কুড়িগ্রামে ভয়াবহ বন্যা: ২ শতাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ, মেডিকেল টিম গঠন

৪:৪৪ অপরাহ্ন | মঙ্গলবার, জুলাই ২৬, ২০১৬ দেশের খবর, রংপুর

ফয়সাল শামীম, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি- কুড়িগ্রামে ধরলার নদীর পানি সেতু পয়েন্টে বিপদসীমার ১০০ সেন্টিমিটার ও ব্রহ্মপুত্রে পানি চিলমারী পয়েন্টে বিপদসীমার ৭৮ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।bonnaসরকারী হিসাব মতে জেলার ৯ উপজেলায় ১লাখ ১০ হাজার ৪শ ৭৬ পরিবারের ৪ লাখ ২৯ হাজার ৪শ ৮৫ জন মানুষ পানিবন্দী হয়ে দুর্বিসহ জীবন যাপন করছে। বন্যার পানিতে তলিয়ে থাকায় ৯ উপজেলার ৪শ কিলোমিটার কাঁচা সড়ক ও ৫০ কিলোমিটার পাকা সড়ক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।

এদিকে সদর উপজেলার কুমরপুর এলাকায় কুড়িগ্রাম-ভুরুঙ্গামারী মহাসড়কে পানি ওঠায় ফুলবাড়ী, নাগেশ্বরী ও ভুরুঙ্গামারী উপজেলাসহ বঙ্গসোনাহাট স্থলবন্দরের সাথে সারাদেশের যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। বাঁধ ধসে যাওয়ায় হুমকীর মুখে পড়েছে ঐতিহ্যবাহী যাত্রাপুর হাট। ২শতাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। নিমজ্জিত রয়েছে আমন বীজতলা, পাট ও সবজি ক্ষেতসহ বিভিন্ন ফসলের মাঠ।

বানভাসীরা ঘর-বাড়ী ছেড়ে পাকা সড়ক ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে আশ্রয় নিচ্ছে। বন্যা দুর্গত এলাকায় বিশুদ্ধ খাবার পানিসহ খাদ্য সংকট রয়েছে । সংকট দেখা দিয়েছে গো-খাদ্যেরও। সরকারের পক্ষ থেকে পর্যাপ্ত ত্রান সহায়তা না পাওয়ার অভিযোগ বেশিরভাগ বন্যা কবলিত মানুষদের।
সদর উপজেলার মধ্যকুমরপুর দাখিল মাদ্রাসার সুপার মোঃ আমিরুল ইসলাম জানান, সোমবার হঠাৎ করে মাদ্রাসার মাঠে ৩ থেকে ৪ ফুট পানি উঠে যাওয়ায় জেলা শিক্ষা অফিসারের সাথে কথা বলে মাদ্রাসা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। মাদ্রাসার ঘরের মেঝে ও বারান্দা জেগে থাকায় সেখানে বন্যার্তরা আশ্রয় নিচ্ছে।

গরু-ছাগল ও পরিবারের লোকজন নিয়ে পাকা সড়কে আশ্রয় নেয়া মমিনুল জানান, বাড়িতে পানি উঠার পরও খুব কষ্ট করে ৫দিন ধরে ছিলাম। পানি অতিরিক্ত মাত্রায় বাড়ার ফলে আর থাকা যাচ্ছে না। তাই পাকা রাস্তায় আশ্রয় নিয়েছি।

জেলা সিভিল সার্জন সুত্রে জানা গেছে ৯ উপজেলায় ৮৫টি মেডিকেল টিম বন্যার্তদের জন্য কাজ করছে। জেলা প্রশাসন থেকে ৮ লাখ ৭৫ হাজার টাকা ও ১শ ৯২ মেট্রিক টন চাউল ও ১ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার বিতরন করা হয়েছে। নতুন করে ৯উপজেলায় ২শ ৮ মেট্রিক টন চাউল ও ৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে যা বন্যার্তদের মাঝে বিতরন করা হবে।

কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ মাহফুজুর রহমান জানায়, গত ২৪ ঘন্টায় ধরলা নদীর পানি সেতু পয়েন্টে ৫ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ১০০ সেন্টিমিটার ও ব্রহ্মপুত্রের পানি চিলমারী পয়েন্টে ৯ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে ৭৮ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বৃদ্ধি পেয়েছে তিস্তা ও দুধকুমারের পানিও।