সিম নিবন্ধন জালিয়াতি: এয়ারটেলের ২১ কর্মকর্তা-কর্মচারী আটক

❏ বৃহস্পতিবার, জুন ৩০, ২০১৬ আলোচিত

sim jaliati
সময়ের কণ্ঠস্বর –    সিম নিবন্ধন জালিয়াতির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে বেসরকারি মুঠোফোন সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান এয়ারটেলের ২১ ব্রান্ড প্রমোটরকে আটক করেছে পুলিশ। এয়ারটেলের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নির্দেশে একাধিকবার আঙ্গুলের ছাপ নিয়ে গ্রাহকের অজান্তেই একাধিক সিম রেজিস্ট্রেশন করা হতো বলে জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে আটককৃতরা। তদন্তে অভিযোগ প্রমাণ হলে এয়ারটেল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে বিটিআরসি।

বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে একটি সিম নিবন্ধনের জন্য গ্রাহকের আঙ্গুলের ছাপ একবার নেওয়ার নিয়ম থাকলেও জালিয়াত চক্র নিতো একাধিকবার। গ্রাহককে ভুল বুঝিয়ে একজনের আঙ্গুলের ছাপ দিয়ে নিবন্ধন করা হতো একাধিক সিম। যা চড়া মূল্যে কিনে নানা ধরনের অপকর্ম করতো অপরাধীরা।

এমনই এক ভয়ঙ্কর অপরাধী চক্রের ২১ সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ। রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে এদের আটক করা হয়। এরা এয়ারটেলের ব্রান্ড প্রমোটর ও সিম রি-রেজিস্ট্রেশন ও বিক্রয়ের সঙ্গে জড়িত। উপ-পুলিশ কমিশনার বিপ্লব কুমার সরকার, মোহাম্মদপুর থানার একটি ছিনতাই মামলার তদন্ত করতে গিয়েই বেরিয়ে আসে জালিয়াত চক্রের এমন ভয়ঙ্কর তথ্য। অভিযোগ প্রমাণিত হলে এয়ারটেলের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে বিটিআরসি’র স্পেকট্রাম ম্যানেজমেন্টর পরিচালক সুফি মোহাম্মদ মইনুদ্দিন।

সরকার বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধনের ঘোষণা দিলে নিবন্ধন প্রক্রিয়া ও ব্যক্তি গোপনীয়তা রক্ষার বিষয়ে শুরু থেকেই সমালোচনা উঠে। সিম জালিয়াত চক্র আটকের পর জনমনে দেখা দিয়েছে আতঙ্ক।

গত বছরের ডিসেম্বর থেকে চালু হওয়া বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধন প্রক্রিয়া শেষ হয় এ বছরের ৩১ মে। এ প্রক্রিয়ায় মোট ১১কোটি ৬০লাখ সিম পুনঃনিবন্ধিত হয়েছে বলে জানিয়েছে সরকার।