চবি ছাত্রলীগ কমিটিতে পদ বঞ্চিতদের আন্দোলনে, অচল বিশ্ববিদ্যালয়


চট্টগ্রাম প্রতিনিধি- সদ্য ঘোষিত চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কমিটিতে ত্যাগী নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন না করায় বিক্ষুব্ধ ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের ডাকা অবরোধে অচল হয়ে পড়েছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়।

আজ বুধবার সকাল থেকে অবরোধের সমর্থনে চবি ক্যাম্পাস, ষোলশহর স্টেশনসহ বিভিন্ন জায়গায় মিছিল,সমাবেশ করেছে অবরোধকারীরা। ক্যাম্পাসে যে কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। ক্যাম্পাসের বিভিন্ন গেইটে পাহারা বসিয়ে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ।cu_19623_1469001249অবরোধের শুরুতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়গামী শাটল ট্রেন আটকে দিয়েছে ছাত্রলীগ। ক্যাম্পাস থেকে কোন বাস শহরে আসতে দেওয়া হচ্ছেনা। ফলে ক্যাম্পানে যেতে পারেনি শিক্ষক ও ছাত্র/ছাত্রীরা। এতে করে বন্ধ হয়ে গেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস ও পরীক্ষা।

আন্দোলনকারীরা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে শহরে আসা কয়েকটি বাসকে মাঝ পথে থামিয়ে চাবি নিয়ে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়গামী শাটন ট্রেনে ইট-পাটকেল নিক্ষেপের খবরও পাওয়া গেছে।

এদিকে জরুরি ভিত্তিতে পরিস্থিতি সামাল দিতে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ আন্দোলনকারীদের ডেকেছেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসেন বলেন, চলমান পরিস্থিতি সমাধান করতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি (টিপু) ও সাধারণ সম্পাদকসহ (সুজন) আন্দোলনকারীদের ডাকা হয়েছে। তবে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কার্যক্রম স্থগিত করা হয়নি বলে জানান তিনি।

এ বিষয়ে চবি প্রক্টকর আলী আজগার জানান, অবরোধকারীরা এতো সহিংস হতে পারে তা আমাদের তা আমাদের জানা ছিলনা। সহিংসতার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বর্তমান অবস্থা থেকে উত্তোরণের চেষ্টা চলছে। অবরোধকারীদেরও সাথে কথা বলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার চেষ্টা চলছে।

কর্মসূচিতে অংশ নেওয়া রেজাউল হক বলেন, সংগঠনের দুঃসময়ে যারা সক্রিয় ছিলেন, তাঁদের বঞ্চিত করা হয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে তাঁরা আন্দোলনে নেমেছেন।

কর্মসূচি পালনকারী ও নতুন কমিটির সহসভাপতি মো. মামুন বলেন, এই কমিটি বাতিল করে নতুন কমিটি দিতে হবে। দাবি না মানলে টানা কর্মসূচি চলবে। তাঁরা এখন কেন্দ্রীয় নেতাদের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় আছেন।

বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি আলমগীর টিপু বলেন, আন্দোলনকারীদের ব্যাপারে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত, গত ১৮ জুলাই চবি ছাত্রলীগের ২০১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। এরপর থেকে পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরা আন্দোলনে নামে।

◷ ২:৪৭ অপরাহ্ন ৷ বুধবার, জুলাই ২০, ২০১৬ Breaking News, আলোচিত বাংলাদেশ