• আজ বৃহস্পতিবার, ১২ কার্তিক, ১৪২৮ ৷ ২৮ অক্টোবর, ২০২১ ৷

পুরুষশুণ্য হয়ে পড়ছে কালকিনি উপজেলার কালিনগর গ্রাম, মামলার হয়রানির শিকার সাধারন মানুষ


❏ শনিবার, জুলাই ২৩, ২০১৬ ঢাকা, দেশের খবর

মাদারীপুর প্রতিনিধিঃ জেলার কালকিনি উপজেলার আলীনগর ও পার্শবর্তী এলাকার এখন শুধু রাতে নয় দিনের বেলায়ও পুরুষশুণ্য হয়ে পড়েছে পুড়ো এলাকা। সাধরন মানুষ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, চেয়ারম্যান, শিক্ষক সহ অনেকেই মিথ্যা মামলার হয়রানীর শিকার হয়েছে।

শনিবার সকালে (২৩-০৭-১৭) সরেজমিন ঘুরে দেখা যায় কালিনগর গ্রামে পূর্বের থেকে পারিবারীক ও আদিপত্য বিস্থার নিয়ে দেলোয়ার হাওলাদার পরিবার ও রতন হাওলাদার পরিবারের মাঝে বিরোধ চলে আসছিলো। তারই পরিপ্রেক্ষিতে গত ১২ জুলাই দেলোয়ার হাওলাদার পরিবার ও রতন হাওলাদারের লোকজনের উপর অতারকিত হামলা দু’পক্ষের সংর্ঘষে দু’পক্ষের পরিবারের ঘর-বাড়ী ভাংচুর, কারো বাবা, কারো ভাই, কারো আত্মীয়-স্বজন গুরুত্ব আহত অবস্থায় বিভিন্ন হাসপাতলে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এর মধ্যে এলাকায় কোন মটরসাইকেলের শব্দ পেলে বা নতুন কোন মানুষ এলাকায় দেখলেই শিশু, বৃদ্ধ, নারী সব বয়সী মানুষের মাঝে পালানোর জন্য ছোটাছুটি শুরু হয়ে যায়। আর ঐ দিন উভয় পক্ষের সংর্ঘষে প্রায় ২০ জন আহত হয়। আর এই ঘটনায় গত ১৪ই জুলাই মাদারীপুর চিফ-জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে দেলোয়ার হাওরাদার বাদী হয়ে মামলা দায়ের করে। স্থানীয় সুত্রে আরও জানা যায় কালিনগর এলাকা কালকিনি থানা থেকে প্রায় ৫ কি:মি: দুরে অবস্থান। উক্ত দু’পক্ষের সংর্ঘষের কোন মিমাংশা না হওয়ায় আবারও যেকোন সময় আরও বড়ধরনের সংর্ঘষ হতে পারে।

kalkinniএই মামলা প্রধান আসামী আলীনগর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমান মিলন সরদার জানান ঘটনার দিন একটা কাজে আমি কালকিনি থানায় যাই। তার কিছুক্ষন পর আমার কাছে সংবাদ আসে দেলোয়ার হাওলাদারের লোকজন রতন হাওলাদারের লোকজনদেন মারামারি হচ্ছে, আমি থানায় থাকা অবস্থায় ওসিকে জানালাম যে আপনি পুলিশ পাঠিয়ে ব্যবস্থা নিন যাতে এরপর আর কোন সংর্ঘষ ঘটনা না ঘটতে পারে। আর আমাকে করা হয়েছে মামলার প্রধান আসামী। কিছু কুচক্রি মহল তাদের ফায়দা লুটের জন্য আমার মান-সম্মান নস্টকরার জন্য পায়তারা করছে এই ন্যাক্কার জনক ঘটনার ধিক্কার ও তীর্ব পতিবাদ জানাই।

এ মামলার আর এক আসামী কালিনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সোহরাব হোসেন কিরন সরদার কাছে যানতে চাইলে তিনি বলেন কিছু স্বার্থশিদ্ধ কুচক্রি মহল আমাদের মান সম্মান নস্ট করার জন্য এসব করেছে আমরা কোন ভাবে এই ঘটনার সাথে জরিত নই এর তীর্ব পতিবাদ জানাই। জানতে পেরেছি গত ১২ জুলাই পাশের গ্রামে মারামারি হয়েছে আর সে ঘটনার ১৪ জুলাই মামলায় আমি ও আমার এক সহকারী শিক্ষক মোঃ জসিম উদ্দিন সরদার কে আসামী করা হয়েছে। আমার ভাবতে অবাক লাগে নিরহ মানুষকে হয়রানি করার জন্য মানুষ এতো নিষ্ঠুর হতে পারে। আমাদের এই গ্রামের একজন মেধাবী ছাত্র ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যনরত ছাত্র, আবিরকেও আসামী করা হয়েছে। আমি আপনাদের মাধ্যমে সমাজ, দেশ ও আইন প্রয়োগ কারী সংস্থাদের যানাতে চাই ১২ জুলাই মাদারীপুর শিক্ষা অফিস থেকে আমার কালিনগর উচ্চ বিদ্যালয়ে পরিদর্শনে আসে আমি ও আমার সহকারী শিক্ষক ঐ সময় স্কুলে উপস্থিত ছিলাম। এবং স্কুল পরিদর্শনে আসা অফিসারকে তার কাজে সহযোগিতা করেছি বিকাল ৪টা পযন্ত।

কালকিনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) কৃপাসিন্দু বালা যানান মামলার তদন্ত কর হচ্ছে এবং আসামী ধরার অভিযান অব্যাহত আছে । এবং প্রকৃত অপরাধীকেই তদন্তের মাধ্যমে আইনের আওতায় আনা হবে।