ডোমার হাসপাতালে রোগীদের খাবারে পঁচা পাউরুটি, রুইয়ের বদলে সিলভার কার্প !

৯:৪৯ অপরাহ্ন | রবিবার, জুলাই ১০, ২০১৬ দেশের খবর, রংপুর, স্পট লাইট

domar-pix


ডোমার (নীলফামারী) প্রতিনিধি: নীলফামারী জেলার ডোমার ৫০শয্যা বিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগীদের খাবার বিতরণে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরবরাহ করা হচ্ছে মেয়াদ উত্তীর্ন পঁচা পাউরুটি এবং খাওয়ার অনুপযোগী কলা।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তিকৃত রোগীদের অভিযোগে জানা গেছে, রোগীদের সকালের নাস্তায় মেয়াদ উত্তির্ন একটি পচা পাউরুটি ও খাওয়ার অনুপযোগী একটি ছোট কলা দেয়া হচ্ছে। দুপুরের ভাত দেয়া হচ্ছে বিকেল ৩টায়। চিকন চালের পরিবর্তে দেয়া হচ্ছে মোটা চালের ভাত।

সেখানে রুই মাছের পরিবর্তে দেয়া হচ্ছে সিলভার কার্প ও বিগ হেড কার্প মাছ। সপ্তাহে দুদিন ২শত ৫০গ্রাম ওজনের পরিবর্তে দেয়া হয় ৫০ গ্রাম ওজনের এক টুকরা মাংস। রোববার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,মহিলা,পুরুষ ও শিশু রোগী রয়েছে ৪৫জন। রোগের ধরন ও বয়স অনুপাতে আলাদা খাদ্য প্রদানের কথা থাকলেও সব ধরনের রোগীদের জন্য দেয়া হচ্ছে একই খাবার।

পুরুষ ওয়ার্ডের ৮নং বেডের রোগী ইসমাইল হোসেন(৭০) জানান, আমি গত ১২দিন যাবত হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছি। সকালে খাওয়ার অনুপযোগী একটি পচা পাউরুটি ও ছোট্ট একটি কলা দেয়া হচ্ছে। তা মুখে তোলা যায় না। অভিযোগ করলে তারা জানায়, খেতে না পারলে ফেলে দিন। দুপুরে ভাতের সাথে ছোট এক টুকরা (সিলভারকাপ) মাছ ও মোটা চালের ভাত দেয়া হয়। রাতেও একই অবস্থা। একই কথা বলেন রোগী বিশ্বনাথ,আনোয়ারা বেগম, নুরল হক ও সন্তোষ কুমারের বাবা। খোঁজ নিয়ে জানা গেল, হাসপাতালের আর এম ও ডা.স্বপন কুমার ট্রেনিংয়ে রয়েছেন। দায়িত্বে রয়েছেন বামুনিয়া উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের ডা. কারিবুল হাসান।

তিনি এই প্রতিবেদক-কে বলেন, ভাই কিছু লেখা লেখি করেন। এখানে কেউ কারো কথা শোনে না। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা ছুটিতে থাকায় দায়িত্বে রয়েছেন ডোমার উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের ডা. সুতপা বনিক। তিনি জানান,রোগীদের নিন্মমানের খাবারের বিষয়টি স্যারকে জানানো হয়েছে।

এ ব্যাপারে নীলফামারী সিভিল সার্জন ডা. আব্দুর রশিদ জানান, নিন্মমানের খাবারের বিষয়টি জানতে পেরেছি। ঠিকাদারের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীও ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ব্যাপারে ঠিকাদার মাহবুবার রহমান জানান, ভাই আমি নীলফামারীতে থাকি। হাসপাতালে গিয়ে বিষয়টি দেখবো।