🕓 সংবাদ শিরোনাম

বুয়েটের ছাত্র আবরার হত্যা মামলার রায় রোববারইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলেন একই পরিবারের ৫ জনটাঙ্গাইলের নাগরপুরে ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গুলিবর্ষণ: নিহত ১, আহত ২সোনারগাঁয়ে নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থীদের বিজয়ী করতে দিনরাত গণসংযোগআকাশে উড়ন্ত চাকি কি ভিনগ্রহীদের ? নাকি শত্রু যান তদন্তে পেন্টাগনকদবেল খাওয়ার প্রলােভন দেখিয়ে বাথরুমে নিয়ে শিশু ধর্ষণ, ধর্ষক গ্রেপ্তারআত্মস্বীকৃত ইয়াবা সম্রাট এনামের কোটি টাকার চালান যায় নরসিংদীতেস্কাউটের সর্ব্বেচ্চ পদক শাপলা কাব অ্যাওয়ার্ড পেলেন মির্জাপুরের ১৬ শিক্ষার্থীমতলবের নির্বাচনে অতিরিক্ত ১০ প্লাটুন র‍্যাব ও বিজিবি, থাকবে কোস্টগার্ডওকক্সবাজারে কিশোর গ্যাং লিডার তারেকসহ ৮ সদস্য আটক

  • আজ শনিবার, ১২ অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ ৷ ২৭ নভেম্বর, ২০২১ ৷

যে কারনে ১৪ আগস্ট পাকিস্তানে আর ১৫ আগস্ট ভারতে স্বাধীনতা দিবস পালিত হয়


❏ সোমবার, আগস্ট ১৫, ২০১৬ Uncategorized

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক –   নিজেদের ৭০তম স্বাধীনতা দিবস পালন করছে ভারত ও পাকিস্তান। একদিন আগে ও পরে দুই দেশে দিনটি উদযাপিত হয়। পাকিস্তানে ১৪ আগস্ট, আর ভারতে ১৫ আগস্ট স্বাধীনতা দিবস পালিত হয়। অথচ ভারত স্বাধীনতা আইন অনুযায়ী একটিই দিন থাকার কথা ছিল।

কেন ১৫ আগস্টই হলো সেই বিশেষ দিন? দিনটি নির্বাচনে আছে নানা কাহিনী। আর কাহিনীর অন্যতম নায়ক ব্রিটিশ ভারতের সর্বশেষ বড় লাট লর্ড মাউন্টব্যাটেন।

keno

কেন ওই দিনই প্রাধান্য পেল তা অনুসন্ধান করার চেষ্টা করেছে ভারতের সংবাদমাধ্যম দি ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস। আর তাতেই দেখা যায় ১৫ আগস্ট দিনটি শেষ বড় লাটের বেশ পছন্দের দিন ছিল!

১৯২৯ সালের দিকে কংগ্রেসের সভাপতি থাকার সময় ‘পূর্ণ স্বরাজে’র ডাক দেন জওহরলাল নেহরু। তখন ২৬ জানুয়ারিকে স্বাধীনতা দিবস হিসেবে পছন্দ করা হয়। ১৯৩০ থেকে ১৯৪৬ পর্যন্ত কংগ্রেস দিনটিকে স্বাধীনতা দিবস হিসেবে পালন করে। তবে তা ভারতে বর্তমানে প্রজাতন্ত্র দিবস হিসেবে পালিত হয়। ১৯৫০ সালের ওই দিনে স্বাধীন ভারতের প্রথম সংবিধান কার্যকর হয়।

তাহলে ১৫ আগস্ট কীভাবে এলো? ক্ষমতা হস্তান্তরের জন্য ব্রিটিশ পার্লামেন্ট  লর্ড মাউন্টব্যাটেনকে ১৯৪৮ সালের জুন মাস পর্যন্ত সময় বেঁধে দেয়। এ নিয়ে ভারতীয় রাজনীতিবিদ সি রাজাগোপালাচারি লেখেন, যদি ১৯৪৮ সালের জুন পর্যন্ত অপেক্ষা করা হয়, তবে হস্তান্তরের জন্য কোনো ক্ষমতাই থাকবে না। আর মাউন্টব্যাটেন সময়কে এগিয়ে নিয়ে আসেন ১৯৪৭ সালের আগস্টের দিকে।

সময়টা এগিয়ে আনার ক্ষেত্রে মাউন্টব্যাটেনের যুক্তি ছিল তিনি দাঙ্গা বা রক্তপাত হ দেবেন না। ব্রিটিশ পার্লামেন্টে ভারতীয় স্বাধীনতা আইন ১৯৪৭ পাস হয়। ওই আইনে ১৫ আগস্টকেই ধরা হয় ব্রিটিশ ভারতের শেষ দিন।

পরে একসময় মাউন্টব্যাটেন বলেন, ‘আমিই পুরো প্রক্রিয়ার অন্যতম এক ব্যক্তিত্ব। এটা দেখাতে চেয়েছিলাম আমি। যখন তাঁরা বললেন, আমরা  দিনটি ঠিক করেছি কি না, আমি জানতাম দ্রুত কিছু করতে হবে। নির্দিষ্ট দিন মাথায় ছিল না। তবে ভাবনায় ছিল আগস্ট বা সেপ্টেম্বরের কোনো একটা দিন। পরে ঠিক করলাম, ১৫ আগস্ট। কেন? এদিন জাপানের আত্মসমর্পণের দ্বিতীয় বার্ষিকী পালিত হবে।’

১৯৪৫ সালে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষ হয়। জার্মানির নেতৃত্বাধীন অক্ষশক্তির জাপান আত্মসমর্পণ করে। ওই বছর জাপানের সম্রাট হিরোহিতো রেডিওতে দেওয়া এক বক্তৃতার মাধ্যমে মিত্রবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণের কথা জানান। মাউন্টব্যাটেন তৎকালীন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী উইনস্টন চার্চিলের সঙ্গে বসে শুনেছিলেন ওই ঘোষণা। দিনটির কথা বেশ মনে আছে মাউন্টব্যাটেনের। সেদিন ছিল ১৫ আগস্ট! মাউন্টব্যাটেন ছিলেন তখন দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চলের প্রধান সেনাপতি।

তাহলে ১৪ আগস্ট এলো কীভাবে? আসলে আইন অনুযায়ী ভারতে ব্রিটিশ রাজ শেষ হয় একদিনেই, তা ১৫ আগস্ট। পাকিস্তানে প্রথম স্মারক ডাকটিকেটে কিন্তু বলা আছে ১৫ আগস্ট পাকিস্তানের স্বাধীনতা দিবস। স্বাধীন পাকিস্তানে জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে দেশটির প্রথম গভর্নর জেনারেল মুহাম্মদ আলী জিন্নাহ বলেন, ‘১৫ আগস্ট স্বাধীন এবং সার্বভৌম পাকিস্তানের স্বাধীনতা দিবস।’

১৯৪৮ সাল থেকে পাকিস্তান ১৪ আগস্টকে স্বাধীনতা দিবস হিসেবে পালন করতে থাকে। ১৯৪৭ সালের ১৪ আগস্ট রাতটি ছিল রমজান মাসের ২৭ তারিখ। সালটি ছিল ১৩৬৬ হিজরি। ২৭ রমজানের রাতটিকে মুসলমানরা পবিত্র রজনী হিসেবে বিবেচনা করেন।