সংবাদ শিরোনাম

বিয়ে করে আমি সংসারে সময় দিতে পারব না: সুনেরাহ | কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধুর নির্মাণাধীন ভাস্কর্য ভাঙচুর করেছে দুর্বৃত্তরা | ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধের দাবিতে ঢাকায় জাসদের সমাবেশ | ভারতে পাচারকালে সীমান্তে ৫ কোটি টাকার স্বর্ণের বার উদ্ধার | টাঙ্গাইলে ইট বোঝাই ট্রলির সাথে অটোরিক্সার সংঘর্ষ, নিহত ১ | আবেগঘন পত্র লিখে পদত্যাগ করলেন গাকসু ভিপি জুয়েল রানা | হোসেন সোহরাওয়ার্দীর মৃত্যুবার্ষিকীতে আওয়ামী লীগের শ্রদ্ধা | বাউফলে শিক্ষকের ওপর ইউপি সদস্যের নেতৃত্বে হামলার অভিযোগ | বিজিবিকে ত্রিমাত্রিক বাহিনী হিসেবে গড়ে তোলা হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী | হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর ৫৭তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ |

  • আজ ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

কারাবন্দি জার্মান নাগরিককে নির্যাতনের অভিযোগ, কঠোর প্রতিবাদ

⏱ ১১:১৫ পূর্বাহ্ন | বৃহস্পতিবার, জুন ১৬, ২০১৬ 📂 জাতীয়

Karagar_bg_342193932

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- জার্মান নাগরিক শেমিজওয়া তমাস গোরাওতোভিজের ওপর নির্যাতন করার অভিযোগ করেছে বাংলাদেশে দেশটির দূতাবাস। তারা বলেছেন, কাশিমপুর কারাগারে বন্দি জার্মান নাগরিক শেমিজওয়া তমাস গোরাওতোভিজকে অমানবিক আচরণ ও মারধর করা হয়েছে। জার্মান দূতাবাসে জার্মান নাগরিকের এই মামলা দেখভালের দায়িত্বে থাকা কাউন্সেলর অফিসার সম্প্রতি গোরাওতোভিজকে দেখতে কাশিমপুর কারাগারে যান।

ওই সময় কাউন্সেলর তার দেহে আঘাতের চিহ্ন দেখতে পান বলে জানিয়েছেন। তার হাত-পায়ে বড় আঘাতের চিহ্ন দেখতে পান। তার বাঁ হাঁটু প্রচণ্ড ফুলে গেছে। এতে তিনি হাঁটতে পারছিলেন না। জার্মান সরকারের এ অভিযোগের বিষয়টি জানিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে বুধবার চিঠি পাঠিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। গোয়েন্দা শাখায়ও এই চিঠির অনুলিপি পাঠানো হয়।

চিঠিতে জানানো হয়, কারা কর্তৃপক্ষ যদিও বলেছে, গোরাওতোভিজকে যথেষ্ট সমাদর করা হয়েছে। বাস্তবে গত ৫ মে শেষ হওয়া পাঁচ দিনের রিমান্ডের পরই এসব আঘাতের চিহ্ন তার দেহে দেখা যায়। গোরাওতোভিজের প্রতি এ ধরনের অমানবিক আচরণের কঠোর প্রতিবাদ জানায় জার্মানি। গোরাওতোভিজের সুরক্ষায় এবং স্বাস্থ্যের প্রতি নজরদারি বাড়াতে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানায় জার্মানি।

প্রসঙ্গত, গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) তাকে গ্রেপ্তার করে। জানতে চাইলে কাশিমপুর কারাগারের তত্ত্বাবধায়ক প্রশান্ত কুমার বণিক বলেন, গোয়েন্দা পুলিশ যখন তাকে রিমান্ডে নেয়, তখনই তিনি এ ধরনের নির্যাতনের শিকার হন। পরে তাকে কাশিমপুর কারাগারে আনা হলে চিকিৎসা দেওয়া হয়। মূলত জার্মান সরকারের অভিযোগ পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) বিরুদ্ধে। তারা তার প্রতি অমানবিক আচরণ করেছে।