সংবাদ শিরোনাম
“পরশ্রীপুলক” | মাধ্যমিকের সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রকাশ | কটিয়াদীতে নিখোঁজের পর মাটি খুঁড়ে মা-বাবা ও ছেলের লাশ উদ্ধার | ক্যান্সারে আক্রান্ত শিশু জিনিয়া বাঁচতে চায়, প্রয়োজন সহযোগিতার | সফলতার রঙিন স্বপ্ন: নওগাঁর মাটিতে থোকায় থোকায় ঝুঁলছে মিষ্টি-সুস্বাদু আঙ্গুর | আগের সব রেকর্ড ভেঙ্গে একদিনে সর্বোচ্চ করোনায় আক্রান্ত যুক্তরাষ্ট্রে! | মহানবীকে নিয়ে ব্যঙ্গ কার্টুন প্রদর্শনের প্রতিবাদে ফরিদপুরে বিক্ষোভ মিছিল | স্বাধীনতা পুরস্কারে ভূষিত হলেন নারী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ভারতেশ্বরী হোমস | ইসলাম অবমাননাকর কার্টুন প্রকাশের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে রাশিয়া | সেনেগালে নৌকাডুবে ১৪০ অভিবাসী প্রত্যাশীর মৃত্যু |
  • আজ ১৪ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

গাজীপুরে জঙ্গি হামলা মোকাবেলায় সব ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করেছে প্রশাসন

১২:০১ অপরাহ্ন | শনিবার, জুলাই ১৬, ২০১৬ আলোচিত, ঢাকা, দেশের খবর

রেজাউল সরকার (আঁধার), গাজীপুর প্রতিনিধি: গাজীপুরে জঙ্গি হামলা মোকাবেলায় সব ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ।

কাপাসিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও সদর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) ডাকযোগে জঙ্গিদের হুমকিবার্তা পাঠানোর পর বিশেষ তৎপর হয়ে উঠেছে গাজীপুর জেলা প্রশাসন। শুক্রবার জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

এর আগে বৃহস্পতিবার গাজীপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে জেলা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী কমিটির সভায় সম্প্রতি দেশের বিভিন্নস্থানে জঙ্গি হামলার নিন্দা জানানো হয়।pulishসভায় আরো জানানো হয়, কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা অনুযায়ী জেলা প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সব ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করেছে। পাশাপাশি সবাইকে নিজের নিরাপত্তার বিষয়টি মাথায় রেখে চলাফেরা করার অনুরোধ জানানো হয়। আজ শনিবার শহরের বঙ্গতাজ অডিটরিয়ামে সন্ত্রাস, নাশকতা ও জঙ্গিবাদবিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।

প্রসঙ্গত, ২০০৫ সালের ২৯ নভেম্বর গাজীপুর জেলা আইনজীবী সমিতির দুই নম্বর হলে ঢুকে বোমার বিস্ফোরণ ঘটায় নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জামায়াতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশের (জেএমবি)। আত্মঘাতী এ হামলায় ১৩ জন আইনজীবী ও কয়েকজন সাধারণ মানুষ নিহত হন। এ ঘটনায় সাংবাদিকসহ অনেকে আহত হন। এ বোমা হামলার ঘটনার পর জেলার সাধারণ মানুষের মাঝে সবসময় একটা আতঙ্ক কাজ করে। এরই মধ্যে দেশে জঙ্গি হামলা এবং গাজীপুরে জঙ্গিদের নতুন করে হামলার হুমকি স্থানীয়দের উদ্বিগ্ন করে তুলেছে।

এ ব্যাপারে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী কমিটির সভায় সংসদ সদস্য জাহিদ আহসান রাসেল জানান, কোনো অবস্থানেই জঙ্গিরা যেন গাজীপুরে অবস্থান না নিতে পারে সে জন্য সবাইকে সচেতন হতে হবে। বিশেষ করে অপরিচিত ও সন্দেহভাজনদের ব্যাপারে জেলার বাড়িওয়ালাদের সচেতন হতে হবে। জঙ্গি প্রতিরোধে প্রতিটি ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডে কমিটি গঠন করার অনুরোধ জানান তিনি। আইনশৃংখলা কমিটির সভায় গাজীপুরের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক জামিল আহমেদ জানান, সরকারের নির্দেশনা অনুসারে কাজ করছে জেলা প্রশাসন। ইতিমধ্যে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স হয়েছে। সেখান থেকে দিক-নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।

গাজীপুরের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক জামিল আহমেদ জানান, সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করছে প্রশাসন। ইতোমধ্যে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স হয়েছে। তিনি এ বিষয়ে দিক নির্দেশনা দিয়েছেন। জেলার সার্বিক বিষয়গুলো গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে। জঙ্গিবিরোধী সচেতনতামূলক অনেক কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে গাজীপুর পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ জানান, প্রশাসন সব শক্তি দিয়ে জেলার মানুষকে নিরাপত্তা দিতে প্রস্তুত রয়েছে। গুটিকয়েক সন্ত্রাসীর কাছে দেশের কোটি কোটি মানুষ জিম্মি থাকতে পারে না। জেলার গুরুত্বপূর্ণ সব স্থাপনা, অফিস-আদালত, জনবহুল স্থান বিশেষ করে ট্রেন ও বাসস্টেশন, বিপণিবিতান, মসজিদ, মন্দির, গির্জা, পেগোডাসহ সব উপাসনালয়ে পুলিশ নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা নিয়েছে। গোয়েন্দা তৎপরতা ও পুলিশি টহল বৃদ্ধি করা হয়েছে। এছাড়া সব প্রতিষ্ঠানকে তাদের নিজস্ব নিরাপত্তা বৃদ্ধির জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবেলা করার জন্য পুলিশ প্রস্তুত রয়েছে। কারও বাসাবাড়িতে যেন কোনো জঙ্গি আশ্রয় বা অবস্থান নিতে না পারে সে জন্য তিনি সবাইকে সজাগ থাকার পরামর্শ দেন।

তিনি আরো বলেন, গাজীপুর বাংলাদেশের অন্যতম একটি গুরুত্বপূর্ণ জেলা হওয়ায় নিরাপত্তা ব্যবস্থাও অনেক বেশি নেয়া হয়েছে। এ জেলায় সমরাস্ত্র কারখানা, টাকশাল, ৫টি বিশ্ববিদ্যালয়, কৃষি গবেষণা, ধান গবেষণা ইন্সটিটিউটসহ বহু জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক মানের প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এছাড়া বহু শিল্প-কলকারখানাও আছে। এতে দেশী-বিদেশী মানুষ কাজ করছেন। তাদের নিরাপত্তার বিষয়টিও গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে।