• আজ বৃহস্পতিবার, ৫ কার্তিক, ১৪২৮ ৷ ২১ অক্টোবর, ২০২১ ৷

‘প্রয়োজন হলে তারেককে ইন্টারপোলের সহায়তায় ধরে আনা হবে’


❏ বৃহস্পতিবার, জুলাই ২১, ২০১৬ Uncategorized, জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বরঃ বৃহস্পতিবার (২১ জুলাই) দুপুর ১টার দিকে সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে মুদ্রাপাচার মামলায় তারেক রহমানের সাজার প্রতিক্রিয়ায় মন্ত্রী বলেছেন বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান লন্ডনে বসে আপিল করতে পারবে না,এই সাজার প্রেক্ষিতে তাকে (তারেক রহমান) ধরে আনার চেষ্টা করা হবে। যদি এটা সম্ভব না হয়, তা হলে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে চুক্তি করে হলেও আনা হবে। এতেও যদি সম্ভব না হয়, তা হলে ইন্টারপোলের সহায়তায় আনা হবে তারেক রহমানকে।’

সেই সঙ্গে তারেকের বন্ধু ও ব্যবসায়িক অংশীদার গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের সাত বছরের কারাদণ্ডও বহাল রাখেন আদালত। তবে তাকে বিচারিক আদালতের দেয়া ৪০ কোটি টাকা অর্থদণ্ড কমিয়ে ২০ কোটি টাকা করা হয়েছে।

তবে তারেক রহমান বাংলাদেশে এসে আত্মসমর্পণ করে ‘সাজা খেটে’ আপিল করতে পারবেন বলে জানান আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। অন্যদিকে পলাতক তারেক আত্মসমর্পণ করলে বা তাকে গ্রেপ্তার করা গেলে সেই সময় থেকে তার দণ্ড কার্যকর হবে বলে হাইকোর্ট জানিয়েছে।

খালেদা জিয়ার ছেলে তারেক বিভিন্ন মামলা মাথায় নিয়ে ২০০৮ সাল থেকে যুক্তরাজ্যে রয়েছেন। শেখ হাসিনা হত্যাচেষ্টাসহ আরও দুর্নীতি, রাষ্ট্রদ্রোহ ও মানহানির অভিযোগে কয়েক ডজন মামলা রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

তারেক রহমানের বিরুদ্ধে আরও মামলা থাকায় দেশে ফিরে আত্মসমর্পণ করলে তিনি জামিন পাবেন কি না, এ প্রতিবেদকের এমন প্রশ্নে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘তার (তারেক রহমান) মায়ের (খালেদা জিয়া) নামেও তো অনেক মামলা আছে। তিনি আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন পেলে তারেক রহমান পাবে না কেন?’

anisul haqপ্রসঙ্গত, অর্থ পাচারের দায়ে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে দোষী সাব্যস্ত করে ৭ বছরের জেল ও ২০ কোটি টাকা জরিমানা করেছেন হাইকোর্ট। একই মামলায় নিম্ন আদালতে দেওয়া তারেক রহমানের বন্ধু গিয়াস উদ্দিন আল মামুনের ৭ বছরের কারাদণ্ড বহাল রেখেছেন আদালত। ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট থানায় ২০০৯ সালের ২৬ অক্টোবর দায়ের করা এ মামলায় তারেক-মামুনের বিচার শুরু হয় ২০১১ সালের ৬ জুলাই।

এ মামলায় অভিযোগ করা হয়, টঙ্গীতে প্রস্তাবিত ৮০ মেগাওয়াট ক্ষমতার একটি বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের কাজ নির্মাণ কনস্ট্রাকশনস নামে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে পাইয়ে দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে ২০ কোটি ৪১ লাখ ২৫ হাজার টাকা ঘুষ নেন মামুন। ২০০৩ থেকে ২০০৭ সালের মধ্যে বাংলাদেশ থেকে বিভিন্ন পন্থায় ২০ কোটি ৪১ লাখ ২৫ হাজার ৮৪৩ টাকা সিঙ্গাপুরের সিটি ব্যাংকে মামুনের অ্যাকাউন্টে পাচার করা হয়, যার মধ্যে ৩ কোটি ৭৮ লাখ টাকা তারেক খরচ করেন বলে অভিযোগপত্রে বলা হয়।

বৃহস্পতিবার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি আমির হোসেনের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় ঘোষণা করেন। তবে নিম্ন আদালতের এই মামলায় ২০১৩ সালের ১৭ নভেম্বর তারেক রহমানকে বেকসুর খালাস দেন ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ মো. মোতাহার হোসেন।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন