🕓 সংবাদ শিরোনাম

নিজেকে বিয়ে করা সেই মডেল এখন নিজেকে ডিভোর্স দিচ্ছেন!কুড়িগ্রামের সেই ডিসির ‘লঘুদণ্ড’ মওকুফবুয়েটের ছাত্র আবরার হত্যা মামলার রায় রোববারইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলেন একই পরিবারের ৫ জনটাঙ্গাইলের নাগরপুরে ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গুলিবর্ষণ: নিহত ১, আহত ২সোনারগাঁয়ে নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থীদের বিজয়ী করতে দিনরাত গণসংযোগআকাশে উড়ন্ত চাকি কি ভিনগ্রহীদের ? নাকি শত্রু যান তদন্তে পেন্টাগনকদবেল খাওয়ার প্রলােভন দেখিয়ে বাথরুমে নিয়ে শিশু ধর্ষণ, ধর্ষক গ্রেপ্তারআত্মস্বীকৃত ইয়াবা সম্রাট এনামের কোটি টাকার চালান যায় নরসিংদীতেস্কাউটের সর্ব্বেচ্চ পদক শাপলা কাব অ্যাওয়ার্ড পেলেন মির্জাপুরের ১৬ শিক্ষার্থী

  • আজ শনিবার, ১২ অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ ৷ ২৭ নভেম্বর, ২০২১ ৷

যাবতীয় ইচ্ছা পূরণের লোভ সামলাতে না পেরে দেবতাকে নিজের জিহ্বা কেটে পূজা দিল পূজারী


❏ রবিবার, আগস্ট ১৪, ২০১৬ আন্তর্জাতিক

আরতিআন্তর্জাতিক ডেস্কঃ- ভারতে ১৯ বছরের এক কলেজছাত্রী নিজের জিহ্বা কেটে দেবতা কালীকে পূজা দিয়েছেন।  যাবতীয় ইচ্ছা পূরণেরন লোভ সামলাতে না পেরে ঐ তরুণী দেবতা কালীকে নিজের জিহ্বা  কেটে পূজা দেন।
আরতি দেবী নামের ওই তরুণীর দাবি, তার সমস্ত ইচ্ছাপূরণের জন্য মা কালী তাকে জিহ্বা উৎসর্গের স্বপ্ন দেখিয়েছেন। স্বপ্নের পরের দিন তিনি মন্দিরে গিয়ে সেটি উৎসর্গ করেছেন।
আরতি দেবী মধ্যপ্রদেশের টিআরএস কলেজের ছাত্রী। রাজ্যের রেভা শহরের কালী মন্দিরে গিয়ে তিনি এই ঘটনা ঘটান।

আরতি জানিয়েছেন, জিহ্বার বিনিময়ে তার সমস্ত ইচ্ছা পূরণ হবে, স্বপ্নে বলেছিলেন দেবী।

এরপর তিনি আর স্থির থাকতে পারেননি। সোজা মন্দিরে যান। মন্দিরে তখন সবাই পুজোয় ব্যস্ত ছিলেন। একটা ব্লেড বের করে সকলের সামনে নিজের জিভ কেটে ফেলেন আরতি।আরতি 2

আশ্চর্যের বিষয় তাকে এ রকম করতে দেখেও কেউ বাধা দেননি। এমনকি রক্তাক্ত অবস্থায় মন্দিরে অজ্ঞান হয়ে পড়ে যাওয়ার পর তাকে হাসপাতালে না নিয়ে একটি কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখা হয়।

প্রায় পাঁচ ঘণ্টা অচৈতন্য অবস্থায় মন্দিরে পড়ে ছিলেন আরতি। এরপর জ্ঞান ফিরলে মন্দির চক্কর দেয়াসহ পুজোর বাকি রীতি-নীতি সারেন। অবাক করার বিষয়, সে সময়েও তাকে স্বাভাবিক এবং হাসি মুখে দেখা গেছে।

তবে আরতির এমন সিদ্ধান্তের বিয়ে তার ভাই শচীন বলেন, ‘ স্বপ্নের কথা উল্লেখ করে আরতি আমাকে জানায়- সে তার জিহ্বা মা কালীকে উৎসর্গ করতে যাচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘কিন্তু, তার এই কথা আমার বিশ্বাসযোগ্য মনে হয়নি। আমি ভেবেছি, সে আমার সঙ্গে মজা করছে।’

শচীন আরও জানান, অশিক্ষিতদের এই ধরনের মূর্খামি ও কুসংস্কারাচ্ছন্ন গল্প আমি মানুষের মুখে মুখে শুনেছি। কিন্তু, আমি কখনই চিন্তা করিনি আমার কলেজপড়ুয়া বোনটিই এমন কুসংস্কারাচ্ছন্নে বিশ্বাস করে এই কাণ্ড করতে যাচ্ছে।’

মন্দিরের পুরোহিত দেবী প্রসাদ শর্মা জানান, ‘যখন মেয়েটি দেবতার জন্য তার জিহ্বা কাটেন, আমি সেখানে উপিস্থত। দেবতা সর্বশক্তিমান এবং তিনিই সর্বদা তার পূজারিদের রক্ষা করবেন।’

তবে এ খবর দ্রুত স্থানীয়দের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে একদল চিকিৎসক নিয়ে পুলিশ মন্দিরে ছুটে যান। চিকিৎসকরা আরতিকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে বাড়িতে পাঠিয়ে দেন।