🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ মঙ্গলবার, ১৫ অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ ৷ ৩০ নভেম্বর, ২০২১ ৷

গুলশান হামলার ১৬ ঘণ্টা আগেই জঙ্গি নিবরাসকে বিশেষ বার্তা পাঠিয়েছিলেন হাসনাত


❏ বুধবার, আগস্ট ১৭, ২০১৬ আলোচিত বাংলাদেশ

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক –   হলি আর্টিজানে হামলার ১৬ ঘণ্টা আগেই জঙ্গি নিবরাস ইসলামকে বিশেষ বার্তা পাঠিয়েছিলেন বর্তমানে পুলিশ রিমান্ডে থাকা হাসনাত করিম। বিশেষ অ্যাপস ব্যবহার করে তিনি তাকে পরদিন রাত ৮টায় গুলশানের হলি আর্টিজানে তার সহযোগীদের নিয়ে আসতে নির্দেশনা দেন। একই সময় নিবরাস ইসলামের সঙ্গে তার প্রায় ১০ মিনিট মেসেজ আদান-প্রদান হয়। যেখানে হামলা পরিচালনার আর এক মাস্টারমাইন্ড মারজান প্রসঙ্গও চলে আসে। তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন সেট থেকেও হত্যাকাণ্ডের পর নিহতদের ছবি ও ভিডিও পাঠানোর প্রমাণও মিলেছে।

hasnat

তদন্ত সংশ্লিষ্ট নির্ভরযোগ্য সূত্রে গুরুত্বপূর্ণ এসব তথ্য জানা গেছে। সূত্রটি  জানিয়েছে, হামলা সংশ্লিষ্টতার বিষয়ে হাসনাত করিমের বিরুদ্ধে প্রাথমিকভাবে এসব তথ্য পাওয়ার পর তাকে এ মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়।

জানা যায়, ৩০ জুন ভোর ৪টা ১০ মিনিট থেকে ৪টা ২০ মিনিট পর্যন্ত হাসনাত করিম জঙ্গি নিবরাস ইসলামের সঙ্গে মেসেজের মাধ্যমে বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য আদান-প্রদান করেন। এজন্য হাসনাত করিম তার ল্যাপটপ থেকে উইকার অ্যাপস ব্যবহার করেন। কঠোর গোপনীয়তা রক্ষার অংশ হিসেবে আনকমন ইউকার অ্যাপস ব্যবহার করা হয়। সূত্রটি জানায়, তথ্য আদান-প্রদানের মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ মেসেজে হাসনাত করিম নিবরাস ইসলামকে জানান, ‘আগামীকাল রাত ৮টায় তোমরা হলি আর্টিজানে চলে এস। আমি রেস্টুুরেন্টের সামনে গ্রাউন্ডে ছাতার নিচে একটি টেবিলে থাকব।’ ইংরেজিতে লেখা তথ্য আদান-প্রদানের একস্থানে জঙ্গি নেতা মারজানের প্রসঙ্গও আসে। এ মারজানের বিস্তারিত ঠিকানা সোমবার জানা গেলেও এর আগে তার পরিচয়ের বিষয়টি এক রকম অন্ধকারে ছিল। পুরো নাম নুরুল ইসলাম মারজান। গ্রামের বাড়ি পাবনার সদর থানায়। গতকাল রাতে তর বাবা নিজাম উদ্দিনকেও আটক করা হয়।

এদিকে গুলশান হামলায় সম্পৃক্ততার বিষয়ে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক হাসনাত করিমের বিরুদ্ধে এ রকম গুরুত্বপূর্ণ ক্লু বেরিয়ে আসায় তদন্ত সংশ্লিষ্টরা হতবাক হলেও তদন্তের অগ্রগতির বিষয়ে অনেকটা আশাবাদী। বিশেষ করে এর শেকড়ের সন্ধান তারা দ্রুত বের করতে পারবেন বলে মনে করছেন। প্রসঙ্গত গুলশান হামলায় সশস্ত্র বাহিনীর অপারেশন থান্ডারবোল্ডে নিহত পাঁচ জঙ্গির মধ্যে নিবরাস ইসলাম অন্যতমদের একজন। সেও নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট একজন কর্মকর্তা বলেন. হাসনাত ও তার পরিবারের পক্ষ থেকে বারবার বলা হচ্ছিল, মেয়ের জন্মদিন পালন করার জন্যই সে রাতে তারা হলি আর্টিজানে হাজির হয়েছিলেন। এ বিষয়টি নিয়ে নানা প্রশ্ন থাকলেও এখন পর্যন্ত একটা বিষয় নিশ্চিত হওয়া গেছে যে, হাসনাত করিম হলি আর্টিজানে হামলার পুরো বিষয়টি নিজে উপস্থিত থেকে তদারকি করেন। সময় সময়ে প্রয়োজনীয় দিক-নির্দেশনাও দেন। একপর্যায়ে অপারেশন থান্ডারবোল্ড শুরু হওয়ার আগ মুহূর্তে তিনি সপরিবারে নিরাপদে বেরিয়ে আসেন। তার মনে করছেন, মেয়ের জন্মদিনের তারিখের বিষয়টি যদি সত্যও হয়, সেক্ষেত্রে তিনি জন্মদিনের অজুহাত দেখাতে কৌশলে এই দিনটিই বেছে নিয়েছিলেন।

সূত্রটি জানায়, অধিকতর তদন্তের অংশ হিসেবে তারা দ্বিতীয় দফায় হাসনাত করিমকে শনিবার ৮ দিনের রিমান্ডে এনেছেন। আশা করছেন, এই রিমান্ড সময়ের মধ্যে তার কাছ থেকে আরও অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য উদ্ধার করতে সক্ষম হবেন।