‘আর ২০টি নয় ,এখন থেকে ৫টির বেশি সিম রাখা যাবে না’


❏ বুধবার, জুলাই ২৭, ২০১৬ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বরঃ ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব ফয়জুর রহমান চৌধুরী বলেন, জেলা প্রশাসক সম্মেলনে এক সিদ্ধান্ত জানানো হয়েছে এক এনআইডিতে সর্বোচ্চ পাঁচটি সিম নিবন্ধন করা যাবে। প্রথম পর্যায়ে সর্বোচ্চ ২০টি সিম এক এনআইডির বিপরীতে নিবন্ধন করা যেত।

ইতোমধ্যে যারা ২০টি বা পাঁচটির বেশি সিম নিবন্ধন করেছেন তাদের বিষয়ে কী হবে জানতে চাইলে সচিব বলেন, ‘যারা পাঁচটির বেশি সিম নিবন্ধন করেছেন, তাদের অপারেটরদের মাধ্যমে এসএমএস দিয়ে জানিয়ে দেওয়া হবে। ৫টির বেশি সিম রাখা যাবে না। গ্রাহক তার পছন্দমতো সিম রেখে অন্য সিম বাদ দিবেন।’

কোন অপারেটরের কতটি সিম রাখা যাবে এ বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়েছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘একই অপারেটরের পাঁচটি সিম বা পাঁচ অপারেটরের পাঁচটি সিম গ্রাহক রাখতে পারবেন। এতে কোন বাধ্যবাধকতা নেই। এটি গ্রাহকের ইচ্ছা।’

simমঙ্গলবার সচিবালয়ের জেলা প্রশাসক সম্মেলনের প্রথম দিনে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের কার্য অধিবেশন শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে সিম নিবন্ধনে যে কোনো জালিয়াতির বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও হুঁশিয়ার করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, অপরাধমূলক কাজে সিম ব্যবহার বন্ধ করতে গতবছরের ১৬ ডিসেম্বর থেকে জাতীয় পরিচয়পত্রের সঙ্গে আঙুলের ছাপ মিলিয়ে (বায়োমেট্রিক পদ্ধতি) সিম নিবন্ধন চালু করে সরকার। এই পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধনের সময় শেষ হয় ৩১ মে রাত ১২টায়। পরে জুন মাসের প্রথম দিকে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি জানায়, ১১ কোটি ৬০ লাখের বেশি সিম নিবন্ধিত হয়েছে। আর বিটিআরসির প্রকাশিত সর্বশেষ প্রতিবেদন অনুযায়ী দেশে গত জুন পর্যন্ত সক্রিয় মোবাইল সিম ব্যবহার করছেন ১৩ কোটি ১৩ লাখ ৭৬ হাজার গ্রাহক।