সংবাদ শিরোনাম

সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদ সস্ত্রীক করোনায় আক্রান্তরোহিঙ্গা শিশু অপহরণের পর হত্যার ঘটনায় নারীসহ দু’জন গ্রেপ্তারবেলকুচিতে দূর্বৃত্তদের আগুনে পুড়ে গেল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান !জামালপুরে মাদ্রাসা ছাত্রীকে রাতভর ধর্ষণ, গ্রেফতার মাদ্রাসার শিক্ষক‘করোনাকালের নারী নেতৃত্ব: গড়বে নতুন সমতার বিশ্ব’বগুড়ায় শিক্ষা প্রনোদনা পেতে প্রত্যয়নের নামে টাকা নেয়ার অভিযোগজামালপুরে ধর্ষণ মামলায় ধর্ষকের যাবজ্জীবনপাবনায় অবৈধ অস্ত্র তৈরির কারখানায় অভিযান, চারটি আগ্নেয়াস্ত্রসহ গ্রেফতার-২উপজেলা আ.লীগের সভাপতিকে ‘পেটালেন’ কাদের মির্জা!কে কত বড় নেতা, সবাইকে আমি চিনি: কাদের মির্জা

  • আজ ২৪শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বৃষ্টি উপেক্ষা করে কাওড়াকান্দি ঘাটে যাত্রীদের ঢল, স্পীডবোট-যানবাহনে ভাড়ার নৈরাজ্য

৩:৩১ অপরাহ্ন | বুধবার, জুলাই ৬, ২০১৬ ঢাকা, দেশের খবর

Madaripur 06-07-16 (Eid Kawrakandi ghat) news (1)


মেহেদী হাসান সোহাগ, মাদারীপুর প্রতিনিধি: বৃষ্টি উপেক্ষা করে বুধবার সকাল থেকে শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে লঞ্চে, স্পীডবোটে ঈদে ঘরে ফেরা যাত্রীদের ঢল নেমেছে। শিমুলিয়া থেকে ছেড়ে আসা লঞ্চগুলো অতিরিক্ত যাত্রী ও স্পীডবোটগুলো অতিরিক্ত ভাড়া আদায় অভিযোগ রয়েছে যাত্রীদের।
ফেরিতে যানবাহনের চাপ থাকলেও তা সহনীয়। তবে কাওড়াকান্দিঘাট থেকে ছেড়ে যাওয়া সকল যানবাহনগুলো পাল্লা দিয়ে ভাড়া বাড়িয়ে দিয়েছে। লোকাল বাসগুলো দুরপাল্লায় চলাচল করায় যাত্রীদের দুর্ভোগ চরম আকার ধারন করেছে। তবে ঘাট ব্যবস্থাপনায় সিভিল প্রশাসন, পুলিশ, র‌্যাবসহ আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর দিনরাত চেষ্টায় সুশৃঙ্খল পরিস্থিতি রয়েছে। শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, ওসিসহ আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর বিপুল সংখ্যক সদস্য ঘাটে সার্বক্ষনিক অবস্থান করছেন।

বিআইডব্লিউটসিসহ একাধিক সুত্র জানায়, মঙ্গলবার সকাল থেকেই রাজধানী ঢাকার সাথে দক্ষিনাঞ্চলের স্বল্প দুরত্বের এ রুটে লঞ্চ ও স্পীডবোট হয়ে ঘরমুখো যাত্রীদের ঢল নামে। লঞ্চগুলো দ্বিগুনের অতিরিক্ত যাত্রী বহন করছে। স্পীডবোটগুলো যাত্রী প্রতি দেড়শ টাকার ভাড়া দুইশ টাকা নিচ্ছে। পদ্মা নদী পার হয়ে কাওড়াকান্দিঘাটে এসে যাত্রীরা পড়ছেন চরম বিপাকে। কাওড়াকান্দিঘাট থেকে ছেড়ে যাওয়া দুরপাল্লা ও আভ্যন্তরীন সকল যানবাহন পাল্লা দিয়ে দ্বিগুনেরও বেশি ভাড়া আদায় করছে। কাওড়াকান্দিঘাট থেকে কালনাঘাট পর্যন্ত বাস ও মাইক্রোবাসগুলো ১৫০ টাকার ভাড়া নিচ্ছে ৩০০ টাকা, খুলনায় ৬শ টাকা, বরিশালে ৪শ থেকে ৫শ টাকা, খুলনাগামী বাস-মাইক্রোবাসগুলোসহ দক্ষিনাঞ্চলে ছেড়ে যাওয়া সকল যানবাহনই নিচ্ছে দ্বিগুন ভাড়া।

লোকাল বাসগুলো আভ্যন্তরীন চলাচল বন্ধ করে দুরপাল্লায় চলাচল করায় স্বল্পদুরত্বের যাত্রীরা চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। ইজিবাইক, থ্রী হুইলারসহ অবৈধ যানবাহনগুলোতে ৪৫ টাকার ভাড়া ২০০ টাকা দিয়ে ভাঙ্গা যেতে হচ্ছে লোকাল যাত্রীদের। ভাড়ার ক্ষেত্রে তেমন নজরদারি না থাকলেও ঘাট ব্যবস্থাপনায় আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ও প্রশাসন কঠোর অবস্থান থাকায় সুশৃঙ্খল পরিস্থিতি রয়েছে।

জেলা প্রশাসক কামাল উদ্দিন বিশাস, পুলিশ সুপার সরোয়ার হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার উত্তম কুমার পাল, শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইমরান আহমেদ, ওসি জাকির হোসেনসহ আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর বিপুল সংখ্যক সদস্য ঘাটে সার্বক্ষনিক অবস্থান করছেন। ঘাটে অবস্থান রয়েছে জেলা প্রশাসনের ম্যাজিস্ট্রেট।
সরেজমিনে লঞ্চ ঘাটে গিয়ে দেখা যায়, এমএল দিপু-১ লঞ্চের বডিতে ১২০ যাত্রীর ধারন ক্ষমতা লেখা থাকলেও ২৮০ যাত্রী নিয়ে শিমুলিয়া থেকে ছেড়ে আসে। এ রকম সব লঞ্চেই দ্বিগুন যাত্রী ছিল। আর কাওড়াকান্দি থেকে সুশৃঙ্খল পরিস্থিতির মাঝেও ভাড়া নিয়ে দৌরাত্ম ছিল সব যানবাহনেই। প্রতিটি বাসের ছাদেই ছিল বোঝাই যাত্রী। এবার হালকা যানবাহনগুলো ঘাটে ঢুকতে দেয়ায় ব্যস্ত লঞ্চ ঘাটের প্রবেশ মুখে ছিল দিনভর জঁটলা। বরিশালগামী লাবনী আক্তার বলেন, ঢাকা থেকে বাসে দ্বিগুনেরও বেশি ভাড়া গুনে, স্পীডবোটে ৫০ টাকা বেশি দিয়ে পদ্মা পাড়ি দিয়েছি। এখানে ভাড়ার নৈরাজ্য সবচেয়ে বেশি। ভাঙ্গার যাত্রী তারেক রহমান বলেন, যে বাসগুলো সব সময় ভাঙ্গা যেত তা এখন বরিশাল যাচ্ছে। কোন গাড়ি ভাঙ্গা যাচ্ছে না। আর ভাঙ্গার ভাড়া চাচ্ছে ২০০ টাকা। বিআইডব্লিউটিএর কাওরাকান্দিঘাট পরিবহন পরিদর্শক এবিএস মাহমুদ বলেন, শিমুলীয়া ঘাটে যখন এক সাথে দূরপাল্লার কয়েকটি পরিবহন চলে আসে তখন প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা স্বত্বেও অতিরিক্ত যাত্রী লঞ্চে উঠে পড়ে। এছাড়া কোন লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী বহন করা হলে ব্যাবস্থা নেওয়া হবে। বিআইডব্লিউটিসির কাওরাকান্দিঘাট ম্যানেজার মো. সালাম মিয়া বলেন, নৌরুটে আমাদের পর্যাপ্ত ফেরি রয়েছে। আবহাওয়া খারাপ হলে কয়েকটি ফেরিতে পরিবহন পারাপার না করে শুধুমাত্র যাত্রী পারাপার করা হবে। শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ইমরান আহমেদ বলেন, কাওরাকান্দিঘাটের আইন শৃংখলা বজায় রাখতে ৩ স্তরের নিরাপত্তা ব্যাবস্থা নেওয়া হয়েছে। অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়ার অভিযোগ পেলে ব্যাবস্থা নেওয়া হচ্ছে। মাদারীপুর পুলিশ সুপার সরোয়ার হোসেন বলেন, ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের নির্বিঘেœ বাড়ি পৌছে দিতে ঘাট এলাকায় প্রশাসন নিরলসভাবে কাজ করছে। আর কোন যানবাহনে অতিরিক্ত ভাড়ার অভিযোগ পেলে সাথে সাথে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ব্যাবস্থা নেওয়া হচ্ছে।