🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ মঙ্গলবার, ১৫ অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ ৷ ৩০ নভেম্বর, ২০২১ ৷

জিয়াই বঙ্গবন্ধুর খুনি: মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী


❏ রবিবার, আগস্ট ১৪, ২০১৬ Breaking News, জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের খুনের প্রত্যক্ষ নেতৃত্বদানকারী বলে অভিযুক্ত করে মেজর জিয়াউর রহমানের মরণোত্তর বিচার দাবি করেছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।12471রবিবার বিকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ‘বঙ্গবন্ধু মুক্তিযুদ্ধ বাংলাদেশ’ শীর্ষক ওই আলোচনা সভার আয়োজন করে সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম-মুক্তিযুদ্ধ ’৭১।

জিয়াই বঙ্গবন্ধুর খুনি বলে অভিযোগ করে মোজাম্মেল হক বলেন, ‘মেজর জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বে সেদিন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করা হয়েছিলো। এছাড়া মুক্তিযুদ্ধের সময় জিয়াউর রহমানের ভূমিকা কি ছিলো, সেদিন তিনি কি কি করেছিলেন? আজ সময় এসেছে জাতির সামনে সেই অপকর্মগুলো তুলে ধরার। এবং মাস্টারমাইন্ড যারা আছেন তাদেরও বিচার করার। কিন্তু দুঃখের বিষয় হলো, আজও আমরা পারিনি সেই ঘাতকদের বিচার করতে’।

তিনি আরো বলেন, ‘যেদিন বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়েছিলো সেদিন রাতে পাকিস্তান ও আমেরিকার দূতাবাস খোলা ছিলো। তাই এ হত্যাকাণ্ড যে পূর্বপরিকল্পিত সেটা আজ প্রমাণিত। এছাড়া বিভিন্ন দেশে আজ বঙ্গবন্ধুর খুনিরা আত্মগোপন করে আছেন। তাদেরকে সেই সব দেশে থেকে ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া চলছে’।

‘এই সরকার ক্ষমতায় আসার পর সকল যুদ্ধাপরাধীর বিচার কার্যক্রম শুরু করেছে। ইতোমধ্যে কয়েকজন যুদ্ধাপরাধীর বিচার শেষ এবং তাদের দণ্ড কার্যকরও হয়েছে’।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন, খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম, সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের চেয়ারম্যান কে এম সফিউল্লাহ।

উপস্থিত ছিলেন, সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের ভাইস চেয়ারম্যান ৮ নম্বর সেক্টরের সেক্টর কমান্ডার আবু ওসমান চৌধুরী, বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার প্রধান তদন্ত কর্মকর্তা আবদুল হান্নান খান, বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার সাক্ষী ও ফোরামের যুগ্ম মহাসচিব মেজর (অব.) জিয়া উদ্দিন আহমেদ, সাবেক রাষ্ট্রদূত ওয়ালি উর রহমান, ফোরামের সহসভাপতি ও তৎকালীন টুঙ্গিপাড়ার পুলিশ কর্মকর্তা এডিআইজি নুরুল আলম, ফোরামের যুগ্ম মহাসচিব আবুল কালাম আজাদ পাটোয়ারী প্রমুখ।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের মহাসচিব হারুন হাবীব।