🕓 সংবাদ শিরোনাম

হাসপাতালের কেবিনে নিয়ে শিক্ষার্থীকে ‘ধর্ষণ’, দুই যুবক গ্রেপ্তারসরকার চায় দেশে একটি শক্তিশালী বিরোধী দল থাকুক: কাদেরফেসবুক লাইভে এসে স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা, স্বামীর মৃত্যুদণ্ডকুমিল্লার ঘটনার মূলহোতাকে ইন্ধনদাতারা লুকিয়ে রাখতে পারে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীপদ্মা ও মেঘনা নামে দুটি বিভাগ হবে: প্রধানমন্ত্রীএবার শাহরুখের বাড়িতে এনসিবির তল্লাশিঅবসরে ডিএমপি কমিশনার শফিকুল ইসলাম, প্রজ্ঞাপন জারি২৬ অক্টোবর রাজনৈতিক দল ঘোষণা করতে চান ভিপি নুরসরকারের ধারাবাহিকতা আছে বলেই উন্নয়ন সম্ভব হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রীমালয়েশিয়ায় ১৭২ জন বাংলাদেশি অভিবাসী গ্রেফতার

  • আজ বৃহস্পতিবার, ৫ কার্তিক, ১৪২৮ ৷ ২১ অক্টোবর, ২০২১ ৷

তথ্যমন্ত্রীর বিস্ফোরক মন্তব্যে চটেছেন প্রধানমন্ত্রী


❏ সোমবার, জুলাই ২৫, ২০১৬ Breaking News, ফিচার

সময়ের কণ্ঠস্বর- দরিদ্রদের জন্য কর্মসূচি টিআর ও কাবিখা বরাদ্দের ৮০ শতাংশই চুরি হয়। ৩০০ কোটি টাকা বরাদ্দ হলে ১৫০ কোটি টাকা (অর্ধেক) যায় এমপিদের পকেটে। বাকি ১৫০ কোটি টাকার সিংহভাগ যায় চেয়ারম্যান-মেম্বারদের পকেটে। আমরা চোখ বন্ধ করে এ দুর্নীতিকে প্রশ্রয় দিয়ে যাচ্ছি- তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর এমন বক্তব্যে চটেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

আজ সোমবার মন্ত্রিসভা বৈঠকে অনির্ধারিত আলোচনায় ইনুর ওপর ক্ষোভ প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী। মন্ত্রিসভা বৈঠকে উপস্থিত একাধিক সিনিয়র মন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য জানা গেছে।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, মন্ত্রিসভার বৈঠকে অনির্ধারিত আলোচনায় তথ্যমন্ত্রীর ওই বক্তব্যের (টিআর-কাবিখা বরাদ্দের অর্ধেক যায় সংসদ সদস্যদের পকেটে) বিষয়টি উঠে আসে। আর তখনই তথ্যমন্ত্রীর ওপর ক্ষোভ প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আপনার একটি বক্তব্যের জন্য সরকারের সব অর্জন ব্যর্থতায় পরিণত হয়েছে। তির ছেড়ে দিলে এবং মুখের কথা বেরিয়ে গেলে ফিরে আসে না। আপনি সবাইকে চোর বানাতে পারেন না।

মন্ত্রিসভায় ওই বক্তব্যের বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে ইনু বলেন, তিনি (ইনু) মূলত বিএনপি-জামায়াত সরকারের সময়কার কথা বলতে গিয়ে মুখ ফসকে বলে ফেলেছেন। এর জন্য পরবর্তীতে তিনি দুঃখ প্রকাশ করে গণমাধ্যমে বিবৃতিও পাঠিয়েছেন। এ সময় বিবৃতিটির কপিও তিনি প্রধানমন্ত্রীর নিকট উপস্থাপন করেন।

ইনুর যুক্তির পরিপ্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আপনি যেভাবেই বলুন সরকারের একজন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী হয়ে পাবলিকলি এমন বাজে মন্তব্য করেছেন। তির ছেড়ে দিলে এবং মুখের কথা বেরিয়ে গেলে ফিরে আসে না। আপনি সবাইকে চোর বানাতে পারেন না।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, আপনার এমন বক্তব্যে সংসদ সদস্যরা এতোটাই ক্ষুব্ধ হয়েছিলেন যে, গতকাল (রোববার) তারা একজোট হয়ে আপনাকে আক্রমণ করারও পরিকল্পনা করছিলেন। কিন্তু আমি অনেক কষ্টে বিষয়টি নিয়ন্ত্রণ করেছি। আগামীতে ইনুকে এ ধরনের লাগামহীন বক্তব্য দেওয়া থেকে বিরত থাকারও পরামর্শ দেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রসঙ্গত, গতকাল রোববার রাজধানীর শেরেবাংলানগরে পিকেএসএফ ভবনে ‘গ্লোবাল সিটিজেনস ফোরাম অন সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট সামিট ২০১৬’ শীর্ষক দুই দিনব্যাপী সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘দরিদ্রদের জন্য কর্মসূচি টিআর ও কাবিখা বরাদ্দের ৮০ শতাংশই চুরি হয়। ৩০০ কোটি টাকা বরাদ্দ হলে ১৫০ কোটি টাকা (অর্ধেক) যায় এমপিদের পকেটে। বাকি ১৫০ কোটি টাকার সিংহভাগ যায় চেয়ারম্যান-মেম্বারদের পকেটে। আমরা চোখ বন্ধ করে এ দুর্নীতিকে প্রশ্রয় দিয়ে যাচ্ছি।’

তিনি বলেন, ‘সব এমপিই হয়তো চুরি করেন না। কিন্তু বেশিরভাগ এমপিই এ কাজটি করেন। এ জন্য উন্নয়ন বাজেটের অর্থ সরাসরি ইউনিয়ন পরিষদের বাজেটে দেয়া উচিত। এতে উন্নয়ন বৈষম্য কমে আসবে।’

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন