গুলশান ও শোলাকিয়ায় হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে রংপুরে বাম মোর্চার বিক্ষোভ-সমাবেশ

১:৫৮ পূর্বাহ্ন | বৃহস্পতিবার, জুলাই ১৪, ২০১৬ রংপুর

রংপুর প্রতিনিধি ঃ   উগ্র ধর্মীয় মৌলবাদী জঙ্গিগোষ্ঠী কর্তৃক গুলশান ও শোলাকিয়ায় হামলাসহ সারাদেশে অব্যাহত গুপ্তহত্যার প্রতিবাদে আজ ১৩ জুলাই সকাল ১১ টায় গণতান্ত্রিক বাম মোর্চা রংপুর জেলা শাখার উদ্যোগে নগরীতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
জাহাজ কোম্পানি মোড়ে বাসদ (মার্কসবাদী) জেলা সমন্বয়ক কমরেড আনোয়ার হোসেন বাবলুর সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বাসদ (মার্কসবাদী) রংপুর জেলা কমিটির সদস্য পলাশ কান্তি নাগ, গনসংহতি আন্দোলন রংপুর জেলা নেতা প্রত্যয়ী মিজান প্রমুখ।
সমাবেশে নেতৃবৃন্দ, গুলশানের “হলি আর্টিজান” রেস্টুরেন্টে আইএস নামধারী ধর্মীয় মৌলবাদীদের হাতে বিদেশীসহ ২২ জন মানুষের নৃশংস হত্যাকা ণ্ড এবং কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় দেশের বৃহত্তম ঈদ জামাতকে লক্ষ্য করে সংলগ্ন এলাকায় পরিচালিত সন্ত্রাসী আক্রমনে ৪ জনের মৃত্যুর ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানান।

dhormiyo-moulobad

নেতৃবৃন্দ বলেন, এই হামলা প্রমাণ করছে- ধর্মান্ধ উগ্রবাদী শক্তির হাত থেকে ধর্মপ্রাণ মানুষও নিরাপদ নয়, নিজেদের লক্ষ্য অর্জনের জন্য এরা নির্বিচারে মানুষর জীবন কেড়ে নিতেও দ্বিধা করেনা। সারাদেশে একের পর এক লেখক-প্রকাশক-শিক্ষক, ব্লগার, খৃষ্টান-হিন্দু-বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের যাজক-পুরোহিত, শিয়া-আহমাদিয়া-বাহাই-সুফী হত্যার পরও সরকার এসবকে বিচ্ছিন্ন ঘটনা বলে লঘু করে দেখাতে চেয়েছে। সবই সরকার বিরোধী চক্রান্ত বলে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের উপর দায় চাপিয়ে দলীয় ফায়দা হাসিল করতে চেয়েছে। দেশের বর্তমান পরিস্থিতির দায় সরকার কোনভাবেই অস্বীকার করতে পারেনা। শাসকগোষ্ঠী সবসময় নিজেদের গনবিরোধী শাসন আড়াল করতে ধর্মকে রাজনীতিতে ব্যবহার করছে, মৌলবাদ-সাম্প্রদায়িকতাকে মদদ দিয়েছে, কুপমুন্ডুক মাদ্রাসা শিক্ষার বিস্তার ঘটিয়েছে। এ পরিস্থিতিতে ধর্মীয় ও জাতিগত বিদ্বেষ উস্কে দিয়ে জনগণের গণতান্ত্রিক অধিকার হরণ ও রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস চালানোর ক্ষেত্র তৈরি করবে সাম্রাজ্যবাদ ও দেশীয় পুঁজিপতিগোষ্ঠী।
নেতৃবৃন্দ, ধর্মীয় মৌলবাদ ও রাষ্ট্রীয় ফ্যাসিবাদ উভয়ের বিরুদ্ধে শাসকগোষ্ঠী ও কায়েমি স্বার্থের প্রভাবমুক্ত সকল বাম- গণতান্ত্রিক-ধর্মনিরপেক্ষ-অসাম্প্রদায়িক শক্তি ও জনগণের ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহ্বান জানান।