এই মাত্র
  • পুলিশকে জনগণের আস্থা অর্জন করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
  • রাজশাহীতে আওয়ামী লীগের জনসভা শুরু
  • এইচএসসির ফল প্রকাশ ৮ ফেব্রুয়ারি
  • প্রধানমন্ত্রী সফরকে ঘিরে মিছিল আর স্লোগানে মুখর রাজশাহী
  • স্মরণকালের সবচেয়ে বড় সমাবেশ হবে রাজশাহীতে: কাদের
  • ক্যালিফোর্নিয়ায় বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ৩
  • দেশের শান্তি রক্ষায় নিরলসভাবে কাজ করছে পুলিশ: প্রধানমন্ত্রী
  • সংবিধান অনুযায়ীই আগামী নির্বাচন, ব্রিটিশ এমপিদের প্রধানমন্ত্রী
  • আর একজন রোহিঙ্গাকেও ঢুকতে দেওয়া হবে না: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
  • ঘুষ কেলেঙ্কারি অভিযোগ, জানতে গেলে সাংবাদিক লাঞ্ছিত
  • আজ রবিবার, ১৬ মাঘ, ১৪২৯ | ২৯ জানুয়ারী, ২০২৩

    দেশজুড়ে

    চাটমোহরে ব্যবসায়ীর দোকান পুড়ে ৮০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি

    আব্দুল লতিফ রঞ্জু, পাবনা প্রতিনিধি: পাবনার চাটমোহর উপজেলার দাঁথিয়া কয়ড়াপাড়া বাজারে অগ্নিকান্ডের ঘটনায় আসাদুজ্জামান স্বপন নামের এক ব্যবসায়ীর তিনটি দোকানের সব মালপত্র পুড়ে প্রায় ৮০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।  রবিবার (২৯ জানুয়ারী) ভোর রাত ৩টার দিকে এঘটনা ঘটে। দোকান মালিক আসাদুজ্জামান স্বপন জানান, দাঁথিয়া কয়ড়াপাড়া বাজারের কবির মার্কেটে আমি পাঁচটি দোকান ভাড়া নিয়ে বিভিন্ন আইটেমের পন্য সামগ্রীর ব্যবসা করি। শনিবার রাতে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সবগুলো বন্ধ করে বাজার থেকে এক কি:মি: দুরে আমার বাড়িতে চলে যাই। মার্কেটের একটি দোকানের পিছনে এক ব্যক্তি বসবাস করতেন এবং আমার একটি দোকানের পিছনে তার রান্না ঘর ছিল। মূলত এই রান্না ঘর থেকেই আগুনের সুত্রপাত হলে সেই বাড়ির মালিক আগুন নেভাতে ধাক্কা দিয়ে আগুন সহ ঘরটি আমার দোকানের ওপড়ে ফেলে দেয়। এতে করে মূহুর্তের মধ্যে আমার দোকান মার্কেটে আগুন ধরে তিনটি দোকানে ছড়িয়ে পরে। এলাকাবাসী ও চাটমোহর ফায়ার সার্ভিস কর্মীদের চেষ্টায় অনেক পরে আগুন নিয়ন্ত্রনে আসলেও এরমধ্যে আমার তিনটি দোকানের সব মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে যায়। দোকান মালিক আরো জানান, আগুনে পুড়ে যাওয়া মালামাল গুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো, টিভি-ফ্রিজের শো-রুম, চাউল, মুদি দোকানের সকল মালামাল, গো-খাদ্যের দোকানের সকল মালামাল স্যানেটারী দোকানের মটর, পাইপ সহ যাবতীয় যন্ত্রাং ও একটি কীটনাষক দোকনের সকল ঔষধ সামগ্রী পুড়ে ছাই হয়ে যায়। তিনটি দোকানের পুড়ে যাওয়া সকল মালামালের আনুমানিক মূল্য প্রায় ৮০ লক্ষাধিক টাকা হবে বলেও জানান তিনি।

    নওগাঁ জেলা প্রেসক্লাবের নতুন কমিটি ঘোষণা

    নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁর ঐতিহ্যবাহী জেলা প্রেস ক্লাবের সাধারন সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে এবং ২০২৩সালের জন্য নতুন কমিটি ঘোষনা করা হয়েছে।  শনিবার (২৯ জানয়ারি) মিলনায়তনে প্রেসক্লাবের সভাপতি কায়েস উদ্দিনের সভাপতিত্বে এই সাধারন সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভার শুরুতেই প্রেসক্লাবের প্রয়াত সদস্য, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পরিবারের শহীদ সকল সদস্য ও দেশেরতরে যারা প্রাণ দিয়ে স্বাধীনতা ছিনিয়ে এনেছেন তাদের সকলের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের লক্ষ্যে একমিনিট নিরবতা পালন করা হয়।  এরপর বিগত একবছরের সকল কার্যক্রম সম্পর্কে ক্লাবের সদস্যদের মাঝে বার্ষিক প্রতিবেদন তুলে ধরেন সাধারন সম্পাদক শফিক ছোটন। সভায় আগামীতে ঐতিহ্যবাহী প্রেসক্লাবকে আরো কিভাবে অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও নানাবিধ কল্যাণমূলক কর্মকান্ডের মাধ্যমে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যায় সেই বিষয়ে সকলেই আলোচনা করেন।  সভা শেষে নির্বাচন কমিটির আহ্বায়ক এ্যাড, ডিএম আব্দুল বারী আগামী ২০২৩সালের জন্য চ্যানেল আইয়ের নওগাঁ প্রতিনিধি কায়েস উদ্দিনকে সভাপতি ও যমুনা টিভির নওগাঁ প্রতিনিধি শফিক ছোটনকে সাধারন সম্পাদক করে ১৫সদস্যের একটি পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষনা করেন। এসময় নির্বাচন কমিটির যুগ্ম আহবায়ক কাজী জিয়াউল হক বাবলু, মাসুদুর রহমান রতনসহ প্রেসক্লাবের সকল সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। 

    চাকুরির প্রলোভন দিয়ে টাকা হাতিয়ে নিতেন মঞ্জুরুল আলম

    নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলা থেকে প্রাইমারি স্কুলে চাকুরির প্রলোভন দেখিয়ে ভুয়া নিয়োগপত্রে মাধ্যমে টাকা হাতিয়ে নেওয়া প্রতারক চক্রের এক মূলহোতাকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন র‌্যাব-৫ জয়পুরহাট ক্যাম্পের সদস্যরা।  শনিবার (২৮ জানুয়ারি) রাতে র‌্যাব-৫ থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এতথ্য জানানো হয়‌। এর আগে দুপুরে উপজেলার নজিপুর বাজার এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয় প্রতারক মঞ্জুরুল আলম (৩৯) কে। প্রতারক উপজেলার নজিপুর মাদ্রাসাপাড়া এলাকার মৃত আলীম উদ্দীনের ছেলে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২০১৫ সাল থেকে মঞ্জুরুল আলম এবং রেজাউল করিম একটি প্রতারক সিন্ডিকেট হিসাবে কাজ করছেন। যেখানে মঞ্জুরুল আলম মূলহোতা। আর রেজাউল করিম তার সহকারী হিসেবে কাজ করতেন এবং ভুয়া কাগজপত্র তৈরির দায়িত্বে ছিলেন। ২০২০ সালে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চাকরি দেওয়ার জন্য লিপি পারভীন নামে একজনের কাছ থেকে ১০লাখ টাকা নেয় মঞ্জুরুল। পরে রেজাউল করিমের মাধ্যমে তাকে মিথ্যা নিয়োগপত্র দেয়। পরবর্তীতে লিপি পারভীন ঢাকায় ওই চাকরিতে যোগ দিতে গেলে সে ভুয়া নিযোগপত্রের কথা জানতে পেরে জয়পুরহাট র‌্যাব ক্যাম্পে অভিযোগ করেন।  এরপর র‌্যাব-৫ এর কোম্পানী অধিনায়ক মেজর মোস্তফা জামানের শনিবার দুপুরে উপজেলার নজিপুর বাজার এলাকা থেকে অনেক ভুয়া নথিপত্রসহ তাকে গ্রেফতার করে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, মঞ্জুরুলের স্ত্রী প্রাইমারি স্কুলের শিক্ষিকা। সে সুযোগ কাজে লাগিয়ে চাকরির প্রলোভন ও মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে প্রাইমারি স্কুলের চাকরির ভুয়া নিযোগপত্র দিয়ে সে প্রার্থীদের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিতেন।  তার বিরুদ্ধে পত্নীতলা থানায় একটি মামলা দায়ের করে আটককৃতকে থানা পুলিশের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে বলেও সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

    সুনামগঞ্জে পিক-আপ ভ্যানের ধাক্কায় প্রাণ গেল পথচারীর

    জাহাঙ্গীর আলম ভুঁইয়া, সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার সুরমা ব্রিজে পিক-আপ ভ্যানের ধাক্কায় সায়েম আহমদ (২৮) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। তিনি উপজেলার কুমনা এলাকার আবুল হোসেনের পুত্র। পুলিশ ও তাঁর পরিবার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।  শনিবার (২৯ জানয়ারি) সন্ধ্যায় উপজেলার ব্রিজের উপর এ দুর্ঘটনা ঘটেছে।  এসময় ঘাতক পিক-আপে ভ্যানের চালক পালিয়ে গেলেও সুরমা ব্রিজের টোল প্লাজায় পিক-আপ ভ্যান দু'টি আটক করেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। একটি  পিক-আপে ভ্যানের চালক মোবারক হোসেন তানভীরকে পুলিশ আটক করেছে অপরজন পালিয়ে যায়। আটক তানবির জেলার দোয়ারাবাজার উপজেলার জলসী গ্রামের আব্দুল ওদুদের পুত্র। স্থানীয়রা জানান, বেপরোয়া ভাবে দু'টি পিক-আপ ভ্যান সারিবদ্ধ হয়ে ব্রিজের উপর দিয়ে যাওয়ার সময় একটি পিক-আপ ভ্যানের ধাক্কায় পথচারী সায়েম আহমদ সড়কের উপর লুটিয়ে পড়েন। এতে তাঁর মাথা সহ শরীরের বিভিন্ন অংশ থেতলে যায়। গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয়রা তাঁকে উদ্ধার করে প্রথমে ছাতক হাসপাতালে নিয়ে যান। পরে তাঁকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত সাড়ে ১০ঘটিকার সময় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।  ছাতক থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খান মোহাম্মদ খায়রুল জাকির নিহতের সত্যাতা নিশ্চিত করে জানান এই ঘটনার সাথে জড়িত একজনকে আটক করা হয়েছে ও দুটি পিক-আপ ভ্যান জব্দ করা হয়েছে।

    মানিকগঞ্জে মাহফিলের বয়ানে বাধা, সভাপতিকে লক্ষ্য করে জুতা নিক্ষেপ

    দেওয়ান আবুল বাশার, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট (মানিকগঞ্জ): মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার চান্দহর বন্ধু মহলের উদ্যোগে ওয়াজ ও দোয়ার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। মাহফিল চলাকালে প্রধান বক্তার বয়ানে সভাপতি বাঁধা দিলে উত্তেজিত মুসুল্লীরা তাকে লক্ষ্য করে জুতা নিক্ষেপ করে। এতে-হট্টগোল বেঁধে ওয়াজ মাহফিল পণ্ড হয়ে যায়। বৃহষ্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) চান্দহর বাজার সংলগ্ন মাঠে ১৪ তম বার্ষিক ওয়াজ ও দোয়ার মাহফিলে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় এলাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া বিরাজ করছে। সরেজমিন শনিবার প্রত্যক্ষদর্শী মুসুল্লীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক তথ্য ও যে গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক মো. সানোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে ওয়াজ ও দোয়ার মাহফিলের আয়োজন করা হয়। মাহফিল চলাকালীন বিশেষ বক্তার বয়ান শেষে রাত সাড়ে ১০ টার দিকে প্রধান বক্তা মুফতি রিজওয়ান রফিকী তিনি ওয়াজ শুরু করেন।  মানব জাতির সৃষ্টি থেকে শুরু করে এক পর্যায়ে মানুষ জাতি ও বানর থেকে নিয়ে কথা বলতেই সভাপতি তাকে থামিয়ে দেন। অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করে বক্তাকে আক্রমণে উদ্যত হন। এ সময় উপস্থিত শ্রোতা মুসুল্লীরা ওই সভাপতিকে লক্ষ্য করে জুতা নিক্ষেপ করে। হট্টগোল বেঁধে ওয়াজ মাহফিল পণ্ড হয়ে যায়। আয়োজক কমিটির পক্ষ থেকে আগত মেহমানদের নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেয়া হয়। চান্দহর প্রবাসী বন্ধু মহলের সদস্য রতন মাদবর, মোফাজ্জল হোসেন, রবিউল খান ও হাবিবুর রহমান বলেন, আমাদের নিজেদের অর্থায়নেই ওয়াজ মাহদিলের আয়োজন করা হয়েছে। কিছুটা সমস্যা দেখা দেওয়ায় তাৎক্ষনিকভাবেই আমরা মাহফিল বন্ধ করে দেই। চান্দহর ইউনিয়ন পরিষদের স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার মো.সালাহউদ্দিন বলেন, আমি স্বশরীরে ওই সময়ে উপস্থিত ছিলাম না। তবে মানোয়ার ভাইয়ের ওপর জুতা নিক্ষেপের কখা শুনেছি। এপ্রসঙ্গে সভাপতি মো. সানোয়ার হোসেন বলেন, কেউ যদি ওখানে খারাপ কিছু করে সেটা প্রতিরোধ করা কি অপ্রীতিকর ঘটনা নাকি? উনি অশ্লীল ভাষা ব্যবহার করেছিল উত্তেজিত জনতা তাকে থামিয়ে দিয়েছে। তার ওপর জুতা নিক্ষেপ প্রসঙ্গে তিনি বলেন এলাকা আমার আমি যদি খারাপ কাজও করি অতবড় সাহস হবেনা আমার উপর চড়াও হওয়ার। চান্দহর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও বাজার কমিটির সভাপতি শওকত হোসেন বাদল বলেন, আমি ওয়াজ ও দোয়ার মাহফিলে যেতে পারিনি। তবে শুনেছি সানোয়ার ভাইয়ের ওপর জুতা নিক্ষেপের কথা। এব্যাপারে সিংগাইর থানার অন্তর্গত (বাথুলী) তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক শেখ মো. আবু হানিফ বলেন বিষয়টি আমি অবগত নই আমি স্টেশানে ছিলাম না।

