সংবাদ শিরোনাম
মাধ্যমিকের সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রকাশ | কটিয়াদীতে নিখোঁজের পর মাটি খুঁড়ে মা-বাবা ও ছেলের লাশ উদ্ধার | ক্যান্সারে আক্রান্ত শিশু জিনিয়া বাঁচতে চায়, প্রয়োজন সহযোগিতার | সফলতার রঙিন স্বপ্ন: নওগাঁর মাটিতে থোকায় থোকায় ঝুঁলছে মিষ্টি-সুস্বাদু আঙ্গুর | আগের সব রেকর্ড ভেঙ্গে একদিনে সর্বোচ্চ করোনায় আক্রান্ত যুক্তরাষ্ট্রে! | মহানবীকে নিয়ে ব্যঙ্গ কার্টুন প্রদর্শনের প্রতিবাদে ফরিদপুরে বিক্ষোভ মিছিল | স্বাধীনতা পুরস্কারে ভূষিত হলেন নারী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ভারতেশ্বরী হোমস | ইসলাম অবমাননাকর কার্টুন প্রকাশের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে রাশিয়া | সেনেগালে নৌকাডুবে ১৪০ অভিবাসী প্রত্যাশীর মৃত্যু | ইসলামপন্থি সন্ত্রাসের কাছে হার মানবে না ফ্রান্স: ম্যাক্রোঁ |
  • আজ ১৪ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ভারতকে মওদুদের গ্রীন সিগন্যাল : ভারত-আ লীগ সব চুক্তি অব্যাহত রাখবে বিএনপি

৪:১৪ পূর্বাহ্ন | বৃহস্পতিবার, জুলাই ২৮, ২০১৬ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক –   বাংলাদেশের বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার ভারতের সঙ্গে যেসব চুক্তি করেছে তার সবগুলোই ভবিষ্যতে ক্ষমতায় গিয়ে অব্যাহত রাখবে বিএনপি।

ভারত সফরে গিয়ে দেশটির সংবাদমাধ্যম  দ্য ইকোনমিক টাইমসকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এ প্রতিশ্রুতির কথা জানিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ।

mou
মওদুদ আহমদ দিল্লিভিত্তিক প্রতিষ্ঠান পিস অ্যান্ড কনফ্লিক্ট স্টাডিজের ২০তম অধিবেশনে বক্তব্য রাখতে সেখানে যান। এ সময় তার সাক্ষাৎকার নেন দ্য ইকোনমিক টাইমসের সাংবাদিক দিপাঞ্জনা রায়

সাক্ষাতকারে আওয়ামী লীগকে দেয়া ভারতের একক সমর্থনের বিরোধিতা করে মওদুদ বলেন, ভারতের নীতি অদূরদর্শী। বাংলাদেশে তারা একটি পক্ষকে বেছে নিয়েছে। এটা উচিত নয়।

তিনি বলেন, বিএনপি নেত্রী, সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াও সন্ত্রাসী বিরোধিতার বিষয়ে নিশ্চিত করেছেন। তিনি প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, বাংলাদেশের মাটি কাউকে ভারতবিরোধিতায় ব্যবহার করতে দেয়া হবে না।

মওদুদ আহমদ বলেন, সর্বশেষ নয়াদিল্লি সফরের সময় আমার নেত্রী ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া ভারতকে নিশ্চয়তা দিয়েছেন যে, সব রকমের সন্ত্রাসের বিরোধী বিএনপি। যদি বিএনপি ক্ষমতায় যায় তাহলে বাংলাদেশের মাটি ব্যবহার করে ভারতবিরোধী কর্মকান্ড চালাতে দেবেন না তিনি। ভারতের সঙ্গে আওয়ামী লীগ সরকার যেসব চুক্তি করেছে তা অব্যাহত রাখবে বিএনপি। কারণ, এসব চুক্তির আন্তর্জাতিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

বিএনপির এ নেতা বলেন, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় প্রতিবেশী হলো ভারত। মানুষ তার জীবনে পাত্র বা পাত্রী পছন্দ করে নিতে পারে, কিন্তু প্রতিবেশী পাল্টানো যায় না।

সাংবাদিক দিপাঞ্জনা রায় জানতে চান, আপনার দেশে সম্প্রতি সন্ত্রাসের যে বৃদ্ধি ঘটেছে এ বিষয়ে আপনি কি মনে করেন? জবাবে মওদুদ আহমদ বলেন, পরিস্থিতি প্রকৃতপক্ষেই সঙ্কটময়। এটাকে বিএনপি যেভাবে দেখে তাহলো, দেশে গণতন্ত্রের সঙ্কটের কারণে সন্ত্রাস বৃদ্ধি পাচ্ছে। বাংলাদেশের রাজনীতিতে শূন্যতা রয়েছে। এ থেকেই সন্ত্রাসের জন্ম হচ্ছে। আমার দেশে  সবার অংশগ্রহণমুলক গণতন্ত্রের অভাব রয়েছে। জবাবদিহিমুলক শাসনের জন্য প্রয়োজন হয়ে পড়েছে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন। বিস্ময়কর ব্যাপার হলো, এখন পর্যন্ত বর্তমান সরকার সন্ত্রাস ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতে সফল হয় নি। ভীতিহর এই সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ঐক্যবদ্ধ হয়ে জোটে অংশ নিতে আগ্রহী বিএনপি।

তার কাছে প্রশ্ন রাখা হয়- বাংলাদেশে সন্ত্রাস ছড়িয়ে পড়ার জন্য কি পাকিস্তান দায়ী? জবাবে মওদুদ আহমদ বলেন, এখন পর্যন্ত বিএনপি যতটুকু জানতে পেরেছে, তাতে বাংলাদেশের ক্ষেত্রে পাকিস্তান অপ্রাসঙ্গিক। পাকিস্তান একটি ব্যর্থ রাষ্ট্র। বিএনপি একটি মধ্য উদারপন্থি গণতান্ত্রিক দল। ১৯৭০ এর দশকে বিএনপির মূল মেনিফেস্টোর প্রকৃত লেখক হিসেবে আমি চেষ্টা করেছি বিএনপির মূল আদর্শকে পুনঃপ্রতিষ্ঠা করতে। আমি মডারেট মানুষ। আমার দৃষ্টিভঙ্গি বিএনপির বেশির ভাগ সদস্যের সঙ্গে শেয়ার করি।

মওদুদ বলেন, জামায়াতের সঙ্গে ২০০১ সালের নির্বাচনের সময় নির্বাচনী জোট করা হয়েছিল। জামায়াতের আদর্শ থেকে আমাদের আদর্শ আলাদা। এটা একটি কৌশলগত জোট। আগামী নির্বাচনের সময় পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করবে যে, আমরা কোন জোটে প্রবেশ করবো কিনা।

এরপর তার কাছে জানতে চাওয়া হয়, বাংলাদেশে সন্ত্রাসী হামলার জন্য ইসলামিক স্টেটকে কি আপনি দায়ী করবেন?
জবাবে মওদুদ আহমদ বলেন, বাংলাদেশে সন্ত্রাসী হামলা ও ব্লগারদের হত্যার পিছনে ইসলামিক স্টেট দায়ী কিনা এ বিষয়ে ব্যক্তিগতভাবে আমি জানি না। এক্ষেত্রে আমার সন্দেহ জেএমবি, হুজি ও আনসারুল্লাহ বাংলা টিমকে। বাংলাদেশে ইসলামিক স্টেট দৃশ্যমান নয়। যেসব সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে যাচ্ছে তারা হতে পারে দেশের ভিতরে বেড়ে ওঠা। তাদের কারো কারো থাকতে পারে আন্তর্জাতিক যোগসূত্র।