🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ মঙ্গলবার, ১৫ অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ ৷ ৩০ নভেম্বর, ২০২১ ৷

কুকুর লেলিয়ে হিমু হত্যায় ৫ জনের ফাঁসির রায়


❏ রবিবার, আগস্ট ১৪, ২০১৬ Breaking News, ফিচার

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম- চার বছর আগে চট্টগ্রামে কুকুর লেলিয়ে ছাদ থেকে ফেলে দিয়ে কলেজছাত্র হিমাদ্রী মজুমদার হিমুকে হত্যার দায়ে পাঁচ আসামির সবাইকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত। রোববার চট্টগ্রামের চতুর্থ অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ নুরুল ইসলাম চাঞ্চল্যকর এ মামলার রায় ঘোষণা করেন।himuদু-দফা পেছানোর পর রোববার রায় ঘোষণার তারিখ নির্ধারণ করেন আদালত। গত বুধবার চট্টগ্রামের চতুর্থ অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ নূরুল ইসলাম এ তারিখ নির্ধারণ করেন।

এর আগে গত ২৮ জুলাই রায় ঘোষণার কথা থাকলেও বিচারক ছুটিতে থাকায় তা পিছিয়ে ১১ আগস্ট রায় ঘোষণার তারিখ নির্ধারণ করেন আদালত। এরপর ১০ আগস্ট জানা যায়- পরদিন ‘ফুল কোর্ট রেফারেন্স’ থাকবে। এ কারণে ওইদিনও রায় ঘোষণা হয়নি।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন চট্টগ্রামের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শাহ সেলিম টিপু, তার ছেলে জুনায়েদ আহমেদ রিয়াদ এবং রিয়াদের তিন বন্ধু শাহাদাৎ হোসাইন সাজু, মাহাবুব আলী খান ড্যানি ও জাহিদুল ইসলাম শাওন।

সর্বোচ্চ সাজার আদেশ পাওয়া আসামিদের মধ্যে জাহিদুর রহমান শাওন জামিন নিয়ে এবং জুনায়েদ আহমেদ রিয়াদ মামলার শুরু থেকেই পলাতক।

কারাগারে থাকা রিয়াদের বাবা ব্যবসায়ী শাহ সেলিম টিপু, শাহাদাত হোসেন সাজু ও মাহবুব আলী ড্যানি রায়ের সময় কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন বলে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অনুপম চক্রবর্তী জানান।

প্রসঙ্গত, হিমু পাঁচলাইশ আবাসিক এলাকার ১ নম্বর সড়কের ইংরেজি মাধ্যমের সামারফিল্ড স্কুল অ্যান্ড কলেজের ‘এ’ লেভেলের শিক্ষার্থী ছিল। এলাকায় মাদক ব্যবসার প্রতিবাদ করায় ২০১২ সালের ২৭ এপ্রিল নগরীর পাঁচলাইশ এলাকায় টিপুর বাড়ির ছাদ থেকে হিংস্র কুকুর লেলিয়ে ও ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়া হয় শিক্ষার্থী হিমুকে। আহত অবস্থায় ২৬ দিন চিকিৎসা নেয়ার পর ২৩ মে তার মৃত্যু হয়।

হিমু খুনের ঘটনায় তার মামা শ্রীপ্রকাশ দাশ বাদি হয়ে পাঁচলাইশ থানায় পাঁচজনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা করেন। ২০১২ সালের ৩০ অক্টোবর পুলিশ পাঁচজনকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দেয়।

অভিযোগপত্র দেয়ার প্রায় দেড় বছর পর অভিযোগ গঠনের শুনানি চারবার পিছিয়ে ২০১৪ সালের বছরের ৩ ফেব্রুয়ারি পাঁচ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়। ২০১৪ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি এ মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়।