টিভি লাইসেন্স দিতেও পারি, নিতেও পারি: প্রধানমন্ত্রী

৩:৩৫ অপরাহ্ন | শনিবার, জুলাই ২, ২০১৬ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর- গুলশানে রেস্তোরাঁয় জিম্মি সঙ্কটের ঘটনা সরাসরি সম্প্রচার নিয়ে বেসরকারি টেলিভিশনগুলোর সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের স্বার্থে ভবিষ্যতে এ ধরনের লাইভ সম্প্রচারের বিষয়ে আরও সতর্ক হবেন।

শনিবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ‘চার লেনে উন্নীত ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-ময়মনসিংহ জাতীয় মহাসড়কে’র আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ আহ্বান জানান।

টেলিভিশন সম্প্রচারের সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘টেলিভিশনগুলো সব সম্প্রচার করছিল। বলা হচ্ছে র‌্যাব অভিযান চালাবে। র‌্যাব কোথায় কাপড় পরছে, কোথায় দাঁড়াচ্ছে সব দেখাচ্ছে। বিজিবির ঘটনায় যখন অভিযান চলেছে তখনও এই অবস্থা দেখেছি। কেন তারা বোঝে না, তারা যে এসব দেখাচ্ছে অপরাধীরাও তো সব দেখছে। তারাও তো সতর্ক হয়ে যাচ্ছে। বাধ্য হয়ে ছিলাম ওখানকার ইন্টারনেট, ভাইবার বন্ধ করতে হয়েছে।’

????????????????????????????????????প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমেরিকায় ৩০ জন মানুষ মেরে ফেলা হলো। একটা লাশের ছবি দেখানো দেখায়নি কোনো মিডিয়া, রক্তাক্ত কোনো ছবি দেখানো হয়নি। অথচ আমারা মিডিয়াতে লাশের ছবি দেখাই, রক্তাক্ত ছবি দেখাই।’

শেখ হাসিনা বলেন, এ ধরনের লাইভ সম্প্রচারের প্রভাব শিশু ও গর্ভবতী নারীদের ওপর পড়তে পারে। এসব প্রাইভেট টিভি চ্যানেল আমার হাতেই দেওয়া। আমি দিতে যেমন পারি, নিতেও পারি। তাই টেলিভিশনের যারা মালিক, তাদের অনুরোধ করবো, এ ধরনের লাইভ সম্প্রচার থেকে বিরত থাকতে।’

তিনি বলেন, আমরা টিভির লাইভ সম্প্রচার বন্ধ করার কারণেই অপারেশন সফল করতে পেরেছিলাম। এ জন্য সেনা, নৌ, বিমান, বিজিবি, র্যা ব, পুলিশসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের প্রতি ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী।