• আজ সোমবার, ৩১ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ ৷ ১৪ জুন, ২০২১ ৷

গাইবান্ধায় বাল্যবিয়ের হাত থেকে রক্ষা পেলো এক কিশোরী


❏ শনিবার, জুলাই ১৬, ২০১৬ দেশের খবর, রংপুর

গাইবান্ধা প্রতিনিধি: ভ্রাম্যমাণ আদালতের কারণে বাল্যবিয়ের হাত থেকে রক্ষা পেলো আছমা খাতুন (১৬) নামে এক কিশোরী। তবে বিয়েতে সহযোগিতা করার কারণে তিনজনের কাছ থেকে তিন হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেছেন ভ্রাম্যামাণ আদালত।

balo-bibaho

শুক্রবার (১৫ জুলাই) রাত সাড়ে ৯টার দিকে গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার ফরিদপুর ইউনিয়নের চাঁদ করীম গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। জরিমানা দাতারা হলেন- বর ও বরযাত্রী নিয়ে আসা মাইক্রোবাস চালক, ইঞ্জিন চালিত (ভটভটি) চালক ও ডেকোরেটর মালিক।

স্থানীয়রা জানান, চাঁদ করিম গ্রামের আনিছার রহমানের মেয়ে আছমা খাতুনের (১৬) সঙ্গে পার্শ্ববর্তী এনায়েতপুর গ্রামের হেলাল উদ্দিনের ছেলে এজাহারুর ইসলামের বিয়ে ঠিক হয়। শুক্রবার রাতে কনের বাড়িতে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা চলছিল। বর ও বরযাত্রী কনের বাড়িতে উপস্থিত হন। শুধু বিয়ে পড়ানো বাকী। এ সময় বাল্যবিয়ে হচ্ছে এমন খবর পেয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত সেখানে অভিযান চালায়। অভিযান টের পেয়ে কনে, কনের বাবা-মা সহ আত্মীয়-স্বজন ও বর সহ বরযাত্রীরা দৌড়ে পালিয়ে যান।

সাদুল্যাপুর উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মোছাঃ শাহনাজ আকতার ‘সময়ের কণ্ঠস্বর’ কে বলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোঃ আহসান হাবীবের নেতৃত্বে তিনি সহ থানার পুলিশ গিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। এ সময় ফরিদপুর ইউপি চেয়ারম্যান নুর আজম মণ্ডল নিরব সহ স্থানীয় লোকজন উপস্থিত ছিলেন। সাদুল্যাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনও মোঃ আহসান হাবীব ‘সময়ের কণ্ঠস্বর’ কে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ওই কিশোরীকে যাতে বাল্যবিয়ে দেওয়া না হয় সেজন্য স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সহ উপস্থিত গ্রামবাসীকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এ নির্দেশ না মানলে কনের বাবা-মা ও বরের বাবা-মাকে আইনের আওতায় আনা হবে।