• আজ শুক্রবার, ১৪ মাঘ, ১৪২৮ ৷ ২৮ জানুয়ারি, ২০২২ ৷

বন্যায় ২৮৮ হেক্টর আমন ক্ষেত নষ্ট


❏ বুধবার, আগস্ট ১০, ২০১৬ দেশের খবর, রংপুর

মাজহারুল ইসলাম লিটন, ডিমলা প্রতিনিধি: ভয়াবহ বন্যার শিকার ডিমলা উপজেলার ২০ হাজার মানুষ দুর্বিষহ জীবণ যাপন করছে। তিস্তার কড়াল গ্রাসে ভিটে মাটি হারায় মাথা গোঁজার ঠাঁই টুকুও হারিয়েছে দুই হাজার পরিবার।

pat-khet

তিস্তা গিলেছে বসত ভিটা, আবাদী জমি, ক্ষেত খামার আর বীজতলা। গত দেড় মাস ধরে হাজারো মানুষ কোন রকমে দিন কাটাচ্ছেন তিস্তার বাঁধ, স্পার, গ্রোয়েন বাঁধ সহ আশপাশের উঁচু স্থানে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের জিরো পয়েন্টে প্রায় ১৮শ মিটার বাঁধের অভাবে বন্যার আকষ্মিকতার শিকার ডিমলা ও জলঢাকা উপজেলার আট ইউনিয়নের বাসিন্দ। টেপাখড়িবাড়ি ইউনিয়নের ঝিঞ্জিরপাড়া মজিবর রহমান (৬৫), বাবুপাড়ার মোসলেম উদ্দিন (৪০), চরখড়িবাড়ি গ্রামের সোলায়মান আলী (৬৫) ও উত্তর খড়িবাড়ি গ্রামের মমিনুর রহমান বলেন, বন্যার পানিতে আমাদের সব শেষ হয়ে গেছে। তিস্তা জমি জায়গা সব গিলে খেলো। জমি জমা, আমন ক্ষেত পানিতে নষ্ট হওয়ায় উপার্জনের পথ বন্ধ হয়ে গেলো।

উপজেলা কৃষি দফতর সুত্র জানায়, সাম্প্রতিক বন্যায় নীলফামারী জেলার ডিমলা উপজেলায় চলতি আমন মৌসুমে ২৮৮ হেক্টর জমির আমন ক্ষেত ৩৫ হেক্টর বীজতলা নষ্ট হয়েছে। বন্যা কবলিত তিন ইউনিয়নে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন ২ হাজার ১৫০ জন কৃষক।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ডিমলা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হুমাউন কবির সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, টেপাখড়িবাড়ি, ঝুনাগাছ চাপানী ও খালিশা চাপানী ইউনিয়ন বন্যায় বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তালিকা প্রণয়নের কাজ চলছে বলে জানান তিনি।