    খাস জমি থেকে অবৈধভাবে মাটি বিক্রি করে প্রায় দশলক্ষ টাকা আত্মসাৎ

    জাহাঙ্গীর আলম ভুঁইয়া, সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জে বন্দোবস্তের শর্ত অমান্য করে খাস জমি থেকে অবৈধভাবে মাটি বিক্রি করে লক্ষাধিক টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ উঠেছে আনোয়ারা বেগমের বিরুদ্ধে। তিনি সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার গৌরারং ইউনিয়নের টুকেরগাঁও গ্রামের মৃত সফর উদ্দিনের স্ত্রী। প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে তিনি বন্দোবস্ত নীতিমালার ৫(ক) ধারার সুস্পষ্ট লংঘন করায় সরজমিন তদন্ত পূর্বক সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছে স্থানীয় এলাকাবাসী। খোঁজ নিয়ে জানাযায়, সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার গৌরারং ইউনিয়নের টুকেরগাঁও গ্রামের মৃত সফর উদ্দিনের স্ত্রী আনোয়ারা বেগম ভূমিহীন হিসেবে সরকারী খাস খতিয়ানে কামারটুক মৌজায় ৪২নং জে,এল সংক্রান্তে ৪৫০ নং আর,এস খতিয়ানের ১৪৭৬ নং দাগে ১.০০ একর লাঃ পতিত রকম ভূমি যার বন্দোবস্ত মামলা নং ৮/১২ইং,জেলা প্রশাসক সূত্র নং ২১/১১-১২ মুলে ভূমি হিসাবে বন্দোবস্ত প্রাপ্ত হন।  সরেজমিন দেখা যায়, আনোয়ারা বেগমের ছেলে শহীদ নুর মায়ের নামে বন্দোবস্ত কৃত ভূমি থেকে বন্দোবস্ত নীতিমালার সকল শর্ত অমান্য করে অবৈধ ভাবে এস্কোভেটর দ্বারা গভীর গর্ত করে প্রায় ৩/৪ লাখ ঘনফুট মাটি বিক্রি করে হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে প্রায় দশলক্ষ টাকা। সরকারী খাস জমি বন্দোবস্ত নীতিমালা অনুযায়ী গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক প্রণীত ৮/৩/১৯৯৫ইং তারিখের প্রকাশিত গেজেটে সুস্পষ্ট ভাবে ৫(ক) ধারায় উল্লেখ আছে যে সকল কারণে বন্দোবস্ত বাতিল করা হয় তারমধ্যে অন্যতম হলো (ক) জমি যে উদ্দেশ্যে বন্দোবস্ত প্রদান করা হইবে তাহা বন্দোবস্ত অনুমোদনকারী কর্তৃপক্ষের বিনা অনুমতিতে অন্য কোন উদ্দেশ্যে বন্দোবস্তীয় ভূমি ব্যবহার করা হলে।  এবিষয়ে বন্দোবস্ত গ্রহীতা আনোয়ারা বেগম জানান, আমি বোরো জমি করার জন্য মাটি কাটছি। আমি কোন পুকুর করছি না।  এই বিষয়ে বক্তব্য নেওয়ার জন্য সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী কমিশনার ভূমি (সদর) কে ফোন দেওয়া হলে ফোন রিসিভ না করায় কোন বক্তব্য দেওয়া যায়নি।

    রামুতে ষড়যন্ত্রমুলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে মানববন্ধন

    শাহীন মাহমুদ রাসেল, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট: কক্সবাজার: আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত হওয়ার পর থেকে শাহিনুর রহমান এর বিরুদ্ধে এলাকার কিছু প্রভাবশালী মহল তার জনপ্রিয়তায় ইর্ষান্বিত হয়ে একের পর এক ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা দিচ্ছে। শাহীনের বিরুদ্ধে যে বা যারা ষড়যন্ত্র করতেছে তাদের বিষয়ে গভীর অনুসন্ধান করে তাদের আসল পরিচয় বের করা উচিত। শনিবার (২৮ জানুয়ারি) সকালে কক্সবাজারের রামু উপজেলার গর্জনিয়া ইউনিয়ন বাস্তুহারালীগের সাবেক সভাপতি ও মাঝির কাটা কিন্ডারগার্টেন দাখিল মাদ্রাসার দাতা সদস্য শাহিনুর রহমানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে আয়োজিত মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তরা এইসব কথা বলেন। এতে এলাকার বিভিন্ন শ্রেণি পেশার শত শত নারী পুরুষ অংশ নেন। মানববন্ধনে অংশ নেওয়া এলাকাবাসীর দাবি, সম্প্রতি একটি মারামারি ঘটনায় শাহীনুর জড়িত না থাকা সত্বেও ওই মামলায় তাকে জড়িয়ে দিয়েছে একটি প্রভাবশালী মহল। বর্তমান তিনি মিথ্যা মামলায় কারাভোগ করছে। মামলাটি সম্পুর্ন মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। সঠিক তদন্তপূর্বক এই মিথ্যা মামলাটি প্রত্যাহারে প্রশাসনসহ প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। সমাবেশে আসা শাহিনুর রহমানের মা রিজিয়া বেগম কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, তাঁর ছেলে কখনো কোন অপরাধ কর্মকান্ডে জড়িত হয়েছে এরকম প্রমাণ কেউ দিতে পারবে না। বরং শাহিন এলাকায় শিক্ষার প্রসার, সামাজিক ও জনকল্যাণমূলক কর্মকান্ডের মাধ্যমে সে মানুষের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এজন্য তার জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে এলাকার কুচক্রী মহল তার বিরুদ্ধে একের পর এক মামলা দায়ের সহ নানা ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছে। তিনি প্রশাসন, আইনশৃৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে এর সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন। ভুক্তভোগী শাহীনের মায়ের দাবি, একটি সংঘবদ্ধ চক্র তার ছেলেকে মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে হয়রানি করে আসছে। একের পর এক মিথ্যা মামলায় মানসিক ও আর্থিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছেন তিনি। মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, মাঝিরকাটা কিন্ডারগার্টেন দাখিল মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি ডা. আইয়ুব, আওয়ামী লীগ নেতা নুরুল আমিন,মাঝির কাটা আওয়ামী লীগ সভাপতি শাহ আলম, মাঝির কাটা আওয়ামী যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম,আওয়ামী লীগ নেতা বদি আলম, শামসুল আলম, লুৎফুর রহমান, মুবিনুর রহমান, সাবেক ইউপি সদস্য খালেকুজ্জামান, মোঃ ইকবাল, একরাম, মোঃ তৈয়ব, মোঃ নবী, জয়নাল আবেদিন, ইউনুস, আবু তাহের, শমা, নবী হোসেন, নুরুচ্ছাফা বেগম, নুর জাহান, মাজেদা ইসলাম, দিলদার বেগম, মিশু আরা, বুলবুল আক্তার, মোকাররমা আক্তার, মাহবুবা বেগম, সেলিনা আক্তার প্রমুখ। পরে গর্জনিয়া ইউনিয়ন বাস্তুহারালীগের সাবেক সভাপতি শাহিনুর রহমানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়।

    টাঙ্গাইলে সমাবেশ সফল করতে বিএনপির প্রস্তুতি সভা 

    টাঙ্গাইল প্রতিনিধি: টাঙ্গাইলে ১০ দফা দাবিসহ সন্ত্রাস, দলীয় নেতাকর্মীদের দমন-নিপীড়ন ও নির্যাতনের প্রতিবাদ এবং নিত্যপণ্যের দাম কমানোর দাবিতে আগামি ৪ ফেব্রুয়ারি সমাবেশ সফল করার লক্ষে প্রস্তুতি সভা করেছে জেলা বিএনপি। দেশব্যাপী সমাবেশ করার কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে শনিবার (২৮ জানুয়ারি) টাঙ্গাইল শহরের একটি কমিউনিটি সেন্টারে ওই প্রস্তুতি সভার আয়োজন করা হয়। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ। টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির সভাপতি হাসানুজ্জামিল শাহীনের সভাপতিত্বে সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির শিশু বিষয়ক সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ সিদ্দিকী, বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক বেনজির আহমেদ টিটো, কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ওবায়দুল হক নাসির, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট ফরহাদ ইকবাল প্রমুখ। এসময় জাতীয়তাবাদী যুবদল, ছাত্রদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, মহিলা দল, কৃষক দল, শ্রমিক দল, তাঁতী দলসহ বিএনপির অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

    ফরিদপুরে বিপুল পরিমাণ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার

    হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি: ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলায় বিশেষ অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শনিবার (২৮ জানুয়ারি) দুপুরে জেলার নগরকান্দা থানায় এক সংবাদ সম্মেলনে সহকারী পুলিশ সুপার মো. আসাদুজ্জামান শাকিল দেশীয় অস্ত্র উদ্ধারের বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেছেন। শুক্রবার (২৭ জানুয়ারি) দিবাগত রাতে উপজেলার পুরাপাড়া ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে অভিযান চালিয়ে এ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। সহকারী পুলিশ সুপার (নগরকান্দা সার্কেল) আসাদুজ্জামান শাকিলের নেতৃত্বে অভিযানে অংশ নেয় নগরকান্দা থানার ওসি মিরাজ হোসেনসহ পুলিশের একটি  টিম। উদ্ধারকৃত অস্ত্রের মধ্যে রয়েছে সংঘর্ষে ব্যবহৃত ঢাল, সড়কি, বল্লম, রামদা, টেঁটা, রামদা, ঝুপি ইত্যাদি। সংবাদ সম্মেলন আসাদুজ্জামান শাকিল জানান, বেশ কিছুদিন যাবত পুরাপাড়া ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে মাঝে মধ্যে গ্রামবাসী সংঘর্ষে লিপ্ত হতো। এর আগে ২০২২ সালের সেপ্টেম্বর মাসে থানা পুলিশের উদ্যোগে আর সংঘর্ষ করবোনা এই শ্লোগান নিয়ে এলাকাবাসী বিপুল পরিমাণ দেশীয় অস্ত্র পুলিশের নিকট জমা দিয়েছিলেন। এরপর বেশ কিছুদিন সংঘর্ষ থেকে এড়িয়ে ছিলেন এলাকাবাসী। সম্প্রতি আবার সেই সংঘর্ষ  শুরু করেছেন। তাই পুলিশ অভিযান চালিয়ে এইসব দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করেন। নগরকান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মিরাজ হোসেন বলেন, এলাকার শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখতে পুলিশের নিয়মিত অভিযানে এই সমস্ত দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। যাদের বাড়ী থেকে অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলার প্রস্ততি চলছে।

    টাঙ্গাইলে মহিলা এমপি লাভলীর কম্বল বিতরণ

    টাঙ্গাইল প্রতিনিধি: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তহবিল থেকে টাঙ্গাইলে শীতার্ত অসহায়, দুঃস্থ ও দরিদ্রদের মাঝে এক হাজার কম্বল বিতরণ করেছে খ. মমতা হেনা লাভলী এমপি। শনিবার বিকালে শহরের থানাপাড়া এলাকায় তার বাসভবনে এসব কম্বল বিতরণ করেন তিনি। এতে বক্তব্য রাখেন, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নাসিমা বাছিদ, সহ-সভাপতি রুমা খান ও হোসনেয়ারা রোজি, সাধারণ সম্পাদক ফেরদৌসী আক্তার রুনু, জেলা যুব মহিলালীগের সাধারণ সম্পাদক নাজমুছ সালেহীন প্রমুখ। এ সময় জেলা, উপজেলা, শহর ও ইউনিয়ন পর্যায়ের মহিলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

    ফরিদপুরে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা পরিচয়ে প্রতারণা, যুবক আটক

    হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি: ফরিদপুরে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা পরিচয়ে প্রতারণার অভিযোগে নিহার রঞ্জন রায় (৩৫) নামে এক যুবককে আটক করা হয়েছে। শনিবার (২৮ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে জেলা সরকারি রাজেন্দ্র কলেজে এলএলবি পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে প্রতারণার অভিযোগে ওই যুবককে আটক করা হয়।  পরে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের মাধ্যমে ছয় মাসের কারাদন্ড দেয়া হয় ওই যুবককে। এব্যাপারে সরকারি রাজেন্দ্র কলেজের উপাধ্যক্ষ প্রফেসর এস.এম আবদুল হালিম বলেন, শনিবার সকালে রাজেন্দ্র কলেজে এলএলবি পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে ওই যুবক নিজেকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন হল পরিদর্শন করতে চান। পরে আমরা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগাযোগ করে জানতে পারি সে একজন ভূয়া ও প্রতারক। কলেজটির অধ্যক্ষ প্রফেসর অসীম কুমার সাহা বলেন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূয়া কর্মকর্তা পরিচয়ে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত বিভিন্ন কলেজে গিয়ে প্রতারণা করে আসছে সে। আমরা তাকে ভূয়া শনাক্ত করার পর জেলা প্রশাসনকে জানাই। পরে জেলা প্রশাসনের একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এসে তাকে ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন।  তিনি আরও বলেন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে দীর্ঘদিন প্রতারণার মাধ্যমে পরীক্ষার হল থেকে পরীক্ষার্থী ও শিক্ষকদের মোবাইল নিয়ে পালিয়ে যেতেন তিনি।

    কাশিয়ানীতে বনভোজনের বাসে দুর্বৃত্তদের হামলা

    গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি: গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে বনভোজনের বাসে দুর্বৃত্তদের হামলার ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার (২৭ জানুয়ারি) সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টার দিকে উপজেলার মধুমতি সেতুর টোল প্লাজা এলাকায় এঘটনা ঘটে। হামলায় বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। আহতদের কাশিয়ানী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। এঘটনায় কাশিয়ানী থানায় একটি অভিযোগ দায়ের হয়েছে।  বাসে থাকা অবসরপ্রাপ্ত নৌবাহিনী সদস্য শাহ্ মোহাম্মাদ আলম জানান, কাশিয়ানী জিসি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ‘সহপাঠী ফোরাম ৮৯’ ব্যাচের আয়োজনে যশোর বিনোদিয়া পার্ক থেকে বার্ষিক বনভোজন শেষ করে দুটি বাসে প্রায় শতাধিক লোক নিয়ে কাশিয়ানীর উদ্দেশ্যে ফিরতেছিলেন। কাশিয়ানী মধুমতি সেতুর টোল প্লাজা পার হলেই ৫-৬ জন যুবক দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে একটি বাসের গতিরোধ করে। দুর্বৃত্তরা বাসের মধ্যে ঢুকে চাঁদা দাবি করে। চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে তাদের সঙ্গে আরও কয়েকজন সংঘবদ্ধ হয়ে অতর্কিতভাবে বাসের লোকজনের ওপর হামলা চালায়। এসময় বনভোজন ফেরত যাত্রীর কাছে থাকা নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ছিনিয়ে নেয়। পরে ৯৯৯ নম্বরে কল করে বিষয়টি জানালে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। দুর্বৃত্তদের হামলায় বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। আহতদের কাশিয়ানী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।  কাশিয়ানীর থানার ভারপ্রাপ্ত ওসি এসআই মো. সাদেকুল ইসলাম অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। তদন্ত শেষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

    কোটালীপাড়ায় ৫শত দরিদ্র শিক্ষার্থী পেল প্রধানমন্ত্রীর উপহার

    গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি: গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলায় ৫শত দরিদ্র শিক্ষার্থী পেলো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার। শনিবার (২৮ জানয়ারি) জ্ঞানের আলো পাঠাগারের হলরুমে বসে প্রধানমন্ত্রীর অ্যাসাইনমেন্ট অফিসার আফরোজা বিনতে মনসুর (গাজী লিপি) প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসেবে ৫শত দরিদ্র শিক্ষার্থীর হাতে কম্বল, চাদর ও সোয়েটার তুলে দেন।  জ্ঞানের আলো পাঠাগারের সভাপতি সুশান্ড মন্ডলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার বিতরণ অনুষ্ঠানে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মতিয়ার রহমান হাজরা, হিরণ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাজাহারুল আলম পান্না, শুয়াগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান যজ্ঞেশ্বর বৈদ্য অনুপ, বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম আজাদ, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহবায়ক গাজী খসরু, যুবলীগ নেতা আলী আক্কাস লিটন, জ্ঞানের আলো পাঠাগারের সাধারণ সম্পাদক মাসুদুর রহমান পারভেজ বক্তব্য রাখেন। প্রধানমন্ত্রীর অ্যাসাইনমেন্ট অফিসার আফরোজা বিনতে মনসুর (গাজী লিপি) বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা দেশের মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। তিঁনি দেশের মানুষের সুখ শান্তির জন্য নানা প্রকার উন্নয়ন কর্মকান্ড হাতে নিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ট নেতৃত্বে বিশ্বের বুকে বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল।

    ভাসমান বেডে উৎপাদিত সবজি দেশের অর্থনীতিতে ভূমিকা রাখবে: রবীন্দ্র শ্রী বড়–য়া

    গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি: ‘নিন্ম জলাভূমি বেষ্টিত গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলাসহ এর আশপাশের উপজেলায় ভাসমান বেডে উৎপাদিত সবজি দেশের অর্থনীতিতে ভূমিকা রাখবে’ বলে মন্তব্য করেছেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব রবীন্দ্র শ্রী বড়–য়া।  শনিবার (২৮ জানয়ারি) তিনি কোটালীপাড়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় তৈরী ভাসমান বেডে সবজি চাষ প্রকল্প পরিদর্শনে এসে এ মন্তব্য করেন।  তিনি আরো বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে আমরা কোটালীপাড়া উপজেলায় প্রাথমিক অবস্থায় ২৫হাত লম্বা ও ৩হাত চওড়া ২শত কচুরিপানার ভাসমান বেড তৈরী করেছি। এ উপজেলায় আরো ভাসমান বেড তৈরী করা হবে।  এসময় ‘ভাসমান বেডে সবজি ও মসলা চাষ’ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ড. বিজয় কৃষ্ণ বিশ্বাস, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফেরদৌস ওয়াহিদ, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা দেবাশীষ দাসসহ কৃষক-কৃষাণীরা উপস্থিত ছিলেন।  ভাসমান বেডে সবজি ও মসলা চাষ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ড. বিজয় কৃষ্ণ বিশ্বাস বলেন, যেখানে পানি আছে ও কচুরিপানায় ভরপুর, ধান লাগানো সম্ভব নয় সেখানে আমরা ভাসমান বেডে সবজি চাষ করছি। ইতোমধ্যে আমরা ২শত বেডে লাউ, কুমড়া, কচু, ঢেঁড়শ, লাল শাকসহ বিভিন্ন ধরণের সবজির চাষ করেছি। আমাদের এই প্রকল্পের মাধ্যমে আরো বেড তৈরী করা হবে।  উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফেরদৌস ওয়াহিদ বলেন, আমরা এই ভাসমান বেডে সবজি চাষের জন্য এলাকার দরিদ্র ভূমিহীনদের কাজে লাগাবো। এরা এই ভাসমান বেডে সবজি চাষ করে সাবলম্ভী হবে বলে আমরা বিশ্বাস করি।   

    ত্রিশালে একতা ব্রিকস ভাটায় অবাধে পোড়ানো হচ্ছে কাঠ  

    মামুনুর রশিদ, ত্রিশাল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি: ময়মনসিংহ জেলার ত্রিশাল উপজেলার কানিহারী ইউনিয়ন এলংজনি বাজার সংলগ্ন একটি ইটভাটায় প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে দেদারছে অবাধে কাঠ পোড়ানো হচ্ছে।  ভাটার মালিক প্রভাবশালী হওয়ায় স্থানীয়রা প্রতিবাদ করার ভাষা হারিয়ে ফেলেছে। তারা প্রশাসনের জরুরী দৃষ্টি কামনা করেছেন। এছাড়াও এই উপজেলায় অসংখ্য ইটভাটায় কয়লার পরিবর্তে পোড়ানো হচ্ছে কাঠ।  জানা যায়, এলংজনি বাজার সংলগ্ন মেসাস একতা ব্রিকস’ নামের অবৈধ ইটভাটা এটি। এর নেই কোনো পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র। উক্ত  ইটভাটার বিষাক্ত কালো ধোঁয়ায় পার্শ্ববর্তী বাড়ির লোকজনের মারাত্মক স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে রয়েছে। এছাড়াও ফসলি জমির পাশে ইটভাটা নির্মাণ করায় ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা করছেন কৃষকরা।    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পার্শ্ববর্তী বাড়ির লোকজন জানান, ইটভাটার কালো ধোঁয়ায় তাদের নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট হয়। স্থানীয় বাজারের লোকজন জানান  বাজারের পাশেই গড়ে উঠা ইটভাটার কারণে স্বাস্থ্যঝুঁকিতে বাজারের ব্যবসায়ীরা।  ভাটার ভিতরে কাঠ ছোট বড় করার জন্য করাতকল ব্যবহার করে প্রতিদিন পুড়ছেন হাজার হাজার মণ কাঠ। ভাটার শ্রমিকরা বলেন মালিকপক্ষের নির্দেশে কয়লার পরিবর্তে কাঠ পোড়ানো হচ্ছে।   

    হবিগঞ্জে বাল্যবিয়ের চেষ্টা, স্কুলছাত্রীর বাবাকে জরিমানা

    মঈনুল হাসান রতন, হবিগঞ্জ প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জে স্কুলছাত্রীর বাল্যবিয়ের আয়োজন করার অপরাধে মেয়ের বাবাকে জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। শুক্রবার (২৭ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ৮টায় আজমিরীগঞ্জ পৌরসভার শুকড়ি বাড়িতে গিয়ে বাল্যবিয়ে বন্ধ করে এ জরিমানা করেন উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম। স্থানীয় মিয়াধন মিয়া বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী মেয়েটির বয়স ১৬ বছর। বানিয়াচং উপজেলার পুকড়া গ্রামের প্রজেশ সূত্রধরের ছেলে বিভাশ সূত্রদরের সঙ্গে তাকে বিয়ে দেওয়া হচ্ছিল। রাতে মেয়ের বাড়িতে চলছিল বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা। এখবর পেয়ে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম সেখানে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। মেয়ের বাবাকে ২ হাজার টাকা জরিমানা করে বিয়েটি বন্ধ করে দেন তিনি। আজমিরীগঞ্জ থানা পুলিশের একটি দল ভ্রাম্যমাণ আদালতকে সহযোগিতা করে। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম জানান, বাল্যবিয়ে নিরোধ আইন ২০১৭ এর ৮ ধারা অনুযায়ী মেয়ের বাবাকে ২ হাজার টাকা অর্থদণ্ড করা হয়েছে। প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার আগে মেয়েকে বিয়ে দেবেন না বলে মুচলেকাও দিয়েছেন তিনি।  

    নওগাঁর জেলা প্রেসক্লাবের নতুন কমিটি ঘোষনা

    নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁর ঐতিহ্যবাহী জেলা প্রেস ক্লাবের সাধারন সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে এবং ২০২৩সালের জন্য নতুন কমিটি ঘোষনা করা হয়েছে।  শনিবার (২৮ জানয়ারি) প্রেসক্লাব মিলনায়তনে প্রেসক্লাবের সভাপতি কায়েস উদ্দিনের সভাপতিত্বে এই সাধারন সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভার শুরুতেই প্রেসক্লাবের প্রয়াত সদস্য, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পরিবারের শহীদ সকল সদস্য ও দেশেরতরে যারা প্রাণ দিয়ে স্বাধীনতা ছিনিয়ে এনেছেন তাদের সকলের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের লক্ষ্যে একমিনিট নিরবতা পালন করা হয়।  এরপর বিগত একবছরের সকল কার্যক্রম সম্পর্কে ক্লাবের সদস্যদের মাঝে বার্ষিক প্রতিবেদন তুলে ধরেন সাধারন সম্পাদক শফিক ছোটন। সভায় আগামীতে ঐতিহ্যবাহী প্রেসক্লাবকে আরো কিভাবে অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও নানাবিধ কল্যাণমূলক কর্মকান্ডের মাধ্যমে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যায় সেই বিষয়ে সকলেই আলোচনা করেন।  সভা শেষে নির্বাচন কমিটির আহ্বায়ক এ্যাড, ডিএম আব্দুল বারী আগামী ২০২৩সালের জন্য চ্যানেল আইয়ের নওগাঁ প্রতিনিধি কায়েস উদ্দিনকে সভাপতি ও যমুনা টিভির নওগাঁ প্রতিনিধি শফিক ছোটনকে সাধারন সম্পাদক করে ১৫সদস্যের একটি পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষনা করেন।  এসময় নির্বাচন কমিটির যুগ্ম আহবায়ক কাজী জিয়াউল হক বাবলু, মাসুদুর রহমান রতনসহ প্রেসক্লাবের সকল সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। 

    ৫০টি তালগাছে বিষ দিলেন আওয়ামীলীগ নেতা 

    অসীম কুমার সরকার, রাজশাহী প্রতিনিধি: রাজশাহীর বাগমারা উপজেলায় শাহরিয়ার আলম নামের এক আওয়ামী লীগ নেতার বিরুদ্ধে রাস্তার পাশে থাকা ৫০টি তালগাছে বিষ দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।  তালগাছের বাকল তুলে সেখানে কীটনাশক লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে। এতে গাছগুলো মরতে শুরু করেছে। তবে আওয়ামীলীগ নেতা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। অভিযুক্ত আওয়ামীলীগ নেতার নাম শাহরিয়ার আলম। তিনি বাগমারার শুভডাঙ্গা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি ও করখন্ড দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক। এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, বাগমারার মাথাভাঙ্গা-হাটগাঙ্গোপাড়া সড়কের পাশে বাইগাছা এলাকায় শাহরিয়ার আলম ৬ মাস পূর্বে প্রায় ২৭ বিঘা কৃষিজমিতে পুকুর খনন করেছেন। তিনি দুই মাস আগে পুকুরের পাড়ে বিভিন্ন জাতের আমগাছ লাগিয়েছেন। ওই রাস্তার পাশেই এলাকার কয়েকজন সারি সারি তালগাছ লাগিয়েছেন প্রায় একযুগ আগে। এখন তালগাছগুলোর ছায়ার কারণে শাহরিয়ারের আমগাছ ঠিকমতো বেড়ে উঠছে না। স্থানীয় ব্যক্তিদের দাবি, কিছুদিন ধরে শাহরিয়ার আলম তালগাছগুলোর বাকল কেটেছেন। এরপর সেখানে কীটনাশকজাতীয় তরল কিছু প্রয়োগ করছেন। রাস্তাটি স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের (এলজিইডি)। স্থানীয় ব্যক্তিরা বিষয়টি এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশলীকে জানিয়েও কোনো প্রতিকার পাননি। এনিয়ে শাহরিয়ার আলম কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এটা কে করছে, আমি জানি না।’ এরপরই তিনি ফোনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন।’ বাগমারা উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলী খলিলুর রহমান বলেন, সড়কটি এলজিইডির। তবে অনেক আগে তালগাছগুলো কে লাগিয়েছে সেটা তিনি জানেন না। তালগাছে বিষ দেওয়ার বিষয়টি তিনি শুনেছেন। এবিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।  

    কৃষিতে খরচ বেড়েছে লোকসানের আশঙ্কা করছেন বোরো চাষিরা

    অনিল চন্দ্র রায়, ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: চলতি বোরো মৌসুমে বিদ্যুৎ, ডিজেল, সার ও কীটনাশকসহ কৃষি খাতে সব কিছুর মূল্য বেড়ে যাওয়ায় লোকসানের আশঙ্কা থাকলেও বোরো চাষে ব্যস্ত সময় পাড় করছেন কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীর চাষিরা। উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে চাষিদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, টানা এক সপ্তাহ থেকে এ অ লে কিছুটা শীত ও ঠান্ডার তীব্রতা কমে যাওয়ায় উপজেলার ৬ টি ইউনিয়ন জুড়ে কৃষকরা সকালে শীতের মধ্যেও কোমর বেঁধে মাঠে বোরো চাষে ব্যস্ত হয়ে পাড় করলেও গত বছরের চেয়ে এবছর বোরো চাষে খরচ বেড়ে যাওয়ায় চরম শঙ্কাও দেখা দিয়েছে তাদের মাঝে।  বিদ্যুত, ডিজেল ও সার কীটনাশক দাম হু-হু-করে বেড়ে যাওয়ায় অনেকটা বিপাকে চাষিরা। এ অ লের প্রধান ফসল বোরো তাই চোখে-মূখে দুচিন্তার ভাস থাকলেও বোরো চাষে মাঠে নেমেছেন। কেউ জমি হাল-চাষে ব্যস্ত, কেউ বীজতলা থেকে চারা তুলতে ব্যস্ত, কেউ জমিতে চারা রোপনে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন। এভাবে প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধা পর্যন্ত চাষিরা বোরো চাষে কট্টর পরিশ্রম করেই যাচ্ছে।  উপজেলার কুরুষাফেরুষা এলাকার কৃষক আবুল কাসেম ও শৈলান চন্দ্র রায় জানান, বিদ্যুত,সার তেলসহ কৃষি খাতে সব কিছুর মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ায় এবছর বোরো চাষে খরচ বেড়েছে। ফলে এবছর ১ বিঘা জমিতে ডিজেল চালিত শ্যালেমেশিনের পানির ভাড়া ১৫০০ টাকা ও বিদ্যুত চালিত সেচের পানির ভাড়া ২২০০ থেকে ২৫০০ টাকা। এই দুই কৃষক আরো জানান, সার ও কীটনাশকসহ কৃষি খাতে সব ধরণের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় আমরা চরম দুচিন্তায় পড়েছি।  গত বছর ১ বিঘা জমিতে বোরো চাষাবাদে খরচ হয়েছে ৮ থেকে ৯ হাজার টাকা। এবছর ১ বিঘা জমিতে বোরো চাষাবাদে খরচ বেড়ে ১২ হাজার থেকে ১৩ হাজার টাকা। তবে এই দুই কৃষকের দাবী ধানের দাম কমপক্ষে ১২০০ থেকে ১৩০০ টাকা মন হলে লাভের মূখ দেখতে পারবে কৃষক। তা না হলে কৃষকের লোকসান গুনতে হবে।  বালারহাট বাজারের সার ও কীটনাশক ব্যবসায়ী তপন চন্দ্র রায় ও কালিপদ রায় জানান, গত বছর ইউরিয়া সারের সরকার নির্ধারিত মূল্য ছিল ৮০০ টাকা ও টিএসপি ৮০০ টাকা। এবছর সরকারি ভাবে ইউরিয়া সারের মূল্য ১১০০ টাকা ও টিএসপি সারের মূল্য ১১০০ টাকা। সেই সাথে কীটনাশকের কাঠুন গত বছর ছিল ৫ হাজার টাকা। এবছর ৮ হাজার টাকা বলে জানান এই দুই ব্যবসায়ী। তারা সামান্য লাভ নিয়ে বিক্রি করছেন।  উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নিলুফা ইয়াছমিন জানান, এ উপজেলায় চলতি বোরো মৌসুমে ১০ হাজার ১৩৫ হেক্টর জমিতে বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এ পর্যন্ত ১ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে কৃষকরা জমিতে বোরো রোপন করেছে। যেভাবে চাষিরা বোরো চাষে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন আশাকরছি আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে এ উপজেলায় বোরো চাষাবাদ শেষ হবে। আমরা এবছর উপজেলার ৬ টি ইউনিয়নে ৭ হাজার কৃষককে সার, বীজসহ বিভিন্ন ধরনের সহায়তা প্রদান করা হয়েছে।  এছাড়াও কৃষকদের খরচ কমাতে এ ডাবøু ডি পদ্ধুতিসহ বিভিন্ন ধরণের পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে। আবহাওয়া অনুক‚লে থাকলে কৃষকরা আশানুরুপ ফলনের পাশাপাশি ভাল দামেও পাবে বলে আমার বিশ্বাস।   

    বিনাভোটের নির্বাচন করতে পারবে না সরকার, রংপুরে ডাকসু’র ভিপি: নুর 

    সাইফুল ইসলাম মুকুল, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট (রংপুর): জাতীয় নির্বাচন নিয়ে পশ্চিমা বিশ্ব সরব থাকার কারণে আওয়ামী লীগ সরকার এবার বিনাভোটের নির্বাচন করতে পারবে না বলে মন্তব্য করেছেন গণ অধিকার পরিষদের সদস্য সচিব, সাবেক ডাকসু’র ভিপি নুরুল হক নুর। বিকেলে রংপুর পাবলিক লাইব্রেরী মাঠে সদস্য ফরম উন্মোচন এবং শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আওয়ামী লীগ-বিএনপি পর্যায়ক্রমে দেশে ক্ষমতায় থাকার পরে মানুষের আকাঙ্খা-স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে পারেনি।  আওয়ামী লীগ সরকার উন্নয়নের কথা বলে ১৪ বছর ক্ষমতায় থেকে দেশকে খাদের কিনারায় নিয়ে গেছে।  গণঅধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক ও রংপুর বিভাগীয় সমন্বয়ক হানিফ খান সজিবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন, কেন্দ্রীয় ও স্থানীয়  নেতারা।

    কিশোরগঞ্জে কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার বিরুদ্ধে ঝাড়ু মিছিল

    এ এম উবায়েদ, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট (কিশোরগঞ্জ): কিশোরগঞ্জের তাড়াইলে বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির শ্রম বিষয়ক সম্পাদক গোলাম কবির ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে উপজেলা মহিলা আ'লীগ ঝাড়ু মিছিল করেছে। উপজেলার জাওয়ার ইউনিয়নের বোরগাঁও গ্রামের আলেক মাস্টারের ছেলে ব্যরিস্টার গোলাম কবির ভূঁইয়া কে সাবেক শিবির নেতা ও স্বাধীনতা বিরোধী পরিবারের সন্তান উল্লেখ করে শনিবার (২৮ জানুয়ারি) সকাল ১০টায় উপজেলা মহিলা আ'লীগের ব্যানারে বাংলাদেশ আ'লীগ তাড়াইল উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন লাকীর কার্যালয় থেকে মহিলা আ'লীগ সভাপতি অজুফা বেগম, সাধারণ সম্পাদক দিলরুবা কানম ও সাংগঠনিক সম্পাদক জেসমিন আকতারের নেতৃত্বে একটি ঝাড়ু মিছিল বের হয়ে সদরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে একই জায়গায় গিয়ে প্রতিবাদ সভায় মিলিত হয়। প্রতিবাদ সভায় উপজেলা মহিলা আ'লীগের সভাপতি অজুফা বেগম বলেন, কুখ্যাত শিবির নেতা ব্যরিস্টার গোলাম কবির ভূঁইয়াকে কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্ব দেয়ায় আমরা উপজেলা মহিলা আ'লীগ কোনো ভাবেই মেনে নিতে পারছি না। তাই আজ আমরা গোলাম কবিরের বিরুদ্ধে ঝাড়ু মিছিল করেছি। তাছাড়া বাংলাদেশ আ'লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি-সম্পাদকসহ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট জোর দাবি জানাচ্ছি স্বাধীনতা বিরোধী পরিবারের সন্তান ভূমিদস্যু ব্যারিস্টার গোলাম কবিরকে অনতিবিলম্বে দল থেকে বহিষ্কারসহ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য। এসময় তৃণমূল উপজেলা মহিলা আ'মীলীগের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।  উল্লেখ্য যে, বিগত ২০ জানুয়ারি কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চু এবং সাধারণ সম্পাদক আফজালুর রহমান বাবুর যৌথ স্বাক্ষরে ব্যারিস্টার গোলাম কবির ভুঁইয়াকে কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক পদে পদায়ন করেন। এরই প্রেক্ষিতে বিগত ২১ জানুয়ারি উপজেলা আ'লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আজিজুল হক ভুঁইয়া মোতাহারের নেতৃত্বে এলাকায় আনন্দ মিছিল হয়। উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আয়োজনে আ'লীগের একাংশ ও সহযোগী সংগঠনের ব্যানারে আ'লীগের সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন লাকীর কার্যালয়ে ব্যারিস্টার গোলাম কবির ভুঁইয়াকে শ্রম বিষয়ক সম্পাদক করার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেন।  

    চট্টগ্রাম বিভাগীয় পাসপোর্ট অফিস-১০ বছরই ২৮ জনবল, জনগণের ভোগান্তি

    চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: মনসুরাবাদ বিভাগীয় পাসপোর্ট অফিস। আবেদন জমা এবং পাসপোর্ট ডেলিভারি নিতে এসে ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে হচ্ছে সেবা প্রার্থীদের। সেবা প্রদানে পর্যাপ্ত সংখ্যক কাউন্টার না থাকায় এমন ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে বলে জানিয়েছেন সেবা প্রার্থীরা। পাসপোর্ট অফিসের দায়িত্বশীলরাও সেবা প্রার্থীদের ভোগান্তির বিষয়টি অস্বীকার করেননি। তবে চাইলেও জনবল সংকটের কারণে কাউন্টারের সংখ্যা বাড়ানো সম্ভবপর হচ্ছে না দাবি করে পাসপোর্ট অফিস সংশ্লিষ্টরা বলছেন, গত দশ বছরে চট্টগ্রামে পাসপোর্টের সেবা গ্রহীতার সংখ্যা বেড়ে অন্তত কয়েকগুণ হয়েছে। কিন্তু পাসপোর্ট অফিসের জনবল বাড়েনি। দশ বছর আগের জনবলেই সেবা কার্যক্রম চালিয়ে নিতে হচ্ছে। একদিকে সেবা গ্রহীতাদের অস্বাভাবিক চাপ, অন্যদিকে অপ্রতুল জনবল। এমন পরিস্থিতিতে সেবা দিতে গিয়েও রীতিমতো হিমশিম অবস্থা বিভাগীয় এই পাসপোর্ট অফিসের কর্মকর্তা–কর্মচারীদের। রাউজান থেকে পাসপোর্টের আবেদন নিয়ে এসেছেন আব্দুল কাদের। আবেদন জমা দিতে লাইনে দাঁড়ান বেলা ১১টায়। কিন্তু দুই ঘণ্টায়ও আবেদন জমা দিতে পারেননি তিনি। কিছুটা এগোলেও লাইনেই দাঁড়িয়ে থাকতে হয়েছে এ যুবককে। দুপুর একটায়ও তিনি কাউন্টার পর্যন্ত পৌঁছাতে পারেননি। তার সামনে আরো অন্তত ১০/১২ জন ছিলেন। পাসপোর্ট প্রস্তুত (রেডি), এমন এসএমএস পেয়ে ডেলিভারি নিতে এসেছেন হাটহাজারীর বাসিন্দা সৌরভ। সকাল দশটায় লাইনে দাঁড়ান। কিন্তু দুপুর ১২টায়ও তিনি ডেলিভারি কাউন্টারে পৌঁছাতে পারেননি। শুধু এই ক’জন নয়, আবেদন জমা দিতে এবং পাসপোর্ট নিতে আসা মানুষের ভিড়ে যেন ঠাঁই নেই অবস্থা মনসুরাবাদ বিভাগীয় এই পাসপোর্ট অফিসে। সেবা নিয়ে আসা নগরীর নিমতলা এলাকার শাহেদুর রহমান শাহেদ জানান, মনসুরাবাদ পাসপোর্ট অফিসে সেবা তো দুরের কথা বরং কেউ প্রতিবাদ করলে তাঁকে ধরে ভেতরে নিয়ে উল্টো হয়রানি করা হচ্ছে। যা সভ্য সমাজে কখনো উচিত নয়। বড় কর্তা ফেরেশতার মতো কথা বললেও তিনিই সব জানেন। এখানে দুদক বা ডিবি পুলিশের অভিযান চালানো দরকার। ভিড় সামলাতে ও লাইন সুশৃঙ্খল রাখতে আনসার সদস্যরাও হিমশিম অবস্থায়। একই চিত্র ছবি তোলার কক্ষের সামনেও। অপর্যাপ্ত কাউন্টারের কারণে এমন ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে জানিয়ে সেবা নিতে আসা লোকজন বলছেন, এখানে মাত্র কয়েকটি কাউন্টারে ফাইল জমা, ছবি তোলা ও পাসপোর্ট ডেলিভারি দেয়া হচ্ছে। কিন্তু মানুষের যে ভিড়, আরো অন্তত ৬/৭টি করে কাউন্টার প্রয়োজন। কাউন্টার সংখ্যা বাড়ানো হলে মানুষের এই ভোগান্তি অনেকাংশেই লাঘব হতো বলে মনে করেন সেবা গ্রহীতারা। সেবাগ্রহীতাদের ভোগান্তিহীন সেবাদানে আন্তরিক চেষ্টা থাকলেও অপ্রতুল জনবলের কারণে সেটি সম্ভব হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন বিভাগীয় পাসপোর্ট অফিসের পরিচালক মো. আবু সাইদ। বিভাগীয় পাসপোর্ট অফিসের তথ্য অনুযায়ী– ২০১০ সালের আগস্টে চট্টগ্রামে বিভাগীয় এই পাসপোর্ট অফিসের কার্যক্রম শুরু হয়। ওই সময় কর্মকর্তা–কর্মচারী মিলিয়ে মোট জনবল ছিল ৩১ জন। তবে এর এক যুগ গত হলেও জনবল আর বাড়েনি। বরং কমেছে। বর্তমানে ২৮ জন কর্মকর্তা–কর্মচারী নিয়ে এই অফিস চলছে। অথচ, দশ বছর আগে দৈনিক সর্বোচ্চ ৫০০ পাসপোর্টের আবেদন জমা পড়তো। আর বর্তমানে দৈনিক আবেদনের সংখ্যা হাজারের বেশি (দ্বিগুণ)। দিন দিন এ সংখ্যা আরো বাড়ছে বলে জানান বিভাগীয় পাসপোর্ট অফিসের সহকারী পরিচালক মো. এনায়েত উল্লাহ। পাসপোর্ট অফিস সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, মোট জনবল ২৮ জন থাকলেও সরাসরি পাসপোর্ট সেবায় কাজ করেন অফিস সহকারী বা ডাটা এন্ট্রি অপারেটর পদের স্টাফরা। এই পদে বর্তমানে সর্বোচ্চ ১০ জন স্টাফ কর্মরত আছেন। এই জনবলে আবেদন জমা গ্রহণের দুটি, ছবি তোলার ৮টি এবং পাসপোর্ট ডেলিভারির ৩টি কাউন্টার চালু আছে। কিন্তু সেবা গ্রহীতাদের অত্যধিক চাপে এই সংখ্যক কাউন্টার পর্যাপ্ত নয়। যার কারণে সেবা প্রত্যাশী মানুষকে প্রতিনিয়ত ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। পাসপোর্ট অফিস সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বর্তমানে দৈনিক সেবা প্রার্থীর সংখ্যা বা চাহিদা বিবেচনায় আবেদন জমা গ্রহণে অন্তত ৪টি, ছবি তোলায় অন্তত ২০টি এবং পাসপোর্ট ডেলিভারিতে অন্তত ৫টি কাউন্টার প্রয়োজন। আর কাউন্টার বাড়াতে হলে ডাটা এন্ট্রি অপারেটর বা অফিস সহকারী পদে আরো ১০ জন স্টাফ জরুরি ভিত্তিতে প্রয়োজন। এছাড়া সহকারী পরিচালক পদেও আরো ৬ জন কর্মকর্তা দরকার। জনবল পেলে সেবা প্রত্যাশীদের আরো সন্তোষজনক সেবা দেয়া সম্ভব বলে মন্তব্য করেন বিভাগীয় পাসপোর্ট অফিসের পরিচালক মো. আবু সাইদ।  

    টাঙ্গাইলে প্রতিবন্ধী ও অটিষ্টিক শিক্ষার্থীদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ

    টাঙ্গাইল প্রতিনিধি: টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার পাছ চারান গ্রামে অবস্থিত ঘাসফুল প্রতিবন্ধী ও অটিষ্টিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে শীতবস্ত্র ও শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করা হয়েছে। এ উপলক্ষে শনিবার (২৮ জানয়ারি) সকালে উপজেলার পাছ চারান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। গ্রামীণ প্রতিবন্ধী উন্নয়ন কেন্দ্র (সিআরডিডি)’র সভাপতি আবরার এইচ কে ইফসুফজাই (তনু)’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, গ্রামীণ প্রতিবন্ধী উন্নয়ন কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী পরিচালক সিফাত মোহাম্মদ আরিফিন। প্রধান অতিথি ছিলেন, টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) আসনের এমপি মোহাম্মদ হাছান ইমাম খান সোহেল হাজারী। বিশেষ অতিথি ছিলেন, জেলা প্রতিবন্ধী বিষয়ক কর্মকর্তা নুরুল ইসলাম, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনছার আলী, ভাইস চেয়ারম্যান আখতারুজ্জামান, উপজেলা আ’লীগ নেতা মো.জাকির হোসেন,খন্দকার আ.মাতিন, কোকডহরা ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম, নাগবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল কাইয়ুম বিপ্লব,বল্লা ইউপি চেয়ারম্যান মো.ফরিদ আহমেদ, কোকডহরা ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি আবু সুফিয়ান তালুকদার সেন্টু, সহসভাপতি মশিউর রহমান সিদ্দিকী তুহিন, সাধারণ সম্পাদক মো.বাকির হোসেন প্রমুখ। ঘাসফুল প্রতিবন্ধী ও অটিষ্টিক বিদ্যালয়ের ৭০জন শিক্ষার্থীদের মাঝে শীতবস্ত্র ও ৫জনকে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করেন টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) আসনের এমপি মোহাম্মদ হাছান ইমাম খান সোহেল হাজারী।  

    পাবনায় শিমুল বিশ্বাসের মুক্তির দাবিতে বিএনপির বিক্ষোভ

    আব্দুল লতিফ রঞ্জু, পাবনা প্রতিনিধি: বিএনপি চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারী অ্যাডভোকেট শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাসসহ বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের মুক্তি এবং নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে পাবনায় বিএনপির বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা হয়েছে। শনিবার (২৮ জানুয়ারি) দুপুর ১২টার দিকে শহরের গোপালপুরের জেলা পাড়াস্থ পাবনা জেলা বিএনপির পুরানা কার্যালয় থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি শুরু হয়। মিছিলটি পাবনা পৌরসভা, পুলিশ লাইন মোড় হয়ে শহরের প্রধান ঘুরে একই স্থানে গিয়ে প্রতিবাদ সভায় মিলিত হয়।  মিছিলে জেলা বিএনপি, পৌর বিএনপি, সকল উপজেলা বিএনপি ও এর অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা অংশগ্রহণ করেন। নেতাকর্মীরা শিমুল বিশ্বাসের মুক্তিসহ বিভিন্ন দাবি সংবলিত ব্যানার-প্লেকার্ড নিয়ে অংশগ্রহণ করেন।  পাবনা সদর উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি একেএম মুসার সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক রেহানুল ইসলাম বুলালের সঞ্চালনায় প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-আহবায়ক আব্দুস সামাদ খান মন্টু, সাবেক সিনিয়র যুগ্ম-আহবায়ক আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ মান্নান মাস্টার, পৌর বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম লালু, ফরিদপুর উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবুল হোসেন জোয়ার্দার, সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি রুহুল আমিন মাস্টার, বেড়া উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক রইচ উদ্দিন, সুজানগর উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক হাজারী জাকির হোসেন চুন্নু, ফরিদপুর উপজেলার বিএনপির সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি রুহুল আমিন মাস্টার, সাংগঠনিক সম্পাদক জিয়াউর রহমান জিয়া, আতাইকুলা বিএনপির সাবেক আহ্বায়ক রবিউল ইসলাম রবি প্রমুখ। 

    ঘোড়াঘাটে বাড়িঘরে হামলা-লুটপাট, ১২শ’ জনের বিরুদ্ধে মামলা

    মোঃ আব্দুল আজিজ, দিনাজপুর প্রতিনিধি: দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার খোদাদাতপুর (চুনিয়াপাড়ায়) জমি নিয়ে বিরোধের জেরে জোড়া খুনের পর বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ, ভাঙচুর ও লুটপাটের অভিযোগে মামলা হয়েছে।  শুক্রবার (২৭ জানুয়ারি) রাতে অজ্ঞাতনামা ১ হাজার ২০০ জনকে আসামি করে মামলাটি করেন উপজেলার ঘোড়াঘাট ইউনিয়নের গ্রাম পুলিশ সুনীল চন্দ্র দাস। ঘোড়াঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু হাসান কবির মামলার তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, বাড়িঘরে হামলা, আগুন লাগানো, ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনায় স্থানীয় এক গ্রাম পুলিশ অজ্ঞাতনামা ১ হাজার ২০০ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছেন। আসামিদের শনাক্তের চেষ্টা চলছে। তবে হত্যা মামলায় এখন পর্যন্ত ৪ জনকে আটক করা হয়েছে।  এদিকে শনিবার (২৮ জানুয়ারি) সকালে খোদাদাতপুর গ্রামে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, গণ্যমান্য ব্যক্তি ও গ্রামের দুই পক্ষের লোকজন নিয়ে একটি শান্তিপূর্ণ বৈঠক আয়োজন করা হয়েছে। উল্লেখ্য, খোদাদাতপুর গ্রামে জমি নিয়ে বিরোধে গত ২৫ জানুয়ারি সকালে প্রতিপক্ষের হামলায় মনোয়ার হোসেন মীম (২৪) ও রাকিব হোসেন (২৫) নামের দুজন নিহত হন। পরদিন দুপুরে দুজনের জানাজার সময় নিহত ব্যক্তিদের পক্ষের লোকজন চুনিয়াপাড়ায় বাড়ি বাড়ি ঢুকে অগ্নিসংযোগ করেন বলে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ির লোকজন অভিযোগ করেছেন। অগ্নিসংযোগকালে লোকজন লাঠিসোঁটা, দা ও কোদাল নিয়ে প্রতিপক্ষের বাড়িতে হামলা ও লুটপাট চালান। এ সময় প্রাণ বাঁচাতে নারী, শিশু ও পুরুষেরা বাড়িঘর ছেড়ে পালান। মামলার এজাহারে বাদী সুনীল চন্দ্র দাস বলেন, নিহত দুজনের জানাজা ও দাফনকাজে উপস্থিত খোদাদাতপুর ও পাশের গ্রামের লোকজন লাঠিসোঁটা, দা ও কোদাল নিয়ে চুনিয়াপাড়ায় প্রতিপক্ষের বাড়িসহ আশপাশের বাড়িঘরে হামলা চালান। এসময় সেখানে উপস্থিত থানা-পুলিশসহ গ্রাম পুলিশের সদস্যরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করেন। পরে থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ এনে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টাকালে হামলাকারীরা চুনিয়াপাড়ার আবদুস সালাম, তোতা মিয়া, নুরুল ইসলাম, হাফিজুর রহমানের বাড়িসহ আশপাশের কিছু টিনের বসতবাড়ি এবং বাড়ির সামনে খড়ের গাদায় আগুন লাগিয়ে দেন। এ ছাড়া নজরুল ইসলাম, শফিকুল ইসলাম, নুরুল ইসলাম, মোহাম্মদ আলী, আবদুল ওহাব, মোগেন ওরফে মকবুল হোসেনের বাড়িসহ ২০ থেকে ২৫টি বাড়ি ভাঙচুর করেন। এজাহারে আরও বলা হয়েছে, বাড়িঘরে আগুন লাগানো, ভাঙচুর, প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র লুট এবং গরু-ছাগল চুরির ঘটনায় প্রায় সাড়ে ১৬ লাখ টাকার ক্ষতিসাধন হয়েছে। পরে পার্শ্ববর্তী থানাগুলো থেকে অতিরিক্ত পুলিশ এসে সেখানকার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

    ফরিদপুরে ইটভাটায় দেদারসে পুড়ছে কাঠ-খড়ি

    হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি: ফরিদপুরে বেশিরভাগ ইটভাটায় দেদারসে পুড়ছে কাঠ-খড়ি, তবে নেয়া হচ্ছে না কোনো কার্যকরী পদক্ষেপ। আবার, এসব ইটভাটায় অভিযান পরিচালনার জন্য প্রশাসনের সহযোগিতা এবং ম্যাজিস্ট্রেট পাচ্ছে না পরিবেশ অধিদপ্তর- এমনটাই জানিয়েছেন ফরিদপুর পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক সাইফুল ইসলাম। এমনকি তিনি কয়েকদিন আগে অভিযান পরিচালনাকালে বিভিন্ন জায়গায় বাঁধার ও লাঞ্ছণার শিকার হয়েছেন। জানা যায়, এজেলায় মোট ৯৯টি ইটভাটা রয়েছে। এরমধ্যে তিনটি ইটভাটাকে নবায়ন দিয়েছে ফরিদপুর পরিবেশ অধিদপ্তর। বাকিগুলো ত্রুটিপূর্ণ ও অবৈধ থাকায় নবায়ন দেয়া হয়নি। ফরিদপুর সদর উপজেলার একাধিক ইটভাটা ঘুরে দেখা যায়, অবাধে পোড়ানো হচ্ছে গাছের কাঠ। এরমধ্যে কানাইপুর ইউনিয়নের ছোনপঁচা এলাকায় তাজুল ইসলাম স্বত্ত্বাধিকারী হাক্কানী ইটভাটা, বাহিরদিয়া এলাকায় অবস্থিত এনামুল তারেক মিয়া স্বত্ত্বাধিকারী ফ্যনকো ব্রিক্স ইন্ডাস্ট্রিজ (এফবিআই) ইটভাটায় বিপুল পরিমাণ লাকড়ি (কাঠ) দেখা যায়।   বোয়ালমারী উপজেলার সাবেক মেয়র আব্দুস শুকুর শেখের রাজ ব্রিক্স ইটভাটায় বিপুল কাঠের সমাহার দেখা গেছে। তিনি কাউকেই তোয়াক্কা করেন না বলে পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক জানিয়েছেন। গত কয়েকদিন আগে সেখানে অভিযান পরিচালনাকালে তিনি লাঞ্ছণার শিকার হোন। ওইদিন ভাটার চিমনি ভেঙে দেয়া হয়। কিন্তু তার কয়েকদিনের মধ্যে ভাটা চালু করে পুনরায় দেদারসে কাঠ পুড়িয়ে যাচ্ছেন আব্দুস শুকুর শেখ। এছাড়া এ উপজেলার হাসামদিয়া এলাকায় অবস্থিত বন্যা ব্রিক্স এ বিপুল পরিমাণ কাঠ সংরক্ষণে এবং পোড়াতে দেখা যায়। জেলার ইটভাটাগুলোতে অবাধে কাঠ-খড়ি পোড়ানোর বিষয়ে ফরিদপুর পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. সাইফুল ইসলামের বক্তব্য জানতে গেলে তিনি ফরিদপুর প্রশাসনের উপর দায় চাপিয়ে যান। এমনকি পাশ্ববর্তী রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী অফিসার কর্তৃক বাঁধা পেয়েছেন বলে জানান। তিনি বলেন, ‘ফরিদপুর জেলা প্রশাসনের কাছে ম্যাজিস্ট্রেট চাইলে কোনো সাড়া পাই না। উল্টা আমরা ঢাকার ম্যাজিস্ট্রেট দিয়ে অভিযান করায় তারা অসন্তুষ্ট। এমনকি কয়েকদিন আগে জেলা সমন্বয় সভায় বোয়ালমারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেছেন, আমরা অভিযানে গেলে তারা কোনো সহযোগিতা করবে না। এরকম হলে আমরা অভিযান পরিচালনা করবো কিভাবে?’ তিনি আরো বলেন, ফরিদপুর পরিবেশ অধিদপ্তরের নিয়ন্ত্রণে ৩টি জেলা রয়েছে। এরমধ্যে গত ২২ ডিসেম্বর মাদারীপুর সদরের পাঁচখোলা এলাকায় অভিযানকালে আক্রমণের শিকার হয়েছি। রাজবাড়ী জেলা বালিয়াকান্দিতে অভিযানকালে ইউএনও নিজেই ফোন দিয়ে বলেছেন- ভাটায় হাত দেয়া যাবে না।’ তবে তিনি অবাধে কাঠ পোড়ানোর বিষয়ে বলেন, ‘যেসব ইটভাটায় লাকড়ি পোড়ানো হচ্ছে, সেগুলোর মধ্যে ইতোমধ্যে কয়েকটিতে অভিযান পরিচালনা করেছি। যেসব ভাটায় লাকড়ি পেয়েছি, সেসব ইটভাটায় জরিমানা করেছি। এখন প্রশাসনের সহযোগিতা পেলে অভিযান পরিচালনা করা হবে।’ এদিকে ভাটার মালিকদের দাবি, কয়লার অনেক দাম এবং পর্যাপ্ত পাওয়া যায় না। যে কারণে বাধ্য হয়ে কাঠ পোড়ানো হচ্ছে। এছাড়া গত ২ বছরে করোনার কারণে আমরা ব্যবসায় লজের কারণে বাধ্য হয়েই কাঠ পোড়াচ্ছি।  ফরিদপুর জেলা পরিবেশ অধিদপ্তর সুত্রে জানা যায়, ‘গত ২৮ ডিসেম্বর ফরিদপুরে ৫টি ইটভাটায় অভিযান চালিয়ে সাড়ে এগারো লক্ষ টাকা জরিমানা আদায় ও দুটি ইটভাটার আংশিক ভেঙে ফেলা হয়। এসময় মোবাইল কোর্ট অভিযান পরিচালনাকালে অবৈধভাবে ইটভাটা পরিচালনা না করার এবং ইট প্রস্তুতে অবৈধভাবে মাটি ও কাঠের ব্যবহার না করার জন্য নির্দেশ প্রদান করা হয়। ভবিষ্যতেও অবৈধ ইটভাটার বিরুদ্ধে এ ধরণের মোবাইল কোর্ট অভিযান পরিচালনা অব্যাহত থাকবে বলেও জানানো হয়।

