সংবাদ শিরোনাম

সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদ সস্ত্রীক করোনায় আক্রান্তরোহিঙ্গা শিশু অপহরণের পর হত্যার ঘটনায় নারীসহ দু’জন গ্রেপ্তারবেলকুচিতে দূর্বৃত্তদের আগুনে পুড়ে গেল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান !জামালপুরে মাদ্রাসা ছাত্রীকে রাতভর ধর্ষণ, গ্রেফতার মাদ্রাসার শিক্ষক‘করোনাকালের নারী নেতৃত্ব: গড়বে নতুন সমতার বিশ্ব’বগুড়ায় শিক্ষা প্রনোদনা পেতে প্রত্যয়নের নামে টাকা নেয়ার অভিযোগজামালপুরে ধর্ষণ মামলায় ধর্ষকের যাবজ্জীবনপাবনায় অবৈধ অস্ত্র তৈরির কারখানায় অভিযান, চারটি আগ্নেয়াস্ত্রসহ গ্রেফতার-২উপজেলা আ.লীগের সভাপতিকে ‘পেটালেন’ কাদের মির্জা!কে কত বড় নেতা, সবাইকে আমি চিনি: কাদের মির্জা

  • আজ ২৪শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

গুলশান হামলা : তদন্তে একের পর এক নতুন তথ্য বেরিয়ে আসছে

২:৩১ পূর্বাহ্ন | বুধবার, জুলাই ২০, ২০১৬ আলোচিত বাংলাদেশ

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক –   রাজধানীর গুলশানে হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় জঙ্গি হামলার তদন্তে একের পর এক নতুন তথ্য বেরিয়ে আসছে। ঘটনার রাতে ৮টা ৪২ মিনিটের দিকে নিবরাস ইসলামসহ ৫ জঙ্গি হেঁটেই ওই রেস্তোরাঁয় প্রবেশ করেছিল। এ দৃশ্য ধরা পড়ে সেখানে স্থাপিত একাধিক সিসি ক্যামেরার ফুটেজে। র‌্যাব-পুলিশের সন্দেহ, ঘটনাস্থলের কিছু দূরে তারা গাড়ি থেকে নামে। এর পর সামনে ২ জন ও পেছনে ৩ জন ধীরপায়ে হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁর সামনে আসে। পরে সেখান থেকে একসঙ্গে প্রবেশ করে রেস্তোরাঁর ভেতর। ৫ জঙ্গি আসার আগেই ঘটনাস্থলে অনুচর হিসেবে কয়েকজন উপস্থিত ছিল বলে সন্দেহ র‌্যাব-পুুলিশের।

jo5

এক তরুণীসহ সন্দেহভাজন ৪ জঙ্গির গতিবিধির ভিডিওচিত্র গতকাল দুপুরে প্রকাশ করেছে র‌্যাব। ওই চারজনের বিষয়ে তথ্য দেওয়ার জন্য নাগরিকদের কাছে অনুরোধও করেছে সংস্থাটি। গতকাল দুপুর দুটোর দিকে ফেসবুকে র‌্যাবের অফিসিয়াল পেজে সিসি ক্যামেরায় ধারণকৃত ভিডিও ফুটেজ আপলোড করা হয়। ওই ভিডিওচিত্রের ক্যাপশনে লেখা হয়, ‘গুলশানে হামলার সঙ্গে জড়িত সন্দেহভাজন চারজনকে নির্ণয়। এদের পরিচয় জানা থাকলে দ্রুত র‌্যাবের যে কোনো নিকটস্থ ব্যাটালিয়ন অথবা ক্যাম্পে অবহিত করুন। মোবাইল নম্বর : ০১৭৭৭৭২০০৫০।’

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার মুফতি মাহমুদ খান বলেন, ভিডিওতে যাদের দেখা গেছে তারা সন্দেহভাজন। তারা দীর্ঘক্ষণ ওই সড়কে অবস্থান করেছিল। তাদের দেখে কেউ শনাক্ত করতে পারলে ধরিয়ে দিতে অনুরোধ করেন তিনি।

ভিডিওচিত্রে দেখা যায়, প্যান্ট ও ফুলশার্ট পরা এক তরুণ সড়কের ওপর হাঁটাহাঁটি করছে। তবে তার শার্টের হাতার কিছু অংশ ভাঁজ করা ছিল। যাকে ১ নম্বর সন্দেহভাজন বলছে র‌্যাব, তাকে রাস্তার এপাশ-ওপাশে হাঁটতে দেখা যায়। মোবাইল সদৃশ্য একটি বস্তুও দেখা যায় তার হাতে। এর পর একটি প্রাইভেট কার থেকে এক তরুণকে রাস্তার মাঝখানে নামতে দেখা যায়। সে দৌড়ে রাস্তা পার হয়। এর পর পরই ভিডিওতে দেখা যায়, কালো রঙের শার্ট পরা সুঠাম দেহের এক তরুণ ফুটপাতে হাঁটছে, আর পেছনের পকেটে হাত দিয়ে কিছু খুঁঁজছে। ফুটপাতে আমগাছের নিচে সে অবস্থান করে। তার সঙ্গে ফুটপাত থেকে আরও এক তরুণী বের হয়। সে হেঁটে সামনের দিকে অর্থাৎ হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁর দিকে অগ্রসর হচ্ছে।

র‌্যাবের একটি সূত্র জানিয়েছে, হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁর সামনের সড়কের অনেকগুলো সিসি ক্যামেরার ফুটেজ বিশ্লেষণ করেই ওই চারজনকে সন্দেহের তালিকায় আনা হয়েছে।

এদিকে একই ফুটেজ গতকাল সন্ধ্যায় ঢাকা মহানগর পুলিশের অনলাইন নিউজ পোর্টাল ডিএমপি নিউজেও প্রকাশ করা হয়। পুলিশের কর্মকর্তারা অবশ্য ৫ জনকে সন্দেহের তালিকায় রেখেছেন। এ ছাড়া দুটো গাড়ি সন্দেহের তালিকায় রয়েছে।

র‌্যাব-পুলিশের সূত্রগুলো বলছে, ৫ জঙ্গির পেছনে আরেক ব্যক্তি ওই রেস্তোরাঁয় হেঁটে প্রবেশ করে। কিন্তু বের হওয়ার সময় গাড়িতে যায়। এ দৃশ্যও ধরা পড়েছে ফুটেজে। ওই ব্যক্তিও জঙ্গি বলে সন্দেহ তদন্তকারীদের। ৫ জঙ্গি গেট দিয়ে রেস্তোরাঁয় ঢুকেই ‘আল্লাহু আকবার’ বলেই গুলিবর্ষণ শুরু করে। হলি আর্টিজানে প্রবেশের সময় তাদের প্রত্যেকের কাঁধে একটি করে ব্যাগ দেখা গেছে। যে ব্যাগের ভেতর অস্ত্র ও গ্রেনেড ছিল বলে তদন্তকারীদের ধারণা।

১ জুলাই রাতে হলি আর্টিজানে জঙ্গিরা হামলা চালায়। ২ জুলাই সকালে যৌথবাহিনীর অভিযানে জিম্মি সংকটের অবসানের পর ভেতর থেকে ২০ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়, যাদের মধ্যে নয়জন ইতালীয়, সাতজন জাপানি, একজন ভারতীয় এবং তিনজন বাংলাদেশি। নিহত হয় হামলাকারীরাও। এ ঘটনার দায় স্বীকার করে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গি গোষ্ঠী আইএস।