• আজ রবিবার, ৪ আশ্বিন, ১৪২৮ ৷ ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ৷

খাবার খাওয়ার সুসময় ও দুঃসময়…


❏ শনিবার, জুলাই ১৬, ২০১৬ লাইফস্টাইল

news_picture_34643_time1


লাইফস্টাইলঃ

খাদ্য বা খাবার আমাদের বেঁচে থাকার জন্য একটি প্রধান উপাদান। পৃথিবীর সব প্রাণীদেরই খাদ্যের চাহিদা রয়েছে। খাবারের চাহিদার কারণেই মানুষ জীবিকার পিছনে ছুটে বেড়ায়। এক কোথায় বলতে গেলে আমাদের অর্থাৎ পৃথিবীর সকল প্রাণীর জীবন চক্র ঘুরছে এই খাদ্যকে কেন্দ্র করে।

আর পৃথিবীর সকল কিছু সৃষ্টি হয়েছে কারো না কারো উপকারে লাগানোর জন্য। এর মধ্যে বেশিরভাব প্রাণী বা শস্যজাত দ্রব্য ব্যবহার করা হয় খাদ্য হিসেবে। তাছাড়া রাষ্ট্রীয়ভাবেও মানুষের পাঁচটি মৌলিক চাহিদার মধ্যে খাদ্য একটি।

তাই বলে যখন তখন এই খাবার গ্রহণ ঠিক নয়। অন্তত মানুষের ক্ষেত্রে তো নয়ই। কারণ সকল প্রাণীর মধ্যে মানুষ খুবই স্বাস্থ্য সচেতন। আমরা সব কিছুই খেতে পছন্দ করি কিন্তু স্বাস্থ্য ঠিক রেখে। তবে খাবার গ্রহণে মাঝে মাঝে আমরা ভুল করে ফেলি।

কারণ আমরা অনেকেই জানি না কখন কোন খাবারটি খাওয়া উচিত, আর কখন খাওয়া উচিত নয়। আর এটাও হয়ত জানি না যে, এই ভুল সময়ে খাবার গ্রহণের ফলে আমাদের শরীরের কী ক্ষতি হতে পারে। আসুন আজকে এমনি কিছু খাবার সম্পর্কে জেনে নিই, যা আমরা প্রতিদিনই খেয়ে থাকি এবং বেশিরভাগই ভুল সময়ে খেয়ে থাকি।

ভাত
খাওয়ার সুসময় : ভাত দুপুরে খাওয়া উত্তম। দুপুরে শরীরের সব থেকে বিপাক ক্রিয়া বেশি হয়। ভাত আপনার বিপাক ক্রিয়াকে সাহায্য করে। এছাড়া ভাত শরীরে কার্বোহাইড্রেডকে ব্যবহারের প্রশস্ত সুযোগ করে দেয় দিনের বেলা।
খাওয়ার দুঃসময়: রাতে ভাত খাওয়া ঠিক নয়। রাতে ভাত খেলে শরীরের চর্বি বা ফ্যাটের পরিমাণ বাড়তে থাকে।

আপেল
খাওয়ার সুসময়: আপেল সকালে খাওয়া ভালো। আপেলের আঁশে এক ধরনের পেকটিন থাকে যা শরীরের অন্ত্র প্রক্রিয়াকে সচল রাখে। পায়খানাজনীত সমস্যা প্রতিরোধ করে। এছাড়া ক্যান্সার তৈরি করে এমন সেলকে দমন করে।
খাওয়ার দুঃসময়: আপেল সন্ধ্যাবেলা বা রাতে খাওয়া উচিত নয়। এই সময়ে আপেল খেলে, আপেলের অরগানিক এসিড আপনার শরীরের এসিড লেভেল বাড়িয়ে দিতে পারে, যা পাকস্থলীর অস্বস্তির কারণ হতে পারে। এছাড়া আপেলের পেকটিনের উপস্থিতি আপনার পরিপাক তন্ত্রে ব্যাঘাত ঘটাতে পারে রাতের বেলা।

দই
খাওয়ার সুসময়: দই দিনের বেলা খাওয়া ভালো। খাবার হজম করতে সাহায্য করে।
খাওয়ার দুঃসময়: দই রাতে খাওয়া ঠিক নয়। যদি তাড়াতাড়ি বুড়িয়ে যেতে না চান তাহলে রাতে দই খাবেন না। এছাড়া কফ বা সর্দিজনিত সমস্যা থাকলে রাতে দই খাবেন না।

মাংস
খাওয়ার সুসময়: মাংস বিকাল থেকে সন্ধ্যার মধ্যে খাওয়া ভালো। মাংস সহজে হজম হয় না। এতে প্রচুর পরিমাণ প্রোটিন থাকে। মাংস শরীরের শক্তি সঞ্চার করে, মাংসপেশি গঠনে সাহায্য করে এবং কোনো বিষয়ের প্রতি মনোযোগ বাড়াতে সহায়তা করে।
খাওয়ার দুঃসময়: মাংস রাতে খাওয়া ঠিক নয়। অধিক প্রোটিন থাকার কারণে এটি হজম হতে বেশ সময় নেয়। ফলে আপনি যদি রাতে মাংস খান তাহলে তা আপনার রাতের ঘুমে ব্যাঘাত ঘটাতে পারে।

কলা
খাওয়ার সুসময়: কলা বিকাল থেকে সন্ধ্যাবেলার মধ্যে খাওয়া ভালো। কলা আঁশযুক্ত খাবার এবং এটি খাদ্য হজম করতে সহায়তা করে। কলা প্রাকৃতিক এন্টাসিড হিসেবে কাজ করে। এছাড়া কলা বুকের জ্বালাপোড়া কমাতে সাহায্য করে।
খাওয়ার দুঃসময়: কলা রাতে খাওয়া ঠিক না। এতে করে ঠান্ডা লাগতে পারে বা বুকে কফ জমতে পারে। এতে প্রচুর পরিমাণ ম্যাগনেসিয়াম থাকে তাই এটি খালি পেটে খাওয়া ঠিক নয়।

দুধ
খাওয়ার সুসময়: দুধ রাতে খাওয়া ভালো। হালকা গরম দুধ আপনার রাতের ঘুমকে আরো ভালো করে তুলবে।
খাওয়ার দুঃসময়: দুধ সকালে খাওয়া ঠিক নয়। সকালে ঘুম থেকে উঠে সারাদিন অনেক কাজ করতে হয়। এক্ষেত্রে আপনার পাকস্থলি ভারী হয়ে যেতে পারে এবং আপনার সারাদিন অস্বস্তি হতে পারে।

সুতরাং সময় এবং অসময় বুঝে খাবার খান। ভালো থাকুন।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন