংকটি। এরই মধ্যে ১০৩টি শাখাসহ সারাদেশে এক হাজারেরও বেশি উপ-শাখা, বুথ ও বিভিন্ন সেবাকেন্দ্র রয়েছে। উদ্ভাবনী সেবার জন্য এর আগে দুইবার ছয় ক্যাটাগরিতে এশিয়ার সেরা ব্যাংক হিসেবে- সাউথ এশিয়ান বিজনেস এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড, বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক বেস্ট ডিলার ব্যাংক, আরটিভি কৃষি পদক, এসিএস চালানের মাধ্যমে বেসরকারি ব্যাংকগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ রাজস্ব সংগ্রহকারী ব্যাংকের স্বীকৃতি পেয়েছে এনআরবিসি ব্যাংক।

    বিনাভোটের নির্বাচন করতে পারবে না সরকার, রংপুরে ডাকসু’র ভিপি: নুর 

    সাইফুল ইসলাম মুকুল, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট (রংপুর): জাতীয় নির্বাচন নিয়ে পশ্চিমা বিশ্ব সরব থাকার কারণে আওয়ামী লীগ সরকার এবার বিনাভোটের নির্বাচন করতে পারবে না বলে মন্তব্য করেছেন গণ অধিকার পরিষদের সদস্য সচিব, সাবেক ডাকসু’র ভিপি নুরুল হক নুর। বিকেলে রংপুর পাবলিক লাইব্রেরী মাঠে সদস্য ফরম উন্মোচন এবং শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আওয়ামী লীগ-বিএনপি পর্যায়ক্রমে দেশে ক্ষমতায় থাকার পরে মানুষের আকাঙ্খা-স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে পারেনি।  আওয়ামী লীগ সরকার উন্নয়নের কথা বলে ১৪ বছর ক্ষমতায় থেকে দেশকে খাদের কিনারায় নিয়ে গেছে।  গণঅধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক ও রংপুর বিভাগীয় সমন্বয়ক হানিফ খান সজিবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন, কেন্দ্রীয় ও স্থানীয়  নেতারা।

    বছর সেরা ফুটবলার মেসি, ১২ নম্বরে নেইমার

    স্পোর্টস আপডেট ডেস্ক: কাতার বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনাকে শিরোপা উপহার দিয়ে ক্যারিয়ারের সর্বোচ্চ সাফল্য অর্জন করেছেন লিওনেল মেসি। বিশ্বকাপ শুরুর আগেই ধরে নেয়া হয়েছিল আর্জেন্টাইন এই সুপারস্টারের এটিই হবে ক্যারিয়ারের শেষ বিশ্বকাপ। সে কারণে অন্তত একবার বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারকে আরো সমৃদ্ধ করতে বিশ্বকাপের শিরোপা হাতে নেবার লক্ষ্য ছিল মেসির। কাতারে তিনি শুধুমাত্র দলকে বিশ্বকাপই এনে দেননি, টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় হিসেবে গোল্ডেন বলও জয় করেছেন। ব্রিটিশ গণমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান বর্ষসেরা ফুটবলারের শীর্ষ খেলোয়াড়ের তালিকাটি বছর শেষে ঘোষণা করে। এবার কাতার বিশ্বকাপ ঐতিহ্যের বাইরে গিয়ে নভেম্বর-ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত হওয়ায় বিশ্বকাপের পারফরমেন্স শেষেই গার্ডিয়ান সেরা ১০০ জনের নাম ঘোষণা করতে পেরেছে। গতকাল শীর্ষ ১০০ ফুটবলারের তালিকা প্রকাশ করেছে গার্ডিয়ান। বিচারকদের দৃষ্টিতে মেসিই হয়েছেন নাম্বার ওয়ান। বিচারক প্যানেলের ৭৬ শতাংশ ভোট পেয়েছেন মেসি। ১৩ শতাংশ বিচারকের চোখে বছরের সেরা খেলোয়াড় ছিলেন কিলিয়ান এমবাপ্পে। ১০ শতাংশ ভোট পেয়েছেন করিম বেনজেমা। সেরা তিনে আছেন এই তিনজন। গত বছর রবার্ট লিওয়ানদোস্কি ৫৩ শতাংশ ভোট পেয়ে এক নম্বর হয়েছিলেন। প্রায় এক দশক ধরে গার্ডিয়ান এই তালিকা তৈরী করছে যেখানে মেসি কখনই শীর্ষ তিনের বাইরে যাননি। ধারাবাহিকভাবেই তিনি নিজের অবস্থান ধরে রেখেছেন। যে কারণে বিচারকদের কাছেও তিনি দারুন জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিলেন। শীর্ষ দুই থেকে তিনি একবারই বাদ পড়েছিলেন ২০১৮ সালে, যখন লুকা মড্রিচ ও ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো যথাক্রমে প্রথম ও দ্বিতীয় হয়েছিলেন। এই তালিকায় ম্যানচেস্টার সিটির সর্বোচ্চ ১২ জন খেলোয়াড় সুযোগ পেয়েছেন। শীর্ষ ১০০ জনে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ খেলোয়াড় রয়েছেন রিয়াল মাদ্রিদের। শীর্ষ দশের মধ্য চারজন খেলোয়াড় রয়েছেন গ্যালাকটিকোদের, করিম বেনজেমা, মড্রিচ, ভিনিসিয়াস জুনিয়র ও থিবো কোর্তোয়া। জাতীয় দল হিসেবে ব্রাজিলের সর্বোচ্চ ১৪ জন খেলোয়াড় রয়েছেন এই তালিকায়। এতেই প্রমাণিত হয় শুধুমাত্র বিশ্বকাপের পারফরমেন্সের উপর এককভাবে ভিত্তি করে এই তালিকা প্রস্তুত করা হয়নি। লিগ হিসেবে প্রিমিয়ার লিগের খেলোয়াড়দের আধিক্য রয়েছে। বিশ্বের অন্যতম শক্তিশালী এই লিগের ৪৩ জন খেলোয়াড় রয়েছেন এই তালিকায়। বর্তমান ও সাবেক ফুটবলার ছাড়াও কোচ, সাংবাদিকেরা মিলে মোট ২০৬ জন বিচারক মূল্যায়ন করেছেন ফুটবলারদের। প্রত্যেককে ৪০ জন খেলোয়াড়ের নাম দিতে হয়েছে। কোন বিচারকের তালিকায় ১ নম্বরে থাকা খেলোয়াড় পেয়েছেন ৪০ পয়েন্ট, দুইয়ের জন্য বরাদ্দ ছিল ৩৯ পয়েন্ট। এভাবে ৪০ নম্বর খেলোয়াড় পেয়েছেন ১ পয়েন্ট। তবে অন্তত পাঁচ বিচারকের ভোট না পেলে কেউ বিবেচিত হননি তালিকায়। একাধিক খেলোয়াড়ের মোট পয়েন্ট সমান হলে যে খেলোয়াড় বেশি বিচারকের ভোট পেয়েছেন তাকে ওপরে রাখা হয়েছে। গার্ডিয়ানের বিবেচনায় সেরা ২০ ফুটবলার নং    খেলোয়াড়                 ক্লাব                দেশ ১.    লিওনেল মেসি           পিএসজি                 আর্জেন্টিনা ২.    কিলিয়ান এমবাপ্পে       পিএসজি                 ফ্রান্স ৩.    করিম বেনজেমা         রিয়াল মাদ্রিদ             ফ্রান্স ৪.    আর্লিং হালান্ড            ম্যানচেস্টার সিটি        নরওয়ে ৫.    লুকা মড্রিচ             রিয়াল মাদ্রিদ             ক্রোয়েশিয়া ৬.    কেভিন ডি ব্রুইনা        ম্যান সিটি         বেলজিয়াম ৭.    রবার্ট লিওয়ানদোস্কি     বার্সেলোনা         পোল্যান্ড            ৮.    ভিনিসিয়াস জুনিয়র      রিয়াল মাদ্রিদ             ব্রাজিল ৯.    থিবো কোর্তোয়া          রিয়াল মাদ্রিদ             বেলজিয়াম ১০.   মোহাম্মদ সালাহ         লিভারপুল         মিশর ১১. সাদিও মানে              বায়ার্ন মিউনিখ           সেনেগাল ১২.  নেইমার                  পিএসজি                 ব্রাজিল ১৩. হ্যারি কেন             টটেনহ্যাম         ইংল্যান্ড ১৪. জুড বেলিংহ্যাম          বরুসিয়া ডর্টমুন্ড          ইংল্যান্ড ১৫. ক্যাসেমিরো           ম্যান ইউ          ব্রাজিল ১৬. আশরাফ হাকিমি         পিএসজি                 মরক্কো ১৭. আঁতোয়ান গ্রীজম্যান     এ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ    ফ্রান্স ১৮.         ফেডেরিকো ভালভার্দে   রিয়াল মাদ্রিদ             উরুগুয়ে ১৯.  পেড্রি               বার্সেলোনা         স্পেন ২০. এমিলিয়ানো মার্টিনেজ   এ্যাস্টন ভিলা            আর্জেন্টিনা

    খালেদা জিয়া রাজনীতি করবেন না বলে মুচলেকা দিয়েছেন: শেখ সেলিম

    সময়ের কন্ঠস্বর ডেস্ক: জাতীয় সংসদে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম বলেছেন, বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া রাজনীতি করবেন না, এমন মুচলেকা দেওয়া হয়েছে। তাঁর ভিত্তিতে তাঁকে বাসায় নেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর আনা ধন্যবাদ প্রস্তাবের আলোচনায় অংশ নিয়ে শেখ সেলিম এ কথা জানান। তবে এ মুচলেকা খালেদা জিয়া নিজে দিয়েছেন, নাকি তাঁর পরিবারের সদস্যরা দিয়েছেন, তা এই সংসদ সদস্যের বক্তব্যে পরিষ্কার নয়। বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ১৭ বছরের সাজা হওয়ায় নির্বাচন করতে পারবেন না উল্লেখ করে শেখ সেলিম জানান, খালেদা জিয়ার ভাই ও বোন হাসপাতাল থেকে বাসায় আনার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে গিয়ে অনুরোধ করেছিল। তিনি বলেন, 'সাজাপ্রাপ্ত আসামীকে সরাসরি বাসায় আনা যায় না। যদি বাসায় বসে আবার রাজনীতি করে। সেই জন্য প্রধানমন্ত্রী তাদের বললো বাসায় গিয়ে আবার রাজনীতি করবে। সেটাতো দেওয়া যাবে না। তখন তারা মুচলেকা দিয়ে বলেছে-খালেদা জিয়া রাজনীতি করবে না। সাজাপ্রাপ্ত আসামী রাজনীতি করবে না।' শেখ সেলিম বলেন, মুচলেকা দেওয়া ব্যক্তি ১০ ডিসেম্বর ক্ষমতা দখল করবে, শেখ হাসিনার পতন ঘটাবে। এসব প্রচার হলো জনগণকে বিভ্রান্ত ও তাদের লোকদের কিছু খোরাক দেওয়ার জন্য বলে। তারেক রহমান ২০০৭ সালে রাজনীতি না করার মুচলেকা দিয়ে বিদেশ গিয়েছে-এমন মন্তব্য করে তিনি বলেন, একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় ৩০ বছর সাজা হয়েছে। মানিলন্ডারিং মামলায় সাত বছর সাজা হয়েছে। তারেক জিয়া কখনোই ঢাকায় আসবে না। ঢাকায় আসলে তাকে জেলে যেতে হবে। জেলে গেলে রাজনীতিতো দূরের কথা কখনোই নির্বাচনই করতে পারবে না। তিনি বলেন, তারেককে মেরামত করতে দেশের জনগণ অধীর আগ্রহে বসে আছে। কিন্তু আসবে না, ও কোন দিন বাংলাদেশে আসবে না। তিনি বলেন, কিছুদিন ধরে দেখা যাচ্ছে আমাদের রাজনীতির ব্যাপারে কিছু কূটনীতিকরা তোড়জোড় করছে। কারও কারও বাড়িতেও গিয়ে হাজির হচ্ছে। একি আশ্চর্য! কি বিচিত্র এই দেশ। অভ্যন্তরীণ রাজনীতি নিয়ে কূটনীতিকদের হস্তক্ষেপ করার কোন অধিকার নেই। এদেশের রাজনীতি নির্ধারণ করবে জনগণ। ৩০ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে স্বাধীন হয়েছি। আমাদের কোন প্রভু নেই। আমাদের প্রভু হলো এই দেশের জনগণ। কারও প্রেসক্রিপশনে এই বাংলাদেশ চলবে না। শেখ সেলিম বলেন, আমরা কী তাদের দেশের রাজনীতি নিয়ে কোন কথা বলি? আমরা তাদের নির্বাচন নিয়ে কথা বলি? আমেরিকার নির্বাচনে কারচুপি হয়েছে বলেছিল..আমরা কী সেখানে গিয়ে বলেছি আসো আমরা সালিশি করি। কিছুদিন আগে মালেয়শিয়ার নির্বাচন নিয়ে একই অভিযোগ উঠেছিল। ওখানে কি আমরা হস্তক্ষেপ করেছি? আমাদের দেশের রাজনীতি নিয়ে কোন বিদেশি কূটনীতিকদের হস্তক্ষেপ করার অধিকার নেই। সংবিধান অনুযায়ী আগামী জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, কে আসলো, কে আসলো না.. ওই সত্তর সালের নির্বাচনেও মাওলানা ভাসানীর ন্যাপ হঠাৎ করে নির্বাচন থেকে উঠে চলে গেলেন। আজকে তাঁর পার্টির অবস্থান কোথায়? তোমরা যদি একটার পর একটা নির্বাচন না করো, তোমাদেরও করুণ পরিণতি হবে।

    শুনেছি ক্ষমা পেয়েছি, তবে চিঠি আনতে যাইনি: ডা. মুরাদ

    সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা: জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদকের পদ থেকে অব্যাহতি পাওয়া সাবেক প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসানের শাস্তি প্রত্যাহার করে দল থেকে ক্ষমা করে দেওয়া হয়েছে।  বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) দুপুরে ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে ময়মনসিংহ বিভাগীয় প্রতিনিধি সভায় ডা. মুরাদ নিজেই এ তথ্য জানান।   ক্ষমা চেয়ে আবেদন করেছেন কি না এমন প্রশ্নে ডা. মুরাদ জানান, আমি আবেদন করেছিলাম। আমাকে ক্ষমা করে দিয়েছে বলে জানতে পেরেছি। কিন্তু এখনো চিঠি আনতে যাইনি।  তিনি আরও বলেন, গাজীপুরের মেয়র জাহাঙ্গীর আরও গুরুতর কথা বলেছিলেন, তাই তিনি চিঠিটা দ্রুত নিয়েছেন। ২০২১ সালের ৭ ডিসেম্বর ‘দলীয় ভাবমূর্তি বিনষ্ট, অগঠনতান্ত্রিক ও শৃঙ্খলা পরিপন্থি কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ততার অভিযোগে’ জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদকের পদ থেকে তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। এর আগে একটি অডিও কেলেঙ্কারির ঘটনায় তুমুল আলোচনা-সমালোচনার মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে তথ্য প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব থেকে তিনি পদত্যাগ করেন। প্রসঙ্গত, চিকিৎসাবিদ্যার ডিগ্রিধারী ডা. মুরাদ হাসান ২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের টিকেটে জামালপুর-৪ সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর ২০১৮ সালে তিনি দ্বিতীয়বার সংসদ সদস্য হন।  ২০১৯ সালে শেখ হাসিনা টানা তৃতীয়বার সরকার গঠন করলে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান মুরাদ। ওই বছরই তাকে স্বাস্থ্য থেকে সরিয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব দেওয়া হয়।

    নিয়ন্ত্রণে এলেও জঙ্গিবাদ মূলোৎপাটন হয়নি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

    সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা: জঙ্গিদের নিয়ন্ত্রণ করা গেলেও এখনো তাদের মূলোৎপাটন করা যায়নি বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) সকালে রাজধানী উচ্চ বিদ্যালয়ের পূজামণ্ডপ পরিদর্শন শেষে এ কথা বলেন তিনি। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সরকার জঙ্গিদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতিতে আছে। যেকোনো মূল্যেই তাদের নির্মূল করা হবে। পাহাড়ে আশ্রয় নেওয়া ৫২ জঙ্গিকে আইনের আওতায় আনা হবে জানিয়ে আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সতর্ক আছে। বিভিন্ন সংস্থা সমন্বিতভাবে কাজ করছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গা সংকটের সমাধান না হলে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর অনুপ্রবেশ ঘটতে পারে। ক্যাম্প এলাকায় সাম্প্রতিক জঙ্গি আস্তানার সন্ধান সেটিরই ইঙ্গিত বহন করে। এছাড়া ইয়াবার টাকা ভাগাভাগি নিয়ে বিভিন্ন রোহিঙ্গা গ্রুপ মারামারি করছে বলেও জানান তিনি।

    এবার ঢাকায় ৪ দিনব্যাপী নতুন কর্মসূচি ঘোষণা বিএনপির

    সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা: রাজধানী ঢাকায় নতুন কর্মসূচি নিয়েছে বিএনপি। এবার ঢাকার এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় ‘পদযাত্রা’ করবে দলটি। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার এবং ১০ দফা দাবি আদায়ে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ বিএনপি এ কর্মসূচি পালন করবে।  আজ বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) বেলা ১১টায় রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ কর্মসূচির ঘোষণা দেন।  কর্মসূচির মধ্যে ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপি আগামী ২৮ জানুয়ারি দুপুর ২টায় বাড্ডা সুবাস্তু টাওয়ারের সামনে থেকে মালিবাগ আবুল হোটেল পর্যন্ত পদযাত্রা করা হবে। আর ৩১ জানুয়ারি দুপুর ২টায় গাবতলী থেকে শুরু হয়ে মাজার রোড হয়ে মিরপুর ১০ নম্বর গোল চত্বরে গিয়ে পদযাত্রা শেষ হবে। অন্যদিকে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি ৩০ জানুয়ারি দুপুর ২টায় যাত্রাবাড়ী থেকে শ্যামপুর পর্যন্ত পদযাত্রা করবে। আর ১ ফেব্রুয়ারি দুপুর ২টায় মুগদা থেকে শুরু হয়ে মালিবাগে গিয়ে শেষ হবে ‌পদযাত্রা। এই পদযাত্রা শান্তিপূর্ণভাবে শেষ হবে উল্লেখ করে বিএনপি মহাসচিব জনগণকে স্বতঃস্ফূর্তভাবে এতে অংশ নেওয়ার আহ্বান জানান। মির্জা ফখরুল বলেন, বিএনপির শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে হামলা চালানো হচ্ছে। নিম্ন আদালত সরকারের নিয়ন্ত্রণে চলছে। হাইকোর্ট থেকে জামিন নিয়ে নিম্ন আদালতে গেলে তাদের কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। এতে প্রমাণ হয় নিম্ন আদালত সরকারের নিয়ন্ত্রণে চলছে। নির্যাতন নিপীড়ন ভয়াবহ পর্যায়ে নিয়ে গেছে সরকার। বিএনপির আন্দোলন নিয়ে আওয়ামী লীগ নেতারা যাই বলুক, তাদের কথার উত্তর দিতে রুচিতে আটকায়, তাদের ও সরকারের বক্তব্যের জবাব দেওয়া হবে রাজপথে। যারা দিনের ভোট রাতে করে যারা ১৫৪ জনকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা দেয়, তাদের মুখে বিএনপির নেতৃত্ব ও গণতান্ত্রিক আন্দোলন নিয়ে কথা বলা মানায় না। তারা লজ্জা-শরমহীন। এক প্রশ্নের জবাবে মির্জাপুর বলেন, এই মুহূর্তে বিএনপির ঢাকা মহানগর উত্তর দক্ষিণ এ কর্মসূচি পালন করবে। তবে যুগপৎভাবে আমরা সমমনা রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা করব, আলোচনা করে তারা যদি থাকতে চায় কর্মসূচিতে তারাও থাকবে। দলের অন্যান্য অঙ্গ সহযোগী সংগঠনগুলোও কর্মসূচিতে মাঠে নামবে। ৪ ফেব্রুয়ারি বিভাগীয় সমাবেশ কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে।

    বিআইডব্লিউটিএর অনুমোদন ছাড়া কোনো সেতু নয়: নৌপ্রতিমন্ত্রী

    সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা: বিআইডব্লিউটিএর অনুমোদন ছাড়া কোনো সেতু নির্মাণ করা যাবে না বলে জানিয়েছেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালেদ মাহমুদ। এ ক্ষেত্রে ডিসিদের কার্যকরী ভূমিকা রাখারও নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) দুপুর ১২টায় ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত জেলা প্রশাসক (ডিসি) সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন। প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমাদের নদীগুলোতে বিভিন্ন ধরনের জাহাজ চলাচল করে। এ ক্ষেত্রে কোন নদীতে কোন জাহাজ চলাচল করবে, সেটা মাথায় রেখেই সেতুগুলো নির্মাণ করতে হবে। সেটির ক্লিয়ারেন্স দেয় বিআইডব্লিউটিএ। এ ক্ষেত্রে তাদের অনুমোদন ছাড়া রোডস, এলজিইডি, সেতু বিভাগ কেউই যেন কোনো ব্রিজ নির্মাণ করতে না পারে, এ বিষয়ে জেলা প্রশাসকদের তদারকি করতে বলেছি।

    সৌদিতে ভবনের ছাদ থেকে পড়ে রেমিট্যান্স যোদ্ধার মর্মান্তিক মৃত্যু 

    আব্দুল্লাহ আল মামুন, সৌদিআরব প্রতিনিধি: সৌদি আরবের পবিত্র মক্কা নগরীর একটি ৩ তলা ভবনের ছাদ থেকে পড়ে রাশেদ মামুন (২৯) নামের এক রেমিট্যান্স যোদ্ধার মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে ।  নিহত রাশেদ মামুন কক্সবাজার জেলার রামু উপজেলার ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নের পূর্ব মেরংলোয়া গ্রামের আশরাফজামানের সন্তান ।  গতকাল মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) সৌদিআরব সময় দুপুর ১টার দিকে সৌদি আরবের পবিত্র মক্কা নগরীতে এই দুর্ঘটনাটি ঘটে। জানা যায়, মামুন গতকাল মঙ্গলবার সৌদি আরবের পবিত্র মক্কায় নির্মাণাধীন ৩ তলা ভবনের কাজ শেষ করে সৌদি মালিককে বুঝিয়ে দিচ্ছিলেন।এসময় ছাদ পরিমাপকালে অসাবধানতাবশত পা পিছলে ৩ তলা ভবনের ছাদ থেকে নিচে পড়ে যান। এতে তার মাথা ও শরীরের বিভিন্ন জায়গাতে গুরুতর জখম হয়। পরবর্তী তাকে স্থানীয় একটি হাসপাতালে দ্রুত নিয়ে গেলে কর্তৃব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। নিহত মামুন দীর্ঘ ৮/৯ বছর যাবত জীবিকার তাগিদে সৌদি আরবে কর্মরত ছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি এক ছেলে এক মেয়ে, মা-বাবা, ভাই-বোন রেখে গেছেন। এদিকে মামুনের মৃত্যুর সংবাদে পরিবার ও এলাকাজুড়ে শোকাবহ পরিবেশ বিরাজ করছে। নিহত মামুনের মরদেহ স্থানীয় হাসপাতালের হিমঘরে সংরক্ষিত করে রাখা হয়েছে ।  

    নওগাঁয় বন্ধুর ছুরিকাঘাতে বন্ধু নিহত

    নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁ পৌরসভায় আড্ডা চলাকালীন সময়ে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে ছুরিকাঘাতে ইমন হোসেন (২৫) নামে এক তরুণের মৃত্যু হয়েছে।  মঙ্গলবার (২৪ জানয়ারি) দিবাগত রাতে পৌরসভার ভবানীপুর এলাকার শাহাপুর মোড়ে ছুরিকাঘাতের এ ঘটনা ঘটে। বুধবার বিকালে নওগাঁ সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই তরুণের মৃত্যু হয়। নিহত ইমন নওগাঁ পৌরসভার ভবানীপুর এলাকার সাইদুল ইসলামের ছেলে।  স্থানীয় ও নওগাঁ সদর থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত মঙ্গলবার রাতে ইমন, বগুড়ার আদমদিঘী উপজেলার ছাতিয়ানগ্রাম এলাকার বাসিন্দা রাজু পালোয়ান ও তাদের পরিচিত কয়েকজন পৌরসভার নওগাঁ-সান্তাহার সড়কের শাহাপুর মোড়ে আড্ডা দিচ্ছিলেন। এক পর্যায়ে ইমনের সঙ্গে রাজুর কথা কাটাকাটি হয়। পরে দুজনের মধ্যে হাতাহাতিতে রূপ নেয়। এ সময় রাজু তার কাছে থাকা ছুরি দিয়ে ইমনের পেটে আঘাত করে। ইমনের চিকিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করে নওগাঁ সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন।  নওগাঁ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ ফয়সান বিন আহসান বলেন, নওগাঁ সদর হাসপাতাল মর্গে মরদেহের ময়নাতদন্ত শেষে লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় একটি মামলা দায়েরে করা হয়েছে।  মূল অভিযুক্ত রাজু পালোয়ান ও তাঁর সহযোগীরা পলাতক রয়েছেন। তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

    আসিফকে ই-পাসপোর্ট দিতে হাইকোর্টের নির্দেশ

    বিনোদন ডেস্ক: বাংলা অডিও গানের যুবরাজখ্যাত গায়ক আসিফ আকবরকে ই-পাসপোর্ট দিতে ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদফতরের মহাপরিচালককে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। বুধবার (২৫ জানুয়ারি) এ-সংক্রান্ত জারি করা রুল নিষ্পত্তি করে বিচারপতি জাফর আহমেদ ও বিচারপতি মো. বশির উল্লাহর হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে আসিফের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার সাজ্জাদ হায়দার। তার সঙ্গে ছিলেন ব্যারিস্টার এম আনিসুজ্জামান। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল নওরোজ রাসেল চৌধুরী, সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল গোলাম সারওয়ার পায়েল। ই-পাসপোর্ট দেওয়ার আদেশের বিষয়টি নিশ্চিত করে ব্যারিস্টার সাজ্জাদ হায়দার বলেন, কণ্ঠশিল্পী আসিফ আকবরের পাসপোর্ট দিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে গত ১ সেপ্টেম্বর রুল জারি করেন হাইকোর্ট। সেই রুলের চূড়ান্ত শুনানি শেষে আজ (২৫ জানুয়ারি) রুলটি নিষ্পত্তি করে দিয়েছেন আদালত। এখন আসিফ আকবরকে তার ই-পাসপোর্ট দিতে হবে। এর আগে, ই-পাসপোর্টের আবেদনের এক বছর পার হয়ে গেলেও পাসপোর্ট না দেওয়ায় গত বছরের ৩০ আগস্ট হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন আসিফ আকবর।  রিটে স্বরাষ্ট্র সচিব, ইমিগ্রেশন এন্ড পাসপোর্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পাসপোর্ট, ভিসা এন্ড ইমিগ্রেশন), পরিচালক (প্রশাসন ও অর্থ), পরিচালক (ই-পাসপোর্ট প্রকল্প), পরিচালক (বিভাগীয় ভিসা ও পাসপোর্ট অফিস,ঢাকা), যুগ্ম পরিচালকে (আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস, ঢাকা) বিবাদী করা হয়।

    খেলা শুরু হলে বিএনপির আন্দোলন ভেস্তে যাবে: ওবায়দুল কাদের

    সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা: আওয়ামী লীগ মাঠে নামলে বিএনপিকে খুঁজেই পাওয়া যাবে না বলে মন্তব্য করেছেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, খেলা যখন শুরু হবে তখন বিএনপির গনজোয়ারের নামে আন্দোলন ভেস্তে যাবে।  আজ বুধবার (২৫ জানুয়ারি) দলের বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের গণঅভ্যুত্থান দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।  ওবায়দুল কাদের বলেন, আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে রাজপথে সন্ত্রাস আর নৈরাজ্য করলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পাশে থেকে কঠোর জবাব দিতে প্রস্তুত দল।গণঅভ্যুত্থান করতে মানুষ লাগে, কিন্তু বিএনপির সাথে কোনো জনসম্পৃক্ততা নেই। বিএনপি এখন পথহারা পথিকের মতো দিশাহারা মন্তব্য করে তিনি বলেন, 'খেলা তো এখনো শুরু করিনি, মাত্র সূচনা। খেলা যখন হবে কোথায় যাবে এই গণজোয়ার! এখন নেতাকর্মীরা আছে, জনগণ নাই। পাবলিক ভালো আছে, বিএনপির মন খারাপ।' তিনি বলেন, আমাদের আজকের কর্মসূচি পাল্টাপাল্টি নয়। এটা গণঅভ্যুত্থানের কর্মসূচি। বিএনপি এসব দিবস পালন করে না। আওয়ামী লীগের কর্মসূচিতে বিএনপির কেন অন্তর জ্বালা? কাদের বলেন, লাল কার্ড দেখাতে গিয়ে শূন্য হাতে ফিরেছেন মির্জা ফখরুল। সরকার পতন, ৫৪ দল, ১০ দফা, তত্ত্বাবধায়ক সরকার সবই ভুয়া। বিএনপির হাঁক-ডাক, লোটা-কম্বল, সাত দিন আগ থেকে সমাবেশের প্রস্তুতি সবই ব্যর্থ।

    চালু হলো পল্লবী স্টেশন, ৭ মিনিটে পল্লবী টু আগারগাঁও

    সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা: চালু হয়েছে মেট্রোরেলের পল্লবী স্টেশন। বুধবার থেকে রাজধানীর এই স্টেশনে যাত্রী উঠা নামায় থামছে ট্রেন। সকাল সাড়ে ৮টায় শুরু হয়ে এ স্টেশনের কার্যক্রম চলবে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত। মঙ্গলবার সাপ্তাহিক বন্ধ ছাড়া সপ্তাহের বাকি ছয় দিনই মেট্রোরেলে চলাচল করছে। একইসঙ্গে মেট্রোরেলের চলাচলের সময়েরও পরিবর্তন হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে মিরপুরের যাত্রীদের নতুন একটি চলাচলের পথ উন্মুক্ত হলো। মেট্রোরেলের মাধ্যমে তারা এখন অনায়াসে উত্তরা ও আগারগাঁও যেতে পারবেন। প্রথমদিন রাজধানীর উত্তরা থেকে ট্রেনটি মিরপুরের পল্লবী স্টেশনে যখন পৌঁছে, তখন সকাল ৮ টা ৩৫ মিনিট। যাত্রী ওঠার পর ট্রেনটি আগারগাঁওয়ের উদ্দেশ্য রওনা হয় ৮টা ৩৭ মিনিটে। পল্লবী থেকে আগারগাঁও আসতে যাত্রীদের সময় লেগেছে মাত্র ৭ মিনিট। ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড-ডিএমটিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ এন ছিদ্দিক জানান, তিনটি স্টেশনে সকাল সাড়ে ৮টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত ট্রেন চলাচল করবে। তবে টিকিট কাটার সুবিধার্থে যাত্রীদের জন্য গেট খোলা হবে সকাল ৮টা থেকে। ট্রেনগুলো আগের মতোই ১০ মিনিট পরপর চলাচল করবে। ডিএমটিসিএলের মহাব্যবস্থাপক ইফতেখার হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, প্রথম দিনের শুরুতে পল্লবী স্টেশনে যাত্রী সংখ্যা কিছুটা কম। দিন বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে যাত্রীর সংখ্যা বাড়বে। গত ২৮ ডিসেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে উত্তরা থেকে আগারগাঁও মেট্রোরেল চালু হয়। এতদিন এ দুটি স্টেশনে যাত্রীরা চলাচল করতে পারতেন। আজ বুধবার থেকে পল্লবী স্টেশনে ট্রেন থামতে শুরু করেছে। ১১ দশমিক ৭৩ কিলোমিটার দীর্ঘ দিয়াবাড়ী-আগারগাঁও রুটে স্টেশনের সংখ্যা ৯টি। আজ পল্লবীসহ সচল হচ্ছে তিনটি। উত্তরা সেন্টার, উত্তরা সাউথ, মিরপুর-১১, মিরপুর-১০, কাজীপাড়া ও শেওড়াপাড়া স্টেশনে আগামী ২৬ মার্চ থেকে ট্রেন থামবে। পল্লবী থেকে আগারগাঁওয়ের ভাড়া ৩০ টাকা। দিয়াবাড়ীর ভাড়াও ৩০ টাকা।

    উন্নয়নের ছোঁয়ায় পাল্টে গেছে নওগাঁর সড়কগুলোর দৃশ্যপট

    নওগাঁ প্রতিনিধি: বর্তমান আওয়মীলীগ সরকারের আমলে পাল্টে গেছে নওগাঁর সড়কগুলোর চিত্র। ২০০৯ সাল থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত নওগাঁ সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধিনে ১৭টি প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে।  এরমধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য প্রকল্পগুলো হলো নওগাঁর নজিপুর-ধামইরহাট-জয়পুরহাট সড়ক উন্নয়ন প্রকল্প, নওগাঁ-বদলগাছী-পত্নীতলা সড়ক উন্নয়ন এবং মহাদেবপুর ও বদলগাছী ব্রীজ নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় মহাদেবপুর এবং বদলগাছী সেতু নির্মাণ, পত্নীতলা-সাপাহার-পোরশা-রহনপুর সড়ক উন্নয়ন প্রকল্প, পিএমপি প্রোগ্রামের আওতায় আত্রাই সিংড়া সড়ক, মান্দা-বাঘমারা-আত্রাই সড়কে আহসানগঞ্জ সেতু নির্মাণ প্রমুখ। যার মোট বরাদ্দ ছিলো ৯৩১০৫.২৪ লক্ষ টাকা।  আর ১৭২১৫৫.৭৯৫ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ৬টি প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে। চলমান প্রকল্পগুলো হচ্ছে নওগাঁ সড়ক বিভাগাধীন ১টি আঞ্চলিক ও ২টি মহাসড়ক যথাযথ মান ও প্রশস্ততায় উন্নীতকরন প্রকল্পের আওতায় বদলগাছী-পাহাড়পুর-জহয়পুরহাট সড়ক উন্নয়নের কাজ, নওগাঁ-আত্রাই-নাটোর মহাসড়কের অসমাপ্ত কাজ সমাপ্তকরণ, পিএমপি প্রোগ্রামের আওতায় এনায়েতপুর-মহাদেবপুর-পাটাকাটাহাট-মান্দা সড়কের উন্নয়ন কাজ, চৌমাসিয়া, আব্দুল জলিল পার্ক এবং বশিপুর মোড়ে ইন্টারসেকশন নির্মাণ কাজ, পত্নীতলা-সাপাহার-পোরশা-রহনপুরসড়কের ওভারলেকরণ উন্নয়নের কাজ ও নওগাঁ সড়ক বিভাগাধীন ৩টি আঞ্চলিক ও ৩টি জেলা মহাসড়ক যথাযথ মান ও প্রশস্ততায় উন্নীতকরণ কাজ।  নওগাঁ সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী সাজেদুর রহমান জানান, বর্তমান সরকারের অধীনে পুরো দেশের সঙ্গে নওগাঁর সড়ক ব্যবস্থায় আধুনিকতা ও উন্নয়নের যে ছোঁয়া স্পর্শ করেছে তা বিগত সময়ের কোন সরকারের আমলেই করা হয়নি। বিশেষ করে আত্রাই উপজেলার আত্রাই নদীর উপর নির্মিত সেতু, নওগাঁ থেকে রাজশাহী যাওয়ার মহাসড়ক নতুন করে করে নির্মাণ, ঐতিহাসিক পাহাড়পুর মহাসড়কটি নতুন করে নির্মাণ ও বছরের পর বছর বন্ধ হয়ে থাকা নওগাঁ-নাটোর আঞ্চলিক মহাসড়কের নির্মাণ কাজ নতুন করে শুরু করাসহ সবগুলো প্রকল্পই নওগাঁকে দেশের বিভিন্ন স্থানের সঙ্গে নতুন করে আধুনিকমানের উন্নয়নের মহাসড়কের সঙ্গে যুক্ত করেছে। যার ফলশ্রুতিতে পুরো নওগাঁর দৃশ্যপটে আমুল পরিবর্তনের ছোঁয়া স্পর্শ করেছে। এই সব নতুন করে নির্মাণ হওয়া সড়কের আশেপাশের অঞ্চলের অর্থনৈতিক ব্যবস্থা বদলে গেছে। এই সড়কগুলোকে ঘিরে সৃষ্টি হয়েছে নতুন নতুন কর্মসংস্থানের যার কারণে এই সব অঞ্চলের মানুষের জীবন-যাপনেও এসেছে পরিবর্তনের ছোঁয়া।  তিনি আরো বলেন, আমরা চেস্টা করেছি সরকারের গৃহিত মিশন ও ভিশনকে শতভাগ সফল করতে এই প্রকল্পগুলোকে যথাযথ মান বজায় রেখে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে শেষ করার। তবে বিশেষ কিছু কারণে অনেক প্রকল্পগুলো নির্ধারিত সময়ের মধ্যে শেষ করা না গেলেও সেগুলোও আমরা যথাযথ পর্যবেক্ষনের মাধ্যমে শেষ করেছি। প্রধানমন্ত্রীর ভিশন ডিজিটাল বাংলাদেশ থেকে স্মার্ট বাংলাদেশে প্রবেশের লক্ষ্যে নওগাঁ সড়ক বিভাগের পক্ষ থেকে সব সময় সকল প্রকল্পগুলোকে সঠিক সময়ে ও সঠিক তদারকির মাধ্যমে সম্পন্ন করার ক্ষেত্রে চেস্টা অব্যাহত রেখেছি। আগামীতেও নওগাঁর সড়ক বিভাগের এমন কর্মতৎপড়তা অব্যাহত থাকবে বলে আমি শতভাগ আশাবাদি।  নওগাঁ-৬ (আত্রাই-রাণীনগর) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মো. আনোয়ার হোসেন হেলাল বলেন দেশের সামগ্রিক উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামীলীগ সরকারের কোন বিকল্প নেই। এমন কোন খাত নেই যেখানে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের ছোঁয়া স্পর্শ করেনি। বিগত জোট সরকারের আমলে এই অঞ্চলে সর্বহারা নামক সন্ত্রাসীরা দিনে-দুপুরে মানুষকে গলা কেটে হত্যা করতো। যার কারণে পুরো দেশসহ বিশ্বের কাছে নওগাঁর রাণীনগর ও আত্রাই উপজেলা রক্তাক্ত জনপদ হিসেবে পরিচিতি পায়। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০০৯সালে সরকার গঠনের পরই এই রক্তাক্ত জনপদে বইতে শুরু করে শান্তি সুবাতাস। প্রধানমন্ত্রী কঠোর হাতে সর্বহারা ও জেএমবিকে দমন করেন।  তাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়নের কথা বলে শেষ করা যাবে না। তবে বিশেষ করে আমার নির্বাচনী এলাকা নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার ২২কিমি কালীগঞ্জ সড়কের নতুন পাকাকরণের কাজ ও আত্রাই নদীর উপর নির্মাণ করা আত্রাই সেতু আধুনিক যোগাযোগের ক্ষেত্রে এই দুই উপজেলার সামগ্রিক প্রেক্ষাপট পাল্টে দিয়েছে।  এছাড়াও প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সম্পন্ন একাডেমিক ভবনগুলো এলাকার মানুষদের মাঝে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিতে অগ্রনি ভ’মিকা রাখছে। তাই দেশের মানুষের মৌলিক চাহিদা পূরণ, গৃহিত মেগা প্রকল্পগুলোর বাস্তবায়ন, শান্তি ও উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রেখে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে আগামীতেও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বাধীন আওয়ামীলীগ সরকারের কোন বিকল্প নেই। 

    হবিগঞ্জের তরুণী সৌদি আরবে নির্যাতনের শিকার, দেশে ফেরার আকুতি 

    মঈনুল হাসান রতন, হবিগঞ্জ প্রতিনিধি: সৌদি আরবে নির্যাতনের শিকার হবিগঞ্জের চুনারুঘাটের বাসিন্দা এক তরুণী (২৭) দেশে ফেরার আকুতি জানিয়েছেন।  শনিবার (২১ জানুয়ারি) স্বজনদের সঙ্গে এক ভিডিও কলে কান্নাজড়িত কণ্ঠে সেখানে তার ওপর বর্বরোচিত নির্যাতনের বর্ণনা দেন তিনি। এ সময় তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন। ভিডিও কলে তরুণী সেখানে তার ওপর নির্যাতনের চিহ্ন দেখান। এসময় তাঁর হাত-পায়ে গরম পানি ঢেলে দেওয়া হয়েছে বলেও তিনি জানান। নির্যাতনের শিকার তরুণী উপজেলার উছমানপুর গ্রামের বাসিন্দা।  ওই তরুণীর বাবা বলেন, মেয়ে ভিডিও কলে তার ওপর নির্যাতন করা হচ্ছে জানালে গতকাল সোমবার দালাল দুলাল মিয়াসহ রিক্রুটিং এজেন্সির বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেছেন। আদালত মামলাটি পিবিআইকে তদন্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি তার মেয়েকে দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনতে প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়সহ সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। তিনি বলেন, গত বছরের ২১ ডিসেম্বর দালাল দুলাল মিয়া ঢাকার মডেল এভিয়েশন সার্ভিসের মাধ্যমে তার মেয়েকে সৌদি আরবের দাম্মাম পাঠান। উচ্চ বেতনের প্রলোভন দেখিয়ে তাকে সৌদি আরবে পাঠানো হলেও সেখানে যাওয়ার পর থেকে তার ওপর বর্বরোচিত নির্যাতন চালানো হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, দীর্ঘদিন মেয়ের সঙ্গে তাদের যোগাযোগ বন্ধ ছিল। তাকে স্বজনদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে দেওয়া হয়নি। সর্বশেষ ২১ জানুয়ারি মেয়ের সঙ্গে ভিডিও কলে কথা হয় তাদের। এসময় মেয়ে তার ওপর নির্যাতনের চিহ্ন দেখান। পরে এ ঘটনায় তিনি আদালতে মামলা করেন। এ ব্যাপারে স্থানীয় গাজীপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী বলেন, মেয়েটি খুবই গরিব ঘরের মেয়ে। পরিবারের অসচ্ছলতা ঘোচাতে দালাল ধরে বিদেশে যান। সেখানে তাঁর ওপর নির্যাতনের বিষয়টি দুঃখজনক। তাকে দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য কর্তৃপক্ষের প্রতি অনুরোধ জানান চেয়ারম্যান। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পিবিআইয়ের উপপরিদর্শক (এসআই) মোজাহিদ আলম বলেন, মামলাটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।  চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সিদ্ধান্ত ভৌমিক বলেন, ‘সৌদি আরবে নির্যাতনের বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। আশা করছি, দ্রুতই তাকে দেশে ফিরিয়ে আনা সম্ভব হবে।’

    জাপানে মালবাহী জাহাজ ডুবে নিখোঁজ ১৮

    আন্তর্জাতিক ডেস্ক: জাপানে মালবাহী জাহাজ ডুবে নিখোঁজ ১৮আন্তর্জাতিক ডেস্ক: জাপানের দক্ষিণ-পশ্চিম উপকূলে একটি মালবাহী জাহাজ ডুবির ঘটনায় এখনো ১৮ জন নিখোঁজ রয়েছেন। তবে এ ঘটনায় চার ক্রু সদস্যকে উদ্ধার করা হয়েছে। এখনো উদ্ধারে অনুসন্ধান চালানো হচ্ছে। খবর এএফপি’র। কোস্টগার্ডের একজন নারী মুখপাত্র এএফপি’কে বলেছেন, ‘স্থানীয় সময় সকাল ৭টা ১৭ মিনিটে চীনের চার নাগরিককে উদ্ধার করা হলেও আমরা অবশিষ্ট ১৮ জনকে উদ্ধারে অভিযান চালাচ্ছি।’ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই কর্মকর্তা আরো বলেন, এ উদ্ধার কাজে সহায়তা করতে ‘একটি বিমান ইতোমধ্যে ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে এবং দ’ুটি জাহাজ পথে রয়েছে।’ কোস্টগার্ড জানায়, মঙ্গলবার স্থানীয় সময় রাত ১১টা ১৫ মিনিটের দিকে জাহাজটি থেকে সাহায্যের আবেদন জানানো হয়। জাহাজটি যেখানে অবস্থান করছে সেখানো পৌঁছানো অনেকটা কঠিন ছিল। এটি বর্তমানে একেবারে দক্ষিণ-পশ্চিম জাপানের প্রত্যন্ত এবং জনবসতিহীন ডাঞ্জো দ্বীপপুঞ্জের প্রায় ১১০ কিলোমিটার পশ্চিমে অবস্থান করছে। জাহাজটিতে ১৪ জন চীনা এবং ৮ জন মিয়ানমারের নাগরিক রয়েছে বলে কোস্টগার্ড জানিয়েছে।

    আপাতত বাংলাদেশে আসছে না ‘পাঠান’

    আপাতত বাংলাদেশে মুক্তি পাচ্ছে না শাহরুখ খান অভিনীত বহুল প্রতিক্ষিত ছবি ‘পাঠান’। আজ ২৫ জানুয়ারি ভারত ও ভারতের বাইরে বিভিন্ন দেশে একযোগে মুক্তি পাবে ছবিটি।  এরইমধ্যে খবর ছড়ায় দেশের শাকিব খান অভিনীত ‘পাঙ্কু জামাই’ ছবির বিপরীতে সাফটা চুক্তির আওতায় ‘পাঠান’ মুক্তি দেওয়া হচ্ছে। সব ঠিক থাকলে ভারতে ‘পাঠান’ ছবির মুক্তির দুইদিন পর তথা ২৭ জানুয়ারি বাংলাদেশেও মুক্তি পাবে। কিন্তু না, আপাতত বাংলাদেশে ‘পাঠান’ মুক্তি পাচ্ছে না। মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) দুপুরে বাংলাদেশে ‘পাঠান’ মুক্তির বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের আমদানি-রপ্তানিসংক্রান্ত কমিটির মিটিংয়ে ছবিটি মুক্তির কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি বলেই জানানো হয়েছে। এ খবর জানিয়েছেন হল মালিক সমিতির উপদেষ্টা সুদীপ্ত কুমার দাস। তিনি বলেন, “আপাতত বাংলাদেশে মুক্তি পাচ্ছে না ‘পাঠান’। আজকের মিটিংয়ে যুক্তি তর্কের এক পর্যায়ে ছবিটির মুক্তি নিয়ে সিদ্ধান্ত হয়নি। ছবি আমদানির যে আইন আছে সে আইনের বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের কাছে ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছে।” এ সময় তিনি আরও বলেন, ‘আইনের ৩৪ এর খ-তে বলা আছে, উপমহাদেশীয় ভাষায় নির্মিত ছবি আমদানি করা নিষিদ্ধ। আবার ক-তে বলা আছে, সাফটাভূক্ত দেশের ছবিগুলো আমদানি করা যাবে। এখন এই দুই ধারার পক্ষে বিপক্ষে যুক্তি তর্ক হয়। কিন্তু কোনো সিদ্ধান্তে আসা যায়নি। অবশেষে মন্ত্রণালয়ের কাছে ব্যখ্যা চাওয়া হয়েছে ছবিটির মুক্তির ব্যাপারে।’ একটি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান সাফটা চুক্তির বিনিময়ে ছবিটি বাংলাদেশে আমদানি করতে চায়। বিনিময়ে ভারতে রফতাতি করা হবে শাকিব খান-অপু বিশ্বাসের ‘পাঙ্কু জামাই’ সিনেমাটি। জানা গেছে, এরই মধ্যে সেখানকার ইকো এন্টারটেইনমেন্টের কাছে নাকি রফতানিও করা হয়েছে। এর আগে গত বুধবার বাংলাদেশের সিনেমা আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানটি এ–সংক্রান্ত একটি আবেদন করে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ে। মঙ্গলবার দুপুরে বিষয়টি নিয়ে মন্ত্রণালয়ের আমদানি-রপ্তানিসংক্রান্ত কমিটি মিটিংয়ে বসেন। সেই আলোচনায় যদি সবুজ সংকেত আসেনি, ফলে ২৭ জানুয়ারি এ দেশের মানুষ বড়পর্দায় ‘পাঠান’ দেখতে পারবেন না।

    নওগাঁয় নাশকতার মামলায় জামায়াতের ৬ নেতা কারাগারে

    নওগাঁ প্রতিনিধি: নাশকতার মামলায় নওগাঁয় জামায়াতের ৬নেতা-কর্মীকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।  ঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) নওগাঁর অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ-১ আদালতে হাজির হয়ে জামিনের জন্য আবেদন শুনানি শেষে তাদেরকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন বিচারক এ বি এম গোলাম রসুল। আসামি পক্ষের আইনজীবী আবু সায়েম এ তথ্য নিশ্চিত করেন। কারাগারে পাঠানো ব্যাক্তিরা হলেন, জামায়াতে ইসলামী নওগাঁ জেলা শাখার সহকারী সেক্রেটারি মাইনুল ইসলাম, জেলা কমিটির সদস্য শফি উদ্দিন আহমেদ, নিয়ামতপুর উপজেলার পারইল ইউনিয়ন জামাতের আমীর মোসলেম উদ্দিন, সেক্রেটারি ফিরোজ আল মুজাহিদ, কর্ম পরিষদ সদস্য আবুল কাশেম ও রসুলপুর ইউনিয়ন জামাতের কর্ম পরিষদ সদস্য আসলামুল হক।  আদালত সূত্রে জানা যায়, গত ৪ডিসেম্বর নিয়ামতপুর উপজেলার ধানসুরা এলাকায় অভিযান চালিয়ে ককটেল ও দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করে নিয়ামতপুর থানা পুলিশ। ওই ঘটনায় স্থানীয় জামাতের ছয় নেতার নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত আরও ১০-১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা করে পুলিশ। মঙ্গলবার নওগাঁর অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ এবিএম গোলাম রসুলের আদালতে উপস্থিত হয়ে এজহারভুক্ত ছয় আসামি জামিনের জন্য আবেদন করে।  শুনানি শেষে আদালত তাদের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

    বাংলাদেশকে আরও বেশি সহায়তা করা হবে: বিশ্বব্যাংক এমডি

    সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক: বিশ্বব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এক্সেল ভ্যান ট্রটসেনবার্গ বাংলাদেশে তিন দিনের সফর শেষে আজ রাতে ফেরার কথা রয়েছে। বিশ্বব্যাংক ও বাংলাদেশের মধ্যে অংশীদারিত্বের ৫০ বছর পূর্তি উদযাপন উপলক্ষে বাংলাদেশ সফর করে গেলেন তিনি। সফরকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, কয়েকজন মন্ত্রী ও সরকারের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। এসব বৈঠকে বাংলাদেশকে আগামীতে আরও বেশি সহায়তার আশ্বাস দেন বিশ্বব্যাংক এমডি। মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) বিশ্বব্যাংকের ঢাকা অফিস থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ২০৩১ সালের মধ্যে উচ্চ-মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হতে বাংলাদেশের প্রতি বিশ্বব্যাংকের দৃঢ় সমর্থনের বিষয়টি পুনরায় নিশ্চিত করেছেন সংস্থাটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক। বাংলাদেশের উন্নয়ন ও প্রবৃদ্ধির গতিপথ অনেক দেশের জন্য অনুপ্রেরণা। এটি উল্লেখযোগ্য উপায়ে অনেক উন্নয়ন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করেছে। বাংলাদেশ রেকর্ড সময়ের মধ্যে দারিদ্র্য হ্রাস করেছে। এছাড়া দুর্যোগ ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা ও জলবায়ু পরিবর্তনের সঙ্গে অভিযোজনে একটি অগ্রণী এবং উদ্ভাবনী ভূমিকা পালন করেছে। বিশ্বব্যাংক গত পাঁচ দশক ধরে একটি অবিচল অংশীদার এবং বাংলাদেশকে অন্তর্ভুক্তিমূলক অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও উন্নয়ন অর্জনে সহায়তা করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, গতকাল ভ্যান ট্রটসেনবার্গ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেন। তিনি জলবায়ু পরিবর্তনের অভিযোজন ও দুর্যোগ প্রস্তুতিতে বাংলাদেশের ভূমিকা এবং ২০২০-২০২২ সালের মধ্যে জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ ফোরামের সভাপতি হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর বলিষ্ঠ নেতৃত্বের প্রশংসা করেন। ভ্যান ট্রটসেনবার্গ বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া সত্ত্বেও, বাংলাদেশ ১৯৭১ সাল থেকে ঘূর্ণিঝড়জনিত মৃত্যু ১০০ গুণেরও বেশি কমিয়ে সাহসী ও উদ্ভাবনী পদ্ধতি গ্রহণ করে জলবায়ু স্থিতিস্থাপকতা এবং দুর্যোগ প্রস্তুতিতে বিশ্বব্যাপী আবির্ভূত হয়েছে। বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশকে ৭০০ কিলোমিটারেরও বেশি উপকূলীয় বাঁধ নির্মাণ ও পুনর্বাসনে সহায়তা করেছে। এক হাজারটি সাইক্লোন শেল্টার যা স্কুল হিসেবেও কাজ করে এবং ৫৫০ কিলোমিটার পাকা রাস্তা যা আশেপাশের গ্রামের যোগাযোগ ব্যবস্থায় অবদান রাখছে। ভ্যান ট্রটসেনবার্গ বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে নির্মিত ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র পরিদর্শন করেছেন। যা স্বাভাবিক একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় হিসাবে কাজে লাগছে। এছাড়া, তিনি কক্সবাজারের কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেন। প্রায় ১১ লাখ বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ায় বাংলাদেশের উদারতার জন্য ধন্যবাদ জানান তিনি। বিশ্বব্যাংক রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী এবং স্বাগতিক সম্প্রদায়ের মৌলিক চাহিদা পূরণে বাংলাদেশকে সহায়তার জন্য ৫৯০ মিলিয়ন অনুদানের অর্থায়ন করেছে। সফরকালে তিনি অর্থমন্ত্রী, সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, উন্নয়ন সহযোগীদের সঙ্গে বৈঠক করেন এবং বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রাধিকার নিয়ে আলোচনা করেন। তার সঙ্গে ছিলেন বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের ভাইস প্রেসিডেন্ট মার্টিন রাইজার। ভ্যান ট্রটসেনবার্গ বলেন, বিশ্বব্যাংক মহামারির প্রভাব এবং ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসনের প্রভাবসহ বৈশ্বিক ধাক্কার চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বাংলাদেশকে সাহায্য করছে। এছাড়া, উচ্চ প্রবৃদ্ধির পথে চ্যালেঞ্জগুলো দূর করতে সাহায্য করছে। আমরা ২০৩১ সালের মধ্যে উচ্চ-মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হওয়ার লক্ষ্যে বাংলাদেশকে সমর্থন করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। এজন্য বেসরকারি খাতে কর্মসংস্থান সৃষ্টি, সামাজিক ও অর্থনৈতিক অন্তর্ভুক্তি উন্নত করতে এবং জলবায়ু ঝুঁকি হ্রাস করতে আরও সহায়তা করব।

    সীমান্ত হত্যাকাণ্ড বন্ধ না হওয়ায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দুঃখ প্রকাশ 

    মোঃ ইউনুস আলী, লালমনিরহাট প্রতিনিধি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, সীমান্তে হত্যাকাণ্ড বন্ধ হচ্ছে না- এটা দুঃখজনক, তবে বিজিবি ও বিএসএফ তাদের সাধ্যমতে সীমান্তে হত্যাকাণ্ড বন্ধে চেষ্টা করছেন। মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারী) দুপুরে দেশের বৃহত্তম সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারাজ এলাকায় লালমনিরহাট ও নীলফামারী জেলার শীতার্ত মানুষজনের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এ বিষয়ে উভয় পক্ষে আলোচনা চলছে। ভারত সরকারও আন্তরিক। তারা সবসময় বলে থাকেন বর্ডার ক্লিন (সীমান্তে হত্যা) বন্ধ করবেন। তারপরও তারা করছেন। আমরা দুপক্ষই আন্তরিক এটা বন্ধ করতে। খুব শিগগির আমাদের পরিকল্পনা এটা বন্ধে আমরা সফল হবো। এসময় তিনি আরও বলেন, র‍্যাব শুধু এলিড ফোর্স নয়, তারা জনগণের সেবায় কাজ করে যাচ্ছেন। এ সেবার মাধ্যমে তারা আজকে বাংলাদেশের মানুষের হৃদয় জয় করেছেন। আস্থার যায়গাটা জয় করছেন। যখন যার যেটা প্রয়োজন তখন র‍্যাব তার পাশে এসে দাঁড়ায়। সেই জন্য র‍্যাব বাহিনী আজ সবার সবার মনে মনে। সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধে যেসব শহীদদের কবর দেশের বাহিরে রয়েছে তাদের কবর দেশে এনে কবর দেওয়ার ইচ্ছা রয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব) আয়োজনে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন স্থানীয় সংসদ সদস্য মোতাহার হোসেন। এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন র‍্যাবের মহাপরিচালক এম খুরশীদ হোসেন, ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক টি এম মমিন, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান ও পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম।

    রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা বুধবার

    সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা: আগামীকাল বুধবার দেশের ২২তম রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল। কাল কমিশন সভা শেষে নির্বাচনের বিস্তারিত তফসিল ঘোষণা করা হবে বলেও জানান তিনি।   আজ মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য জানান সিইসি। আজ দুপুরে সংসদ ভবনে স্পিকারের সঙ্গে আধা ঘণ্টারও বেশি সময় বৈঠক করেন সিইসি। এ সময় সংসদ সচিবালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব আব্দুস সালাম ও নির্বাচন কমিশনের সচিব জাহাংগীর আলম উপস্থিত ছিলেন। রাষ্ট্রপতি নির্বাচন নিয়ে এর আগে নির্বাচন কমিশনার মো. আনিছুর রহমান সাংবাদিকদের বলেছিলেন, সোমবার নির্বাচনের সময় গণনা শুরু হয়ে গেছে। স্পিকারের সঙ্গে বৈঠকে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের সবকিছু নির্ধারণ হবে। এ ক্ষেত্রে ১ ফেব্রুয়ারিতে ৬ উপ-নির্বাচনের পর ভোটার তালিকা করা হবে। সংবিধান অনুযায়ী, রাষ্ট্রপতি কার্যভার গ্রহণের তারিখ থেকে পরবর্তী পাঁচ বছর তার পদে অধিষ্ঠিত থাকতে পারেন। বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ২০১৮ সালের ২৪ এপ্রিল কার্যভার গ্রহণ করেন। সে মোতাবেক তার দায়িত্বের পাঁচ বছর মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী ২৩ এপ্রিল। দেশের ২২তম রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের জন্য নির্বাচন কমিশন তফসিল ঘোষণা করবে। সংবিধান অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে ভোটার হন সংসদ সদস্যরা। এ জন্য সংসদের বৈঠকের প্রয়োজন হয়। বর্তমান সংসদে নিয়োগ সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে আওয়ামী লীগের। সে ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগ ছাড়া অন্য কোনো দলের প্রার্থী দেওয়ার সম্ভাবনা নেই। রাষ্ট্রপতি পদে একজন প্রার্থী থাকলে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের জন্য সংসদের বৈঠক বা ভোটের প্রয়োজন হবে না।

    নতুন বই কেজি দরে বিক্রি করলেন প্রধান শিক্ষক

    গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি: গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে নতুন শিক্ষা বছরের সরকারি বিনামূল্যের বই ফেরিওয়ালাদের কাছে কেজি দরে বিক্রি করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে এক প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে।  সোমবার (২৩ জানুয়ারি) উপজেলার মাহমুদপুর ইউনিয়নের শ্রীপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে এঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) গ্রাম পুলিশ পাঠিয়ে বইগুলো জব্দ করেন।  বইগুলোর মধ্যে রয়েছে মাধ্যমিক স্তরের বাংলা, ইরেজি, গণিত, সাধারণ বিজ্ঞান, বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচিতি, ইসলাম ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা, হিন্দু ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা, ক্যারিয়ার শিক্ষা, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি, চারুপাঠ, কৃষি শিক্ষা, আনন্দপাঠ, গার্হস্থসহ বিভিন্ন বিষয়ের। জানা গেছে, উপজেলার শ্রীপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জগবন্ধু বিশ্বাস সোমবার দুপুর ২টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের ছুটি দিয়ে দেন। এরপর তিনি গোপনে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড প্রণীত ২০২২ ও ২০২৩ শিক্ষাবর্ষের ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির বিভিন্ন বিষয়ের সরকারি বিনামূল্যের বই ৩০ টাকা কেজি দরে দুই ফেরিওয়ালার কাছে বিক্রি করেন। স্থানীয় লোকজন সরকারি বইগুলো ফেরিওয়ালাদের কাছে দেখতে পেয়ে তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা প্রধান শিক্ষকের কাছ থেকে বইগুলো কিনেছেন বলে জানান।  বই ক্রেতা ফেরিওয়ালা কাওছার শেখ জানান, তিনি বইগুলো শ্রীপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জগবন্ধু বিশ্বাসের কাছ থেকে ৩০ টাকা কেজি দরে কিনেছেন।  স্থানীয় ইমদাদুল হক বলেন, ‘আমি জমির কাজ করে দুপুরে বাড়ি ফেরার পথে স্কুলের সামনে ভাঙারি বোঝাই ফেরিওয়ালাদের একটি ভ্যান ও দুইজন লোককে দেখতে পাই। তাদেরকে জিজ্ঞাসা করি এখানে কি করেন। তারা জানায়, এই স্কুল থেকে কিছু বই কিনেছি। বইগুলো দেখতে চাইলে তারা উপস্থিত লোকজনের সামনে বইগুলো দেখান। বইগুলোর গায়ে ‘২০২২ শিক্ষাবর্ষ’  ও ‘২০২৩ শিক্ষাবর্ষ’ লেখা রয়েছে। পরে আমরা এলাকাবাসী বইসহ তাদেরকে আটক করি এবং ৯৯৯ নম্বরে কল করে বিষয়টি জানাই। পরে ইউএনও স্যারের নির্দেশে গ্রাম পুলিশের কাছে বইগুলো হস্তান্তর করি।’  প্রধান শিক্ষকের কাছ বই বিক্রির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি কোন বই বিক্রি করিনি। একটি মহল আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। আপনারা কিছু করেন না। আমি আপনাদের সাথে যোগাযোগ করবো।’  কাশিয়ানী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মাহফুজা বেগম বলেন, ‘আমরা বিক্রি করা বইগুলো জব্দ করেছি। প্রধান শিক্ষককে কারণ দর্শানো নোটিশ দিয়েছি। তিন দিনের মধ্যে জবাব দিতে বলা হয়েছে। এরপর পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।’  উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মেহেদী হাসান বলেন, ‘স্থানীয়দের মাধ্যমে বিষয়টি শুনেছি। গ্রামপুলিশ পাঠিয়ে বইগুলো জব্দ করা হয়েছে। জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’ গোপালগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) একেএম হেদায়েতুল ইসলাম বলেন, ‘তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বই বিক্রির ঘটনার সাথে জড়িত কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।’  

    বেতনের বিপরীতে অগ্রিম অর্থ নিতে পারবেন চাকরিজীবীরা, সহযোগিতায় এসএম ফিনটেক

    নিজস্ব প্রতিবেদক, সময়ের কণ্ঠস্বর: জরুরী প্রয়োজনে বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে কর্মরত চাকুরিজীবীদের বেতনের বিপরীতে অগ্রিম আর্থিক সেবা পেতে বাংলাদেশ ফাইন্যান্স; এসএম ফিনটেকের সঙ্গে চুক্তি করেছে।  আর্থিক সেবাটি সরবরাহ করবে বাংলাদেশ ফাইন্যান্স আর কারিগরী সহযোগিতায় থাকবে এসএম ফিনটেক লিমিটেড নামে প্রতিষ্ঠানটি। এই পুরো প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করতে থাকবে ‘মাইনে’ নামে অ্যাপভিত্তিক প্লাটফর্ম।  সোমবার (২৩ জানুয়ারি) দুপুরে রাজধানীর দিলকুশায় বাংলাদেশ ফাইন্যান্সের প্রধান কার্যালয়ে দুই পক্ষের মধ্যে এই চুক্তি সম্পন্ন হয়। এর ফলে এসএম ফিনটেক; তার নিবন্ধিত সদস্যদের মধ্যে বেতনের বিপরীতে আর্থিক সেবা প্রদান করবে; যা সরবরাহ করবে বাংলাদেশ ফাইন্যান্স।  এই চুক্তির ফলে মাসের যে কোন সময়ে জরুরী প্রয়োজনে কারও টাকা লাগলে দাদন ব্যবসায়ী বা সুদে কারবারীর কাছ থেকে চড়া সুদে টাকা ধার নেয়ার দরকার হবে না; এমনকী সম্মান নষ্ট করে কোন আত্মীয়র কাছে টাকা ধারের প্রয়োজনও পড়বে না! তার পরিবর্তে মাসের ঠিক যে কয়দিন কাজ করেছেন তার পারিশ্রমিক অগ্রিম পেয়ে যাবেন তিনি।  বাংলাদেশ ফাইন্যান্সের পক্ষে সহযোগিতা চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ কায়সার হামিদ।  চুক্তির উদ্দেশ্য সম্পর্কে তিনি বলেন, প্রযুক্তির সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করে গ্রাহকদের দোরগোড়ায় পৌঁছাতে এই চুক্তি সহযোগিতা করবে; পাশাপাশি ব্যাপক সংখ্যক গ্রাহককে ব্যাংকিং এর আওতায় আনার মাধ্যমে সময় ও খরচ সাশ্রয় হবে।  আর 'এসএম ফিনটেক' এর পক্ষে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফ সিকদার চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। তিনি বলেন, এই চুক্তির ফলে আর্থিক সেবা পাওয়ার ক্ষেত্রে গ্রাহকদের হয়রানি ও দীর্ঘসূত্রিতা লাঘব করতে চান তারা। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ফাইন্যান্সের গ্রুপ সিএফও মোঃ সাজ্জাদুর রহমান ভুঁইয়া, হেড অব সাসটেইন্যাবল ফাইন্যান্স মোহাম্মদ কোহিনুর হোসেন, চিফ রিস্ক অফিসার সুমন কুমার কুন্ডু এবং এস এম ফিনটেক এর পক্ষে সিওও মোঃ সাফকাত ইসলাম, সিটিও মোঃ দ্বীন ইসলামসহ অন্যরা।

    ভারতে পরকীয়া সন্দেহে নববধূকে খুন, বাংলাদেশি আটক

    আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারতে নববধূকে হত্যার দায়ে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃত ওই ব্যক্তি একজন অবৈধ বাংলাদেশি অভিবাসী এবং পেশায় হার্ডওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার। বোনের স্বামীর সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্ক রয়েছে এমন সন্দেহে বিয়ের ছয় মাসের মাথায় অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে হত্যা করেন তিনি। এদিকে গ্রেপ্তার হওয়ার পর অভিযুক্ত ওই ব্যক্তির বাংলাদেশি পরিচয় এবং ভারতে অবৈধভাবে বসবাসের তথ্য বেরিয়ে আসে। মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) পৃথক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া এবং দ্য হিন্দু। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চলতি মাসের মাঝামাঝিতে ভারতের দক্ষিণাঞ্চলীয় রাজ্য কর্ণাটকের রাজধানী বেঙ্গালুরুতে একটি ফ্লাটে গর্ভবতী স্ত্রীকে হত্যা করেন ওই প্রকৌশলী স্বামী। অভিযুক্ত ওই ব্যক্তির নাম নাসির হুসেন। বাংলাদেশে পালানোর চেষ্টার সময় গত শনিবার তাকে কলকাতা থেকে আটক করা হয়। টাইমস অব ইন্ডিয়া বলছে, ২২ বছর বয়সী গর্ভবতী গৃহবধূর হত্যার তদন্তে অভিযুক্ত ওই স্বামী অবৈধ বাংলাদেশি অভিবাসী বলে তথ্য সামনে আসার পর তদন্তে নতুন মোড় নিয়েছে। গত শনিবার কলকাতার উপকণ্ঠ থেকে সন্দেহভাজন নাসির হুসেনকে গ্রেপ্তার করে বেঙ্গালুরু শহর পুলিশের দক্ষিণ-পূর্ব বিভাগ। শিলিগুড়ির পার্শ্ববর্তী অঞ্চল দিয়ে বাংলাদেশ সীমান্ত অতিক্রম করতে ব্যর্থ হওয়ার পর কলকাতায় ফেরার সময় আটক হয় অভিযুক্ত ওই ব্যক্তি। সংবাদমাধ্যমটি বলছে, বেঙ্গালুরু পুলিশ অভিযুক্ত নাসির হুসেনকে ধরার জন্য পশ্চিমবঙ্গের পাঁচটি জেলার পুলিশ বিভাগের সঙ্গে সমন্বয় করে। অভিযুক্ত ওই ব্যক্তি অত্যন্ত কৌশলে বেঙ্গালুরু থেকে বাংলাদেশ সীমান্ত পর্যন্ত পুলিশের চোখ এড়াতে সক্ষম হয়। পরে সীমান্ত পার হতে ব্যর্থ হয়ে কলকাতায় ফেরার সময় গ্রেপ্তার হন তিনি। নাসির হুসেনের হাতে নিহত ওই স্ত্রীর নাম নাজ খানম। ২২ বছর বয়সী গর্ভবতী এই নারীর পরিবার নাসিরকে পশ্চিমবঙ্গের এতিম ছেলে বলে জানত। তারা জানিয়েছে, পুলিশ তাদের না জানানো পর্যন্ত তারা জানত না যে, নাসির অবৈধ বাংলাদেশি অভিবাসী। প্রাথমিক তদন্ত অনুসারে, নাসির হুসেনের শিক্ষাগত যোগ্যতা তেমন না থাকলেও দীর্ঘদিন কাজ করার কারণে দক্ষ একজন হার্ডওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার ছিলেন তিনি। ২০১৪-১৫ সালে তিনি অবৈধভাবে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে ভারতে আসেন। পরে তিনি কলকাতা, দিল্লি ও গুরগাঁওয়ে কাজ করেন এবং অ্যাপলের তৈরি গ্যাজেটসহ মোবাইল ও ল্যাপটপ পরিচালনার কাজে দক্ষতা অর্জন করেন। নিজের দক্ষতা মূল্যায়নের জন্য বেঙ্গালুরু সঠিক জায়গা বোঝার পর তিন বছর আগে কর্ণাটকের এই রাজধানী শহরে যান অভিযুক্ত নাসির। পরে একটি ভাড়া বাড়িতে থাকার সময় প্রতিবেশী নাজ খানমের সঙ্গে নাসিরের দেখা হয় এবং তারা উভয়ই একে অপরের প্রেমে পড়েন। ছয় মাস আগে নাজ ও নাসিরের বিয়ে হয় এবং স্ত্রীকে হত্যার ২০ দিন আগে বেঙ্গালুরুর সুভাষনগরে একটি ফ্লাটে ওঠেন তারা। পুলিশ জানায়, গত ১৫ জানুয়ারি রাতে নাসির হুসেন তার স্ত্রী নাজ খানমকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। এরপর ১৬ জানুয়ারি এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসে। তদন্তে জানা যায়, নাজ খানমের সঙ্গে তার বোনের স্বামী ইলিয়াজ পাশার সম্পর্ক রয়েছে বলে সন্দেহ করেছিলেন নাসির। পরে নাজ গর্ভবতী জানতে পেরে গর্ভপাত করানোর চেষ্টা করেন। নাজ রাজি না হলে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে পালিয়ে যায় নাসির।