    ইউএনও'র হস্তক্ষেপে বাল্যবিবাহ থেকে রক্ষা পেল স্কুল ছাত্রী

    হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি: ফরিদপুরে ইউএনও'র হস্তক্ষেপে বাল্যবিবাহ থেকে রক্ষা পেলেন নবম শ্রেণিতে পড়ুয়া মুসলিমা আক্তার সুমি (১৪) নামে এক স্কুল ছাত্রী। শুক্রবার (২৭ জানুয়ারি) দুপুরে ফরিদপুর সদর উপজেলার আকুনের চরপাড়া গ্রামে গিয়ে এ বাল্যবিবাহ বন্ধ করেন ইউএনও লিটন ঢালী।  এসময় মেয়ের বয়স ১৮ বছর পূর্ণ হবার পূর্বে বিয়ে দিবেন না মর্মে মেয়ের বাবার মুচলেকা নেন।  জানা যায়, শুক্রবার দুপুরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মুসলিমা আক্তার সুমি নামের এক স্কুল শিক্ষার্থীর বাল্যবিবাহের খবর পান ইউএনও লিটন ঢালী। তিন তাৎক্ষণিক ছুটে যান ওই স্কুল শিক্ষার্থীর বাড়িতে। এসময় তার সঙ্গে ছিলেন সদর উপজেলার সমাজসেবা অফিসার মাহাবুবুর রহমানসহ আনসার বাহিনীর একটি টিম। পরে তারা ওই স্কুল শিক্ষার্থীর বাড়িতে পৌঁছে মেয়ের বাবাকে আটক করেন। এসময় ১৮ বছরের আগে ওই মেয়েকে বিয়ে দিবেননা বলে তার লিখিত মুচলেকা নেন। এছাড়া, বিষয়টি নজরদারিতে রাখার জন্য সংশ্লিষ্ট ইউপি সদস্য মারফত হোসেনকে দায়িত্ব দেয়া হয়।

    ফুলবাড়ীতে ১৫ কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

    অনিল চন্দ্র রায়, ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: ফুলবাড়ীতে পুলিশ মাদক বিরোধী অভিযান চালিয়ে ১৫ কেজি ১০০ গ্রাম গাঁজাসহ এক মাদক ব্যবসায় যুবককে গ্রেফতার করেছে।  গ্রেফতারকৃত যুবকের বিরুদ্ধে পুলিশ বাদী হয়ে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করে শনিবার (২৮ জানয়ারি) সকালে আদালতের মাধ্যমে কুড়িগ্রাম কারাগারে প্রেরণ করা হয়ে। পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, গতকাল শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৫ টার দিকে ফুলবাড়ী থানার ওসি ফজলুর রহমান ও এস আই এনামুল হকসহ পুলিশের একটি টিম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নাওডাঙ্গা ইউনিয়নের কিশামত শিমুলবাড়ী এলাকার ফরজ আলীর ছেলে শাহিনের বাড়ীতে অভিযান চালিয়ে ১৫ কেজি ১০০ গ্রাম গাঁজাসহ মিজানুর রহমান (২২) নামের যুবককে হাতেনাতে গ্রেফতার করে। এ সময় গাঁজা বহনকারী দুইটি মোটরসাইকেল জব্দ করে থানায় নিয়ে আসা হয়। গ্রেফতার ওই যুবক হলেন উপজেলার নাওডাঙ্গা গ্রামের পল্লীচিকিৎসক জাহাঙ্গীর আলমের ছেলে। ফুলবাড়ী থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ফজলুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, শনিবার সকালে গ্রেফতার যুবককে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

    চলে গেলেন নওগাঁ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক লিপি সাহা

    নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক লিপি সাহা (৪২) শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করে পরলোক গমন করেছেন (ওঁ দিব্যান লোকান্ স্বাঃ গচ্ছতু)। তিনি শুক্রবার (২৭জানুয়ারী) ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। ব্রেণ হেমারেজের কারণে তার মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গেছে। ডাক্তার কৃষ্ণ কমল সাহার স্ত্রী লিপি সাহা শহরের টাইম স্কয়ারে ভাড়া থাকতেন। জানা যায়, সবার প্রিয় জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক লিপি সাহা গত কয়েকদিন আগে হঠাৎ স্ট্রোক করে অসুস্থ হয়ে পড়েন। নওগাঁয় প্রাথমিক চিকিৎসা নেওয়ার পর রাজশাহীতে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে অবস্থার উন্নতি না হলে তাকে ঢাকার একটি হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। মৃত্যুকালে তিনি ২ছেলে ও অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। লিপি সাহার অকাল মৃত্যুতে নওগাঁর রাজনৈতিক অঙ্গনসহ সকল স্তরে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। তার মৃত্যুতে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মারেক, সাধারণ সম্পাদক ও খাদ্যমন্ত্রী বীরমুক্তিযোদ্ধা বাবু সাধন চন্দ্র মজুমদার এমপি, সদর আসনের সাংসদ ব্যারিস্টার নিজাম উদ্দিন জলিল জনসহ জেলা আওয়ামীলীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও খাদ্যমন্ত্রী বীরমুক্তিযোদ্ধা বাবু সাধন চন্দ্র মজুমদার এমপি বলেন লিপির শূণ্যতা আর কোনদিনই পূরণ হবার নয়। সেছিলো প্রিয়ভাষীনী ও প্রিয়দর্শনী। লিপি আওয়ামীলীগের জন্য এক নিবেদিত প্রাণ ছিলো। সে যে এতো তাড়াতাড়ি চলে যাবে ভাবতেই পারছি না। তার অকাল মৃত্যুতে পুরো আওয়ামীলীগ পরিবার মর্মাহত এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করছি। 

    ঝালকাঠিতে গাড়ির চাপায় পিষ্ট হয়ে দুজন নিহত

    নজরুল ইসলাম, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট (ঝালকাঠি): বরিশাল-খুলনা মহাসড়কের ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার নৈকাঠি নামক স্থানে পন্যবাহী কাভার্ড ভ্যানের চাপায় মোটর সাইকেলে থাকা দুজনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতরা হলেন উপজেলার পুর্ব রাজাপুর গ্রামের আলী হায়দার হোসেন মহারাজ এবং আংগারিয়া গ্রামের আনোয়ার তালুকদার শাহিন। এদের মধ্যে শাহিন অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য। দু'জনেরই বয়স ৫০ থেকে ৫৫ বছরের মধ্যে।  এসব তথ্য নিশ্চিত করেছে রাজাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) পুলক চন্দ্র রায়। ঘটনার পরপরই মোটর সাইকেলকে চাপা দেয়া  বসুন্ধরা গ্রুপের এলপি গ্যাসের সিলিন্ডার বহনকারী কাভার্ড ভ্যানটিকে আটক করা হয়েছে বলেও জানান ওসি। নৈকাঠি নামক স্থান থেকে শুক্রবার রাত ১১ টায় নিহতদের লাশ উদ্ধার করে রাজাপুর থানায় নিয়ে এসেছে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের রেসকিউ টিমের সদস্যরা। রাত সারে ১০ টায় দুর্ঘটনার পর থেকে প্রায় ঘন্টাব্যাপী রাজাপুর-বেকুটিয়া সড়কে যান চলাচল বন্ধ ছিলো। পরে থানা পুলিশের সহায়তায় যান চলাচল শুরু হয়। পুলিশ জানিয়েছে শনিবার সকালে ময়না তদন্ত শেষে পরিবারের কাছে লাশ দুটি হস্তান্তর করা হবে।

    জামাতার বিরুদ্ধে শাশুড়ির সংবাদ সম্মেলন

    মিজানুর রহমান, শেরপুর জেলা প্রতিনিধি:শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে মেয়ের জামাতা গলিয়াত রেমার অত্যাচার থেকে বাঁচতে তার বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেছেন তার শাশুড়ি সনন্দা মানকিন৷ শুক্রবার সকালে উপজেলার ভারত সীমান্তঘেঁষা রামচন্দ্রকুড়া ইউনিয়নের পানিহাটা-তাড়ানী গ্রামের নিজ বাড়ির আঙিনায় সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে পরিবারের প্রধান প্রয়াত মলয় রেমার স্ত্রী সনন্দা মানকিন সংবাদিকদের জানান, তার ৬ ছেলে ও ৭ কন্যা দীর্ঘদিন যাবত উপজেলার তাড়ানী গ্রামে বসবাস করে আসছেন। একই গ্রামের গলিয়াত রেমার কাছে তার বড় মেয়ে রুমা মানকিনকে বিয়ে দেন। গারোদের মাতৃতান্ত্রিক পরিবার হওয়ায় মা-বাবার সম্পদের ওয়ারিশদার হন কন্যারা। তাই বড় মেয়ে রুমার ইন্ধনে তার স্বামী গলিয়াত ওই পরিবারে একক আধিপত্য বিস্তার ও সম্পত্তি ভোগদখল করতে চান। পরিবারের জমিজমাসহ সব অর্থবিত্ত গলিয়াতের একক নিয়ন্ত্রণে নিতে চাইলে শাশুড়ি, শ্যালক ও শ্যালিকাদের সাথে দ্বন্দ্ব বাধে। এ নিয়ে মাঝে মধ্যেই গলিয়াত তার শাশুড়ি, শ্যালক ও শ্যালিকাদের সঙ্গে হামলা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। সম্প্রতি এমনই এক ঘটনায় শ্যালিকা রিনা মানকিন, বিচিত্রা মানকিন ও মনীষা মানকিন গুরুতর আহত হন। বর্তমানে আহত রিনা মানকিন নালিতাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন। প্রায় এক যুগ ধরে জামাতা গলিয়াত রেমা নানা অপকর্ম করে আসলেও এর সমাধান পাচ্ছেন না তারা। সনন্দা আরো জানান, গলিয়াত রেমা বড় মেয়ের জামাতা হওয়া সত্তেও তিনি পরিবারের দেখভাল না করে জমিজমা ও অর্থবিত্ত আত্মসাতের পায়তারা করছেন। গলিয়াত সম্পত্তির লোভে তিনি শাশুড়ি, শ্যালক ও শ্যালিকাদের একাধিকবার হামলা ও প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে যাচ্ছেন। এমতাবস্থায় পরিবারে অশান্তি নেমে এসেছে। তাই গলিয়াতের অত্যাচার থেকে বাঁচতে ও পরিবারে শান্তি-শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে প্রশাসনের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি। সংবাদ সম্মেলনে সনন্দার ছেলে-মেয়েসহ জামাতারা উপস্থিত ছিলেন। এ সময় তারা গলিয়াতের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন।

    ওয়াজ মাহফিল থেকে ফেরার পথে কিশোরীকে ধর্ষণ; যুবক গ্রেফতার

    মো. ফরহাদ হোসাইন, নীলফামারী প্রতিনিধি: নীলফামারীর ডোমারে ওয়াজ মাহফিল থেকে ফেরার পথে প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণের মামলায় মো. রাকিব ইসলাম (২১) নামের এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শুক্রবার (২৭ জানুয়ারি) ভোরে উপজেলার সোনারায় ইউনিয়নের কুমবাড়িরডাঙ্গা গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। রাকিব ওই  গ্রামের দুলাল হোসেনের ছেলে। মামলা সূত্রে জানা গেছে, “গত বছরের ১৯ ডিসেম্বর রাত সাড়ে ১০টার দিকে ওয়াজ মাহফিল থেকে বাড়ি ফেরার পথে ১৪ বছর বয়সী শারীরিক প্রতিবন্ধী এক তরুণীকে ধর্ষণ করে রাকিব। এ সময় লোকলজ্জার ভয়ে বিষয়টি গোপন রাখে সে। বিষয়টি জানাজানি হলে গত বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে ভুক্তভোগী তরুণীর বাবা বাদী হয়ে রাকিব ইসলামকে আসামি করে মামলা করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করে ডোমার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাহমুদ উন নবী বলেন, “শুক্রবার ভোরে রাকিবকে গ্রেপ্তার করা হয়। দুপুরে তাকে আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ওই তরুণীর ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য তাকে নীলফামারী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

    নওগাঁয় কাভার্ডভ্যান চাপায় গ্রাম পুলিশসহ দুইজনের মৃত্যু

    নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁর পত্নীতলায় কাভার্ডভ্যানের চাপায় গোলাম মোস্তফা (৬৫) নামে আরও এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৬জানুয়ারি) বিকেলে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। তিনি উপজেলার কাস্টবই গ্রামের খবির উদ্দিনের ছেলে। পত্নীতলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পলাশ চন্দ্র দেব বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এর আগে দুপুরে উপজেলার আগ্রাদ্বিগুন-সাপাহার সড়কের শিহাড়া মোড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটলে সুরত আলী (৫৫) নামে এক গ্রাম পুলিশ ঘটনাস্থলেই মারা যান। তিনি পরাণপুর গ্রামের মৃত বছির উদ্দিনের ছেলে। পুলিশ ও স্থানীয় বাসিন্দা সূত্রে জানা যায়, সাপাহার উপজেলা সদর থেকে একটি ওষুধ কোম্পানির কাভার্ডভ্যান মালামাল নিয়ে ধামইরহাট উপজেলার আগ্রাদ্বিগুন বাজারে যাচ্ছিলো। দুপুরের দিকে কাভার্ডভ্যানটি উপজেলার শিহাড়া মোড় এলাকায় একটি বাঁক ঘুরানোর সময় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা গ্রাম পুলিশ সুরত আলীকে চাপা দিয়ে একটি পানের দোকানের ভেতর ঢুকে যায়। এতে রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা গ্রাম পুলিশ সদস্য ঘটনাস্থলেই মারা যান এবং চায়ের দোকানদারসহ দোকানের ভেতরে থাকা তিনজন গুরুত্বর আহত হন। আহতদের উদ্ধার করে প্রথমে সাপাহার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। পরে আহত গোলাম মোস্তফা ও ছমির উদ্দিনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বিকেলে আহত গোলাম মোস্তফার মৃত্যু হয়। পত্নীতলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পলাশ চন্দ্র দেব বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে দুর্ঘটনাকবলিত কাভার্ড ভ্যানটি আটক করে এর চালক ও সহকারীকে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, নিহতদের পরিবারের পক্ষ থেকে কোন অভিযোগ না করায় ময়নাতদন্ত ছাড়া মরদেহ দাফনের জন্য তাদের পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে। আটককৃত চালক ও সহকারীর বিরুদ্ধে পতœীতলা থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।  

    ফরিদপুরে বিয়ের প্রলোভনে গার্মেন্টস কর্মীকে ধর্ষণের অভিযোগ

    হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি: ফরিদপুরের মধুখালীতে বিয়ের প্রলোভনে মরিশাস প্রবাসীর স্ত্রী এক গার্মেন্টস কর্মীকে (২৭) ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার (২৩ জানুয়ারি) রাতে মধুখালী উপজেলার নওয়াপাড়া ইউনিয়নের বুসনা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে বলে অভিযোগ। পরে ভুক্তভোগী ওই নারীকে উদ্ধার করে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।   জানা গেছে, ভুক্তভোগী ওই গার্মেন্টস কর্মীর স্বামী মরিশাস প্রবাসী। তার গ্রামের বাড়ি মধুখালী উপজেলার নওয়াপাড়া ইউনিয়নের একটি গ্রামে। তিনি ঢাকার একটি গার্মেন্টসে চাকরি করেন। শুক্রবার (২৭ জানুয়ারি) দুপুরে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ওই নারীর সঙ্গে কথা হয় সাংবাদিকদের। এসময় ভুক্তভোগী জানান, গত সোমবার (২৩ জানুয়ারি) অসুস্থ মাকে দেখতে ঢাকা থেকে মধুখালীতে গ্রামের বাড়িতে আসেন। ওই রাতে তার সঙ্গে দেখা করার কথা বলে ও বিয়ের প্রলোভনে একই উপজেলার নওয়াপাড়া ইউনিয়নের বুসনা গ্রামের ইজিবাইক চালক সাখাওয়াত (৪০) মুখ চেপে ধরে তাকে নিজের বাসায় নিয়ে ধর্ষণ করেন। পরে তার মাকে নিয়ে মধুখালী থানায় গিয়ে একটি অভিযোগ দায়ের করেন।   পরে তাকে থানা পুলিশ ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান বলে জানান ওই নারী। এখন বিভিন্ন সময়ে ওই নারী গার্মেন্টস কর্মীকে এসিড দিয়ে ঝলসে দেওয়াসহ হত্যার হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ ভুক্তভোগী ওই নারীর।   এ ব্যাপারে মধুখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, পরকীয়া প্রেমিক বিয়ের কথা বলে ধর্ষণ করেছে বলে মৌখিকভাবে জানিয়েছেন ওই গৃহবধূ। তবে, থানায় এখন পর্যন্ত কোনো লিখিত অভিযোগ দেননি তিনি। লিখিত অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

    মাদারীপুরে খেলা নিয়ে সংঘর্ষে  ৫ পুলিশসহ আহত ১৫

    স্টাফ করেসপন্ডেন্ট (মাদারীপুর): মাদারীপুরে ফুটবল খেলা নিয়ে দুই কিশোরের মধ্যে তর্কের জের ধরে দুই গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে ৫ পুলিশ সদস্যসহ উভয়পক্ষের অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে দফায় দফায় সদর উপজেলার নয়াচর-মধ্য খাগদীর সীমান্তবর্তী আব্দুল মন্নান সেতুর দুইপ্রান্তে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের মধ্যে ৭ জনের নাম জানা গেছে। তারা হলেন, জেলার গোয়েন্দা পুলিশের উপপরিদর্শক আবুল কাশেম (৩৪), চরমুগরিয়া পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক মো. রোমান (৩৩) সদর থানার কনস্টেবল মো. সাগর (২৫), নয়াচর এলাকার আচমত খাঁ ছেলে সাব্বির খাঁ (২৪), কুদ্দুস মুনশির ছেলে জয়নাল মুনশি (২৩), আসলাম মোল্লার ছেলে রাজু মোল্লা (২০), বেল্লাল ফকিরের ছেলে আল-আমিন (২৫)। বাকিদের নাম পরিচয় জানা যায়নি। এদিকে সংঘর্ষের ঘটনায় ঘটনাস্থল থেকে ৫ জনকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতরা হলেন, নয়াচর এলাকার মোকসেদ মোল্লার ছেলে মিঠু মোল্লা (২৫), একই গ্রামের আসলাম মোল্লার দুই ছেলে রাসেল মোল্লা (২১) ও রাসেদ মোল্লা (১৮), জাফর মীরের ছেলে হৃদয় মীর (১৪) এবং উজ্জ্বল চৌকিদারের ছেলে অনিক চৌকিদার (১৩)। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে মধ্য খাগদী এলাকার টিটু খানের ছেলে মনা খানের সঙ্গে নয়াচর এলাকার কুদ্দুস ফরাজির ছেলে ফরিদ ফরাজির কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায় দুজনের মধ্যে হাতাহাতি থেকে মারধরের ঘটনাও ঘটে। এরইজেরে রাতে দুইপক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে দফায় দফায় সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে আব্দুল মন্নান সেতুর দুইপ্রান্তে অবস্থান নেয় পুলিশ। পরে ৭১ রাউন্ড ফাঁকাগুলি ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এতে ৫ পুলিশ সদস্যসহ উভয়পক্ষের অন্তত ১৫ জন আহত হন। আহতদের উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতল ও বেসরকারি ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। অবস্থার অবনতি হলে সদর হাসপাতাল থেকে ৪ জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। মাদারীপুর সদর হাসপাতালের চিকিৎসা কর্মকর্তা রিয়াদ মাহমুদ বলেন, মারামারির ঘটনায় বেশকয়েকজন সদর হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। অনেকেই প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে চলেও গেছেন। এর মধ্যে ৪ জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। ঘটনার প্রত্যাক্ষদর্শী বাঁধন মজুমদার বলেন, সেতুর দুই প্রান্তে দুই গ্রামের মানুষ জড়ো হয়। প্রথমে কিশোররা মারামারি করলেও পরে যুবকরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সেতুর দুই পাড়েই ইটপাটকেল ছড়াছড়ি ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার একাধিক ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর থেকে দুপক্ষে কারো সাথে যোগাযোগ করে পাওয়া যায়নি, তাদের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তাদের মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। হামলায় আহত চরমুগরিয়া পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক মো. রোমান বলেন, ফুটবল খেলা নিয়ে মনা খান নামে এক কিশোরকে মারধরকে কেন্দ্র করেই মূলত সংঘর্ষের সূত্রপাত। প্রথমে আমরা দুপক্ষের লোকজনকে সেতুর দুপাড় থেকে সরিয়ে দেই। পরে সেতুর দুইপ্রান্তেই অসংখ্য সংখ্যক লোকজন জড়ো হয়ে হটপাটকেল ছোড়া শুরু করে। পুলিশ ফাঁকাগুলি টিয়ারশেল নিক্ষেপ ও লাঠিচার্জ করলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। মাদারীপুর সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনোয়ার হোসেন চৌধুরী বলেন, দুপক্ষের সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে ৫ জন পুলিশ আহত হয়েছে। এই ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ছাড়াও পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ৫ জনকে আটক করেছে। ওই এলাকায় ফের সংঘাত এড়াতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। পরিস্থিতি আপতত স্বাভাবিক। তবে সংঘর্ষের মূলে যারা রয়েছে তাদের ধরতে পুলিশ কাজ শুরু করেছে।

    অটোরিকশার ধাক্কায় প্রাণ গেল মোটরসাইকেল আরোহীর

    সুমন মিয়া,নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি: নারায়ণগঞ্জ মহানগরের সিদ্ধিরগঞ্জের পাঠানটুলী হাজীগঞ্জ এলাকায় একটি ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী যুবক নাঈম (২৫) নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) পাঠানটুলী হাজীগঞ্জ মাদরাসার সামনে এ ঘটনা ঘটে। আহত যুবক নাঈমকে উদ্ধার করে নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যা হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। নিহত নাঈম সিদ্ধিরগঞ্জের পাঠানটুলী আইলপাড়া এলাকার বাসিন্দা সাজেদুল করিমের ছেলে। সাজেদুল করিম বিআইডব্লিউটিএ নারায়ণগঞ্জ নদী বন্দরের কার্যালয়ে কম্পিউটার অপারেটর পদে কর্মরত রয়েছেন। তার পুত্র সেখানে পিতার সহযোগিতায় পার্ট টাইম হিসেবে কর্মরত ছিল। বিআইডব্লিউটিএ নারায়ণগঞ্জ নদী বন্দরের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে পাঠানটুলী আইলপাড়া এলাকায় নিহতের জানাযার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। পরে মরহুমের লাশ দাফনের জন্য বগুড়ার গ্রামের বাড়ির উদ্দেশে নিয়ে যাওয়া হয়। সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম মোস্তফা জানান, বৃহস্পতিবার সকালে একটি অটোরিকশার ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী যুবক নাঈম নিহত হন। তার লাশ বিনা ময়নাতদন্তে পরিবার নিয়ে গেছে। এ ঘটনায় অটোরিকশা চালককে আটক করা যায়নি।

    ফরিদপুরে ফের গ্রামবাসীদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ, আহত ৩০ 

    হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি: ফরিদপুরের ভাঙ্গায় উপজেলায় ফের গ্রামবাসীদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। এঘটনায় উভয় পক্ষের অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছেন ।  বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) দুপুর ১২ টার দিকে উপজেলার হামেরদী ইউনিয়ন পরিষদের সামনে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।  সংবাদ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পৌঁছে লাঠিচার্জ করে সংঘর্ষকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। সংঘর্ষে আহতরা ভাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নিয়েছে। এসময় হামলাকারীরা বেশ কিছু দোকানপাট, মাদ্রাসা, ইউনিয়ন পরিষদ ভাংচুর করে।  পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গত রবিবার দুপুরে মুনসুরাবাদ এলাকায় পরিবহন ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে একই পরিবারের ৩ জন নিহত হয়। তখন দুর্ঘটনাকৃত পরিবহনের ড্রাইভার ভেবে মুনসুরাবাদ এলাকার উত্তেজিত গ্রামবাসী পাশের বড় মুসকুন্নি গ্রামের তাইজুলকে মারধর করে। পরে হামলাকারীরা জানতে পারে তিনি গাড়ীর ড্রাইভার নয়। এই নিয়ে তখন দুই গ্রামের লোকজনের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। তখন এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এক শালিস বৈঠকেের সিন্ধান্ত হয়। তারই সূত্র ধরে বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) সকালে ইউনিয়ন পরিষদের সামনে বর্তমান চেয়ারম্যান খোকনসহ সাবেক আরো ২ চেয়ারম্যান এবং এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ শালিসে উপস্থিত হয়।  শালিস চলাকালে বড় মুসকুন্নি গ্রামের তাইজুল উত্তেজিত হয়ে মুনসুরাবাদ গ্রামের মউদুল ও তার লোকজনের ওপর হামলা চালায়। তখন মুনসুরাবাদ এলাকার আশপাশের কয়েক গ্রাম ও বড় মুসকুন্নি এলাকার কয়েকটি গ্রাম ২ ভাগে বিভক্ত হয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। পরে গ্রামবাসীরা দেশীয় অস্ত্র, ঢাল, কালি, টেঁটা, রামদা নিয়ে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সরকারি রাস্তার ইট উঠিয়ে তা নিক্ষেপ শুরু করে। এসময় হামলাকারীরা ইউনিয়ন পরিষদের জানালা, দরজা, দোকান পাঠ ব্যাপক ভাংচুর করে। সংবাদ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাঠিচার্জ করায় বড় ধরনের ক্ষতি থেকে শত শত দোকানপাট রক্ষা পায়।  এব্যাপারে ভাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জিয়ারুল ইসলাম জানান, সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয় । তবে এঘটনায় এখন পর্যন্ত  কোন পক্ষেই লিখিত কোনো অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এছাড়া এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। 

    ফরিদপুরে ফের গ্রামবাসীদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ, আহত ৩০ 

    হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি: ফরিদপুরের ভাঙ্গায় উপজেলায় ফের গ্রামবাসীদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। এঘটনায় উভয় পক্ষের অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছেন ।  বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) দুপুর ১২ টার দিকে উপজেলার হামেরদী ইউনিয়ন পরিষদের সামনে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।  সংবাদ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পৌঁছে লাঠিচার্জ করে সংঘর্ষকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। সংঘর্ষে আহতরা ভাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নিয়েছে। এসময় হামলাকারীরা বেশ কিছু দোকানপাট, মাদ্রাসা, ইউনিয়ন পরিষদ ভাংচুর করে।  পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গত রবিবার দুপুরে মুনসুরাবাদ এলাকায় পরিবহন ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে একই পরিবারের ৩ জন নিহত হয়। তখন দুর্ঘটনাকৃত পরিবহনের ড্রাইভার ভেবে মুনসুরাবাদ এলাকার উত্তেজিত গ্রামবাসী পাশের বড় মুসকুন্নি গ্রামের তাইজুলকে মারধর করে। পরে হামলাকারীরা জানতে পারে তিনি গাড়ীর ড্রাইভার নয়। এই নিয়ে তখন দুই গ্রামের লোকজনের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। তখন এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এক শালিস বৈঠকেের সিন্ধান্ত হয়। তারই সূত্র ধরে বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) সকালে ইউনিয়ন পরিষদের সামনে বর্তমান চেয়ারম্যান খোকনসহ সাবেক আরো ২ চেয়ারম্যান এবং এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ শালিসে উপস্থিত হয়।  শালিস চলাকালে বড় মুসকুন্নি গ্রামের তাইজুল উত্তেজিত হয়ে মুনসুরাবাদ গ্রামের মউদুল ও তার লোকজনের ওপর হামলা চালায়। তখন মুনসুরাবাদ এলাকার আশপাশের কয়েক গ্রাম ও বড় মুসকুন্নি এলাকার কয়েকটি গ্রাম ২ ভাগে বিভক্ত হয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। পরে গ্রামবাসীরা দেশীয় অস্ত্র, ঢাল, কালি, টেঁটা, রামদা নিয়ে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সরকারি রাস্তার ইট উঠিয়ে তা নিক্ষেপ শুরু করে। এসময় হামলাকারীরা ইউনিয়ন পরিষদের জানালা, দরজা, দোকান পাঠ ব্যাপক ভাংচুর করে। সংবাদ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাঠিচার্জ করায় বড় ধরনের ক্ষতি থেকে শত শত দোকানপাট রক্ষা পায়।  এব্যাপারে ভাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জিয়ারুল ইসলাম জানান, সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয় । তবে এঘটনায় এখন পর্যন্ত  কোন পক্ষেই লিখিত কোনো অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এছাড়া এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। 

