🕓 সংবাদ শিরোনাম

কর্মস্থলে ফিরতে গাদাগাদি করে রাজধানীমুখী লাখো মানুষশেরপুরে পৃথক ঘটনায় একদিনে ৭ জনের মৃত্যুএক বিয়ে করে দ্বিতীয় বিয়ের জন্যে বড়যাত্রীসহ খুলনা গেল যুবক!আমার মৃত্যুর জন্য রনি দায়ী! চিরকুট লিখে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যাইসরাইলীয় আগ্রাসনের  বিরুদ্ধে ইসলামী বিশ্বের নিন্দার নেতৃত্বে সৌদি আরবত্রিশালে সড়ক দূর্ঘটনায় ৩ জনের মৃত্যুতে নিহতের বাড়ীতে চলছে শোকের মাতমকলাপাড়ায় এক সন্তানের জননীর মরদেহ উদ্ধারটাঙ্গাইলে কৃষক শুকুর মাহমুদ হত্যা মামলায় গ্রেফতার-১ফরিদপুরে নানা আয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিতজামালপুরে ঘর মেরামতের সময় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে তিন জনের মৃত্যু

  • আজ সোমবার, ৩ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ ৷ ১৭ মে, ২০২১ ৷

যুক্তরাষ্ট্রে দুই বাংলাদেশি হত্যা: চাইলে তদন্তে সহযোগিতা করবে বাংলাদেশ


❏ মঙ্গলবার, আগস্ট ১৬, ২০১৬ আলোচিত বাংলাদেশ

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- যুক্তরাষ্ট্রে দুই বাংলাদেশি খুনের ঘটনার তদন্তে সহযোগিতা করতে আগ্রহী বাংলাদেশ পুলিশ। যুক্তরাষ্ট্র চাইলে এই সহযোগিতা দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ পুলিশ সদর দফতরের ডিআইজি (অপরাধ) হুমায়ুন কবির।newyork-imam-murdeerহুমায়ুন কবির বলেন, ‘যেহেতু ঘটনাটি যুক্তরাষ্ট্রে, তাই ওই দেশের পুলিশই ঘটনা তদন্ত করবে। তবে তারা কোনও সহযোগিতা চাইলে আমরা করব।’ বাংলাদেশের কেউ এর সঙ্গে জড়িত আছে কিনা, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এ ধরনের তথ্য পাওয়া গেলে পুলিশ আইনি ব্যবস্থা নেবে।’ বিষয়টি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় দেখাশোনা করছে বলেও জানান তিনি।

উল্লেখ্য, শনিবার নিউ ইয়র্কে দুর্বত্তের গুলিতে নিহত হয় দুই বাংলাদেশি। এদের একজন মাওলানা আলাউদ্দিন আখঞ্জি (৫৫)। তিন সন্তানের জনক মাওলানা আকুঞ্জি প্রায় দুই বছর আগে বাংলাদেশ থেকে নিউ ইয়র্কে যান এবং সেখানে তিনি ওজোন পার্ক এলাকার আল-ফোরকান জামে মসজিদের ইমাম হিসেবে দায়িত্ব পালন শুরু করেন। তার বাড়ি হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলায়। আরেকজন তার সহকারী ছিলেন তারা উদ্দিন (৬৪)। তার বাড়ি সিলেটের গোলাপগঞ্জের জাঙ্গালহাটা গ্রামে।

নিউ ইয়র্ক ডেইলি নিউজ প্রত্যক্ষদর্শী এবং পুলিশের বরাত দিয়ে জানিয়েছে, এক বন্দুকধারী ইমাম আকুঞ্জি ও তার সহকারী তারা উদ্দিনকে খুব কাছ থেকে মাথায় গুলি করে পালিয়ে যায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হামলাকারী হিসপানিক এবং বেশ লম্বা। গাঢ় নীল শার্ট ও খাটো প্যান্ট পরিহিত ওই ব্যক্তির হাতে বড় একটি হ্যান্ডগান ছিল। গুলি করার পর সে দ্রুত পালিয়ে যায়।

মসজিদ ও আশপাশের লোকজন লোকজন ঘটনাস্থলে ছুটে আসে। তারা এ ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ এবং হত্যাকান্ডের বিচার দাবি করেন। তাদের দাবি, ধর্মীয় বিশ্বাসের কারণে তাদের ওপর এ হামলা হয়েছে।

পুলিশের ডেপুটি ইন্সপেক্টর হেনরি লটনার সাংবাদিকদের জানান, প্রাথমিক তদন্তে তারা জানতে পেরেছেন, ইমাম ও তার সহকারী ৭৯ নম্বর সড়ক দিয়ে লিবার্টি অ্যাভিনিউতে ঢোকার মুখে হামলাকারী তাদেরকে পেছন থেকে গুলি করে।

তিনি আরো বলেন, সিসিটিভি ফুটেজ পরীক্ষা করে তারা দেখতে পেয়েছেন, বন্দুকধারী পুরুষ লোকটির গায়ে গাঢ় রংয়ের শার্ট ছিল। পুলিশ হামলাকারীকে ধরতে ব্যাপক তল্লাশি এবং প্রত্যক্ষদর্শীদের জিজ্ঞাসাবাদ করছে।

এদিকে সোমবার নিউ ইয়র্ক পুলিশ জানিয়েছে, দুই বাংলাদেশি হত্যার ঘটনায় আটক সন্দেহভাজন ব্যক্তির বিরুদ্ধে জোড়াখুনের অভিযোগ গঠন করা হয়েছে। আটক ওই ব্যক্তির নাম অস্কার মোরেল (৩৫)। তিনি ব্রুকলিনের বাসিন্দা। রবিবার রাতে মোরেলকে তার বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়।