সংবাদ শিরোনাম
কটিয়াদীতে নিখোঁজের পর মাটি খুঁড়ে মা-বাবা ও ছেলের লাশ উদ্ধার | ক্যান্সারে আক্রান্ত শিশু জিনিয়া বাঁচতে চায়, প্রয়োজন সহযোগিতার | সফলতার রঙিন স্বপ্ন: নওগাঁর মাটিতে থোকায় থোকায় ঝুঁলছে মিষ্টি-সুস্বাদু আঙ্গুর | আগের সব রেকর্ড ভেঙ্গে একদিনে সর্বোচ্চ করোনায় আক্রান্ত যুক্তরাষ্ট্রে! | মহানবীকে নিয়ে ব্যঙ্গ কার্টুন প্রদর্শনের প্রতিবাদে ফরিদপুরে বিক্ষোভ মিছিল | স্বাধীনতা পুরস্কারে ভূষিত হলেন নারী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ভারতেশ্বরী হোমস | ইসলাম অবমাননাকর কার্টুন প্রকাশের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে রাশিয়া | সেনেগালে নৌকাডুবে ১৪০ অভিবাসী প্রত্যাশীর মৃত্যু | ইসলামপন্থি সন্ত্রাসের কাছে হার মানবে না ফ্রান্স: ম্যাক্রোঁ | ‘বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক বর্তমানে এক অনন্য উচ্চতায়’- এলজিআরডি মন্ত্রী |
  • আজ ১৪ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

খুলনায় নিখোঁজের তালিকায় উঠে এসেছে ৫৯ জনের নাম

২:৫৫ অপরাহ্ন | বৃহস্পতিবার, জুলাই ২১, ২০১৬ খুলনা, দেশের খবর

nikhuj

খুলনা প্রতিনিধি: খুলনা বিভাগে র‌্যাব ও পুলিশের তালিকায় ৫৯ যুবকের নিখোঁজের তথ্য উঠে এসেছে। এর মধ্যে খুলনা জেলায় ৭ জন। বাকি ৫২ জন যশোর, কুষ্টিয়া ও বাগেরহাটসহ অন্য জেলার বাসিন্দা। তবে নিখোঁজদের কেউ জঙ্গি তৎপরতায় জড়িত কি-না সে বিষয়ে র‌্যাব-পুলিশের পক্ষ থেকে কোনো তথ্য দেওয়া হয়নি।

খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ (কেএমপি) জানায়, জেলায় নিখোঁজ সাতজনের মধ্যে খালিশপুর ও সোনাডাঙ্গা থানার দুইজন, দৌলতপুর থানার চারজন এবং কয়রা উপজেলার একজন রয়েছেন। এর মধ্যে খালিশপুর এলাকার বাসিন্দা মাসুদ রানা (২৭) নগরীর সদর থানার জিন্নাহপাড়া এলাকায় ‘লিফট’ নামে একটি কোচিং সেন্টার পরিচালনা করতেন। গত ফেব্রুয়ারি থেকেই তিনি নিখোঁজ রয়েছেন।

এ ছাড়া খালিশপুর থানার মুজগুন্নি কাজীপাড়া এলাকার কাজী আতিয়ার রহমানের ছেলে কাজী মো. শাওন (২৬) গত ১৫ মার্চ এবং মুজগুন্নি এলাকার জহিরুল হকের ছেলে সাইদুর রহমান (১৯) গত ১৪ এপ্রিল থেকে নিখোঁজ রয়েছেন।

দৌলতপুর থানার পাবলা সবুজ সংঘ মাঠ এলাকার মনির হোসেন (৩৫) গত ২৩ এপ্রিল থেকে নিখোঁজ রয়েছেন। একইভাবে মহেশ্বরপাশা শিশু পরিবারের মৃত নূর ইসলামের ছেলে জাকির হোসেন (১৭), মৃত আব্দুল জব্বারের ছেলে ইলিয়াস মোল্লা (১৫) এবং দৌলতপুর পাবলা কারিকরপাড়ার সাইদুর রহমানের ছেলে খন্দকার সোহেল সুলতানও (২৫) নিখোঁজ রয়েছেন।

খুলনার অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার শেখ মনিরুজ্জামান মিঠু জানান, পুলিশ সদর দপ্তরের নির্দেশনায় ৬ জুলাই থেকে নগরীর সদর সোনাডাঙ্গা, খালিশপুর দৌলতপুর, খানজাহান আলী, আড়ংঘাটা, লবণচরা ও হরিণটানা থানায় দীর্ঘদিন ধরে নিখোঁজ তরুণ ও যুবকদের তথ্য সংগ্রহ শুরু হয়। এখন পর্যন্ত সাতজন যুবক নিখোঁজ রয়েছে বলে খোঁজ পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে তদন্ত করা হচ্ছে।

অপরদিকে, র‌্যাবের প্রকাশিত নিখোঁজদের তালিকায় খুলনা বিভাগের কয়েকটি জেলার ৫২ জন রয়েছে। এরা হলেন- যশোরের মণিরামপুর উপজেলা সদরের আমানুল্লাহ, কামরুল জামান, কামাল হোসেন, সারাত আলী, হাসানুর রহমান, ইকবাল হোসেন, তৌহিদুল ইসলাম, পীরবক্স, তপন, শাহ আলম, হাসান আলী, ফারুক হোসেন, সুমন হোসেন ও মাসুদুর রহমান।

যশোরের সদরের রাহাত বিন আব্দুল্লাহ (২৬), ফিরোজ মিয়া (২৩)। বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জের বাদুড়তলার খোরশেদ আলম (৪৫)। নড়াইলের নলদী গ্রামের বেলাল মোল্লা (২২)।

ঝিনাইদহের খন্দকার পাড়ার সোহেল (৩০), কলেজপাড়ার মামুন রায়হান (২৫), বড়কামারকুণ্ডের সোহেল রানা (২৭), তেঁতুলবাড়িয়ার দুরন্ত (২৬), হলিধানীর মো. রাশেদুজ্জামান (২৮), নিজপুটিয়ার সজল খান (২০), চরখাজুরার দেলোয়ার হোসেন দুলাল (৩০) ও গোলাম আযম ওরফে পলাশ (৩২), মান্দারবাড়িয়ার সোহান হোসেন (২৫), গোয়ালপাড়ার শামীম আলী (২৬), কালুহাটির আশিকুর রহমান ওরফে রিপন (২৪) ও মো. আক্তারুজ্জামান, কাশিমপুরের মো. মোজাম্মেল মোল্লা (২৮)।

কালীগঞ্জের মাজেদুল হক (৩৫), মো. আবু সাঈদ ও মো. হাসান আলী (৩০)। মহেশপুরের আব্দুর সালাম (৩০) ওয়াফিল, বাপ্পি ও কাচারিতেলার আতিয়ার রহমান (৩০)।

শৈলকুপার মাসুম আলী (২৪),মজিবর খাঁ (২৮),উজ্জ্বল হোসেন (২৫), নাঈম হোসেন (২৫), ওয়াসিম আকরাম (২৫),রবিউল ইসলাম (২৫), রফিকুল ইসলাম (২২) ও মো. তোতা (২৫)। হরিণাকুণ্ডুর শফিকুল ইসলাম (২৭)। কুষ্টিয়ার কুমারখালীর বাদল। চুয়াডাঙ্গার জীবননগরের শামসুল হক (২৮)। দামুড়হুদার ফরহাদ হোসেন (২৮)। সাতক্ষীরার তালার রাশেদ গাজী (২৩) ও দেবহাটার রওশন আলী কাজী।