    শেরপুরে অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র ও গুলিসহ একজন আটক

    মিজানুর রহমান, শেরপুর প্রতিনিধি: শেরপুরে অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র ও গুলিসহ এক নাশকতাকারীকে আটক করেছে র‍্যাব-১৪।  বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) দুপুরে সদরের ভাতশালা এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়। জানা গেছে, আটককৃত মো. কামাল হোসেন (৩২) গনই মমিনাকান্দা এলাকার মৃত আব্দুল মালেকের ছেলে।  র‌্যাব জানায়, গোপন খবরের ভিত্তিতে জেলা সদরের ভাতশালা এলাকার সাবিনা ইয়াসমিনের টিনের ঘরে অভিযান চালানো হয়। এসময় নাশকতাকারী কামাল হোসেনকে আটক করা হয় এবং তার কাছ থেকে একটি বিদেশী ওয়ান শুটারগান, এক রাউন্ড কার্তুজ, একটি কিলিং চেইন উদ্ধার করা হয়। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জামালপুর ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার স্কোয়াড্রন লিডার আশিকউজ্জামান জানান, কামাল মিয়ার বিরুদ্ধে শেরপুর সদর থানায় কয়েকটি মামলা রয়েছে। তাকে সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

    কটিয়াদীতে ইসলামী ছাত্র আন্দোলনের কমিটি গঠন 

    ছাইদুর রহমান নাঈম, কটিয়াদী (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধ: ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশের কটিয়াদী উপজেলার কমিটি গঠন করা হয়েছে। কটিয়াদী পৌরসভার স্বনির্ভর বাজার সংলগ্ন স্থানে ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশ এর কটিয়াদী থানা সম্মেলন ২০২৩" অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ কিশোরগঞ্জ জেলার সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মুফতী বরকত হুসাইন। প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশ কিশোরগঞ্জ জেলা কমিটির তথ্য-গবেষনা ও প্রচার সম্পাদক মুহাম্মদ শাহরিয়ার রহমান। বিশেষ বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশ কিশোরগঞ্জ জেলা শাখার কওমী মাদ্রাসা বিষয়ক সম্পাদক মুহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম।  বক্তব্য শেষে প্রধান বক্তা নবকমিটি ঘোষণা করেন। এতে থানা কমিটির সভাপতি: মুহাম্মদ রাজিব মিয়া। সহ-সভাপতি: সাদেকুর রহমান সুমন ও  সাধারণ সম্পাদক সানজান আহম্মাদ।   এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মুজাহিদ কমিটির কটিয়াদী উপজেলা শাখার সহ-সভাপতি মুহাম্মদ মমিনুল্লাহ মল্লিক। উপজেলা মুজাহিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক মাওলানা নাসির উদ্দিন। সাবেক মুজাহিদ কমিটি কটিয়াদী উপজেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক মুহাম্মদ আনোয়ার হোসেন। সম্মেলনের সভাপতিত্ব করেন ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশ কটিয়াদী উপজেলা শাখার সভাপতি মুহাম্মদ রাজিব মিয়া। সঞ্চালনায় ছিলেন মুহাম্মদ শফিকুর রহমান। তাছাড়াও ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশ এর ৬ জন সাধারণ সদস্য ৩০ পারা কুরআনুল কারীম হেফজ করাই তাদের হাতে ক্রেচ সম্মাননা তুলে দেয় উপস্থিত অতিথিবৃন্দ। 

    ফুলবাড়ীতে দেবী সরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত

    অনিল চন্দ্র রায়, ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: সারাদেশের ন্যায় কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে ও ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বিদ্যার দেবী শ্রী শ্রী স্বরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে।  বৃহস্পতিবার (২৬ জানয়ারি) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত উপজেলা জুড়ে অধিকাংশ হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়ীসহ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও অস্থায়ী মন্দিরে  ঢাক-ঢোল,কাসর,শঙ্খ ও উলুধ্বনির মধ্য দিয়ে পূজা-অর্চনা করছেন সনাতন ধর্মের শিক্ষার্থীসহ ভক্ত পূজারীরা।  জ্ঞানের আলো ছড়াতে ও বুদ্ধি, বিদ্যা ,শিল্পকলা এবং সংগীতের দেবী সরস্বতী স্বর্গ থেকে মর্তে পৃথিবীতে আসেন এই বিশেষ দিনটিতে। দেবী সরস্বতী হলেন সত্য, শুদ্ধ ও শুভ্রতার মহা প্রতিক। এদেবীর আরেক নাম বীণাপানি। রাঁজহংস এ দেবীর বাহন। দেবী সরস্বতীর হাতে শ্বেত রুদ্রাক্ষের মালা, তিনি শ্বেতচন্দনে চর্চিতা, শ্বেতবাণীধারিণী, শুভ্রবর্ণা ও শ্বেত অলঙ্কারে ভূষিতা । সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাস এদিনে মা সরস্বতী বিদ্যার দেবী পৃথিবীতে আসেন অন্ধকার দুর করে জ্ঞানের আলো ছড়াতে। তাই যুগের পর যুগ ধরে শিক্ষার্থীরা এই দিনে বিশেষ প্রার্থনার মাধ্যমে বিদ্যার দেবী মা সরস্বতীর পূজা অর্চনা করেন। দেবী সরস্বতীকে কেউ কেউ বাগ্বদেবী হিসেবেও জানেন অর্থ্যাৎ সনাতন শিশুদের ৫ বছর হলেই এ দেবীর পায়ে পুষ্পাঞ্জলি দিয়ে চক আর স্লেটে অ,আ, ক,খ নিজ হাতে লিখে শুরু হয় শিক্ষা জীবনের । যাকে বলা হয় হাতেখড়ি। বৃহস্পতিবার ভোর থেকে শুরু হয়েছে মাঘ মাসের শুক্লা পঞ্চমী তিথি যা সরস্বতী বন্দনার জন্য প্রসিদ্ধ। শিক্ষার্থী অনুপ রায় ও পূজা রায় বাড়িতে পুজা থাকলেও সব বন্ধু-বান্ধবসহ সবাই মিলে স্কুলে মা সরস্বতী দেবীর পূজো করেছি। বিদ্যার দেবী আমাদের সকলের মনের অন্ধকার দুর করুক এই প্রার্থনাই করেছি। ফুলবাড়ী উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি কার্ত্তিক চন্দ্র সরকার ও সাধারণ সম্পাদক ভারত চন্দ্র রায় জানান, মা সরস্বতী হলেন আমাদের বিদ্যার দেবী। তিনি প্রতি বছর এই ধরাধামে আসেন বিশেষ তিথিতে। পূজায় মায়ের কাছে প্রার্থনা করি যাতে প্রতিটি মানুষ জ্ঞানের আলোয় বিবেকবান হতে পারে। তারা আরো জানান আমাদের সনাতন শাস্ত্রীয় বিধান অনুসারে, মাঘ মাসের শুক্লা পঞ্চমী তিথিতে সরস্বতী পূজা আয়োজিত হয়। তিথিটি শ্রী পঞ্চমী বা বসন্ত পঞ্চমী নামেও পরিচিত।  শাস্ত্র মতে, এদিন দেবীর কাছে বিদ্যার অর্জনের প্রার্থনা করে ভক্তরা। পূজার সময় ভক্তরা প্রিয় দেবীর শ্রীচরণে অঞ্জলি প্রদান করে থাকেন। এছাড়া পুরোহিতের মন্ত্র পড়ার সাথে সাথে উপস্থিত ভক্তরাও সে মন্ত্র মনে মনে পাঠ করতে থাকেন এবং দেবীকে স্মরণ করেন। শাস্ত্রীয় মতে আরো জানা যায়, শ্রীপঞ্চমীর দিন সকালেই সরস্বতী পূজা সম্পন্ন করা যায়। সরস্বতীর পূজা সাধারণ পূজার নিয়মেই হয়। ফুলবাড়ী জছিমিয়া মডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে পুরোহিত বিপ্লব চন্দ্র ঠাকুর জানান, আজকে পঞ্চমী তিথিতে শুরু হয়ে বিদ্যার দেবী সরস্বতী পূজা সকাল থেকে বিকাল পৌনে ৫ টা পর্যন্ত চলবে। এর মধ্যে জেলাজুড়ে বিভিন্ন স্থানে বীণাপানির আরাধনার মধ্য দিয়ে শেষ সরস্বতী পূজা অর্চনা।

    নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে সরস্বতী পূজা উদযাপিত

    মামুনুর রশিদ, ত্রিশাল ( ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি: মাঘ মাসের শীতের সকাল। প্রকৃতিতে শীতল বাতাস হলেও আকাশে ছিল রোদের লুকোচির খেলা। সজীব সতেজ মনোরম পরিবশে। সকাল থেকেই সনাতন ধর্মাবলম্বী ভক্ত-অনুরাগী, শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও দর্শনার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হতে থাকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গন।  নতুন রঙিন পোশাক পরিধান করে দল বেঁধে সকলে এসে উপস্থিত হন বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মন্দিরে। কেননা আজ স্বরস্বতী পূজা। বিদ্যার দেবী স্বরস্বতী। তাই শিশু, কিশোর, শিক্ষার্থীদের কাছে এ পূজার আবেদন আরও অন্যরকম।  বাণী অর্চনা, দেবীর চরণে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, অঞ্জলি প্রদান, আরতি, প্রসাদ বিতরণসহ নানা আয়োজনের মধ্যদিয়ে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) স্বরস্বতী পূজা উদ্যাপিত হয়েছে। পূজা উপলক্ষ্যে বুধবার রাত থেকেই শুরু হয় পূজার কার্যক্রম।   ঢাকের শব্দে মুখর হয়ে ওঠে ক্যাম্পাস প্রাঙ্গণ। এদিন সন্ধ্যা সাতটায় হয় প্রতিমা স্থাপন। আজ সকাল ৯টায় পূজারাম্ভ হয়ে সকাল ১১ টায় পুষ্পাঞ্জলি করা হয়। দুপুর ১২ টায় হয় প্রসাদ বিতরণ। এছাড়া সন্ধ্যা ৬টায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, ৮টায় আরতি প্রতিযোগিতা ও রাত ৯ টায় পুরষ্কার বিতরণ করা হবে। দুপুরে কেন্দ্রীয় মন্দিরে সনাতন সংঘের উদ্যোগে আয়োজিত বাণী অর্চনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান ও প্রকৌশল অনুষদের ডিন ও প্রক্টর প্রফেসর ড. উজ্জ্বল কুমার প্রধান, পরিচালক ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা প্রফেসর ড. তপন কুমার সরকার, শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. শেখ সুজন আলী, ফিন্যান্স ও ব্যাংকিং বিভাগের প্রফেসর ড. সোহেল রানা, লোকপ্রশাসন ও সরকার পরিচালনা বিদ্যা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক সঞ্জয় কুমার মুখার্জীসহ অন্য শিক্ষক-কর্মকর্তা ও ছাত্রছাত্রীরা। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশ কয়েকটি বিভাগ ও হলের উদ্যোগেও পূজা উদযাপন করা হয়। সারাদিনে আমন্ত্রিত অতিথি ও দর্শনার্থীরা এসব পূজামণ্ডপ ঘুরে ঘুরে পরিদর্শন করেন।

    কিশোরগঞ্জে রাষ্ট্রপতির পক্ষ থেকে উপহার সামগ্রী বিতরণ 

    এম এ ওবায়েদ রনি, কিশোরগঞ্জ, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট: 'নববর্ষের মঙ্গল বার্তায় উদ্ভাসিত হউক জীবন' এই প্রত্যাশায় কিশোরগঞ্জে সুধীজনদের মাঝে রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা উপহার বিতরণ করা হয়েছে। বুধবার (২৫ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে  সাংবাদিক, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, ক্রীড়িবিদ, সংগঠক, নাট্যকার, গীতিকার, শিল্পী, সাহিত্যিক, কবি, ছড়াকার ও প্রতিশ্রুতিশীল তরুণদের মধ্যে নতুন বছরে রাষ্ট্রপতির উপহার সামগ্রী বিতরণ করা হয়। অনুষ্ঠানে আগত সকল শ্রেণিপেশার মানুষকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন স্থানীয় প্রতিনিধিরা। পরে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপস্থিত জ্যেষ্ঠ নাট্য ব্যক্তিত্ব ও নৃত্য প্রশিক্ষক নারায়ন চন্দ্র দের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উক্ত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন রাষ্ট্রপতির মেজ ছেলে বিশিষ্ট রাজনীতিবীদ ও সমাজকর্মী রাসেল আহমেদ তুহিন। অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কিশোরগঞ্জ প্রেসক্লাবের সদস্য সচিব সাংবাদিক মনোয়ার হোসাইন রনি। এসময় অন্যাদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন চেম্বারের সাবেক সভাপতি ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী বাদল রহমান, সিনিয়র সাংবাদিক সাইফুল হক মোল্লা দুলু, এবিএম লুৎফুর রশিদ রানা, জেলা আ.লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক সামসুল ইসলাম খান মাসুম, সাহিত্যিক ও লেখক জাহাঙ্গীর আলম জাহান, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আমিনুল ইসলাম বকুল, জেলা মহিলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক নারীনেত্রী বিলকিস বেগম, সনাক সভাপতি ম ম জুয়েল, হোসেনপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ সোহেল মিয়া, সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুস সাত্তার প্রমুখ। আলোচনা শেষে উপস্থিত পাঁচ শতাধিক বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষকে রাষ্ট্রপতির উপহার হিসেবে ২০২৩ সালের ডায়েরি দেওয়া হয়। এবং মানস করের নির্দেশনায় একতা নাট্যগোষ্ঠীর গীতিনৃত্যনাট্য ‘মহুয়া’ উপস্থাপিত হয়। রাষ্ট্রপতির উপহার সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানের সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন বিশিষ্ট ক্রীড়া সংগঠক শুভ আল মাহমুদ।