• আজ বুধবার, ৭ আশ্বিন, ১৪২৮ ৷ ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ৷

ব্লগার থেকে গুলশান হত্যাকাণ্ড : হত্যাকারীদের প্রশিক্ষণ ও হত্যার ধরন একই


❏ রবিবার, জুলাই ১৭, ২০১৬ অপরাধ

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক –  ২০১৩ সালে ব্লগার রাজীব হত্যাকাণ্ড থেকে শুরু করে জঙ্গিগোষ্ঠী যেসব হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে, সেসব হত্যাকাণ্ডের জঙ্গিদের প্রশিক্ষণের ধরন একই ধরনের এবং হত্যার ধরনও একই। তাদের সবার কোপ দেওয়ার ধরন বিশ্লেষণ করে ফরেনসিক বিভাগের সহযোগ অধ্যাপক সোহেল মাহমুদ এ কথা বলেন। তিনি মনে করেন, না হলে একই ধরনের কোপ কম-বেশি একই জায়গায় হওয়ার কথা নয়।

bg--akoi
এদিকে, বাংলাদেশের জঙ্গিগোষ্ঠীর সঙ্গে বিদেশের কোনও না কোনও রকমের যোগাযোগ স্থাপন সম্ভব হয়েছে বলে মনে করছেন নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা। তারা বলছেন, জেএমবির নেতার ফাঁসির পর কর্মীরা প্রথম দফায় পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছিল। সেই সংগঠন আইএসের সঙ্গে যোগাযোগ করতে সক্ষম হয়েছে। কারণ, তাদের হাতে সংঘটিত হামলার দায় স্বীকারের বিষয় আইএস প্রচার করছে। ফলে এক ধরনের যোগাযোগ স্থাপিত হয়েছে।
জঙ্গিদের হামলায় নিহত প্রত্যেকের লাশের ময়নাতদন্ত করেন চিকিৎসক সোহেল মাহমুদ। তিনি বলেন, যারা এই হত্যাকাণ্ডগুলো ঘটাচ্ছে তাদের প্রত্যেকটি মগজধোলাই করা হয় যে, তাদের যে যুক্তিই দেন না কেন হত্যা বন্ধ করবে না। গুলশানে যে জঙ্গিরা ছিল তারা আর্টিজানের দেয়ালে লিখে গেছে ‘উই আর গোয়িং টু জান্নাত।’ আরেক জায়গায় লেখা ছিল ‘পুলিশ স্যাড নিউজ ওয়েটিং ফর ইউ’। কী ধরনের মগজধোলাই প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে গেলে এধরনের কাজ করা যায় এবং একটার পর একটা ঘটনা একইভাবে ঘটানো যায় তা অনুমান করে নিয়ে করণীয় নির্ধারণ করতে হবে। তিনি তার কাজের অভিজ্ঞতা ও বিশ্লেষণ থেকে বলেন, কর্মকাণ্ড দেখে মনে হয়, তাদের বোঝানো হয়েছে ব্লগার বা বিদেশিরা ইসলামের শত্রু। ব্লগার হত্যা থেকে শুরু করে সম্প্রতি গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলা একই গ্রুপের কাজ। প্রতিটি লাশের ময়নাতদন্ত করেছি আমি। ব্লগার হত্যা থেকে গুলশান হামলা প্রত্যেকটি আঘাতই একই ধরনের।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন