• আজ ১০ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ভাঙ্গায় আ”লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে আহত-৬০ অর্ধশত ঘরবাড়ী ভাংচুর ও লুটপাট, আটক-৭

৬:৪৮ অপরাহ্ন | শনিবার, জুলাই ১৬, ২০১৬ খুলনা, দেশের খবর

20141119055118


হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি:

ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলা পৌরসভার ২ নং ওয়ার্ডের কিছু অংশ ও হামিরদী ইউনিয়নের কিছু অংশ নিয়ে গজারিয়া গ্রামে পূর্ব থেকে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে আ’লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে উভয় পক্ষের নারী-পুরুষ সহ অন্তত ৬০ জন আহত হয়েছে।

এদের মধ্যে গুরুতর ২০ জনকে ভাঙ্গা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যদের স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে । বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত দফায় দফায় এ সংঘর্ষে ঘটে। এসময় ঘটনা স্থল থেকে জড়িত ৭জনকে আটক করে পুলিশ।এ ঘটনায় থানায় দুই দিনেও কোন পক্ষের মামলা হয়নি।

এলাকাবাসী জানায়, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ রাজ্জাক ফকির গ্রুপ ও পৌর আ’লীগের সহ-সভাপতি সাবেক কাউন্সিলর মোঃ ইমদাদুল হক বাচ্চু গ্রুপের সঙ্গে পূর্ব থেকে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে প্রতি নিয়ত সংঘর্ষ বাধে। তার জের ধরে সোমবার চা খাওয়া নিয়ে জাকির মুন্সিকে মারধর করলে পরিস্থিতি চরম উত্তপ্ত হয়। এ নিয়ে উভয় গ্রুপ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র ঢাল,সড়কি,টেটা,ছেন,রামদা,ইট পাটকেল নিয়ে ব্যাপক ধাওয়া, পাল্টা ধাওয়া ও ঘর বাড়ী ভাংচুর সহ এলাকা বিরান ভুমিতে পরিনত হয়।

সংঘর্ষ এলাকায় রনক্ষেত্রে পরিনত হয়। খবর পেয়ে এ এসপি (সার্কেল) মোঃ শামছুল হক ও ওসি মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে অন্য থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ নিয়ে ব্যাপক লাঠিচার্জ ও রাবার বুলেট ছুড়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন। বর্তমান এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। ফের সংঘর্ষ ও ভাংচুর ঠেকাতে মোড়ে মোড়ে অতিরিক্ত ব্যাপক সংখক পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

এ ব্যাপারে ওসি মোঃ মিজানুর রহমান জানান, বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে এবং কত রাউন্ড রাবার বুলেট খোয়া গেছে সে ব্যাপারে আমাদের টিম একত্র না হওয়া পর্যন্ত হিসাব করা যাচ্ছেনা।

এ ব্যাপারে এক পক্ষের দলনেতা রাজ্জাক ফকির বলেন,আমার লোকজনকে একা পেলেই বাচ্চু মেম্বারের লোকজন মারধর করা সহ ঘরদরজা ভেঙ্গে অমানুষিক নির্যাতন করে।এদিকে ইমদাদুল হক বাচ্চু কাউন্সিলর বলেন, দশ বছরের সাজা প্রাপ্ত ডাকাতি মামলার আসামীদের দিয়ে এলাকার নিরহ মানুষের উপর জুলুম,অত্যাচার করে রা