🕓 সংবাদ শিরোনাম

বুয়েটের ছাত্র আবরার হত্যা মামলার রায় রোববারইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলেন একই পরিবারের ৫ জনটাঙ্গাইলের নাগরপুরে ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গুলিবর্ষণ: নিহত ১, আহত ২সোনারগাঁয়ে নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থীদের বিজয়ী করতে দিনরাত গণসংযোগআকাশে উড়ন্ত চাকি কি ভিনগ্রহীদের ? নাকি শত্রু যান তদন্তে পেন্টাগনকদবেল খাওয়ার প্রলােভন দেখিয়ে বাথরুমে নিয়ে শিশু ধর্ষণ, ধর্ষক গ্রেপ্তারআত্মস্বীকৃত ইয়াবা সম্রাট এনামের কোটি টাকার চালান যায় নরসিংদীতেস্কাউটের সর্ব্বেচ্চ পদক শাপলা কাব অ্যাওয়ার্ড পেলেন মির্জাপুরের ১৬ শিক্ষার্থীমতলবের নির্বাচনে অতিরিক্ত ১০ প্লাটুন র‍্যাব ও বিজিবি, থাকবে কোস্টগার্ডওকক্সবাজারে কিশোর গ্যাং লিডার তারেকসহ ৮ সদস্য আটক

  • আজ শনিবার, ১২ অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ ৷ ২৭ নভেম্বর, ২০২১ ৷

‘আমরা আর মরা গরু টানব না চামড়া ছাড়াব না’


❏ মঙ্গলবার, আগস্ট ১৬, ২০১৬ আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- ভারতের স্বাধীনতা দিবসে উনায় একটি সরকারি স্কুলে জাতীয় পতাকা ধরে আছেন দলিত নারী রাধিকা ভেমুল্লা। জানুয়ারিতে তার ছেলে হায়দ্রাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র রোহিত ভেমুল্লা আত্মহত্যা করেন। গত মাসে চারজন দলিত তরুণকে গরু হত্যার মিথ্যা অভিযোগে ব্যাপক মারধর করে উগ্র হিন্দুরা। দেশজুড়ে বিক্ষোভের জন্ম দিয়েছিল সেই ঘটনা। স্বাধীনতা দিবসেও হাজার হাজার দলিত এক বিক্ষোভে অংশ নিয়ে নির্যাতনের প্রতিবাদ জানান।india_রাজধানী নয়াদিল্লিতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি স্বাধীনতা দিবসের ভাষণে সামাজিক ঐক্য সংহতির কথা বলেন। নিচু শ্রেণীর জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে সরকারের প্রতিশ্র“তির পুনর্ব্যক্ত করেন তিনি। একইদিনে উনায় হিন্দু সমাজের নিচু জাত বলে পরিচিত দলিতরা বিক্ষোভ থেকে সরকারের প্রতিশ্রুতি প্রত্যাখ্যান করেন।

মোদির রাজ্য গুজরাটের সমাবেশে দলিতরা স্লোগান দিয়ে বলেন, সরকারের এমন গালভরা কথা শুনে শুনে আমরা ক্লান্ত। এ সময় তারা হুশিয়ারি উচ্চারণ করেন, ‘আমরা আর কখনো মরা গরু টানব না। গরুর চামড়াও ছাড়াব না।’ সমাবেশে জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রনেতা কানহাইয়া কুমারও উপস্থিত ছিলেন। ফেব্রুয়ারিতে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগে আটক হন কানহাইয়া।

ভারতে মরা গরু টানা ও চামড়া ছাড়ানোর দুরুহ কাজটি করেন দলিতরা। এজন্য তাদের খুব সামান্য পারিশ্রমিক দেয়া হয়। দেশটির ২০ কোটি দলিত জনগোষ্ঠীর মধ্যে গুজরাটে বাস করে ২.৩ শতাংশ। কেবল গত বছরই দলিত নির্যাতনের এক হাজারেরও বেশি মামলা হয়েছে। ১৯৯০-২০১৫ সাল সময়ে গুজরাটে ৫৩৬ দলিত হত্যা এবং ৭৫০ দলিত নারী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন।

কিছুদিন আগে গুজরাটের রাজধানী আহমেদাবাদ থেকে ৩০০ কিলোমিটার দূরে উনা জেলায় গোহত্যার অভিযোগে চার দলিত যুবককে হেনস্থা করার অভিযোগ ওঠে স্থানীয় গোরক্ষা কমিটির সদস্যদের বিরুদ্ধে। ওই চার দলিতকে মারধরের পাশাপাশি তাদের নগ্ন করে গাড়ির পেছনে বেঁধে কয়েক কিলোমিটার নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর ওই ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইটে পোস্ট করা হলে ক্ষোভে ফেটে পড়ে দলিত সম্প্রদায়ের মানুষরা। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের তরফে ওই ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানানো হয়। এমনকি ভারতে পার্লামেন্টও এই বিষয় নিয়ে উত্তাল হয়।