নারায়ণগঞ্জে পুলিশের অস্ত্র ছিনতাই মামলায় ছাত্রলীগ নেতা ৫ দিনের রিমান্ডে


45নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি : নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলায় পৃথক দু’টি মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গ্রেফতার বন্দর থানা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খান মাসুদকে ৫ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।  পুলিশের উপর হামলা চালিয়ে পুলিশের ব্যবহৃত পিস্তল ও ১০ রাউন্ড গুলি ছিনতাইয়ের মামলায় তাকে রিমান্ড নেওয়া হয়।

রবিবার সকালে পুলিশ বাদি হয়ে দু’টি মামলা দায়ের করেন। এদিকে শনিবার রাতে বন্দরের সাবদী এলাকা থেকে পুলিশের ছিনতাই হওয়া পিস্তল ও ১০ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়।

দুটি মামলায় ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন নারায়ণগঞ্জের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মেহেদী হাসান।

নারায়ণগঞ্জ কোর্ট পুলিশের পরিদর্শক হাবিবুর রহমান জানান, পুলিশের অস্ত্র লুট এবং ধারালো অস্ত্র গুলি উদ্ধারের পৃথক দু’টি মামলায় ছাত্রলীগ নেতা খান মাসুদকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

বন্দর থানার ওসি আবুল কালাম জানান, বন্দর উপজেলায় বৃহস্পতিবার বিকেলে ‘বাংলা ডকইয়ার্ড’ নামে একটি বেসরকারি বাল্কহেড মেরামত ও নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানে চাঁদার দাবিতে ছাত্রলীগ নেতা খান মাসুদের বিরুদ্ধে সশস্ত্র হামলার অভিযোগ ওঠে। ওই সময়ে ৯ বছরের এক শিশু গুলিবিদ্ধসহ আরো ৪ জন আহত হয়। ওই সময়ে ডকইয়ার্ডে ব্যাপক ভাঙচুর করা হয়। ওই ঘটনায় ডকইয়ার্ড মালিক আবুল কালাম বাসু বাদী হয়ে শুক্রবার বন্দর থানায় খান মাসুদকে প্রধান করে ১১ জনকে অভিযুক্ত করে একটি মামলা দায়ের করেন। শনিবার সকাল ১০টায় ডকইয়ার্ডের সামনে খান মাসুদের লোকজন পাল্টা বিক্ষোভ সমাবেশ করার সময়ে পুলিশের এসআই অখিল চন্দ্র বিশ্বাসের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে তাদের উপর চড়াও হয়।

ওই সময়ে হামলা করে পুলিশের একটি পিস্তল ও ১০ রাউন্ড গুলি ছিনতাই করে নিয়ে যায়। পরে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে এলে তাদের সঙ্গে ধাওয়া পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। তখন পুলিশ স্থানীয় একটি ফ্ল্যাটবাসা থেকে খান মাসুদ ও সহযোগী শামীম, সাচ্চু ও মোশারফকে গ্রেফতার করে।

তাদের কাছ থেকে ১৮টি রাম দা, ৮ রাউন্ড গুলি, ইয়াবা ও ২৪ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়। পরে রাতে বন্দরের সাবদী এলাকা থেকে ছাত্রলীগ নেতা সন্ত্রাসী খান মাসুদকে সঙ্গে নিয়ে পুলিশের কাছ থেকে ছিনিয়ে নেওয়া পিস্তল ও ১০ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়। পুলিশের উপর হামলা চালিয়ে অস্ত্র ও গুলি লুটের ঘটনায় বন্দর থানার এসআই অখিল চন্দ্র বিশ্বাস বাদি হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন।

অপরদিকে খান মাসুদ বাহিনীর কাছ থেকে ধারালো অস্ত্র ও গুলি উদ্ধারের ঘটনায় বন্দর থানার এসআই আহসান উল্লাহ বাদি হয়ে অপর একটি মামলা দায়ের করেন। উভয় মামলায় খান মাসুদকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৫ দিন করে রিমান্ড চেয়ে আদালতে হাজির করা হয়েছে।

◷ ১২:৩৫ পূর্বাহ্ন ৷ সোমবার, জুলাই ৪, ২০১৬ ঢাকা, দেশের খবর