• আজ বৃহস্পতিবার, ৫ কার্তিক, ১৪২৮ ৷ ২১ অক্টোবর, ২০২১ ৷

একে অপরের ভায়রা ভাই : ‘এই আত্মীয়তা নিয়ে অনেক কাহিনী হয়েছে’


❏ শুক্রবার, জুলাই ২৯, ২০১৬ খেলা, স্পট লাইট

স্পোর্টস আপডেট ডেস্ক – রিয়াদ-মুশফিক এই দুজনই বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সিনিয়র ক্রিকেটার। কিন্তু মাঠের বাইরে আত্মীয়, একে অপরের ভায়রা ভাই। দিন শেষে ক্রিকেটটাকেই বড় করে দেখেন দুজন। তারপরও কম কটু কথা শুনতে হয় না। মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ আর মুশফিকুর রহিমের আত্মীয়তাকে জড়িয়ে অনেক বাজে কথা শুনতে হয়েছে বলে মন্তব্য স্বয়ং মুশফিকেরই।

দলের টেস্ট অধিনায়ক বলে বাড়তি চাপ থাকেই। সঙ্গে রিয়াদ প্রসঙ্গ। একটি জাতীয় দৈনিকে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে জানালেন, তাদের আত্মীয়তাকে পুঁজি করেও অনেকে বিনা কারণে তার ক্ষতি করার চেষ্টা করেছে।

বললেন, ‘আমার আর রিয়াদ ভাইয়ের আত্মীয়তা নিয়ে অনেক কাহিনিই হয়েছে, যেসব একজন খেলোয়াড়ের জন্য খুবই অসম্মানজনক কথা! এটা আমার নিজের দল না,আমার বাবারও দল না যেখানে আমি আমার ভাইকে খেলাব, ছেলেকে খেলাব বা চাচাকে খেলাব। এটা বাংলাদেশ দল, আমি অধিনায়ক। আমি কীভাবে দেশের সঙ্গে প্রতারণা করতে পারি? তাহলে তো আমাকে দলেই নেওয়া উচিত না। এই জিনিসগুলো নিয়ে যখন কথা উঠল, তখন আমার মনে হয়েছে আসলে জীবনেও কারও সঙ্গে কথা বলা ঠিক না। এত দিন কষ্ট করার পর,সৎ থাকার পরও যদি কেউ আমাকে এতটুকু সম্মান দিতে না পারে তাহলে আমার দরকার নেই তার সঙ্গে কথা বলার।’

riyad-mushfiq

খেলোয়াড়রাও মনে করেন, মুশফিকের রাগ-ক্ষোভ-দুঃখ অন্যদের চেয়ে খানিকটা বেশিই। মুশফিক নিজে অবশ্য তা মানতে নারাজ। উল্টো অভিমান করে বসলেন।

এ নিয়ে বলেছেন, ‘মানুষ ভুল বুঝছে। বিশেষ করে আমার সঙ্গে যারা থাকে তারাও যদি এত দিনে আমাকে না চিনে থাকে,এর চেয়ে খারাপ কিছু আর হতে পারে না। যারা আমাকে জানে,এত বছর ধরে দেখছে, তারা যখন উল্টো কথাগুলো বলে তখন ভালো লাগে না। তখন আসলেই মনে হয় যে কারও সঙ্গে কথা বলব না।’

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলে অন্যতম ভরসার প্রতীক হলেন মুশফিক। দলের বিপর্যয়ে হাল ধরেন তিনি। ওয়ানডে ও টেস্ট ক্রিকেটে ধারাবাহিকভাবে পারফর্ম করছেন তিনি। টি২০তেও কিন্তু কম যান না মুশফিক। বাংলাদেশ জাতীয় দলের ড্যাশিং ওপেনার তামিম ইকবাল তো টি২০তেও দেশসেরা ব্যাটসম্যান মনে করেন তাকে। তবে মুশফিক বলছেন ভিন্ন কথা। নিজেকে কখনোই সেরা ভাবেন না বাংলাদেশের টেস্ট অধিনায়ক।

মুশফিক বলেন, ‘যদি সত্যি কথা বলি তাহলে সে (তামিম) খুবই অনুপ্রেরণামূলক কথা বলেছে। আমি কখনোই নিজেকে সেরা ব্যাটসম্যান ভাবি না। তবে এতটুকু বলতে পারি আমার সেরা হওয়ার সামর্থ্য আছে। এজন্যই হয়তো ওটা বলেছিল। তার সঙ্গে খেলতে পারাটাও আমার জন্য অনেক বড় ব্যাপার। সঙ্গে আরেকটি কথা যোগ করতে চাই, গত ২ বছর বাংলাদেশ খুবই ভালো ক্রিকেট খেলছে। মাঠের ভেতরেই হোক কিংবা মাঠের বাইরেই হোক একজন আরেকজনকে সাহায্য করছে, এটাই তার বড় প্রমাণ হিসেবে উল্লেখ করা যায়।’

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন