• আজ সোমবার, ৯ কার্তিক, ১৪২৮ ৷ ২৫ অক্টোবর, ২০২১ ৷

শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি এ রুটের ১০টি ফেরী বন্ধ রয়েছে : সুদীর্ঘ হচ্ছে পণ্যবাহী ট্রাকের লাইন


❏ বুধবার, জুলাই ২৭, ২০১৬ ঢাকা, দেশের খবর

মোঃ রুবেল ইসলাম, মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি: পদ্মায় অব্যাহত পানি বৃদ্ধি ও স্রোতের গতিবেগ প্রচন্ড মাত্রায় বাড়তে থাকার কারণে শিমুলিয়া কাওড়াকান্দি নৌরুটে ফেরী চলাচলে অচলাবস্থা বেড়েই চলেছে। আজ বুধবার এ নিয়ে ৬ দিন অতিবাহিত হলেও শিমুলিয়া নৌরুটে ডাম্ব (টানা) ও মিডিয়াম ফেরী চলাচল স্বাভাবিক হচ্ছে না। নৌরুটের লৌহজং টার্নিংয়ের মুখে তীব্র স্রোতে টানা ফেরীর টাগ আইটিগুলো এখনো টিকতে পারছে না। আজ বুধবার সকালে স্রোতের সাথে পাল্লা দিয়ে টাগ-৩৯২সহ ফেরী লেংটিং, টাগ-৩৯৫সহ যমুনা ও টাগ- ৩৯৭সহ ফেরী রাণীগঞ্জ সহ মোট ৩টি টানা ফেরী শিমুলিয়া থেকে কাওড়াকান্দি অভিমুখে যাত্রা করলেও এর মধ্যে টাগ-৩৯২সহ ফেরী লেংটিং, টাগ-৩৯৫ সহ যমুনা ফেরীটি ফের শিমুলিয়ার ঘাটে ফেঠরত আসে।

dirgho-line

এরপর থেকে ফের এ রুটে ৬টি ফ্লাট ফেরী চলাচল পুরোপুরিভাবে বন্ধ রাখা হয়। অপরদিকে একটি রো রো ফেরী শাহ আলী ভাসমান কারখানায় মেরামতে থাকার পর বিকেলে এ ফেরীটি পুনরায় নৌরুটে সচল হয়েছে। এতে করে বর্তমানে এ নৌরুটে মোট ১৮টি ফেরীর মধ্যে ৪টি রো রো, ৪টি কে টাইপ ও একটি মিডিয়াম ফেরীসহ মোট ৯টি ফেরী পদ্মায় সার্বক্ষণিক সচল ছিল। এর আগের দিন মিডিয়াম ফেরী ফরিদপুর রাতের বেলায় বন্ধ থাকলেও মঙ্গলবার রাতে এ ফেরীটি যানবাহন পারাপার করতে সক্ষম হয়েছে বলে জানা গেছে।

এদিকে স্রোতের মাত্রা অব্যাহতভাবে বাড়লেও ফেরী চলাচল সচল রাখতে ফেরী কর্তৃপক্ষ বিআইডব্লিউটিএর শক্তিশালী টাগ আইটির সহায়তায় পুশিং পদ্ধতি প্রয়োগ করার একটি বিকল্প পদ্ধতি চালাচ্ছেন। তবে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আজ বুধবার বিকেলে বিআইডব্লিউটিএর পক্ষ থেকে নৌরুটে কোন টাগ আইটি এখনো দেয়া হয়নি বলে জানা যায়। একইসাথে টানা ৬দিন ধরে ফেরী চলাচলে বিঘ্নিত হওয়ায় শিমুলিয়া ঘাটে বেড়েই চলেছে পণ্যবাহী ট্রাকের দীর্ঘ সারি। গতকালও বিকেলে শিমুলিয়া ঘাটে ফেরী পারপারের অপেক্ষায় রয়েছে ৩ শতাধিক পণ্যবাহী ট্রাকসহ প্রায় অর্ধশত ছোট হালকা যানবাহন। গত ৪/৫ দিন ধরে ফেরীঘাটে আটকে থেকে এসব ট্রাকের চালকেরা চরম কষ্টে অপেক্ষার প্রহর গুনছেন। তবে ফেরী চলাচলে টানা এ অচলাবস্থায় যাত্রী দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে প্রতিদিনই অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যাত্রীবাহী যান পারাপার করা হচ্ছে। উপরন্তু এসব দূরপাল্লার যানবাহনের যাত্রীরা ঘাটে ও মাঝপদ্মায় দীর্ঘ সময় নিয়ে পদ্মা পাড়ি দিতে পড়ছেন চরম দুর্ভোগে।

মাওয়া বিআইডব্লিউটিসির সহকারী মহাব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) খন্দকার খালিদ নেওয়াজ সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, স্রোতের মাত্রা অব্যাহতভাবে বেড়েই চলেছে। গতকালও এ নৌরুটে ১৮টি ফেরীর মধ্যে শুধুমাত্র ৪টি রো রো, ৪টি কে টাইপ ও একটি মিডিয়াম ফেরীসহ মোট ৯টি ফেরী দিনে ও রাতে চলাচল করছে। তাই এ ফেরীগুলোর চলাচল সার্বক্ষণিক সচল রাখতে বিআইডব্লিউটিএর শক্তিশালী টাগ আইটির সহায়তায় পুশিং পদ্ধতি প্রয়োগ করা হবে বলে তিনি আরো জানান।

বিআইডব্লিউটিসির ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) শেখর চন্দ্র রায় সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, আজ বুধবার সকালে স্রোতের সাথে পাল্লা দিয়ে ৩টি টানা ফেরী চালাতে গিয়ে গতকালও দুইটি টানা ফেরী শিমুলিয়ার ঘাটে ফেরত আসে। এর পর থেকে ফের এ রুটে ৬টি ফ্লাট ফেরী চলাচল পুরোপুরিভাবে বন্ধ রাখা হয়। এতে করে ঘাট এলাকায় পণ্যবাহী ট্রাকের দীর্ঘ লাইন লেগেই রয়েছে।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন