• আজ ১১ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ফেসবুকে প্রেম, প্রেমিকের খোঁজে যশোরে এসে অবশেষে শেল্টার হোমে ঠাঁই হলো তরুনীর !

৭:০৬ পূর্বাহ্ন | শুক্রবার, জুলাই ১৫, ২০১৬ আলোচিত, স্পট লাইট

যশোর প্রতিনিধি, সময়ের কণ্ঠস্বর –

শহুরে জীবনে ফেসবুক এখন ‘মাস্ট হ্যাভ ইন্সট্রুমেন্ট’। শুধু শহুরে বললেও ভুল বলা হয়। গ্রাম, নগর, বন্দর পেরিয়ে ফেসবুক এখন পকেটে পকেটে! মোবাইলের একটা সিঙ্গল ক্লিকে পৌঁছে যাওয়া অন্যের প্রোফাইলে। কোনও নিষেধাজ্ঞা ছাড়াই নিজের পছন্দ মত চলে যাওয়া রমণীর অ্যাকাউণ্টে, দেখে নেওয়া ছবি, ইচ্ছে হলে ডাউনলোডও, অথচ কে তা জানার প্রয়োজনও নেই। ছেলে কিংবা মেয়ে উভয় ক্ষেত্রেই এমনটা হয়ে থাকে অহরহ। ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট থেকে হ্যালো, হাই, তারপর কত শত সম্পর্কের ‘ঘটক’ ফেসবুক। উদাহরণ একটা নয় আছে হাজার হাজারটা। কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, অফিস ফেসবুকের রন্ধ্রেই বেড়েছে প্রেম । এবার যশোরে  তেমনি ঘটনার শিকার হলো এক তরুনী ।

প্রায় তিনমাস আগে ফেসবুকের মাধ্যমে পরিচয় । পরে পরিচয় থেকে  প্রেমের সম্পর্ক। মাঝখানে প্রায় ১৫ দিন আগে হঠাত যোগাযোগ বন্ধ প্রেমিকের সাথে।  এরপর প্রেমিকের খোঁজে ঢাকা থেকে যশোরের উদ্দেশে রওনা দেয় তরুনী (২০)। প্রেমিকের নাম আর তার গ্রামের নাম ছাড়া কিছুই জানা ছিল না তরুনীর।

অনেক খুঁজেও প্রেমিকের সঙ্গে দেখা হয়নি তার। শেষ পর্যন্ত তরুনীর  ঠাঁই হয়েছে যশোরের একটি শেল্টার হোমে।

বেসরকারি সংস্থা রাইটস যশোরের সাইকোসোশাল কাউন্সিলর শাওলী সুলতানা জানিয়েছেন, বুধবার দুপুরে পুলিশের কাছ থেকে সংবাদ পেয়ে থানা থেকে মেয়েটিকে জিম্মায় নিয়ে আহছানিয়া মিশনের শেল্টার হোমে রাখেন। মেয়েটি নিজেই তার নাম পরিচয় জানিয়েছে। (নাম প্রকাশ করা হলোনা )

রাইটস যশোরের তথ্য অনুসন্ধান কর্মকর্তা বজলুর রহমান জানিয়েছেন, সে চাঁদপুর জেলার উত্তর মতলব উপজেলার বামনচর গ্রামের কোরবান আলির মেয়ে।বুধবার দুপুরে পুলিশের কাছ থেকে সংবাদ পেয়ে থানা থেকে তাকে জিম্মায় নিয়ে আহসানিয়া মিশনের শেল্টার হোমে রাখেন।

112

তরুনীর দেয়া বক্তব্যের সুত্রে জানা গেছে, যশোরের হৈবতপুর এলাকার একটি ছেলের সাথে তার ফেসবুকে পরিচয় হয় এবং প্রেমের  সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এরপর ছেলেটির সাথে দেখা করতে তরুনী রাতে ঢাকা থেকে যশোর আসেন। চাঁদপুরে গ্রামের বাড়ি হলেও তরুনী ঢাকার ডেমরা থানার ডগাই রোডস্থ ৫৯/২ নম্বর বাড়িতে থাকেন। কিন্তু তার প্রেমিকের ঠিকানা হৈবৎপুর ছাড়া আর কিছইু বলতে পারেননা। সে জন্য তার নিরাপত্তার কারনে থানায় নেয়া হয়।

এ বিষয়ে কোতয়ালি থানার ওসি ইলিয়াস হোসেন বলেন, মঙ্গলবার রাতে খাজুরা বাসটার্মিনাল এলাকায় ওই মেয়েটিকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে তার গন্তব্যের ঠিকানা জানতে চান। পরে তাকে নিরাপত্তার জন্য থানায় আনার পর তাকে রাইটস যশোরের জিম্মায় দেয়া হয়েছে।

 

ব্যারিস্টার রফিক-উল হক আর নেই

শনিবার, অক্টোবর ২৪, ২০২০

গ্লোবের ভ্যাকসিন নিতে নেপাল আগ্রহী

বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ২২, ২০২০