সংবাদ শিরোনাম

হাসপাতালের ওষুধ পাচারের ছবি তোলায় ১০ সংবাদকর্মী তালাবদ্ধবঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ স্বাধীনতার প্রকৃত ঘোষণা: প্রধানমন্ত্রীনির্মাণকাজ শেষের আগেই ‘মডেল মসজিদের’ বিভিন্ন স্থানে ফাটলআহসানউল্লাহ মাস্টারসহ ১০ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠান পাচ্ছেন স্বাধীনতা পুরস্কারঐতিহাসিক ৭ মার্চের সুবর্ণ জয়ন্তী: টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে মানুষের ঢলচট্টগ্রাম কারাগারে হাজতি নিখোঁজ, জেলার-ডেপুটি জেলার প্রত্যাহারদেবীগঞ্জে ট্রাক্টরের চাপায় মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যুকরোনার এক বছর: মৃত্যু ৮৪৬২, শনাক্ত সাড়ে ৫ লাখটাঙ্গাইলে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উদযাপনমোবাইল ইন্টারনেট গতিতে উগান্ডারও পেছনে বাংলাদেশ

  • আজ ২২শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

জঙ্গি নির্মূলে যুক্তরাষ্ট্রের দেয়া সহযোগিতার প্রস্তাবের বিষয়ে ঝুঁকির আশঙ্কা বিশ্লেষকদের

৫:৫২ পূর্বাহ্ন | বুধবার, জুলাই ১৩, ২০১৬ আলোচিত

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক –   সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের দেয়া সহযোগিতার প্রস্তাবের বিষয়ে বাংলাদেশকে সতর্ক পদক্ষেপ নেয়ার পরামর্শ আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষকদের।

তারা বলছেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে দেশটির সহযোগিতা নেয়া গেলেও দীর্ঘমেয়াদে জোট গঠন কিংবা কোনো ধরনের সামরিক চুক্তি বাংলাদেশের নিরাপত্তা ঝুঁকি আরও বাড়াতে পারে। তবে, নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা বলছেন, বৈশ্বিক জঙ্গিবাদ নির্মূলে বাংলাদেশকে জোটভুক্ত হয়েই কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে।

amirica

দীর্ঘদিন ধরেই বাংলাদেশে জঙ্গিবাদ দমনে সহযোগিতার প্রস্তাব দিয়ে আসা পশ্চিমা বেশকটি দেশ আবারও সক্রিয় হয় গুলশান ও শোলাকিয়ায় সন্ত্রাসী হামলার পর।

চলতি সপ্তাহে মার্কিন সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দুই দিনের ঢাকা সফরেও গুরুত্ব দেয়া হয় এ বিষয়ে। স্বরাষ্ট্র ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করে সরাসরি কারিগরি ও বিশেষজ্ঞ সহযোগিতা দেয়ার প্রস্তাব দেন তিনি। জবাবে বিষয়টি বিবেচনা করার কথা জানায় বাংলাদেশ।

তবে পররাষ্ট্র বিশ্লেষকরা মনে করেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উচ্চতর প্রশিক্ষণ, আধুনিক তথ্য- প্রযুক্তিগত সহযোগিতা নেয়া গেলেও নির্দিষ্ট কোন দেশের সঙ্গে দীর্ঘ মেয়াদের চুক্তিতে যাওয়া ঠিক হবে না বাংলাদেশের।

যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রদূত আকরামুল কাদের বলেন, ‘উন্নত যন্ত্রপাতি, টেকনোলজি এবং সাইবার সিকিউরিটি দিয়ে তারা আমাদের সাহায্য করতে পারে, প্রয়োজনে আমাদের লোকদের তারা প্রশিক্ষণ দিতে পারে কিন্তু আমি কোনভাবেই মনে করি না আমাদের উচিত হবে তাদের সঙ্গে কোন রকম চুক্তিতে যাওয়া।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক মুহা. রুহুল আমীন বলেন, ‘এখানে যেহেতু দেশের নিরাপত্তার বিষয় সেহেতু আমার মনে হয় সরকার বিষয়টি নিয়ে খুব সতর্কভাবে এগুবে।’

তবে, জঙ্গিবাদের বিষয়টি বৈশ্বিক বলে আন্তর্জাতিক সহযোগিতা ছাড়া তা মোকাবেলা কঠিন বলে মনে করছেন নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা। এক্ষেত্রে কোনরকম ছাড় বিপদ বাড়াতে পারে বলে আশঙ্কা তাদের।

নিরাপত্তা বিশ্লেষক আব্দুর রশীদ বলেন, ‘এ ঝুঁকির ভয়ে জড়োসড়ো ভাবে জঙ্গিবাদ দমন করা যাবে না। দুধ-কলা দিয়ে তো আর সাপ পোষা যাবে না। উন্নত দেশের সহযোগিতা থেকে দূরে থাকাকে আমি মনে করি না আমাদের নিরাপদ থাকার রাস্তা।’

বিশ্লেষকরা বলছেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে বাংলাদেশকে আন্তর্জাতিক সহযোগিতা নিতে হবে বিবেচনা করে। একই সঙ্গে বাড়াতে হবে সক্ষমতা, পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রয়োজনে গঠন করতে হবে বিশেষায়িত আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।